নান্দাইল উপজেলা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
নান্দাইল
উপজেলা
নান্দাইল বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
নান্দাইল
নান্দাইল
বাংলাদেশে নান্দাইল উপজেলার অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৪°৩৩′৫৩″ উত্তর ৯০°৪০′৫৯″ পূর্ব / ২৪.৫৬৪৭২° উত্তর ৯০.৬৮৩০৬° পূর্ব / 24.56472; 90.68306স্থানাঙ্ক: ২৪°৩৩′৫৩″ উত্তর ৯০°৪০′৫৯″ পূর্ব / ২৪.৫৬৪৭২° উত্তর ৯০.৬৮৩০৬° পূর্ব / 24.56472; 90.68306 উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
দেশ বাংলাদেশ
বিভাগময়মনসিংহ বিভাগ
জেলাময়মনসিংহ জেলা
আসনময়মনসিংহ-৯ (নান্দাইল)
সরকার
 • সংসদ সদস্যজনাব আনোয়ারুল আবেদীন খান (তুহিন) (বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ)
 • উপজেলা চেয়ারম্যানহাসান মাহমুদ জুয়েল
আয়তন
 • মোট৩২৬.১৩ কিমি (১২৫.৯২ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)[১]
 • মোট৪,০২,৭১৭
 • জনঘনত্ব১২০০/কিমি (৩২০০/বর্গমাইল)
সাক্ষরতার হার
 • মোট৬৫%
সময় অঞ্চলবিএসটি (ইউটিসি+৬)
প্রশাসনিক
বিভাগের কোড
৩০ ৬১ ৭২
ওয়েবসাইটপ্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট Edit this at Wikidata

নান্দাইল উপজেলা বাংলাদেশের ময়মনসিংহ জেলার একটি প্রশাসনিক এলাকা। ময়মনসিংহ শহর থেকে প্রায় ৪৬ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত।

অবস্থান[সম্পাদনা]

নান্দাইল উপজেলার অবস্থান হলো ২৪°৩৪′০০″ উত্তর ৯০°৪১′০০″ পূর্ব / ২৪.৫৬৬৭° উত্তর ৯০.৬৮৩৩° পূর্ব / 24.5667; 90.6833। এই উপজেলার উত্তরে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা, উত্তর-পূর্বে কেন্দুয়া উপজেলা, পূর্বে তাড়াইল উপজেলা, দক্ষিণে হোসেনপুরগফরগাও উপজেলা এবং পশ্চিমে ত্রিশাল উপজেলা অবস্থিত।

প্রশাসনিক এলাকা[সম্পাদনা]

এই উপজেলার ইউনিয়নগুলো হচ্ছে -

  1. আচারগাঁও
  2. খারুয়া
  3. গাঙ্গাইল
  4. চন্ডীপাশা
  5. জাহাঙ্গীরপুর
  6. নান্দাইল
  7. বেতাগৈর
  8. মুশুলি
  9. মোয়াজ্জেমপুর
  10. রাজগাঁতি
  11. শেরপুর
  12. সিংরাইল
  13. চরবেতাগৈর

ইতিহাস[সম্পাদনা]

এক সময়ে নন্দদুলাল নামের এক জমিদার ছিলেন। জমিদারি সীমানা তিনি নির্ধারণ করেছিলেন আইলের মাধ্যমে। মোগল আমলে এ এলাকার জনগণের নিকট থেকে জমির খাজনা আদায় করা খুবই দুরহ ছিল। নন্দলাল প্রজাদের সঙ্গে ভাল সম্পর্ক তৈরী করে খাজনা আদায়ে সাফল্য লাভ করেন। তখন থেকেই এ এলাকার নাম তার নামানুসারে নান্দাইল রাখা হয়। নন্দ দুলালের নন্দ। এর সঙ্গে আইল অপভ্রংশ যুক্ত হয়ে নান্দাইল নামকরণ হয়। ময়মনসিংহ জেলার একটি বর্ধিষ্ণু উপজেলা নান্দাইল। লোকজ ঐতিহ্যের সঙ্গে এ উপজেলার গৌরবময় সম্পৃক্ততা রয়েছে। ময়মনসিহ গীতিকায় নান্দাইলের আড়ালিয়া বিল এর কুড়া শিকারী প্রসঙ্গ এসেছে। মৈমনসিংহ গীতিকার ‘মলুয়া’ পালার পটভূমি এই নান্দাইল উপজেলা। এছাড়াও মনসা মঙ্গলের একটি গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রের অধিবাস ছিলো এই নান্দাইলে। গুরুত্বপূর্ণ এ চরিত্রের নাম হচ্ছে কানাহরি। পূর্ব ময়মনসিংহের এই নান্দাইলেই কানাহরির সাকিন ছিলো বলে ঐতিহাসিক তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে দাবি করা হয়। যদিও এ সম্পর্কে মতবিরোধ রয়েছে। আঠারো শতকে নান্দাইলের দেওয়ানগঞ্জ বাজার এলাকায় নীলকরদের কুঠি স্থাপনের পর ‘নীল আন্দোলন’ শুরু হয়। ১৯৭১ সালের ২১ এপ্রিল পাকবাহিনী রাজগাতি, শুভখিলা ও কালীগঞ্জ এলাকায় ১৮ জন গ্রামবাসিকে নির্মমভাবে হত্যা করে ও কয়েকশ বাড়িঘর পুড়িয়ে দেয়। ১৭ নভেম্বর নান্দাইলে পাকবাহিনীর সঙ্গে এক যুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধা ইলিয়াস উদ্দিন ভূঞা ও শামসুল হকসহ বেশ কয়েকজন স্থানীয় লোক শহীদ হন। উক্ত দিনটি ‘নান্দাইল শহীদ দিবস’ হিসেবে পালিত হয়ে আসছে। ১১ ডিসেম্বর নান্দাইলে স্বাধীনতার পতাকা উত্তোলন করা হয় এবং উক্ত দিনটি নান্দাইলে মুক্ত দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছে।

১৯১২ সালের ২ জানুয়ারী প্রশাসনিক ইউনিট হিসেবে নান্দাইল থানার গোড়াপত্তন ঘটে। ১৯১২ সালের ১৮ জানুয়ারী নান্দাইল থানা সরকারি গেজেটভুক্ত হয়। ১৯৮২ সালের ১৫ ডিসেম্বর নান্দাইল উপজেলা সৃষ্টি হয়।[২]

জনসংখ্যার উপাত্ত[সম্পাদনা]

জনসংখ্যা ৩৭০৮৫০; পুরুষ ১৮৯১৫২, মহিলা ১৮১৬৯৮। মুসলিম ৩৬৩২০৪, হিন্দু ৭৪৫৯, বৌদ্ধ ১১, এবং অন্যান্য ১৭৬।

শিক্ষা ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

নদীসমূহ[সম্পাদনা]

নান্দাইল উপজেলায় অনেকগুলো নদী আছে। সেগুলো হচ্ছে পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদ, বাথাইল নদী, কাঁচামাটিয়া নদী, নরসুন্দা নদী ও মঘা নদী।

বিলসমুহঃ

আড়ালিয়া, হামাই, বান্না, বলদা, কালাইধর, টঙ্গী ও বাউলার বিল উল্লেখযোগ্য।[৩][৪]

কৃতী ব্যক্তিত্ব[সম্পাদনা]

প্রাচীন নিদর্শনাদি ও প্রত্নসম্পদ[সম্পাদনা]

  • মোয়াজ্জমাবাদ মসজিদ (১৪৯৩-১৫১৯), জাহাঙ্গীরপুর গ্রামে তাপস জাহাঙ্গীর শাহের মাজার ও খানকা।
  • মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচিহ্ন: গণকবর: বারুইগ্রাম; বধ্যভূমি: শুভখিলা কালীগঞ্জ রেলওয়ে ব্রিজ এলাকা।

বিবিধ[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন (জুন ২০১৪)। "এক নজরে নান্দাইল"। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। সংগ্রহের তারিখ ১০ জুলাই ২০১৫ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  2. বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন (এপ্রিল ২০১৮)। "নান্দাইল উপজেলার পটভূমি"। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। সংগ্রহের তারিখ ১৭ এপ্রিল ২০১৮ 
  3. ড. অশোক বিশ্বাস, বাংলাদেশের নদীকোষ, গতিধারা, ঢাকা, ফেব্রুয়ারি ২০১১, পৃষ্ঠা ৩৯৯, আইএসবিএন ৯৭৮-৯৮৪-৮৯৪৫-১৭-৯
  4. মানিক মোহাম্মদ রাজ্জাক (ফেব্রুয়ারি ২০১৫)। বাংলাদেশের নদনদী: বর্তমান গতিপ্রকৃতি। ঢাকা: কথাপ্রকাশ। পৃষ্ঠা ৬০৬। আইএসবিএন 984-70120-0436-4 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]