ডেসমন্ড হেইন্স

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ডেসমন্ড হেইন্স
Haynes Gough.jpg
২০০৭ সালে ডেসমন্ড হেইন্স (বায়ে)
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নাম ডেসমন্ড লিও হেইন্স
জন্ম (১৯৫৬-০২-১৫) ১৫ ফেব্রুয়ারি ১৯৫৬ (বয়স ৬০)
সেন্ট জেমস, বার্বাডোস
ব্যাটিংয়ের ধরণ ডানহাতি
বোলিংয়ের ধরণ ডানহাতি লেগ ব্রেক / মিডিয়াম পেস
ভূমিকা অধিনায়ক
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক (ক্যাপ ১৬৩) ৩ মার্চ ১৯৭৮ বনাম অস্ট্রেলিয়া
শেষ টেস্ট ১৩ এপ্রিল ১৯৯৪ বনাম ইংল্যান্ড
ওডিআই অভিষেক (ক্যাপ ২৫) ২২ ফেব্রুয়ারি ১৯৭৮ বনাম অস্ট্রেলিয়া
শেষ ওডিআই ৫ মার্চ ১৯৯৪ বনাম ইংল্যান্ড
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছর দল
১৯৭৬–১৯৯৫ বার্বাডোস
১৯৮৯–১৯৯৪ মিডলসেক্স
১৯৯৪–১৯৯৭ ওয়েস্টার্ন প্রভিন্স
১৯৮৩ স্কটল্যান্ড
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই এফসি এলএ
ম্যাচ সংখ্যা ১১৬ ২৩৮ ৩৭৬ ৪১৯
রানের সংখ্যা ৭,৪৮৭ ৮,৬৪৮ ২৬,০৩০ ১৫,৬৫১
ব্যাটিং গড় ৪২.২৯ ৪১.২৭ ৪৫.৯০ ৪২.০৭
১০০/৫০ ১৮/৩৯ ১৭/৫৭ ৬১/১৩৮ ২৮/১১০
সর্বোচ্চ রান ১৮৪ ১৫২* ২৫৫* ১৫২*
বল করেছে ১৮ ৩০ ৫৩৬ ৭৮০
উইকেট
বোলিং গড় ৮.০০ ৩৪.৮৭ ৬৫.৭৭
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট - -
সেরা বোলিং ১/২ ১/২ ১/৯
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৬৫/– ৫৯/– ২০২/১ ১১৭/–
উত্স: ক্রিকইনফো, ৩ নভেম্বর ২০১৬

ডেসমন্ড লিও হেইন্স (ইংরেজি: Desmond Haynes; জন্ম: ১৫ ফেব্রুয়ারি, ১৯৫৬) বার্বাডোসের সেন্ট জেমসে জন্মগ্রহণকারী সাবেক ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান ক্রিকেটার। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য হিসেবে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ব্যাটিংয়ে অভ্যস্ত ছিলেন। পাশাপাশি তিনি ডানহাতি লেগ ব্রেক/মিডিয়াম পেস বোলিং করতে পারতেন। ১৯৮০-এর দশকে গর্ডন গ্রীনিজকে সাথে নিয়ে টেস্টের অনেকগুলো ইনিংসে জুটি গড়েছিলেন ডেসমন্ড হেইন্স। অবসর-পরবর্তীকালে তিনি ক্রিকেট কোচের দায়িত্ব পালন করেন।

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে হেইন্স ১১৬টি টেস্ট খেলেন। ৪২.২৯ রান গড়ে তিনি সর্বমোট ৭,৪৮৭ রান সংগ্রহ করেন। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ১৯৮৪ সালে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ১৮৪ রান করেন ৩৯৫ বল খেলে। ২৪ নভেম্বর, ১৯৮৩ তারিখে ভারতের বিপক্ষে হ্যান্ডলড দ্য বলে আউট হন যা বেশ দুর্লভ ঘটনা। টেস্ট ক্রিকেটে তিনি ও গর্ডন গ্রীনিজ জুটি ১৬টি শতরানের জুটি গড়েন। তন্মধ্যে চারটি ছিল দুইশত রানের। এ জুটিটি ৬,৪৮২ রান তোলে যা টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রানের জুটি।[১]

এছাড়াও তিনি একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট অভিষেকেই সেঞ্চুরি করার কীর্তিগাঁথা রচনা করেন। ২২ ফেব্রুয়ারি, ১৯৭৮ তারিখে এন্টিগুয়ায় অনুষ্ঠিত ওডিআইয়ে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে তাঁর এ শতক আন্তর্জাতিক ক্রিকেটাঙ্গনে সকলের নজর কাড়ে।[২] এ শতকটি অভিষেকে যে-কোন ব্যাটসম্যানের সর্বোচ্চ ও দ্রুততম হিসেবে এপ্রিল, ২০১৬ সাল পর্যন্ত চিহ্নিত হয়ে আছে।[৩] খেলায় তাঁর দল জয় পেয়েছিল।[৪] ১৯৭৯ থেকে ১৯৯২ সালে বিশ্বকাপ ক্রিকেট প্রতিযোগিতায় তিনি ২৫ খেলায় অংশগ্রহণ করেন ও ৩৭.১৩ রান গড়ে ৩টি অর্ধ-শতক ও ১টি শতকসহ সর্বমোট ৮৫৪ রান তোলেন। ইংল্যান্ডের ডেনিস অ্যামিসের পর বিশ্বের দ্বিতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে অভিষেক ও সর্বশেষ ওডিআই খেলায় সেঞ্চুরি করার কীর্তিগাঁথা রচনা করেন হেইন্স।

বিতর্ক[সম্পাদনা]

১৯৮৯-৯০ মৌসুমে ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের বিপক্ষে অনুষ্ঠিত খেলায় তাঁর বিরুদ্ধে কালক্ষেপণের অভিযোগ উঠে।[৫] ১৯৯০-৯১ মৌসুমে অস্ট্রেলিয়া সফরে অনুষ্ঠিত সিরিজে ইয়ান হিলি, মার্ভ হিউজ, ক্রেগ ম্যাকডারমটডেভিড বুনের সাথে মৌখিক তর্কাতর্কিতে জড়িয়ে পড়েন হেইন্স। তারা তাঁকে ডেসি নামে ডাকার ফলেই এ ঘটনা ঘটেছিল।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ESPNCricinfo (2011). ESPNCricinfo Partnership records. Retrieved 20 August 2011.
  2. Menon, Mohandas (২ ডিসেম্বর ২০১৪)। "Hughes – a tribute in numbers"Wisden India Almanack। সংগৃহীত ২৩ জুলাই ২০১৫ 
  3. http://stats.espncricinfo.com/ci/content/records/233754.html
  4. "Australia tour of West Indies, 1st ODI: West Indies v Australia at St John's, Feb 22, 1978"। ESPNcricinfo। সংগৃহীত ৩০ মে ২০১৫ 
  5. Selvey, Mike। "Player Profile: Desmond Haynes"। CricInfo। সংগৃহীত ১ আগস্ট ২০০৯ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

পূর্বসূরী
ভিভ রিচার্ডস
ওয়েস্ট ইন্ডিজের টেস্ট ক্রিকেট অধিনায়ক
১৯৮৯/৯০-১৯৯০/৯১
উত্তরসূরী
ভিভ রিচার্ডস