বিষয়বস্তুতে চলুন

তাঁতের শাড়ি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
তাঁতের শাড়ি

তাঁতের শাড়ি হলো একটি ঐতিহ্যবাহী বাঙালি শাড়ি, যা বাংলাদেশের টাংগাইল জেলা থেকে উদ্ভূত এবং সাধারণত বাঙালি মহিলারা ব্যবহার করেন। তাঁতের শাড়ি সুতির সুতো থেকে বোনা হয় এবং এর হালকাতা এবং স্বচ্ছতার দ্বারা আলাদা করা হয়। ভারতীয় উপমহাদেশে গরম এবং আর্দ্র আবহাওয়ার জন্য এটি সবচেয়ে আরামদায়ক শাড়ি বলে বিবেচিত হয়।[১]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

রাজকীয় নির্দেশনায় তাঁত (বিশেষ করে জামদানি) এবং মসলিন মুঘল যুগে ঢাকা (বর্তমানে ঢাকা, বাংলাদেশ) এবং মুর্শিদাবাদ (বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গ, ভারত) এর আশেপাশে বিখ্যাত হয়ে ওঠে।[২] ব্রিটিশ সরকার ম্যানচেস্টারের টেক্সটাইল শিল্পকে রক্ষা করার জন্য এই শিল্পকে ধ্বংস করার চেষ্টা করেছিল, কিন্তু তাঁত সংস্কৃতি টিকে থাকতে সক্ষম হয়েছিল।

একটি বাঙালি পরিবারের একটি ঐতিহ্যবাহী বাঙালি তাঁত শাড়ি, ২০১৯।

১৯৪৭ সালের বিভাজনের সময় বঙ্গ প্রদেশের বিভক্তির সাথে সাথে কিছু তাঁতি পশ্চিমবঙ্গে চলে আসেন এবং সেখানে তাদের কারুশিল্প অব্যাহত রাখেন। এইভাবে তাঁত তাঁতিদের এখন দুই বাংলাতেই দেখা যায়।[৩]

বুনন পদ্ধতি[সম্পাদনা]

বাঁকুড়ার বিষ্ণুপুরের কাছে তাঁত শাড়ি তৈরি।

তাঁত শাড়ির বুনন বিখ্যাত এবং বাংলার প্রাচীন কারুশিল্প। কারিগররা নিপুণভাবে তুলোকে সুতোয় বুনে যা তাঁত শাড়িতে বোনা হয়। এই উদ্দেশ্যে দুটি শাটল ব্যবহার করা হয়। ঐতিহ্যগতভাবে, তাঁতিরা তাঁত ব্যবহার করত, যা বর্তমানে এই শাড়ি বুনতে পাওয়ার লুম দ্বারা প্রতিস্থাপিত হয়েছে।

শৈল্পিক প্রেক্ষাপট এবং মোটিফ[সম্পাদনা]

সাধারণ তাঁত শাড়ি একটি পুরু সীমানা এবং একটি আলংকারিক পল্লব দ্বারা চিহ্নিত করা হয়, যেখানে বিভিন্ন ধরনের ফুল, পেসলে এবং অন্যান্য শৈল্পিক মোটিফ ব্যবহার করে বোনা হয়। কিছু জনপ্রিয় ঐতিহ্যবাহী নকশা হল: ভোমরা (বাম্বল বি), তাবিজ (তাবিজ), রাজমহল (রাজপ্রাসাদ), অর্ধ-চন্দ্র (অর্ধচন্দ্র), চাঁদমালা (চাঁদের মালা), আঁশ (মাছের স্কেল), হাতি (হাতি), নীলাম্বরী (নীল আকাশ), রতন চোখ (মণি-চোখ), বেঙ্কি (সর্পিল), তারা (তারা), কালকা (পাইসলে) এবং ফুল (ফুল)। মুদ্রিত, হাতে আঁকা এবং এমব্রয়ডারি করা প্যাটার্নগুলি আরও বড় ধরনের ডিজাইন পেতে ব্যবহৃত হয়।[৩] ফ্লোরাল এলিমেন্ট, সোলার এলিমেন্ট এবং সম্প্রতি এমনকি আধুনিক শিল্প সহ বিভিন্ন মোটিফ এই শাড়িতে চিত্রিত করা হয়েছে।[৪] তাঁত শাড়ি রঙিন ডিজাইনের সাথে আসে[৫] এবং সীমানা আরও ঘন করা হয় কারণ এটি সহজেই ছিঁড়ে যায়।

জামদানি বুননের ঐতিহ্যবাহী শিল্প, যাকে সর্বোত্তম বৈচিত্র্যময় তাঁত পোশাক হিসেবে বিবেচনা করা হয়, এটি ইউনেস্কো কর্তৃক মানবতার অস্পষ্ট সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য হিসেবে তালিকাভুক্ত হয়েছে।

বাংলাদেশ এবং পশ্চিমবঙ্গের সাধারণ বাঙালি মহিলাদের পাশাপাশি, অনেক বিশিষ্ট বাঙালি মহিলা ব্যক্তিত্বও তাদের নিয়মিত পোশাক হিসাবে তাঁত শাড়ি পরতে পছন্দ করেন। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বাংলাদেশ সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী, পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য।

যত্ন[সম্পাদনা]

এটি সুপারিশ করা হয় যে প্রথম ধোয়ার আগে, তাঁত শাড়িগুলিকে শিলা লবণ মিশ্রিত গরম জলে অল্প সময়ের জন্য ভিজিয়ে রাখা উচিত, যাতে পরবর্তী ধোয়ার সময় শাড়ির রঙ বেরিয়ে না আসে। হালকা ডিটারজেন্ট দিয়ে ধুয়ে, তারপরে স্টার্চিং এবং তারপরে ছায়াযুক্ত জায়গায় শুকানোর জন্য ঝুলিয়ে রাখলে এই সুতির শাড়িগুলির দীর্ঘায়ু নিশ্চিত হবে।[৬]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Subodh Kapoor (১ জুলাই ২০০২)। The Indian Encyclopaedia। Cosmo Publications। পৃষ্ঠা 6422। আইএসবিএন 978-81-7755-257-7। সংগ্রহের তারিখ ৭ নভেম্বর ২০১২ 
  2. G. K. Ghosh; Shukla Ghosh (১৯৯৫)। Indian Textiles: Past and Present। APH Publishing। পৃষ্ঠা 39–। আইএসবিএন 978-81-7024-706-7 
  3. "Parinita - tant saree background" 
  4. "Nutan Fulia Tantubay Samabay samity Ltd." 
  5. Bimcy, Sr; Sisily, Sr. Bincy & Sr। Spotlight Social Studies 4আইএসবিএন 978-81-7172-516-8 
  6. "Parinita - tant saree care"