কার্লি পেজ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
কার্লি পেজ
কার্লি পেজ.jpg
১৯৩২ সালের সংগৃহীত স্থিরচিত্রে কার্লি পেজ
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামমিলফোর্ড লরেনসন পেজ
জন্ম(১৯০২-০৫-০৮)৮ মে ১৯০২
লিটলটন, নিউজিল্যান্ড
মৃত্যু১৩ ফেব্রুয়ারি ১৯৮৭(1987-02-13) (বয়স ৮৪)
ক্রাইস্টচার্চ, নিউজিল্যান্ড
ডাকনামকার্লি
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি স্লো
ভূমিকাব্যাটসম্যান, অধিনায়ক
সম্পর্কফ্রেডরিক পেজ (ভ্রাতা)
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ১০)
১০ জানুয়ারি ১৯৩০ বনাম ইংল্যান্ড
শেষ টেস্ট১৪ আগস্ট ১৯৩৭ বনাম ইংল্যান্ড
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
১৯২০/২১-১৯৩৬/৩৭ক্যান্টারবারি
১৯৩৬-৩৭ক্যান্টারবারি ও ওতাগো
১৯৪২-৪৩সাউথ আইল্যান্ড আর্মি
১৯৪২-৪৩নিউজিল্যান্ড আর্মি
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ১৪ ১৩২
রানের সংখ্যা ৪৯২ ৫৮৫৭
ব্যাটিং গড় ২৪.৬০ ২৯.৮৮
১০০/৫০ ১/২ ৯/৩২
সর্বোচ্চ রান ১০৪ ২০৬
বল করেছে ৩৭৯ ৪৬২২
উইকেট ৭৩
বোলিং গড় ৪৬.২০ ৩২.৩৮
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ২/২১ ৪/১০
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৬/- ১১৫/-
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ১ অক্টোবর ২০১৭

মিলফোর্ড লরেনসন কার্লি পেজ (ইংরেজি: Curly Page; জন্ম: ৮ মে, ১৯০২ - মৃত্যু: ১৩ ফেব্রুয়ারি, ১৯৮৭) লিটলটনে জন্মগ্রহণকারী নিউজিল্যান্ডীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ও রাগবি ইউনিয়ন খেলোয়াড় ছিলেন।[১] নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর নিউজিল্যান্ডীয় ক্রিকেটে ক্যান্টারবারির প্রতিনিধিত্ব করেছেন। দলে তিনি মূলতঃ ব্যাটসম্যানের দায়িত্ব পালন করতেন। এছাড়াও ডানহাতে স্লো বোলিং করতেন। রাগবি ইউনিয়নের সাথেও জড়িত ছিলেন কার্লি পেজ

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

ক্রাইস্টচার্চ বয়েজ হাই স্কুলের প্রাক্তন শিক্ষার্থী তিনি। বিদ্যালয়ে অধ্যয়নকালীন সর্বক্রীড়ায় পারদর্শীতা দেখিয়েছেন।[২] সচরাচর চার কিংবা পাঁচ নম্বরে ব্যাটিংয়ে নামতেন কার্লি পেজ। এছাড়াও স্লো-মিডিয়াম বোলিং করতেন।

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ইনিংস খেলেন ১৯৩১-৩২ মৌসুমে। ক্যান্টারবারির সদস্যরূপে ওয়েলিংটনের বিপক্ষে ২০৬ রান তুলেছিলেন। ২৭৭ রানে পিছিয়ে থেকে চতুর্থ উইকেটে অ্যালবি রবার্টসের সাথে মূল্যবান ২৭৮ রানের জুটি গড়েন।[৩]

ডিক ব্রিটেনডেনের মতে, স্লিপ ফিল্ডার হিসেবে তার ভূমিকা ছিল চমকপ্রদ।

টেস্ট ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৯২০-২১ মৌসুম থেকে ১৯৪২-৪৩ মৌসুম পর্যন্ত তার প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। নিউজিল্যান্ডের টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে দ্বিতীয় অধিনায়ক হবার কৃতিত্ব অর্জন করেন। নিউজিল্যান্ড দলকে সাত টেস্টে নেতৃত্ব দিয়েছেন কার্লি পেজ।

১৯২৭, ১৯৩১ ও ১৯৩৭ সালে সর্বমোট তিনবার ইংল্যান্ড গমন করেন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পূর্ব-পর্যন্ত নিউজিল্যান্ডের একমাত্র ক্রিকেটার হিসেবে অংশগ্রহণকৃত ১৪ টেস্টের সবকটিতেই তার সপ্রতিভ পদচারণা ছিল।

১৯৩১ সালে ইংল্যান্ড সফরে যান। লর্ডসে অনুষ্ঠিত প্রথম টেস্টে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেন। প্রথম ইনিংসে ১০৪ রান করলেও ২৩০ রানে নিউজিল্যান্ড দল পিছিয়ে ছিল। তৃতীয় উইকেটে স্টুই ডেম্পস্টারের সাথে ১১৮ রান তুলেন। এরপর চতুর্থ উইকেটে রজার ব্লান্টের সাথে ১০৫ মিনিটে ১৪২ রানের জুটি গড়েন।[৪]

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

রাগবি ইউনিয়নে অল ব্ল্যাকসের পক্ষে হাফ-ব্যাক অবস্থানে খেলেন। ১৯২৮ সালে ক্রাইস্টচার্চে নিউ সাউথ ওয়েলসের বিপক্ষে তৃতীয় টেস্টে অংশ নিয়েছিলেন তিনি।

১৩ ফেব্রুয়ারি, ১৯৮৭ তারিখে ৮৪ বছর বয়সে ক্রাইস্টচার্চে কার্লি পেজের দেহাবসান ঘটে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Knight, Lindsay। "Curly Page"। New Zealand Rugby Union। সংগ্রহের তারিখ ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  2. Brittenden, R.T. (১৯৬১)। New Zealand Cricketers। Wellington: A.H. & A.W. Reed। পৃষ্ঠা 129–131। 
  3. Wellington v Canterbury, 1931–32
  4. England v New Zealand, Lord's, 1931

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

ক্রীড়া অবস্থান
পূর্বসূরী
টম লরি
নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট অধিনায়ক
১৯৩১/৩২–১৯৩৭
উত্তরসূরী
ওয়াল্টার হ্যাডলি