বিষয়বস্তুতে চলুন

"গ্লেন টার্নার" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্প্রসারিত সম্পাদনা!
(সম্প্রসারিত সম্পাদনা!)
(সম্প্রসারিত সম্পাদনা!)
 
| batting = ডানহাতি
| bowling =
| role = [[ব্যাটিং (ক্রিকেট)|ব্যাটসম্যান]], [[অধিনায়ক (ক্রিকেট)|অধিনায়ক]], কোচ, প্রশাসক
 
| international = true
| clubnumber4 =
| club5 = ওতাগো
| year5 = ১৯৬৪/৬৫ - ১৯৭৫/৭৬
| clubnumber5 =
 
}}
 
'''গ্লেন মেইটল্যান্ড টার্নার''' ({{lang-en|Glenn Turner}}; জন্ম: ২৬ মে, ১৯৪৭) ওতাগোর ডুনেডিনে জন্মগ্রহণকারী সাবেক ও বিখ্যাত [[নিউজিল্যান্ড|নিউজিল্যান্ডীয়]] আন্তর্জাতিক [[ক্রিকেট]] তারকা।তারকা, কোচ ও প্রশাসক। তাকে নিউজিল্যান্ডের ক্রিকেটের ইতিহাসে অন্যতম সেরা ও সর্বাপেক্ষা নির্ভরযোগ্য [[ব্যাটিং (ক্রিকেট)|ব্যাটসম্যান]] হিসেবে মনে করা হয়। [[নিউজিল্যান্ড জাতীয় ক্রিকেট দল|নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলের]] হয়ে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ব্যাটিংয়ে পারদর্শী ছিলেন। এছাড়াও তিনি দলের [[অধিনায়ক (ক্রিকেট)|অধিনায়কের]] দায়িত্ব পালন করেন।
 
১৯৮০-এর দশকের মধ্যভাগে নিউজিল্যান্ড দলের [[কোচ (ক্রীড়া)|কোচ]] ছিলেন ও অস্ট্রেলিয়া দলের বিপক্ষে প্রথমবারের মতো সিরিজ বিজয়ে নেতৃত্ব দেন '''গ্লেন টার্নার'''। বর্তমানে তিনি [[নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট|নিউজিল্যান্ড ক্রিকেটে]] দল নির্বাচকমণ্ডলীর সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন।
ইংল্যান্ডের [[কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশীপ|কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশীপে]] ওরচেস্টারশায়ারের পক্ষে [[প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট|প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে]] অভিষেক ঘটে তার। সর্বমোট ৪৫৫টি প্রথম-শ্রেণীর খেলায় অংশগ্রহণ করে ৩৪,৩৪৬ রান সংগ্রহ করেন। ৪৯.৭০ রান গড়ে ১০৩টি [[শতক (ক্রিকেট)|শতক]] তুলে নেন। [[ডোনাল্ড ব্র্যাডম্যান]], [[জহির আব্বাস]] ও [[ভিভ রিচার্ডস|ভিভ রিচার্ডসের]] পর চারজন ইংরেজবিহীন খেলোয়াড়ের মধ্যে তিনি অন্যতম, যিনি [[প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে ১০০ শতরানের অধিকারী ব্যাটসম্যানদের তালিকা|''সেঞ্চুরির সেঞ্চুরি'']] করেন।
 
[[দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ|দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের]] পর প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে ১৯৭৩ সালে [[1,000 first-class runs before the end of May|মে মাসের]] পূর্বেই ইংল্যান্ডের কাউন্টিতে ওরচেস্টারশায়ারের পক্ষে এক হাজার প্রথম-শ্রেণীর রান সংগ্রাহক হয়েছেন। এরপর <!-- [[1988 English cricket season| -->১৯৮৮ সালে [[গ্রেইম হিক]] এ কৃতিত্ব অর্জন করেন। কেবলমাত্র আটজন ব্যাটসম্যান এ কৃতিত্ব অর্জন করলেও সফরকারী দলের সাথে ভ্রমণরত অবস্থায় গ্লেন টার্নার ও [[ডোনাল্ড ব্র্যাডম্যান|ডন ব্র্যাডম্যান]] এ কৃতিত্বের দাবীদার।<ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি|ইউআরএল=http://www.espncricinfo.com/wisdenalmanack/content/story/152484.html|শিরোনাম=1,000 runs by the end of may, Glenn Turner joins the elite|শেষাংশ=Easterbrook|প্রথমাংশ=Basil|বছর=1974|কর্ম=[[Wisden]]|প্রকাশক=[[ESPNcricinfo]]|সংগ্রহের-তারিখ=18 February 2013}}</ref> এছাড়াও তিনি দলীয় ইনিংসের ৮৩.৪৩% রান সংগ্রহ করে রেকর্ডের আসনে রয়েছেন। ১৯৭৭ সালে [[সলেক স্টেডিয়াম|সোয়ানসীতে]] [[গ্ল্যামারগন কাউন্টি ক্রিকেট ক্লাব|গ্ল্যামারগনের]] বিপক্ষে ওরচেস্টারশায়ার ১৬৯ রানে আউট হয়। তিনি ১৪১* রান করে অপরাজিত ছিলেন। বাদ-বাকী ব্যাটসম্যানেরা মাত্র ২৭ রান করেন ও একটি অতিরিক্ত রান ছিল।<ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি|ইউআরএল=http://www.cricketarchive.com/Archive/Scorecards/37/37233.html|শিরোনাম=Glamorgan v Worcestershire Schweppes County Championship 1977|প্রকাশক=[[CricketArchive]]|সংগ্রহের-তারিখ=18 February 2013}}</ref>
 
১৯৭১-৭২ মৌসুমে ওয়েস্ট ইন্ডিজ গমন করেন। স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দূর্দান্ত খেলা উপহার দেন। গায়ানায় অনুষ্ঠিত সিরিজের চতুর্থ টেস্টে ব্যাটিং উদ্বোধনে নেমে ২৫৯ রানের ব্যক্তিগত সেরা ইনিংস উপহার দেন। এ পর্যায়ে [[টেরি জার্ভিস|টেরি জার্ভিসের]] (১৮২) সাথে ৩৮৭ রানের রেকর্ডসংখ্যক জুটি গড়েন। ঐ খেলাটি ড্রয়ে পরিণত হয়েছিল।
 
== পরিসংখ্যান ==
| '''৫''' || ১১৭ || ৩১ || {{cr|IND}} || {{পতাকা আইকন|NZ}} [[ক্রাইস্টচার্চ]], [[নিউজিল্যান্ড]] || [[ল্যাঙ্কাস্টার পার্ক]] || ১৯৭৬ || ড্র
|-
| '''৬''' || ১১৩ || ৩৬ || {{cr|IND}} || {{পতাকা আইকন|IND}} [[Kanpur|কানপুর]], [[ভারত]] || [[Green Park Stadium|গ্রীন পার্ক স্টেডিয়াম]] || ১৯৭৬ || ড্র
|}
 
before=[[বেভান কংডন]]|
title=[[নিউজিল্যান্ড জাতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়কদের তালিকা|নিউজিল্যান্ড জাতীয় ক্রিকেট অধিনায়ক]]|
years=১৯৭৫/৭৬ - ১৯৭৬/৭৭ |
after=[[মার্ক বার্জেস]]
}}
৭৭,২৬৯টি

সম্পাদনা