জেফ ব্রিজেস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
জেফ ব্রিজেস
Jeff Bridges by Gage Skidmore 3.jpg
২০১৭ সালে সান দিয়েগো কমিক কনে ব্রিজেস
স্থানীয় নাম Jeff Bridges
জন্ম জেফ্রি লিওন ব্রিজেস
(১৯৪৯-১২-০৪) ৪ ডিসেম্বর ১৯৪৯ (বয়স ৬৮)
লস অ্যাঞ্জেলেস, ক্যালিফোর্নিয়া, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
পেশা অভিনেতা, গায়ক, প্রযোজক, সুরকার
কার্যকাল ১৯৫৬– বর্তমান
সন্তান
পিতা-মাতা লয়েড ব্রিজেস (পিতা)
ডরথি ব্রিজেস (মাতা)
আত্মীয় বিউ ব্রিজেস (ভাই)
জর্ডান ব্রিজেস (ভাইপো)

জেফ্রি লিওন "জেফ" ব্রিজেস (ইংরেজি: Jeffrey Leon Bridges; জন্ম ৪ ডিসেম্বর ১৯৪৯) হলেন একজন মার্কিন অভিনেতা, গায়ক, এবং প্রযোজক। তিনি একটি প্রখ্যাত অভিনয় পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন এবং প্রথম অভিনয় করেন সি হন্ট (১৯৫৮–৬০) টেলিভিশন ধারাবাহিকে। এই ধারাবাহিক তাঁর বাবা লয়েড ব্রিজেস ও ভাই বিউ ব্রিজেসও অভিনয় করেন। তিনি ২০০৯ সালে ক্রেজি হার্ট চলচ্চিত্রে ওটিস "ব্যাড" ব্লেক ভূমিকায় অভিনয়ের জন্য শ্রেষ্ঠ অভিনেতার জন্য একাডেমি পুরস্কার লাভ করেন। তিনি দ্য লাস্ট পিকচার শো (১৯৭১), থান্ডারবোল্ট অ্যান্ড লাইটফুট (১৯৭৪), স্টারম্যান (১৯৮৪), দ্য কন্টেন্ডার (২০০০), ট্রু গ্রিট (২০১০), এবং হেল অর হাই ওয়াটার (২০১৬) চলচ্চিত্রে তাঁর ভূমিকার জন্য একাডেমি পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন। তাঁর অন্যান্য চলচ্চিত্রের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল ট্রন (১৯৮২), জ্যাগ্‌ড আই (১৯৮৫), দ্য ফ্যাবুলাস বেকার বয়েজ (১৯৮৯), দ্য ফিশার কিং (১৯৯১), ফেয়ারলেস (১৯৯৩), দ্য বিগ লেবোওস্কি (১৯৯৮), সিবিস্কুট (২০০৩), আয়রন ম্যান (২০০৮), ট্রন: লেগ্যাসি (২০১০), এবং দ্য গিভার (২০১৪)।

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

২০১৪ সালে দ্য গিভার চলচ্চিত্রের একটি অনুষ্ঠানে ব্রিজেস।

ব্রিজেসের পর্দায় অভিষেক হয় ১৯৫১ সালে। তখন তার বয়স মাত্র দুই বছর। দ্য কোম্পানি শি কিপস চলচ্চিত্রে তাকে শিশু অভিনেতা হিসেবে দেখা যায়। কৈশোরে তার এবং তার ভাই বিউ ব্রিজেসের পেশাদারী কর্মজীবন শুরু হয় তার পিতার সি হন্ট (১৯৫৮-১৯৬১) টেলিভিশন ধারাবাহিক এবং সিবিএসে প্রচারিত ধারাবাহিক দ্য লয়েড ব্রিজেস শো (১৯৬২-১৯৬৩) দিয়ে। ১৯৬৯ সালে তিনি ল্যাসি টেলিভিশন ধারাবাহিকের সাকসেস স্টোরি পর্বে ক্যাল বেকার চরিত্রে অভিনয় করনে। ১৯৭১ সালে তিনি ইন সার্চ অব আমেরিকা টেলিভিশন চলচ্চিত্রে প্রধান চরিত্র মাইক ভূমিকায় অভিনয় করেন। তার প্রথম প্রধান ভূমিকায় কাজ ছিল ১৯৭১ সালে দ্য লাস্ট পিকচার শো। এই চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য শ্রেষ্ঠ অভিনেতা বিভাগে একাডেমি পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন।[১] পরের বছর তিনি জন হিউস্টন পরিচালিত নব্য-নোয়া বক্সিং চলচ্চিত্র ফ্যাট সিটিতে পার্শ্ব ভূমিকায় অভিনয় করেন। চলচ্চিত্রটি ব্যাপক সমাদৃত হয়। ১৯৭৪ সালে তিনি ক্লিন্ট ইস্টউডের সাথে থান্ডারবোল্ট অ্যান্ড লাইটফুট চলচ্চিত্রে তার অভিনয়ের জন্য শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেতা বিভাগে একাডেমি পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন।[১] ১৯৭৬ সালে তিনি জেসিকা ল্যাংয়ের বিপরীতে কিং কং চলচ্চিত্রের প্রথম পুনর্নির্মাণে প্রধান চরিত্র জ্যাক প্রেসকট ভূমিকায় অভিনয় করেন। এই চলচ্চিত্র বাণিজ্যিকভাবে সফল হয় এবং ২৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের বিপরীতে প্রায় এর তিনগুন, ৯০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার, আয় করে।[২]

ব্রিজেস কোয়েন ভ্রাতৃদ্বয়ের পরিচালনায় ট্রু গ্রিট (২০১০) চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। এতে তার সাথে সহশিল্পী ছিলেন ম্যাট ডেমন, জশ ব্রোলিন, ব্যারি পেপারহেইলি স্টেইনফেল্ড। চলচ্চিত্রটি এবং ব্রিজেসের অভিনয় সমালোকদের দ্বারা প্রশংসিত হয় এবং তিনি তার কাজের জন্য ষষ্ঠবারের মত একাডেমি পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন, কিন্তু কলিন ফার্থের কাছে হেরে যান। ২০১৬ সালে তিনি হেল অর হাই ওয়াটার ছবিতে অভিনয় করে তার সপ্তম একাডেমি পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন।

ডিস্ক তালিকা[সম্পাদনা]

২০১৩ সালে সান দিয়েগো কমিক কনে ব্রিজেস

স্টুডিও অ্যালবাম[সম্পাদনা]

  • বি হিয়ার সুন (২০০০)
  • জেফ ব্রিজেস (২০১১)
  • স্লিপিং টেপস (২০১৫)

একক গান[সম্পাদনা]

  • "হোয়াট অ্যা লিটল বিট অব লাভ ক্যান ডু" (২০১১) - অ্যালবাম: জেফ ব্রিজেস

সঙ্গীত ভিডিও[সম্পাদনা]

  • "হোয়াট অ্যা লিটল বিট অব লাভ ক্যান ডু" (২০১১) - পরিচালক: অ্যালান কোজলভ্‌স্কি

পুরস্কার ও মনোনয়ন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ২০০৩ সালে ইনসাইড দি অ্যাক্টরস স্টুডিও-এ উল্লেখ করেছেন।
  2. "King Kong, Box Office Information" (ইংরেজি ভাষায়)। The Numbers। সংগ্রহের তারিখ ৪ ডিসেম্বর ২০১৭ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]