ক্রিস ব্রড

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
ক্রিস ব্রড
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নাম ব্রায়ান ক্রিস্টোফার ব্রড
জন্ম (১৯৫৭-০৯-২৯) ২৯ সেপ্টেম্বর ১৯৫৭ (বয়স ৬০)
নোল, ব্রিস্টল, ইংল্যান্ড
ডাকনাম ওয়াল্টার, ব্রুডি, বি-রোড
উচ্চতা ৬ ফুট ৪ ইঞ্চি (১.৯৩ মিটার)
ব্যাটিংয়ের ধরন বামহাতি
বোলিংয়ের ধরন ডানহাতি মিডিয়াম
ভূমিকা উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান, ম্যাচ রেফারি
সম্পর্ক এসসিজে ব্রড (পুত্র)
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৫০৬)
২৮ জুন ১৯৮৪ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ
শেষ টেস্ট ১৭ জুন ১৯৮৯ বনাম অস্ট্রেলিয়া
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ৯০)
১ জানুয়ারি ১৯৮৭ বনাম অস্ট্রেলিয়া
শেষ ওডিআই ২৪ মে ১৯৮৮ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছর দল
১৯৭৯-১৯৮৩ গ্লুচেস্টারশায়ার
১৯৮৪-১৯৯২ নটিংহ্যামশায়ার
১৯৮৫-১৯৮৬ অরেঞ্জ ফ্রি স্টেট
১৯৯৩-১৯৯৪ গ্লুচেস্টারশায়ার
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই এফসি এলএ
ম্যাচ সংখ্যা ২৫ ৩৪ ৩৪০ ৩১৯
রানের সংখ্যা ১৬৬১ ১৩৬১ ২১৮৯২ ১০৩৯৬
ব্যাটিং গড় ৩৯.৫৪ ৪০.০২ ৩৮.০৭ ৩৪.৭৬
১০০/৫০ ৬/৬ ১/১১ ৫০/১০৫ ১১/৬৮
সর্বোচ্চ রান ১৬২ ১০৬ ২২৭* ১২২
বল করেছে ১৬৩১ ১০২৭
উইকেট ১৬ ২৫
বোলিং গড় ৬৪.৮১ ৩৬.৮০
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট - -
সেরা বোলিং ২/১৪ ৩/৪৬
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১০/– ১০/– ১৮৯/– ৮২/–
উৎস: ক্রিকেটআর্কাইভ, ২১ জানুয়ারি ২০১৬

ব্রায়ান ক্রিস্টোফার ব্রড (ইংরেজি: Brian Christopher Broad; জন্ম: ২৯ সেপ্টেম্বর, ১৯৫৭) ব্রিস্টলের নোল এলাকায় জন্মগ্রহণকারী সাবেক ইংরেজ ক্রিকেটার ও ধারাভাষ্যকার।[১] ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের উদ্বোধনী ব্যাটসম্যানের দায়িত্ব পালন করেছেন। একদিনের আন্তর্জাতিকে ৪০-এরও অধিক রান গড়ের অধিকারী ব্রড ১৯৮৬-৮৭ মৌসুমের অ্যাশেজ সিরিজে ধারাবাহিকভাবে তিন টেস্ট সেঞ্চুরি করে স্মরণীয় হয়ে আছেন। সচরাচর তিনি ক্রিস ব্রড নামেই অধিক পরিচিত। বর্তমানে তিনি আইসিসি’র ক্রিকেট কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

ব্রিস্টলের নোলে ২৯ সেপ্টেম্বর, ১৯৫৭ তারিখে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। কেন ও ন্যান্সি দম্পতির সন্তান ব্রড ১৫ বছর বয়স থেকে অস্থিজনিত রোগে ভুগতে থাকেন যা ক্রিকেটার হিসেবে নিজেকে গড়ে তুলতে বিলম্ব ঘটায়।[২] ১৯৭৯ সালে গ্লুচেস্টারশায়ার দলের পক্ষে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অভিষিক্ত হন ব্রড। পরের গ্রীষ্ম থেকেই তিনি দলে স্থায়ীভাবে আসন গড়েন।[২] নটিংহ্যামশায়ার দলের পাশাপাশি অরেঞ্জ ফ্রি স্টেট দলের পক্ষে খেলার পর তিনি পুণরায় ১৯৯৩ সালে গ্লুচেস্টারশায়ারে ফিরে আসেন।[১] কোমড়ের আঘাতজনিত কারণে ১৯৯৪ মৌসুম শেষে খেলোয়াড়ী জীবন থেকে অবসর নেন।[২]

ব্রডের সন্তানেরা ক্রিকেটের সাথে সম্পৃক্ত রয়েছে। তাঁর পুত্র স্টুয়ার্ট ব্রড পিতার পদাঙ্ক অনুসরণ করে ফাস্ট বোলাররূপে প্রতিষ্ঠিতি পেয়েছেন। স্টুয়ার্ট ইংল্যান্ড ক্রিকেট দল ও নটিংহ্যামশায়ার দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। তাঁর কন্যা গেমা ইংল্যান্ডের একদিনের দলের প্রদর্শন বিশ্লেষকের দায়িত্ব পালন করছেন।[৩] ক্রিকেট সাংবাদিক কলিন বেটম্যান মন্তব্য করেন, ক্রিস ব্রড স্বেচ্ছায় নিজের খেলোয়াড়ী জীবনকে ধ্বংস করেছেন। ক্রিজে নিজেকে সংযত রাখতে অনীহার ফলে মাত্র ৩০ বছর বয়সে ইংল্যান্ডের উদ্বোধনী ব্যাটসম্যানের দায়িত্ব থেকে চলে যেতে বাধ্য হয়েছেন।[১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Bateman, Colin (১৯৯৩)। If The Cap Fits। Tony Williams Publications। পৃ: ৩১। আইএসবিএন 1-869833-21-X 
  2. Chris Broad retrieved 17 February 2008
  3. "I don't want to live with Motor Neurone Disease to the bitter end... I've made plans, says mother of cricketer Stuart Broad"Daily Mail। ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১০। 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]