টেরি জার্ভিস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
টেরি জার্ভিস
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামটেরেন্স ওয়েন জার্ভিস
জন্ম (1944-07-29) ২৯ জুলাই ১৯৪৪ (বয়স ৭৬)
অকল্যান্ড, নিউজিল্যান্ড
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি
ভূমিকাব্যাটসম্যান
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ১০৬)
২৭ ফেব্রুয়ারি ১৯৬৫ বনাম ভারত
শেষ টেস্ট১৬ ফেব্রুয়ারি ১৯৭৩ বনাম পাকিস্তান
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি এলএ
ম্যাচ সংখ্যা ১৩ ৯৭
রানের সংখ্যা ৬২৫ ৪,৬৬৬ ১৫৫
ব্যাটিং গড় ২৯.৭৬ ২৯.৩৪ ২২.১৪
১০০/৫০ ১/২ ৬/২৬ ০/০
সর্বোচ্চ রান ১৮২ ১৮২ ৩৮
বল করেছে ১২ ১৬৮ -
উইকেট -
বোলিং গড় - - -
ইনিংসে ৫ উইকেট - -
ম্যাচে ১০ উইকেট - -
সেরা বোলিং - - -
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৩/- ১০২/- ৩/-
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ৩ অক্টোবর ২০২০

টেরেন্স ওয়েন জার্ভিস (ইংরেজি: Terry Jarvis; জন্ম: ২৯ জুলাই, ১৯৪৪) অকল্যান্ড এলাকায় জন্মগ্রহণকারী সাবেক নিউজিল্যান্ডীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার। নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৬০-এর দশকের মাঝামাঝি সময়কালে থেকে ১৯৭০-এর দশকের শুরুরদিক পর্যন্ত নিউজিল্যান্ডের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।[১][২][৩]

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর নিউজিল্যান্ডীয় ক্রিকেটে অকল্যান্ড ও ক্যান্টারবারি দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, ডানহাতে বোলিংয়ে পারদর্শী ছিলেন টেরি জার্ভিস

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

অকল্যান্ডের শহরতলী রিমুয়েরা এলাকায় শৈশবকাল অতিবাহিত করেন। ১৯৫৮ থেকে ১৯৬০ সময়কালে অকল্যান্ড গ্রামার স্কুলে অধ্যয়ন করেন। এখানে থাকাকালেই প্রথম একাদশের পক্ষে খেলতেন। ঐ দলটিতে পরবর্তীকালে নিউজিল্যান্ডের দুই অধিনায়ক মার্ক বার্জেসহ্যাডলি হাওয়ার্থ এবং টেস্ট খেলোয়াড় রস মর্গ্যানের অংশগ্রহণ ছিল।

১৯৬৪-৬৫ মৌসুম থেকে ১৯৭৬-৭৭ মৌসুম পর্যন্ত টেরি জার্ভিসের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। ডানহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে স্ট্রোক খেলায় পারদর্শী ছিলেন টেরি জার্ভিস।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে তেরোটি টেস্টে অংশগ্রহণ করেছেন টেরি জার্ভিস। ২৭ ফেব্রুয়ারি, ১৯৬৫ তারিখে চেন্নাইয়ে স্বাগতিক ভারত দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। ১৬ ফেব্রুয়ারি, ১৯৭৩ তারিখে অকল্যান্ডে সফরকারী পাকিস্তান দলের বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্টে অংশ নেন তিনি।

অভিষেক টেস্টে দুই ঘণ্টার অধিক সময় ব্যয় করে মাত্র ৯ রান তুলেন। তবে, দ্বিতীয়বার তিনি ঘণ্টায় অপরাজিত ৪০ রানের ইনিংস খেলেন। ঐ সফরে তিনি ৩২.৮৩ গড়ে ২৬৩ রান তুলেন। কিন্তু, ১৯৬৫ সালে ইংল্যান্ডে তিনি ভারতে প্রদর্শিত খেলার পুণরাবৃত্তি ঘটান। ১৯৬৫-৬৬ মৌসুমে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে খেলার পর পরবর্তী টেস্টে অংশগ্রহণের জন্যে তাকে ছয় বছর অপেক্ষা করতে হয়।

১৯৭১-৭২ মৌসুমে ওয়েস্ট ইন্ডিজ গমন করেন। স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দূর্দান্ত খেলা উপহার দেন। গায়ানায় অনুষ্ঠিত সিরিজের চতুর্থ টেস্টে গ্রাহাম ডাউলিংয়ের অনুপস্থিতির কারণে ব্যাটিং উদ্বোধনে নেমে ১৮২ রানের ব্যক্তিগত সেরা ইনিংস উপহার দেন। এটিই তার প্রথম ও একমাত্র টেস্ট শতরান ছিল। এ পর্যায়ে গ্লেন টার্নারের (২৫৯) সাথে ব্যাটিং উদ্বোধনে নেমে ৩৮৭ রানের রেকর্ডসংখ্যক জুটি গড়েন। খেলাটি ড্রয়ে পরিণত হয়েছিল। ঐ সিরিজে ৪৬.১৬ গড়ে ২৭৭ রান তুলেছিলেন তিনি।

কিন্তু, পাকিস্তানের বিপক্ষে দূর্বলমানের ক্রীড়াশৈলী প্রদর্শন করেন। পাঁচ ইনিংসের তিনটিতেই তিনি শূন্য রানের সন্ধান পান। এভাবেই তার খেলোয়াড়ী জীবনের সমাপ্তি ঘটে।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

বিদ্যালয় জীবন ত্যাগ করার পর অকল্যান্ডের প্রাক্তন স্টক ও স্টেশন কোম্পানি আলফ্রেড বাকল্যাণ্ড এন্ড সন্স লিমিটেডে বিক্রয় প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করতে শুরু করেন। প্রতিষ্ঠানের আমদানীকৃত পাটজাত পশম বেলের ন্যায় টেক্সটাইল পণ্য বিক্রয় করেন।

এরপর তিনি নিজেই ব্যবসায় জগতের দিকে পা বাড়ান। জার্ভিস ট্রেডিং কোম্পানি লিমিটেড গঠন করেন। ইস্ট টামাকিভিত্তিক বেশ সফলতম প্রতিষ্ঠান হিসেবে একই জাতীয় পণ্য সামগ্রী আমদানী ও প্রস্তুত করতে থাকে। এছাড়াও, একই এলাকায় শিল্পভিত্তিক জমির উন্নয়ন ও বিক্রয়কর্মের সাথে নিজেকে সংশ্লিষ্ট রাখেন। নিউজিল্যান্ডে স্কাই টিভির প্রসারে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন তিনি।

পোর্টল্যান্ড রোডে অবস্থিত শৈশবকালীন গৃহের কাছাকাছি টেরি জার্ভিস পারনেল ক্রিকেট ক্লাবে খেলতেন। এ ক্লাবের ব্যবস্থাপক হিসেবে রয়েছেন। ২০১০ সালে টেরি জার্ভিস সেন্টারের সৌজন্যে রিমুয়েরা পারনেল স্পোর্টস কমিটি চ্যারিটেবল ট্রাস্টের অভ্যন্তরীণ ক্রীড়া সুবিধা বাস্তবায়নে অগ্রসর হন।

পরিসংখ্যান[সম্পাদনা]

টেরি জার্ভিসের টেস্ট শতরান
ক্রমিক রান খেলা প্রতিপক্ষ শহর/দেশ মাঠ সাল ফলাফল
[১] ১৮২  ওয়েস্ট ইন্ডিজ গায়ানা জর্জটাউন, গায়ানা বোর্দা ১৯৭২ ড্র

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. List of New Zealand Test Cricketers
  2. "New Zealand Test Batting Averages"। ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ৩ অক্টোবর ২০২০ 
  3. "New Zealand Test Bowling Averages"। ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ৩ অক্টোবর ২০২০ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]