সরণ্য পোনবণ্ণন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(সারাণ্য পোণভান্নান থেকে পুনর্নির্দেশিত)
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
সরণ্য পোনবণ্ণন
Saranya Ponvannan at Saivam Audio Launch.jpg
জন্ম
শীলা ক্রিস্টিনা রাজ

(1970-04-26) ২৬ এপ্রিল ১৯৭০ (বয়স ৫০)
জাতীয়তাভারতীয়
পেশাঅভিনেত্রী
কর্মজীবন১৯৮৭-১৯৯৬
২০০০ (টেলিভিশন)
২০০৩-বর্তমান
বাসস্থানচেন্নাই, তামিলনাড়ু
দাম্পত্য সঙ্গীপোনভান্নান
(বি. ১৯৯৫-বর্তমান)

সরণ্য পোনবণ্ণন (জন্ম:২৬ এপ্রিল ১৯৭০) যিনি শীলা ক্রিস্টিনা রাজ হিসাবে জন্মগ্রহণ করেছিলেন,[১] দক্ষিণ ভারতের জনপ্রিয় চলচ্চিত্র অভিনেত্রী যিনি মূলত তামিল, তেলুগু, মালায়ালাম ভাষার চলচ্চিত্র এবং কয়েকটি কন্নড় ভাষার ছবিতে উপস্থিত হয়েছেন। সারাণ্য মণি রত্নমের নায়কান (১৯৮৭) তে মুখ্য ভূমিকায় আত্মপ্রকাশ করেছিলেন এবং ১৯৮৭-১৯৯৬ সাল পর্যন্ত প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন। আট বছরের বিরতির পরে তিনি একটি চরিত্র অভিনেত্রী হিসেবে চলচ্চিত্রে ফিরে আসেন উদাহরণস্বরূপ "নায়কের মা" চরিত্রে/বিশেষ অতিথি হয়ে, তিনি এরপর থেকে আর মুখ্য ভূমিকায় অভিনয় করেননি।

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

১৯৮৭-১৯৯৬[সম্পাদনা]

পোনবণ্ণন তামিল চলচ্চিত্রের মহানায়ক কমল হাসনের সঙ্গে অভিনয় করার সুযোগ পান মণি রত্নম পরিচালিত নায়কান (১৯৮৭) চলচ্চিত্রতে। তার অভিনীত প্রথম তেলুগু চলচ্চিত্র ছিলো নীরজন্ম, এটি ১৯৮৮ সালে মুক্তি পায়। মামুট্টির সঙ্গে তিনি একটি মালয়ালম চলচ্চিত্রে অভিনয় করার সুযোগ পান, ওটি ১৯৮৯ সালে মুক্তি পায় এবং ওটির নাম ছিলো অর্থম[২] ১৯৯৬ সালে তিনি চলচ্চিত্র থেকে দূরে সরে যাওয়ার আগে কন্নড় চলচ্চিত্র আপ্পাজিতে অভিনয় করেন, এবং এটিই ছিলো তার অভিনীত প্রথম কন্নড় চলচ্চিত্র।

টেলিভিশনে কাজ[সম্পাদনা]

১৯৯৫ সালে বিয়ের পর সারাণ্য অভিনয় ছেড়ে দেন। তিনি সান টিভি (তামিল) চ্যানেলে নাটকে অভিনয় জীবন শুরু করে দেন।[৩] মুগাংগাল ছিলো তার অভিনীত একটি গুরুত্বপূর্ণ নাটক।

চলচ্চিত্র জগতে ফিরে আসা[সম্পাদনা]

২০০৩ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত তামিল চলচ্চিত্র আলাই-এর মাধ্যমে পোনবণ্ণন আবার চলচ্চিত্রে কাজ করা শুরু করেন, তবে এবার নায়িকা হিসেবে নয়, নায়কের মা হিসেবে, তিনি সিলামবারাসানের মা চরিত্রে অভিনয় করেন, চলচ্চিত্রটিতে তার স্বামী চরিত্রে রঘুবরণ অভিনয় করেছিলেন। ২০০০-এর দশকের মাঝখান দিক পর্যন্ত চলচ্চিত্রে পোনবণ্ণন সহ-অভিনেত্রী হিসেবে কাজ করেন, যেমনঃ রাম, তাবামাই তাবামিরুন্দু এবং এম মাগান[৪]

২০১০ সালের চলচ্চিত্র তেনমের্কু পারুভাকাত্রু'র জন্য পোনবণ্ণন শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার (ভারত) জেতেন, তিনি চলচ্চিত্রটিতে বীরাইয়া নামের এক বিধবা নারীর চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন।[৫]

২০১৬ সালের চলচ্চিত্র আচামিনন্দ্রিতে তিনি খল ভূমিকায় ছিলেন।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

পোনবণ্ণনের বাবা এ বি রাজ ছিলেন মালয়ালম চলচ্চিত্র পরিচালক, যিনি ৭৫টি মালয়ালম চলচ্চিত্র পরিচালনা করেছিলেন।[৬] অভিনেতা-পরিচালক পোনবণ্ণনের সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন সারণ্য ১৯৯৫ সালে এবং তখন থেকেই তার নামের শেষে তার পোনবণ্ণন শব্দটি যুক্ত, পোনবণ্ণন দুই মেয়ে রয়েছে।[৭]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Distinguished Alumnae"Womens Christian College (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৩ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  2. Nair, Vidya (১৪ অক্টোবর ২০১৮)। "Screen-mother to Superstar"Deccan Chronicle (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৩ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  3. "Back into form with a bang"The Hindu। Chennai, India। ২৫ নভেম্বর ২০০৬। সংগ্রহের তারিখ ৩০ অক্টোবর ২০০৯ 
  4. Ashok Kumar, S.R. (১৫ ডিসেম্বর ২০০৫)। "An actress who plays her roles with aplomb"The Hindu। Chennai, India। সংগ্রহের তারিখ ৩ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  5. "Best actor – female: Saranya Ponvannan takes it in her stride – The Times of India"The Times Of India। ২০ মে ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ৩ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  6. "National Film Awards: Malayalam film `Adaminte Makan Abu' Best feature film, Salim Kumar Best actor"Malayalam Movies। ১১ জুন ২০১১। ১৫ এপ্রিল ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  7. "'I never expected the National Award'"Rediff। ২১ জুন ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ৩ ডিসেম্বর ২০১৮ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]