২০১৫-১৬ জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট দলের বাংলাদেশ সফর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
২০১৫-১৬ জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট দলের বাংলাদেশ সফর
Flag of Bangladesh.svg
বাংলাদেশ
Flag of Zimbabwe.svg
জিম্বাবুয়ে
তারিখ ৫ নভেম্বর ২০১৫ – ১৫ নভেম্বর ২০১৫
অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা এল্টন চিগুম্বুরা
একদিনের আন্তর্জাতিক সিরিজ
ফলাফল ৩-ম্যাচের সিরিজ বাংলাদেশ ৩–০ তে জয়ী হয়
সর্বাধিক রান মুশফিকুর রহিম (১৫৬) এলটন চিগুম্বুরা (১৩৩)
সর্বাধিক উইকেট মুস্তাফিজুর রহমান (৮) তিনাশি প্যানিয়াঙ্গারা (৫)
সিরিজ সেরা মুশফিকুর রহিম (বাংলাদেশ)
টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিক সিরিজ
ফলাফল ২-ম্যাচের সিরিজ ১–১ এ ড্র হয়
সর্বাধিক রান তামিম ইকবাল (৫২) ম্যালকম ওয়ালার (১০৮)
সর্বাধিক উইকেট আল-আমিন হোসেন (৫) গ্রেইম ক্রিমার (৫)
সিরিজ সেরা ম্যালকম ওয়ালার (জিম্বাবুয়ে)
২০১৪-১৫ (পূর্ববর্তী) (পরবর্তী) নির্ধারিত হয়নি →

জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট দল ৫ নভেম্বর ২০১৫ থেকে ১৫ নভেম্বর ২০১৫ পর্যন্ত বাংলাদেশ সফর করে। সফরটি তিনটি একদিনের আন্তর্জাতিক (ওয়ানডে), দুটি টি২০ আন্তর্জাতিক এবং একটি অনুশীলন ম্যাচে নিয়ে গঠিত ছিল।

মূল সময়সূচী মোতাবেক, জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট দল ১১ জানুয়ারি থেকে ১৮ জানুয়ারি, ২০১৬ তারিখ পর্যন্ত বাংলাদেশ সফর করার কথা ছিল।[১] সেই সফরে দলটি বাংলাদেশের বিপক্ষে তিনটি টেস্ট, পাঁচটি একদিনের আন্তর্জাতিক ও তিনটি টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিকে অংশ নেয়ার কথা ছিল। কিন্তু বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের বিশ্ব টুয়েন্টি২০এশিয়া কাপ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের প্রস্তুতি নেয়ার কারণেই সেই সফর কাট-ছাট করে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড কর্তৃপক্ষ দুইটি টেস্ট, তিনটি একদিনের আন্তর্জাতিক ও তিনটি টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিক আয়োজনের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল।[১]

অবশ্য, ১৬ অক্টোবর ২০১৫ তারিখে বিসিবি ঘোষণা করে যে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট দল নভেম্বরে ওয়ানডে ও টি-২০ ম্যাচ খেলবে এবং সিরিজটি বিপিএল ২০১৫ শুরু হওয়ার আগেই অনুষ্ঠিত হবে। পরে ২১ অক্টোবর বিসিবি সফরের জন্য তারিখসমূহ নিশ্চিত করে।

এই সফরের একদিনের আন্তর্জাতিক সিরিজটি বাংলাদেশ ৩-০ ব্যবধানে জয়লাভ করে এবং টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিক সিরিজটি ১-১ সমতায় ড্র হয়।

নভেম্বরের দল[সম্পাদনা]

ওডিআই টি২০আই
 বাংলাদেশ[২]  জিম্বাবুয়ে[৩]  বাংলাদেশ  জিম্বাবুয়ে[৩]

পাঁজরের আঘাতজনিত কারণে দল থেকে বাদ পড়েন সৌম্য সরকার। তার পরিবর্তে ইমরুল কায়েসকে দলে অন্তর্ভুক্ত করা হয়।[৪] সন্তানসম্ভবা স্ত্রীর পাশে থাকতে ৮ নভেম্বর রাতে যুক্তরাষ্ট্রের উদ্দেশ্যে রওনা হন সাকিব আল হাসান। ফলে তার জায়গায় দলে আসেন এনামুল হক বিজয়[৫]

নভেম্বরের প্রস্তুতিমূলক খেলা[সম্পাদনা]

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড একাদশ ব জিম্বাবুয়ে একাদশ[সম্পাদনা]

৫ নভেম্বর ২০১৫
স্কোরকার্ড
 জিম্বাবুয়ে একাদশ
২৮১/৩ (৪৬.৪ ওভার)
ক্রেগ আরভিন ৯৫ (৯৯)
সানজামুল ইসলাম ২/৭০ (১০ ওভার)
জিম্বাবুয়ে একাদশ ৭ উইকেটে বিজয়ী
খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়াম, ফতুল্লা
আম্পায়ার: এনামুল হক (বাংলাদেশ) এবং শরফুদ্দৌলা (বাংলাদেশ)
  • জিম্বাবুয়ে একাদশ টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেয়।
  • পার্শ্ব প্রতি ১৬ জন খেলোয়াড় (১১ জন ব্যাটিং ও ১১ জন ফিল্ডিং)

নভেম্বরের ওডিআই সিরিজ[সম্পাদনা]

১ম ওডিআই[সম্পাদনা]

৭ নভেম্বর ২০১৫
১৩:০০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
বাংলাদেশ 
২৭৩/৯ (৫০ ওভার)
 জিম্বাবুয়ে
১২৩ (৩৬.১ ওভার)
মুশফিকুর রহিম ১০৭ (১০৯)
সিকান্দার রাজা ২/৪৭ (৭ ওভার)
  • জিম্বাবুয়ে টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেয়।

২য় ওডিআই[সম্পাদনা]

৯ নভেম্বর ২০১৫
১৩:০০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
বাংলাদেশ 
২৪১/৯ (৫০ ওভার)
 জিম্বাবুয়ে
১৮৩ (৪৩.২ ওভার)
  • জিম্বাবুয়ে টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেয়।

৩য় ওডিআই[সম্পাদনা]

১১ নভেম্বর ২০১৫
১৩:০০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
বাংলাদেশ 
২৭৬/৯ (৫০ ওভার)
 জিম্বাবুয়ে
২১৫ (৪৩.৩ ওভার)
ইমরুল কায়েস ৭৩ (৯৫)
লুক জঙ্গুয়ে ২/৫০ (৯ ওভার)
  • বাংলাদেশ টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

নভেম্বরের টি২০আই সিরিজ[সম্পাদনা]

১ম টি২০আই[সম্পাদনা]

১৩ নভেম্বর ২০১৫
১৭:০০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
জিম্বাবুয়ে 
১৩১ (১৯.৩ ওভার)
 বাংলাদেশ
১৩৬/৬ (১৭.৪ ওভার)
তামিম ইকবাল ৩১ (২৮)
গ্রেইম ক্রিমার ৩/২৯ (৪ ওভার)
  • বাংলাদেশ টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেয়।
  • জুবায়ের হোসেনের (বাংলাদেশ) টি২০আই অভিষেক হয়।

২য় টি২০আই[সম্পাদনা]

১৫ নভেম্বর ২০১৫
১৭:০০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
বাংলাদেশ 
১৩৫/৯ (২০ ওভার)
 জিম্বাবুয়ে
১৩৬/৭ (১৯.৫ ওভার)
  • বাংলাদেশ টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

জানুয়ারি ২০১৬[সম্পাদনা]

জানুয়ারি, ২০১৬ জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট দলের বাংলাদেশ সফর
Flag of Bangladesh.svg
বাংলাদেশ
Flag of Zimbabwe.svg
জিম্বাবুয়ে
তারিখ ১৫ জানুয়ারি ২০১৬ – ২২ জানুয়ারি ২০১৬
অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা এলটন চিগুম্বুরা (১ম ও ৪র্থ টি২০আই)
হ্যামিল্টন মাসাকাদজা (২য় ও ৩য় টি২০আই)
টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিক সিরিজ
ফলাফল ৪-ম্যাচের সিরিজ ২–২ এ ড্র হয়
সর্বাধিক রান সাব্বির রহমান (১৪০) হ্যামিল্টন মাসাকাদজা (২২২)
সর্বাধিক উইকেট সাকিব আল হাসান (৫) গ্রেইম ক্রিমার (৬)
সিরিজ সেরা হ্যামিল্টন মাসাকাদজা (জিম্বাবুয়ে)

জানুয়ারির দল[সম্পাদনা]

 বাংলাদেশ[৬]  জিম্বাবুয়ে[৭]

জানুয়ারি টি২০আই সিরিজ[সম্পাদনা]

১ম টি২০আই[সম্পাদনা]

১৫ জানুয়ারি
স্কোরবোর্ড
জিম্বাবুয়ে 
১৬৩/৭ (২০ ওভার)
 বাংলাদেশ
১৬৬/৬ (১৮.৪ ওভার)
বাংলাদেশ ৪ উইকেটে বিজয়ী
শেখ আবু নাসের স্টেডিয়াম, খুলনা
আম্পায়ার: এনামুল হক (বাংলাদেশ) এবং শরফুদ্দৌলা (বাংলাদেশ)
সেরা খেলোয়াড়: হ্যামিল্টন মাসাকাদজা (জিম্বাবুয়ে)

২য় টি২০আই[সম্পাদনা]

১৭ জানুয়ারি
স্কোরবোর্ড
বাংলাদেশ 
১৬৭/৩ (২০ ওভার)
 জিম্বাবুয়ে
১২৫/৮ (২০ ওভার)
  • বাংলাদেশ টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

৩য় টি২০আই[সম্পাদনা]

২০ জানুয়ারি
স্কোরবোর্ড
জিম্বাবুয়ে 
১৮৭/৬ (২০ ওভার)
 বাংলাদেশ
১৫৬/৬ (২০ ওভার)
জিম্বাবুয়ে ৩১ রানে বিজয়ী
শেখ আবু নাসের স্টেডিয়াম, খুলনা
আম্পায়ার: আনিসুর রহমান (বাংলাদেশ) এবং এনামুল হক (বাংলাদেশ)
সেরা খেলোয়াড়: ম্যালকম ওয়ালার (জিম্বাবুয়ে)

৪র্থ টি২০আই[সম্পাদনা]

২২ জানুয়ারি
স্কোরবোর্ড
জিম্বাবুয়ে 
১৮০/৪ (২০ ওভার)
 বাংলাদেশ
১৬২ (১৯ ওভার)
জিম্বাবুয়ে ১৮ রানে বিজয়ী
শেখ আবু নাসের স্টেডিয়াম, খুলনা
আম্পায়ার: এনামুল হক (বাংলাদেশ) এবং শরফুদ্দৌলা (বাংলাদেশ)
সেরা খেলোয়াড়: হ্যামিল্টন মাসাকাদজা (জিম্বাবুয়ে)
  • জিম্বাবুয়ে টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।
  • হ্যামিল্টন মাসাকাদজা’র অপরাজিত ৯৩* রান টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিকে জিম্বাবুয়ের পক্ষে সর্বোচ্চ রান।[৮]

সম্প্রচার ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

দেশ টেলিভিশন সম্প্রচার রেডিও সম্প্রচার
 বাংলাদেশ জাতীয় বিটিভি
ক্যাবল/স্যাটেলাইট জিটিভি
বাংলাদেশ বেতার
 ভারত স্টার স্পোর্টস
উত্তর আমেরিকা উইলো
মধ্যপ্রাচ্য ওএসএন
আফ্রিকা সুপার স্পোর্টস

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "BCB wants to cut a Test from Zimbabwe series"ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০১৫ 
  2. "জিম্বাবুয়ে সিরিজের দলে কামরুল, ফিরলেন আল আমিন"বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম। সংগ্রহের তারিখ ১ নভেম্বর ২০১৫ 
  3. "বাংলাদেশ সফরের জিম্বাবুয়ে দলে ক্রেমার"প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ১ নভেম্বর ২০১৫ 
  4. "Sarkar out of Zimbabwe ODIs, T20s with side strain"ইএসপিএন ক্রিকইনফো (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৫ নভেম্বর ২০১৫ 
  5. "সাকিবের জায়গায় বিজয়"বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম। সংগ্রহের তারিখ ৯ নভেম্বর ২০১৫ 
  6. "Hider, Hom, Nurul named in T20 squad"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ৫ জানুয়ারি ২০১৬ 
  7. "Sibanda, Vitori return for Bangladesh T20s"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১০ জানুয়ারি ২০১৬ 
  8. "Masakadza happy with near perfect knock"ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২২ জানুয়ারি ২০১৬