সুনীল নারাইন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
সুনীল নারাইন
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামসুনীল ফিলিপ নারাইন
জন্ম (1988-05-26) ২৬ মে ১৯৮৮ (বয়স ৩০)
ত্রিনিদাদ, ত্রিনিদাদ ও টোবাগো
ব্যাটিংয়ের ধরনবামহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি অফ ব্রেক
ভূমিকাবোলার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ২৯৫)
৭ জুন ২০১২ বনাম ইংল্যান্ড
শেষ টেস্ট২৫ নভেম্বর ২০১২ বনাম বাংলাদেশ
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ১৬২)
৫ ডিসেম্বর ২০১১ বনাম ভারত
শেষ ওডিআই২৫ জুলাই ২০১৩ বনাম পাকিস্তান
ওডিআই শার্ট নং৭৪
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
২০০৯–২০১৬ত্রিনিদাদ ও টোবাগো
২০১২–বর্তমানকলকাতা নাইট রাইডার্স
২০১২–২০১৩সিডনি সিক্সার্স
২০১৩বরিশাল বার্নার্স
২০১৫–২০১৬কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানস
২০১৩–২০১৫গায়ানা আমাজন ওয়ারিয়র্স
২০১৬–বর্তমানত্রিনবাগো নাইট রাইডার্স
২০১৬–বর্তমানমেলবোর্ন রেনেগেডস
২০১৭–বর্তমানলাহোর কালান্দার্স
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টি২০আই ওডিআই টেস্ট এলএ
ম্যাচ সংখ্যা ৩৪ ৫৬ ৭৩
রানের সংখ্যা ১৯৬ ২৯১ ৪০ ৩৭৯
ব্যাটিং গড় ২১.৭৭ ১০.৩৯ ৮.০০ ১০.৮২
১০০/৫০ ০/২ ০/০ ০/০ ০/০
সর্বোচ্চ রান ৭৯ ৩৬ ২২*
বল করেছে ৭৪৮ ৩,০১২ ১,৬৫০ ৩,৯১৮
উইকেট ৪০ ৮৩ ২১ ১১৬
বোলিং গড় ১৭.৭৫ ২৪.৪৯ ৪০.৫২ ২১.০১
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ৪/১২ ৬/২৭ ৬/৯১ ৬/৯
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৩/– ১২/– ২/– ১৫/–
উৎস: ইএসপিএনক্রিনইনফো, ৫ জুন ২০১৬

সুনীল ফিলিপ নারাইন (ইংরেজি: Sunil Philip Narine; জন্ম: ২৬ মে, ১৯৮৮) ত্রিনিদাদে জন্মগ্রহণকারী ক্রিকেটার। তিনি বর্তমানে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের হয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলছেন। মূলতঃ অফ-স্পিন বোলার হিসেবে দলে প্রধান ভূমিকা রাখছেন সুনীল নারাইন। পাশাপাশি বামহাতে ব্যাটিংও করে থাকেন। এছাড়াও, কলকাতা নাইট রাইডার্সের পক্ষাবলম্বন করে ২০১৮ মৌসুমে আইপিএলে খেলেছেন।

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

ফেব্রুয়ারি, ২০০৯ সালে রিজিওন্যাল ফোর ডে কম্পিটিশনের প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে ত্রিনিদাদ ও টোবাগো দলের হয়ে অভিষেক ঘটে সুনীলের। কিন্তু তেরো ওভার বোলিং করেও কোন উইকেট লাভ করতে পারেননি।[১] পরবর্তীতে প্রায় এক বছর তিনি কোন প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট খেলেননি।[২] ৫ ডিসেম্বর, ২০১১ তারিখে ভারতের বিপক্ষে একদিনের আন্তর্জাতিকে অভিষেক ঘটে তার। এরপর ৭ জুন, ২০১২ তারিখে টেস্টে অভিষিক্ত হন ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ড কর্তৃক ১১ জানুয়ারি, ২০১৫ তারিখে প্রকাশিত ২০১৫ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপের জন্য ১৫-সদস্যের চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করে। চূড়ান্ত তালিকার অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। কিন্তু তিনি তার নতুন বোলিং ভঙ্গিমায় সন্দিহান প্রকাশ করায় ২৭ জানুয়ারি নিজ নাম প্রত্যাহার করে নেন।[৩] এরফলে ২৯ জানুয়ারি তারিখে পরিবর্তিত খেলোয়াড় হিসেবে নিকিতা মিলারকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়।[৪]

সাফল্যগাঁথা[সম্পাদনা]

আইপিএলের ২০১২ মৌসুমে কলকাতা নাইট রাইডার্সের পক্ষে প্রথমবারের মতো খেলে প্রতি ওভারে মাত্র ৫.৪৭ রান প্রদান করে ২৪ উইকেট লাভ করেন। এরফলে তিনি প্রতিযোগিতার সেরা খেলোয়াড় মনোনীত হন।[৫] এরপর ২০১৩ মৌসুমের প্রথম হ্যাট্রিক করেন ১৬ এপ্রিল তারিখে মোহালির পিসিএ স্টেডিয়ামে কিংস ইলাভেন পাঞ্জাবের বিপক্ষে।[৬]

রহস্যময় বোলাররূপে নারাইন স্বীকৃতি পেয়েছেন। অফ ব্রেক বোলিংয়ের মাধ্যমে বলের বিভিন্ন রূপ প্রকাশের ফলে ব্যাটসম্যানদেরকে বিভ্রান্তি করাই এর মূল কারণ।[৭]

পুরস্কার ও খেলায় অবদান[সম্পাদনা]

টেস্ট ৫-উইকেট প্রাপ্তি[সম্পাদনা]

# বোলিং পরিসংখ্যান খেলা প্রতিপক্ষ মাঠ শহর দেশ বছর
৫/১৩২  নিউজিল্যান্ড স্যার ভিভিয়ান রিচার্ডস স্টেডিয়াম নর্থ সাউন্ড অ্যান্টিগুয়া ও বার্বুদা ২০১২
৬/৯১  নিউজিল্যান্ড সেডন পার্ক হ্যামিল্টন নিউজিল্যান্ড ২০১৩

ওডিআইয়ে ৫-উইকেট প্রাপ্তি[সম্পাদনা]

# বোলিং পরিসংখ্যান খেলা প্রতিপক্ষ মাঠ শহর দেশ Year
৫/২৭ ১৫  নিউজিল্যান্ড ওয়ার্নার পার্ক বাসেতেরে সেন্ট কিটস ও নেভিস ২০১২

আন্তর্জাতিক পুরস্কার[সম্পাদনা]

টেস্ট ক্রিকেট[সম্পাদনা]

ম্যান অব দ্য ম্যাচ[সম্পাদনা]

  • সারণীতে ক., বলতে ক্যাচ এবং স্ট্যা. বলতে স্ট্যাম্পিংকে বুঝানো হয়েছে।
# সিরিজ মৌসুম খেলায় অবদান ফলাফল
১ম টেস্ট – ওয়েস্ট ইন্ডিজ - নিউজিল্যান্ড টেস্ট সিরিজ ২০১২ ১ম ইনিংস - ৪৩-৯-১৩২-৫, ৪ (৮ বল, ১x৪); ২য় ইনিংস - ৪২-১৩-৯১-৪, ডিএনবি  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৯ উইকেটে জয়লাভ করে।[৮]

একদিনের আন্তর্জাতিক[সম্পাদনা]

ম্যান অব দ্য ম্যাচ[সম্পাদনা]

# সিরিজ মৌসুম খেলায় অবদান ফলাফল
ওয়েস্ট ইন্ডিজে নিউজিল্যান্ড ২০০৩ ২২ রান, ১৩ উইকেট (৫ খেলা)  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৪-১ ব্যবধানে সিরিজ জয় করে।[৯]

ম্যান অব দ্য ম্যাচ[সম্পাদনা]

ক্রমিক প্রতিপক্ষ মাঠ তারিখ খেলায় অবদান ফলাফল
অস্ট্রেলিয়া আর্নোস ভ্যাল স্টেডিয়াম, কিংস্টন ১৮ মার্চ, ২০১২ ৮-১-২৭-৪; ডিএনবি  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৫ উইকেটে বিজয়ী।[১০]
নিউজিল্যান্ড ওয়ার্নার পার্ক, বাসেতেরে ১৪ জুলাই, ২০১২ ৬* (৭ বল); ১০-১-২০-২  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২৪ রানে বিজয়ী।[১১]
নিউজিল্যান্ড ওয়ার্নার পার্ক, বাসেতেরে ৪ ডিসেম্বর, ২০০৭ ৬ (৯ বল); ১০-১-২৭-৫  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২০ রানে বিজয়ী।[১২]
পাকিস্তান প্রভিডেন্স স্টেডিয়াম, গায়ানা ১৬ জুলাই, ২০১৩ ১ (১ বল); ১০-১-২৬-৪  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৩৭ রানে বিজয়ী।[১৩]
বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়াম, গ্রেনাডা ২২ আগস্ট, ২০১৪ ৭* (৪ বল, ১x৬); ৭-০-১৩-৩  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১৭৭ রানে বিজয়ী।[১৪]

টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিক[সম্পাদনা]

ম্যান অব দ্য ম্যাচ[সম্পাদনা]

# সিরিজ তারিখ প্রতিপক্ষ খেলায় অবদান ফলাফল
ওয়েস্ট ইন্ডিজে নিউজিল্যান্ড ১ জুলাই, ২০১২ নিউজিল্যান্ড ডিএনবি; ৪-০-১২-৪  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৬১ রানে বিজয়ী।[১৫]
২০১২ আইসিসি বিশ্ব টুয়েন্টি২০ ১ অক্টোবর, ২০১২ নিউজিল্যান্ড ৩ (৪ বল); ৪-০-২০-৩ খেলা টাই। (নিউজিল্যান্ডের বিদায়)।[১৬]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. f51427 Trinidad and Tobago v Leeward Islands: Regional Four Day Competition 2008/09, CricketArchive, সংগ্রহের তারিখ ১০ জুন ২০১২ 
  2. First-class matches played by Sunil Narine, CricketArchive, সংগ্রহের তারিখ ১০ জুন ২০১২ 
  3. "NARINE WITHDRAWS FROM WEST INDIES CWC SQUAD"। ২৭ জানুয়ারি ২০১৫। ২ এপ্রিল ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জানুয়ারি ২০১৫ 
  4. "EVENT TECHNICAL COMMITTEE APPROVES REPLACEMENT IN WEST INDIES' SQUAD FOR THE ICC CRICKET WORLD CUP 2015"। ২৯ জানুয়ারি ২০১৫। ২ এপ্রিল ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জানুয়ারি ২০১৫ 
  5. We did it for Balaji – Gambhir, ESPNcricinfo, ২৭ মে ২০১২, সংগ্রহের তারিখ ১০ জুন ২০১২ 
  6. "Sunil Narine takes First Hat-Trick of IPL 2013"। ১ নভেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ মে ২০১৩ 
  7. Chopra, Akash। "Unravelling the Narine mystery"www.ESPNCricinfo.com। সংগ্রহের তারিখ ১৪ এপ্রিল ২০১৩ 
  8. "New Zealand tour of United States of America and West Indies, 2012 – Scorecard of 1st Test"ESPNcricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০১৫ 
  9. "New Zealand tour of United States of America and West Indies, 2012"ESPNcricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১২ জুন ২০১৫ 
  10. "Australia tour of West Indies, 2011/12 – Scorecard of 2nd match"ESPNcricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০১৫ 
  11. "New Zealand tour of United States of America and West Indies, 2012 – Scorecard of 4th match"ESPNcricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০১৫ 
  12. "New Zealand tour of United States of America and West Indies, 2012 – Scorecard of 5th match"ESPNcricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০১৫ 
  13. "Pakistan tour of West Indies, 2013 – Scorecard of 2nd match"ESPNcricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০১৫ 
  14. "Bangladesh tour of West Indies, 2014 – Scorecard of 2nd match"ESPNcricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০১৫ 
  15. http://www.espncricinfo.com/ci/engine/match/560922.html
  16. http://www.espncricinfo.com/ci/engine/match/533292.html

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]