বিষয়বস্তুতে চলুন

ঐশ্বর্যা রাজেশ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ঐশ্বর্যা রাজেশ
জন্ম (1990-01-10) ১০ জানুয়ারি ১৯৯০ (বয়স ৩৪)
পেশাঅভিনেত্রী, টেলিভিশন উপস্থাপক
কর্মজীবন২০১০–বর্তমান
পিতা-মাতারাজেশ[১]

ঐশ্বর্যা রাজেশ (জন্ম: ১০ই জানুয়ারি ১৯৯০) হলেন একজন ভারতীয় চলচ্চিত্র অভিনেত্রী, যিনি মূলত তামিল চলচ্চিত্রের পাশাপাশি একটি হিন্দি,তেলুগুমালয়ালম চলচ্চিত্রে শীর্ষস্থানীয় চরিত্রে অভিনয় করেছেন। সান টিভিতে প্রচারিত অসথপোবধু ইয়ারু নামক একটি কৌতুক বিষয়ক অনুষ্ঠানে একজন শিল্পী পরিচালক হিসেবে অভিনয় করার মাধ্যমে তিনি অভিনয় জগতে পদার্পণ করেছিলেন।

তিনি মানদা মাইলাদা নামক রিয়ালিটি অনুষ্ঠান জয়লাভ করার পর, ২০১০ সালে তিনি নীথানা আভান-এ অভিনয় করেছিলেন। অতঃপর ২০১২ সালে অট্টকাঠিতে আমুধার চরিত্রে অভিনয় করার পরে তিনি খ্যাতি অর্জন করেছিলেন। তাঁর প্রথম মালয়ালম চলচ্চিত্র ছিল জমন্তে সুবিশেসাঙ্গল; যেখানে তিনি দালকার সালমানের বিপরীতে অভিনয় কাজ করেছেন। তার দ্বিতীয় মালয়ালম চলচ্চিত্র হচ্ছে সাখাবু। তিনি ২০১৭ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ড্যাডি নামক চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে বলিউডে অভিষেক করেছেন; যেখানে তিনি অর্জুন রামপালের সাথে অভিনয় করেছেন। তিনি ভেট্রিমরনের ওয়াদা চেন্নাইয়ে পদ্মা (যেখানে তিনি ধনুষের বিপরীতে অভিনয় করেছিলেন) এবং কানা নামক চলচ্চিত্রে কেন্দ্রীয় নারী ক্রিকেটারের চরিত্রে অভিনয় করে বেশ প্রশংসা কুড়িয়েছিলেন। ২০১৪ সালে কাকা মুত্তাই চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য তিনি "সেরা অভিনেত্রী" বিভাগে তামিলনাড়ু রাজ্য চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেছিলেন।[২]

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

ঐশ্বর্যা রাজেশ ১৯৯০ সালের ১০ই জানুয়ারি তারিখে ভারতের তামিলনাড়ুর তিরুপুরে জন্মগ্রহণ করেছেন। তিনি শিরিন ভাল্লাঙ্কান্নি সিনিয়র সেকেন্ডারি স্কুল এবং হলি এঞ্জেলস অ্যাঙ্গলো ইন্ডিয়ান হায়ার সেকেন্ডারি তিরুপতি হতে শিক্ষা গ্রহণ করেছেন।[৩] ঐশ্বর্যার বাবা রাজেশও একজন অভিনেতা ছিলেন, যিনি তেলুগুর ৫৪টি চলচ্চিত্রে কাজ করেছেন। তাঁর দাদু অমরনাথ একজন জনপ্রিয় শীর্ষস্থানীয় তেলুগু অভিনেতা এবং প্রযোজক ছিলেন, তাঁর খালা শ্রীলক্ষ্মী তেলুগু কৌতুক অভিনেত্রী, যিনি ৫০০-এরও অধিক চলচিত্রে কাজ করেছেন।[৪]

ঐশ্বর্যা চেন্নাইয়ের ইথিরাজ কলেজ ফর উইমেন থেকে পড়াশোনা করেছেন এবং বি. কম. নিয়ে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেছেন।[৫] তিনি কালাইগনার টিভিতে প্রচারিত মানদা মাইলাদা নামক রিয়ালিটি অনুষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের জন্য আয়োজিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে নৃত্য পরিচালক হিসেবে কাজ করেছেন। তিনি উক্ত অনুষ্ঠানের তৃতীয় আসরে জয়লাভ করে চলচ্চিত্র জগতে অভিনয়ের প্রস্তাব পান।[৪] বলিউডে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার জন্য তিনি অর্জুন রামপালের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছিলেন।[৪]

পেশা[সম্পাদনা]

অভিনয় জীবনের প্রাথমিক পর্যায়ে, তিনি টেলিভিশন অনুষ্ঠান অসথপোবধু ইয়ারু-এ একজন উপস্থাপক হিসেবে কাজ করেছেন। ২০১০ সালে, তিনি তামিল চলচ্চিত্র নীথানা আভান-এ অভিনয়ের মধ্য দিয়ে তামিল চলচ্চিত্র জগতে অভিষেক করেছেন এবং ২০১৪ সালে তিনি রুমি এবং পান্নাইয়ারুম পদ্মিনীয়ুম নামক দুটি চলচ্চিত্রে বিজয় সেতুপতির সাথে অভিনয় করেছেন। [৬]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. https://telanganatoday.com/inspirational-tale-of-kausalya-krishnamurthy
  2. "TN Govt. announces Tamil Film Awards for six years"The Hindu। Chennai, India। ১৪ জুলাই ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জুলাই ২০১৭ 
  3. "'I always break the rules'"Chitradeepa Anantharam। The Hindu। ১৮ জুলাই ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ১২ অক্টোবর ২০১৮ 
  4. Gupta, Rinku। "Dancing Her Way into Films"। The New Indian Express। ৫ ডিসেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ ডিসেম্বর ২০১৩ 
  5. Attakathi actress Aishwarya Rajesh joins us in an exclusive chat! – Lifeandtrendz ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৪ তারিখে. Lifeandtrendz.com. Retrieved on 1 February 2016.
  6. Aaranya Kaandam makers begin Thirudan Police – The Times of India. Timesofindia.indiatimes.com (7 December 2013). Retrieved on 1 February 2016.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]