বোলিং (ক্রিকেট)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

বোলিং ক্রিকেট খেলায় ব্যবহৃত একটি পরিভাষাক্রিকেট বলকে পিচের শেষ প্রান্তে পুতানো উইকেট বরাবর নিক্ষেপের মাধ্যমে ব্যাটসম্যানকে পরাস্ত করতে কিংবা রান না করার ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়। একজন খেলোয়াড় যদি বোলিংরত অবস্থায় থাকেন, তাহলে তিনি বোলার হিসেবে চিহ্নিত হবেন। স্পেশালিস্ট বোলার পরিভাষাটি সচরাচর শুধুমাত্র বোলিংয়ে পারদর্শী খেলোয়াড়ের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়। এক্ষেত্রে তাকে শুধুমাত্র বোলাররূপে অভিহিত করা হয়ে থাকে। একইভাবে স্পেশালিস্ট ব্যাটসম্যান পরিভাষাটি শুধুমাত্র ব্যাটিংয়ে পারদর্শী খেলোয়াড়ের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়। যদি একজন বোলার ব্যাটিং এবং বোলিং - উভয় বিভাগেই সমান পারদর্শিতা প্রদর্শন করেন, তাহলে তিনি অল-রাউন্ডারের মর্যাদা পান। ম্যালকম মার্শাল, রিচার্ড হ্যাডলি, ক্রেগ ম্যাকডারমট, কপিল দেব, মুত্তিয়া মুরালিধরন, ইমরান খান প্রমূখ ক্রিকেটার বিশ্ব ক্রিকেট ইতিহাসে শীর্ষস্থানীয় বোলাররূপে পরিচিত ব্যক্তিত্ব।

বোলিং কৌশল[সম্পাদনা]

একজন ফাস্ট বলারের বল করার সাধারণ কৌশল।

সঠিক বোলিং কলা-কৌশল রপ্ত করার জন্য কনুই বাঁকানোর নির্দিষ্ট মানদণ্ড রয়েছে। ব্যাটসম্যানকে লক্ষ্য করে বোলিংয়ের ভঙ্গীমা প্রদর্শনকে বল বা ডেলিভারি নামে আখ্যায়িত করা হয়। বোলার কর্তৃক সফলভাবে ছয়টি বল ডেলিভারি দেয়াকে ওভার বলে। বোলার এক ওভার বোলিং করলে পরবর্তী ওভার তার দলীয় সঙ্গী পিচের অপর প্রান্ত থেকে বোলিং করে থাকেন। ক্রিকেটের আইনে কিভাবে একটি বল ডেলিভারি করতে হয়, তার সংজ্ঞা দেয়া আছে।[১] যদি কোন কারণে অবৈধভাবে বোলিং করা হয়, তাহলে খেলা পরিচালনাকারী কর্মকর্তা হিসেবে আম্পায়ার নো বল হিসেবে ঘোষণা করতে পারেন।[২] আবার, ব্যাটিং প্রান্তে অবস্থানরত ব্যাটসম্যানের নাগালের বাইরে দিয়ে বল চলে গেলে আম্পায়ার ওয়াইড ঘোষণা করতে পারেন।[৩]

শীর্ষস্থানীয় বোলার[সম্পাদনা]

পুরুষ[সম্পাদনা]

আইসিসি শীর্ষ ১০ টেস্ট বোলার
অবস্থান খেলোয়াড়ের নাম রেটিং
প্যাট কামিন্স ৮৭৮
জেমস অ্যান্ডারসন ৮৬২
কাগিসো রাবাদা ৮৫১
ভার্নন ফিল্যান্ডার ৮১৩
রবীন্দ্র জাদেজা ৭৯৪
মোহাম্মদ আব্বাস ৭৭০
জেসন হোল্ডার ৭৭০
ট্রেন্ট বোল্ট ৭৬৯
টিম সাউদি ৭৬৬
১০ রবিচন্দ্রন অশ্বিন ৭৬৩
সূত্র: আইসিসি র‌্যাঙ্কিংস, ৩ মার্চ, ২০১৯
আইসিসি শীর্ষ ১০ ওডিআই বোলার
অবস্থান খেলোয়াড়ের নাম দলের নাম রেটিং
যশপ্রীত বুমরাহ  ভারত ৮০৮
রশীদ খান  আফগানিস্তান ৭৮৮
ট্রেন্ট বোল্ট  নিউজিল্যান্ড ৭৩২
কুলদীপ যাদব  ভারত ৭১৯
যুজবেন্দ্র চাহাল  ভারত ৭০৯
মোস্তাফিজুর রহমান  বাংলাদেশ ৬৯৫
কাগিসো রাবাদা  দক্ষিণ আফ্রিকা ৬৮৮
আদিল রশীদ  ইংল্যান্ড ৬৮৩
মুজিব উর রহমান  আফগানিস্তান ৬৭৯
১০ জশ হজলউড  ইংল্যান্ড ৬৬৫
তথ্যসূত্র: রিলায়েন্সআইসিসি র‌্যাঙ্কিংস - ওডিআইবোলিং, ১১ মার্চ, ২০১৯
আইসিসি শীর্ষ-১০ টি২০আই বোলার
অবস্থান পরিবর্তন খেলোয়াড়ের নাম দলের নাম রেটিং
অপরিবর্তিত রশিদ খান  আফগানিস্তান ৮১৩
অপরিবর্তিত শাদাব খান  পাকিস্তান ৭২৩
অপরিবর্তিত ইশ সোধি  নিউজিল্যান্ড ৭০০
অপরিবর্তিত যুবেন্দ্র চাহাল  ভারত ৬৮৫
বৃদ্ধি মিচেল সেন্টনার  নিউজিল্যান্ড ৬৬৫
বৃদ্ধি এন্ড্রিউ টাই  অস্ট্রেলিয়া ৬৫৮
হ্রাস সামুয়েল বদ্রী  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৬৫৫
অপরিবর্তিত ইমরান তাহির  দক্ষিণ আফ্রিকা ৬৫০
অপরিবর্তিত আদিল রশিদ  ইংল্যান্ড ৬৩৯
১০ অপরিবর্তিত মোহাম্মাদ নবী  আফগানিস্তান ৬৩৮
তথ্যসূত্র: রিলায়েন্স, আইসিসি র‌্যাঙ্কিং-টি২০আই-বোলিং, ৫ জুলাই, ২০১৮


মহিলা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Laws of Cricket: Law 42 (Fair and unfair play)"। Lords.org। ২০১৩-০১-০৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০১-২৩ 
  2. "Laws of Cricket: Law 24 (No ball)"। Lords.org। ২০১২-১২-২৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০১-২৩ 
  3. "Laws of Cricket: Law 25 (Wide ball)"। Lords.org। ২০১২-১১-২৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০১-২৩ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]