রামনরেশ সারওয়ান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
রামনরেশ সারওয়ান
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামরামনরেশ রনি সারওয়ান
জন্ম (1980-06-23) ২৩ জুন ১৯৮০ (বয়স ৩৮)
ওয়াকনাম দ্বীপ, গায়ানা
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি লেগ ব্রেক
ভূমিকাব্যাটসম্যান
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ২৩৪)
১৮ মে ২০০০ বনাম পাকিস্তান
শেষ টেস্ট২৮ জুন ২০১১ বনাম ভারত
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ১০১)
২০ জুলাই ২০০০ বনাম ইংল্যান্ড
শেষ ওডিআই৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ বনাম অস্ট্রেলিয়া
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
১৯৯৬-২০১৪গায়ানা
২০০৫গ্লুচেস্টারশায়ার
২০১২-২০১৪লিচেস্টারশায়ার (দল নং ৫৩)
২০১৩-২০১৪গায়ানা আমাজন ওয়ারিয়র্স
২০১৬-ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্স
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই এফসি এলএ
ম্যাচ সংখ্যা ৮৭ ১৮১ ২১৫ ২৬২
রানের সংখ্যা ৫,৮৪২ ৫,৮০৪ ১৩,২২১ ৮,৩৩৭
ব্যাটিং গড় ৪০.০১ ৪২.৬৭ ৩৯.১১ ৪০.২৭
১০০/৫০ ১৫/৩১ ৫/৩৮ ৩৩/৭০ ১১/৪৮
সর্বোচ্চ রান ২৯১ ১২০* ২৯১ ১২০*
বল করেছে ২,০২২ ৫৮১ ৪,৩৬৮ ১,১৩০
উইকেট ২৩ ১৬ ৫৬ ৩৫
বোলিং গড় ৫০.৫৬ ৩৬.৬২ ৪১.৯৮ ২৮.৬০
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট - -
সেরা বোলিং ৪/৩৭ ৩/৩১ ৬/৬২ ৫/১০
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৫৩/– ৪৫/– ১৫২/– ৬৮/–
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো, ৩০ নভেম্বর ২০১৬

রামনরেশ রনি সারওয়ান (ইংরেজি: Ramnaresh Sarwan; জন্ম: ২৩ জুন, ১৯৮০) গায়ানার ওয়াকনাম দ্বীপে জন্মগ্রহণকারী ইন্দো-গায়ানীয় বংশোদ্ভূত ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাবেক আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দলের পক্ষে টেস্ট ও একদিনের আন্তর্জাতিকে অংশগ্রহণ করেছেন। এছাড়াও, ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের অধিনায়ক ছিলেন তিনি। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে ভূমিকা রাখলেও ডানহাতে লেগ ব্রেক বোলিং করতেন। রামনরেশ সারওয়ান ক্যারিবীয় প্রিমিয়ার লীগে গায়ানা আমাজন ওয়ারিয়র্স দলের পক্ষে খেলেন।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

১৯৯৮ সালে দক্ষিণ আফ্রিকায় অনুষ্ঠিত অনূর্ধ্ব-১৯ দলের ক্রিকেট বিশ্বকাপে খেলেন। ঐ প্রতিযোগিতায় তার দল শিরোপা জয় করে। ১৬ উইকেট নিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার এমলুলেকি এনকালা’র সাথে যৌথভাবে শীর্ষ উইকেটশিকারী ছিলেন।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

মে, ২০০০ সালে বার্বাডোসে পাকিস্তানের বিপক্ষে তার টেস্ট অভিষেক ঘটে। প্রথম ইনিংসে অপরাজিত ৮৪*সহ দ্বিতীয় ইনিংসেও অপরাজিত ছিলেন তিনি। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে মার্চ, ২০০১ সালে ৯১ রানে আউট হয়ে যাবার ফলে অভিষেক শতক থেকে বঞ্চিত হন তিনি। অক্টোবর, ২০০২ সালে চেন্নাইয়ে ভারতের বিপক্ষে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে ৭৫ রান করেন। এরপর ঢাকায় অনুষ্ঠিত বাংলাদেশের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজের মাধ্যমে তার শতরান আসে। মে, ২০০৩ সালে সেন্ট জন্সে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে তার পরবর্তী শতক পান। ২৯ এপ্রিল, ২০০৭ তারিখে অধিনায়ক ব্রায়ান লারা’র অবসরের ঘোষণার কারণে তাকে দলের অধিনায়ক মনোনীত করা হয়।[১]

২০০৮ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে অনুষ্ঠিত টেস্ট সিরিজে তিনি তার ব্যাটিং নৈপুণ্য অব্যাহত রাখেন। তন্মধ্যে এন্টিগুয়ার নর্থ সাউন্ডের দ্বিতীয় টেস্টে অর্ধশতকসহ ১২৮ রানের ইনিংসের ফলে খেলা ড্রয়ে পরিণত হয়। জামাইকায় ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৫,০০০ রানের মাইলফলক স্পর্শ করেন। এরফলে ২৮ বছর ২২৮ দিন বয়সে সর্বকনিষ্ঠ ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান হিসেবে তিনি এ রান তোলেন। ২০০৯ সালে সফরকারী ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ১৩শ টেস্ট সেঞ্চুরি করার সময় দ্বিতীয় ইনিংসে সর্বাধিক সেঞ্চুরি করে সুনীল গাভাস্কার, রিকি পন্টিংয়ের রেকর্ড স্পর্শ করেন।[২] ফেব্রুয়ারি/মার্চ, ২০০৯ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে নিজস্ব সেরা ২৯১ রান সংগ্রহ করেন। মাঝে-মধ্যে দলের প্রয়োজনে লেগ ব্রেক বোলিং করেন যাতে তার সেরা সাফল্য হচ্ছে ৪/৩৭।

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

শারীরিক অসুস্থতা ও খেলায় ধারাবাহিকতা না থাকায় কেন্দ্রীয়ভাবে চুক্তি বাতিল করা হয়। এ প্রসঙ্গে কোচ অটিস গিবসন মন্তব্য করেন যে, 'তাকে বাদ দেয়ার সিদ্ধান্ত বেশ কঠিন ছিল। কিন্তু ভবিষ্যতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলে খেলার সুযোগ পাবেন যদি খেলার ছন্দে ফিরে আসেন তিনি।' নিয়মিত উইকেট-রক্ষক দিনেশ রামদিনের সাথে তাকেও শ্রীলঙ্কা সফরের জন্য মনোনীত করা হয়নি।[৩] আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে প্রত্যাখ্যাত হবার পর ২০১২ মৌসুমে ইংল্যান্ডের কাউন্টি ক্রিকেটে লিচেস্টারশায়ার দলের সাথে চুক্তিবদ্ধ হন তিনি।[৪]

২০১৩ সালের ক্যারিবীয় প্রিমিয়ার লীগের উদ্বোধনী আসরে গায়ানা আমাজন ওয়ারিয়র্সের অধিনায়ক মনোনীত হন তিনি।[৫]

খেলোয়াড়ী পরিসংখ্যান[সম্পাদনা]

সারওয়ানের টেস্ট ইনিংসগুলোর ব্যাটিংগুলো ধারাবাহিকভাবে দেখানো হয়েছে। লাল স্তম্ভে রান ও শেষ দশ ইনিংস নীল রেখায় চিত্রিত হয়েছে।

টেস্ট সেঞ্চুরিসমূহ[সম্পাদনা]

নিম্নের ছকে রামনরেশ সারওয়ানের শতকসমূহ উল্লেখ করা হয়েছে।

  • কলামে রান, * বুঝাতে অপরাজিত
  • কলামের শিরোনামে খেলা বুঝাতে ব্যক্তিগত খেলার নম্বর
রামনরেশ সারওয়ানের টেস্ট সেঞ্চুরিসমূহ[৬]
# রান খেলা প্রতিপক্ষ শহর/দেশ মাঠ সাল ফলাফল
১১৯ ২৮  বাংলাদেশ ঢাকা, বাংলাদেশ বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম ২০০২ জয়
১০৫ ৩২  অস্ট্রেলিয়া সেন্ট জোন্স, এন্টিগুয়া এন্টিগুয়া রিক্রিয়েশন গ্রাউন্ড ২০০৩ জয়
১১৪ ৩৮  দক্ষিণ আফ্রিকা ডারবান, দক্ষিণ আফ্রিকা কিংসমিড ২০০৩ পরাজয়
১১৯ ৪০  দক্ষিণ আফ্রিকা সেঞ্চুরিয়ন, দক্ষিণ আফ্রিকা সুপারস্পোর্ট পার্ক ২০০৪ পরাজয়
২৬১* ৪৬  বাংলাদেশ কিংস্টন, জামাইকা সাবিনা পার্ক ২০০৪ জয়
১৩৯ ৪৮  ইংল্যান্ড বার্মিংহাম, ইংল্যান্ড এজবাস্টন ২০০৪ পরাজয়
১০৭* ৫১  দক্ষিণ আফ্রিকা পোর্ট অব স্পেন, ত্রিনিদাদ কুইন্স পার্ক ওভাল ২০০৫ পরাজয়
১২৭ ৫৩  দক্ষিণ আফ্রিকা সেন্ট জোন্স, এন্টিগুয়া এন্টিগুয়া রিক্রিয়েশন গ্রাউন্ড ২০০৫ ড্র
১১৬ ৬২  ভারত বাসেতেরে, সেন্ট কিটস ওয়ার্নার পার্ক ২০০৬ ড্র
১০ ১০২ ৬৯  শ্রীলঙ্কা পোর্ট অব স্পেন, ত্রিনিদাদ কুইন্স পার্ক ওভাল ২০০৮ জয়
১১ ১২৮ ৭১  অস্ট্রেলিয়া নর্থ সাউন্ড, এন্টিগুয়া স্যার ভিভিয়ান রিচার্ডস স্টেডিয়াম ২০০৮ ড্র
১২ ১০৭ ৭৫  ইংল্যান্ড কিংস্টন, জামাইকা সাবিনা পার্ক ২০০৯ জয়
১৩ ১০৬ ৭৭  ইংল্যান্ড সেন্ট জোন্স, এন্টিগুয়া এন্টিগুয়া রিক্রিয়েশন গ্রাউন্ড ২০০৯ ড্র
১৪ ২৯১ ৭৮  ইংল্যান্ড ব্রিজটাউন, বার্বাডোস কেনসিংটন ওভাল ২০০৯ ড্র
১৫ ১০০ ৮১  ইংল্যান্ড চেস্টার-লি-স্ট্রীট, ইংল্যান্ড রিভারসাইড গ্রাউন্ড ২০০৯ পরাজয়

ওডিআই সেঞ্চুরিসমূহ[সম্পাদনা]

রামনরেশ সারওয়ানের ওডিআই সেঞ্চুরিসমূহ[৭]
# রান খেলা প্রতিপক্ষ শহর/দেশ মাঠ সাল ফলাফল
১০২* ২৮  বাংলাদেশ ঢাকা, বাংলাদেশ বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম ২০০২ জয়
১০৪* ৫৯  ইংল্যান্ড ব্রিজটাউন, বার্বাডোস কেনসিংটন ওভাল ২০০৪ পরাজয়
১১৫* ১০০  ভারত বাসেতেরে, সেন্ট কিটস ওয়ার্নার পার্ক ২০০৬ জয়
১০০* ১৫৩  আয়ারল্যান্ড কিংস্টন, জামাইকা সাবিনা পার্ক ২০১০ জয়
১২০* ১৭৮  জিম্বাবুয়ে সেন্ট জর্জেস, গ্রেনাডা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়াম ২০১৩ জয়

নিজস্ব সেরা[সম্পাদনা]

২৩ জুন, ২০১৩ অনুযায়ী

ব্যাটিং বোলিং
রান সময়সূচী মাঠ মৌসুম রান সময়সূচী মাঠ মৌসুম
টেস্ট ২৯১ ওয়েস্ট ইন্ডিজইংল্যান্ড ব্রিজটাউন ২০০৯ ৪–৩৭ ওয়েস্ট ইন্ডিজবাংলাদেশ গ্রোস আইলেট ২০০৪
ওডিআই ১২০* ওয়েস্ট ইন্ডিজজিম্বাবুয়ে গ্রেনাডা ২০১৩ ৩–৩১ ওয়েস্ট ইন্ডিজনিউজিল্যান্ড লর্ডস ২০০৪
টি২০আই ৫৯ ওয়েস্ট ইন্ডিজইংল্যান্ড পোর্ট অব স্পেন ২০০৯ ২–১০ ওয়েস্ট ইন্ডিজবাংলাদেশ জোহানেসবার্গ ২০০৭
এফসি ২৯১ ওয়েস্ট ইন্ডিজইংল্যান্ড ব্রিজটাউন ২০০৯ ৬–৬২ গায়ানালিওয়ার্ড আইল্যান্ডস সেন্ট জোন্স ২০০১
এলএ ১২০* ওয়েস্ট ইন্ডিজজিম্বাবুয়ে গ্রেনাডা ২০১৩ ৫–১০ গায়ানাবারমুদা এসকুইবো ১৯৯৮
টি২০ ৭০ গায়ানাসাউদার্ন রেডব্যাকস জোহানেসবার্গ ২০১০ ২–১০ ওয়েস্ট ইন্ডিজবাংলাদেশ জোহেন্সবার্গ ২০০৭

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Sarwan confirmed as West Indies captaincy
  2. Most 4th innings hundreds
  3. http://www.cricinfo.com/westindies/content/current/story/482934.html
  4. "Leicestershire sign Sarwan for 2012 season"। ESPNcricinfo। ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১২ 
  5. http://cplt20.com/news/limacol-cpl-confirms-franchise-team-captains
  6. Statsguru: Ramnaresh Sarwan, Cricinfo, 12 March 2010.
  7. Statsguru: Ramnaresh Sarwan, Cricinfo, 12 March 2010.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]