মুস্তাফিজুর রহমান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
মুস্তাফিজুর রহমান
Mustafiz with his familly; photo taken by Masum Ibn Musa (cropped).JPG
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নাম মুস্তাফিজুর রহমান
জন্ম (১৯৯৫-০৯-০৬) ৬ সেপ্টেম্বর ১৯৯৫ (বয়স ২২)
সাতক্ষীরা, খুলনা, বাংলাদেশ
উচ্চতা ৫ ফু ১১ ইঞ্চি (১.৮০ মি)
ব্যাটিংয়ের ধরন বামহাতি ব্যাটসম্যান
বোলিংয়ের ধরন বামহাতি মিডিয়াম-ফাস্ট
ভূমিকা বোলার
সম্পর্ক আবুল কাসেম গাজী (বাবা)
মাহফুজা খাতুন (মা)
মাহফুজুর রহমান (বড় ভাই)
মোখলেছুর রহমান পল্টু (সেজো ভাই)
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৭৮)
২১ জুলাই ২০১৫ বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা
শেষ টেস্ট ১৫ মার্চ ২০১৭ বনাম শ্রীলঙ্কা
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ১১৮)
১৮ জুন ২০১৫ বনাম ভারত
শেষ ওডিআই ১ এপ্রিল ২০১৭ বনাম শ্রীলঙ্কা
ওডিআই শার্ট নং ৯০
টি২০আই অভিষেক
(ক্যাপ ৪৪)
২৪ এপ্রিল ২০১৫ বনাম পাকিস্তান
শেষ টি২০আই ৬ এপ্রিল ২০১৭ বনাম শ্রীলঙ্কা
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছর দল
২০১৪-বর্তমান খুলনা বিভাগ
২০১৬-বর্তমান মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব
২০১৫-বর্তমান ঢাকা ডায়নামাইটস
২০১৬-বর্তমান লাহোর কালান্দার্স
২০১৬-বর্তমান সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদ
২০১৬-বর্তমান সাসেক্স কাউন্টি ক্রিকেট ক্লাব
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই টি২০আই এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ১৪ ১৭ ১৯
রানের সংখ্যা ১৬ ৩৮
ব্যাটিং গড় ১.৭৫ ৫.৩৩ ৩.৮০
১০০/৫০ -/- ০/০ -/- ০/০
সর্বোচ্চ রান ১৪
বল করেছে ৬০৪ ৭২৫ ৩৯২ ২৭১৮
উইকেট ১২ ৩৬ ২৭ ৫৬
বোলিং গড় ২৩.১৬ ১৬.২৭ ১৪.৯২ ২০.১৯
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ৪/৩৭ ৬/৪৩ ৫/২২ ৫/২৮
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং -/- ৩/– ৩/– ৪/–
উৎস: ইএসপিএন ক্রিকইনফো, 07 এপ্রিল ২০১৭

মুস্তাফিজুর রহমান (জন্ম: ৬ সেপ্টেম্বর, ১৯৯৫) সাতক্ষীরায় জন্মগ্রহণকারী বাংলাদেশের উদীয়মান ক্রিকেটার[১][২] বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য হিসেবে দলে তিনি বাহাতি মিডিয়াম বোলিং করে থাকেন। বিশ্বের একমাত্র খেলোয়াড় হিসেবে তিনি তার প্রথম দুই ম্যাচে এগারোটি উইকেট লাভ করেন।[৩] ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে আবাহনী লিমিটেড, খুলনা বিভাগের প্রতিনিধিত্ব করছেন তিনি। এছাড়া ২০১৬ সালে অনুষ্ঠিত আইপিএলে তিনি "সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদ" দলে খেলছেন । এবং সম্প্রতি ইংল্যান্ডের ন্যাটওয়েস্ট টি২০ -তে সাসেক্স ক্রিকেট ক্লাবের হয়ে খেলেছেন তিনি । তিনিই একমাত্র খেলোয়াড় যিনি উভয় একদিনের আন্তর্জাতিক এবং টেস্টের অভিষেকে 'ম্যান অফ দ্যা ম্যাচ' পুরস্কার লাভ করেন।

আইসিসি ঘোষিত ২০১৫ সালে আইসিসি বর্ষসেরা দলে অন্তর্ভুক্ত হন।[৪]

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

খুলনা বিভাগের সাতক্ষীরা জেলার[৫] তেঁতুলিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণকারী বামহাতি পেসার মুস্তাফিজুর রহমান ২০১২ সালে ফাস্ট-বোলারদের ক্যাম্পে অংশগ্রহণের উদ্দেশ্যে ঢাকায় আসেন। নিজ শহর সাতক্ষীরায় অনুষ্ঠিত অনূর্ধ্ব-১৭ প্রতিযোগিতায় চমকপ্রদ ক্রীড়ানৈপুণ্য প্রদর্শন করেন। এরপর তাকে বিসিবি’র পেস ফাউন্ডেশনে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দলে থাকাকালীন দল নির্বাচকমণ্ডলী কর্তৃক ২০১৫ সালের বিশ্বকাপের জন্যও তিনি মনোযোগ আকর্ষণ করেন।

২০১৩-১৪ মৌসুমে খুলনার পক্ষে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে তার অভিষেক ঘটে। এরপর সংযুক্ত আরব আমিরাতে অনুষ্ঠিত অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপে আট উইকেট লাভ করেন। এরফলে ওয়েস্ট ইন্ডিজে বাংলাদেশ এ দলের সফরে অন্যতম সদস্য মনোনীত হন। এ সংক্ষিপ্ত সফরের পর অন্যতম সেরা বোলার হিসেবে তিনি বিবেচিত হন ও ধীরে ধীরে বলের বৈচিত্র্যতা বৃদ্ধিতে সচেষ্ট হন। শুরুতে তার বলে পেস কম থাকলেও ২০১৪-১৫ মৌসুমে ১৯.০৮ গড়ে ২৬ উইকেট দখল করেন।

নিজ পরিবারের সাথে মুস্তাফিজুর

আন্তর্জাতিক খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিক[সম্পাদনা]

ঘরোয়া ক্রিকেটে দূর্দান্ত ক্রীড়াশৈলী প্র্রদর্শন করায় ২৪ এপ্রিল, ২০১৫ তারিখে সফরকারী পাকিস্তান জাতীয় ক্রিকেট দলের বিরুদ্ধে একমাত্র টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিকে তাকে দলের সদস্য করা হয়। খেলায় তিনি শহীদ আফ্রিদিমোহাম্মদ হাফিজের উইকেট পান। মিরপুরের শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত একমাত্র টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার।[৬] খেলায় বাংলাদেশ দল প্রথমবারের মতো পাকিস্তানের বিপক্ষে টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিকে ৭ উইকেটের বিশাল ব্যবধানে জয়লাভ করে।

একদিনের আন্তর্জাতিক[সম্পাদনা]

এর দুইমাস পর ১৯ জুন, ২০১৫ তারিখে সফরকারী ভারতীয় জাতীয় ক্রিকেট দলের বিপক্ষে তার একদিনের আন্তর্জাতিকে অভিষেক ঘটে। অভিষেক ম্যাচেই তিনি ৫ উইকেট লাভ করেন এবং ম্যাচ সেরা নির্বাচিত হন। তার পরে ২১ জুনেও ভারতের বিপক্ষে ৪৩ রানের বিনিময়ে ৬ উইকেট নিয়ে ম্যাচ সেরা হন। জীবনের প্রথম দুই ম্যাচে ১১ উইকেট নিয়ে তিনি বিশ্বরেকর্ড গড়েন৷ ব্রায়ান ভিটোরি’র পর দ্বিতীয় বোলার হিসেবে প্রথম দুইটি ওডিআইয়ে পাঁচ-উইকেট লাভের বিরল কীর্তিগাথা রচনা করেন মুস্তাফিজুর।

মুস্তাফিজুর তার প্রথম দুইটি ওডিআইয়ে ৫/৫০ ও ৬/৪৩ লাভ করেন। তার এ ক্রীড়ানৈপুণ্যে ওডিআইয়ের ইতিহাসেব যে-কোন বোলারের তুলনায় সেরা। তার এ অসম্ভব বোলিংয়ের ফলে ২০১১ সালে জিম্বাবুয়ের ব্রায়ান ভিটোরি’র বাংলাদেশের বিপক্ষে ৫/৩০ ও ৫/২০ ম্লান হয়ে যায়। ভারতকে তিনি তৃতীয়বার ২০০ বা তার নিচে রান তুলতে বাধ্য করান। এরফলে বাংলাদেশ পঞ্চমবারের মতো ভারতের বিপক্ষে জয় পায়। এ জয়ে বাংলাদেশ আইসিসি র‌্যাঙ্কিংয়ে ৯৩ পয়েন্ট নিয়ে ৭ম স্থানে উত্তরণ ঘটায়। দ্বিতীয় ওডিআইয়ে মুস্তাফিজুরের ৬/৪৩ বোলিং পরিসংখ্যান বাংলাদেশী বোলারদের মধ্যে তৃতীয় সেরা। তার পূর্বে মাশরাফি বিন মর্তুজা ৬/২৬ (ব কেনিয়া, ২০০৬) ও রুবেল হোসেন ৬/২৬ (ব নিউজিল্যান্ড, ২০১৩) রয়েছেন।[৭]

সম্মাননা[সম্পাদনা]

ক্রিকেটের বৈশ্বিক পরিচালনা পরিষদ আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল কর্তৃক ২০১৫ সালের আইসিসি ওডিআই বর্ষসেরা দলের অন্যতম সদস্য হিসেবে তাকে মনোনীত করে। মূলতঃ ঐ বছরের শীর্ষস্থানীয় ক্রিকেটারদের একজনরূপে গণ্য করায় তাকে এ সম্মাননায় ভূষিত করা হয়।এরফলে প্রথম বাংলাদেশী ক্রিকেটার হিসেবে তিনি এ বিরল সম্মানের অধিকারী হন। এছাড়াও, সাকিব আল হাসানের পর দ্বিতীয় বাংলাদেশী ক্রিকেটার হিসেবে আইসিসি'র যে-কোন দলে দ্বিতীয় ব্যক্তি তিনি। ২০১৫-১৬ মৌসুমে আইসিসির বর্ষসেরা উদীয়মান ক্রিকেটার হয়েছেন এই বাঁহাতি পেসার। ”প্রথম আলো” বর্ষসেরা ক্রীড়া পুরস্কার (২০১৫ সালের জন্য, পেয়েছেন এ বছর)

রেকর্ডসমূহ[সম্পাদনা]

  • ওডিআই অভিষেকে বিশ্বের ১০ম বোলার হিসেবে পাঁচ-উইকেট পান।[৮]
  • বিশ্বের ৪র্থ বোলার হিসেবে প্রথম দুই ওডিআইয়ে ম্যান অব দ্য ম্যাচ পুরস্কার পান।[৯]

আন্তর্জাতিক পারফরমেন্স[সম্পাদনা]

একদিনের আন্তর্জাতিকে পাঁচ উইকেট প্রাপ্তি[সম্পাদনা]

মুস্তাফিজুর রহমানের একদিনের আন্তর্জাতিকে পাঁচ উইকেট লাভ
# পরিসংখ্যান ম্যাচ প্রতিপক্ষ শহর/দেশ মাঠ বছর ফলাফল
৫/৫০  ভারত বাংলাদেশ ঢাকা, বাংলাদেশ শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়াম ২০১৫ বিজয়ী
৬/৪৩  ভারত বাংলাদেশ ঢাকা, বাংলাদেশ শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়াম ২০১৫ বিজয়ী
৫/৩৪  জিম্বাবুয়ে বাংলাদেশ ঢাকা, বাংলাদেশ শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়াম ২০১৫ বিজয়ী

টুয়েন্টি আন্তর্জাতিকে পাঁচ উইকেট প্রাপ্তি[সম্পাদনা]

মুস্তাফিজুর রহমানের টুয়েন্টি আন্তর্জাতিকে পাঁচ উইকেট লাভ
# পরিসংখ্যান ম্যাচ প্রতিপক্ষ শহর/দেশ মাঠ বছর ফলাফল
৫/২২  নিউজিল্যান্ড ভারত কলকাতা, ভারত ইডেন গার্ডেনস ২০১৬ হার

আন্তর্জাতিক পুরস্কার[সম্পাদনা]

টেস্ট ক্রিকেট[সম্পাদনা]

ম্যাচসেরা পুরস্কার[সম্পাদনা]

নং সিরিজ মৌসুম ম্যাচে পারফরমেন্স ফলাফল
১ম টেস্ট – বাংলাদেশে দক্ষিণ আফ্রিকা টেস্ট সিরিজ ২০১৫ ১ম ইনিংস: ১৭.৪-৬-৩৭-৪; ৩ (১৩ বল: ০×৪, ০×৬)
২য় ইনিংস: ৫–০–২১–০ ; ব্যাট করেনি
ম্যাচ ড্র হয়।[১০]

একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

ম্যাচসেরা পুরস্কার[সম্পাদনা]

নং বিপক্ষ মাঠ তারিখ ম্যাচে পারফরমেন্স ফলাফল
ভারত শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়াম, ঢাকা ১৮ জুন ২০১৫ ০* (০), ৯.২–১–৫০–৫  বাংলাদেশ ৭৯ রানে বিজয়ী।[১১]
ভারত শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়াম, ঢাকা ২১ জুন ২০১৫ ১০-০-৪৩-৬; ব্যাট করেনি  বাংলাদেশ ৬ উইকেটে বিজয়ী (ডি/এল)।[১২]

সিরিজ সেরা পুরস্কার[সম্পাদনা]

# সিরিজ মৌসুম সিরিজে পারফরমেন্স ফলাফল
বাংলাদেশে ভারত ২০১৫ ২ বার ৫ উইকেট অর্জন সহ ১৩ উইকেট। গড় ১১.৫৩
৯ রান। গড় ৯.০০ ; ১টি ক্যাচ (৩ ম্যাচ)
 বাংলাদেশ ২-১'এ সিরিজ জয় করে।[১৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Mustafizur Rahman"Cricinfo। সংগৃহীত ২৪ এপ্রিল ২০১৫ 
  2. "The Home of CricketArchive"cricketarchive.com। সংগৃহীত ২৪ এপ্রিল ২০১৫ 
  3. "‘রত্ন’ মুস্তাফিজে বিস্মিত সাকিব"। shahriar। প্রথম আলো। ২২:০৬, জুন ২১, ২০১৫। সংগৃহীত জুন ২১, ২০১৫ 
  4. http://www.espncricinfo.com/bangladesh/content/story/947671.html
  5. "Mustafizur Rahman"ESPNcricinfo। সংগৃহীত ১৬ জানুয়ারি ২০১৬ 
  6. "Uncapped Litton, Mustafizur in Bangladesh T20 squad"espncricinfo। ২৪ এপ্রিল ২০১৫। সংগৃহীত ২২ এপ্রিল ২০১৫ 
  7. Jeswant, Bishen (২০১৫-৬-২৪)। "Mustafizur's record-breaking ODI genesis, Bangladesh v India, 2nd ODI, Mirpur"Cricinfo। সংগৃহীত ২০১৫-৬-২১ 
  8. "Mustafizur Rahman sets another world record against India"oneindia.com। সংগৃহীত ২০১৫-০৭-১০ 
  9. "Mustafizur Rahman – 4th player to receive 2 Man of the Match awards in his first 2 ODIs"। Yahoo News। ২২ জুন ২০১৫। সংগৃহীত ২৪ জুন ২০১৫ 
  10. "South Africa tour of Bangladesh, 1st Test: Bangladesh v South Africa at Chittagong, Jul 21–25, 2015"ESPNcricinfo। সংগৃহীত ১৯ জানুয়ারি ২০১৬ 
  11. "India tour of Bangladesh, 1st ODI: Bangladesh v India at Dhaka"ESPNcricinfo। জুন ১৮, ২০১৫। সংগৃহীত ২২ জুন ২০১৫ 
  12. "India tour of Bangladesh, 2nd ODI: Bangladesh v India at Dhaka"ESPNcricinfo। জুন ১৮, ২০১৫। সংগৃহীত ২২ জুন ২০১৫ 
  13. "India in Bangladesh ODI Series, 2015"ESPNcricinfo। সংগৃহীত ১২ জুলাই ২০১৫ 

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]


পূর্বসূরী
তাসকিন আহমেদ
(১৭ জুন, ২০১৪ ব ভারত)
ওডিআই অভিষেকে ৫-উইকেট লাভকারী বাংলাদেশী ক্রিকেটার
(১৮ জুন, ২০১৫ ব ভারত)
উত্তরসূরী
কাগিসো রাবাদা
(১০ জুলাই, ২০১৫ ব বাংলাদেশ