ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

ঈশ্বরগঞ্জ বাংলাদেশের ময়মনসিংহ জেলার অন্তর্গত একটি উপজেলা

১৯৮৩ সালের ১৫ নভেম্বর এটিকে উপজেলা হিসেবে ঘোষণা করা হয়।

ঈশ্বরগঞ্জ
উপজেলা
ঈশ্বরগঞ্জ বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
ঈশ্বরগঞ্জ
ঈশ্বরগঞ্জ
বাংলাদেশে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৪°৪১′১২″ উত্তর ৯০°৩৭′৪৬″ পূর্ব / ২৪.৬৮৬৬৭° উত্তর ৯০.৬২৯৪৪° পূর্ব / 24.68667; 90.62944স্থানাঙ্ক: ২৪°৪১′১২″ উত্তর ৯০°৩৭′৪৬″ পূর্ব / ২৪.৬৮৬৬৭° উত্তর ৯০.৬২৯৪৪° পূর্ব / 24.68667; 90.62944 উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
দেশ বাংলাদেশ
বিভাগময়মনসিংহ বিভাগ
জেলাময়মনসিংহ জেলা
আসন১৫৩, ময়মনসিংহ-৮
সরকার
আয়তন
 • মোট২৮৬.১৯ বর্গ কিমি কিমি ( বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)[১]
 • মোট৩,৯১,০৭৮
সাক্ষরতার হার
 • মোট৪৯.৯%
সময় অঞ্চলবিএসটি (ইউটিসি+৬)
পোস্ট কোড২২৮০ উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
ওয়েবসাইটপ্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট Edit this at Wikidata

পরিচ্ছেদসমূহ

অবস্থান[সম্পাদনা]

২৪°৩৩´ থেকে ২৪°৪৪´ উত্তর অক্ষাংশ এবং ৯০°২৮´ থেকে ৯০°৪৬´ পূর্ব দ্রাঘিমাংশ। এই উপজেলার উত্তরে গৌরীপুর উপজেলা, দক্ষিণে নান্দাইল উপজেলা, পূর্বে নেত্রকোনা জেলার কেন্দুয়া উপজেলা এবং পশ্চিমে ময়মনসিংহ সদর উপজেলাত্রিশাল উপজেলা অবস্থিত।

ইতিহাস - উত্‍পত্তি ও নামকরণ[সম্পাদনা]

শুরুতেই ঈশ্বরগঞ্জের নাম ঈশ্বরগঞ্জ ছিলো না। ইংরেজ শাসন আমলে এর নামকরণ ছিলো পিতলগঞ্জ । পিতলগঞ্জ থেকে ঈশ্বরগঞ্জের নামকরণ হওয়ার পিছনেও রয়েছে ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপট। ঈশ্বরপাটনী নামে এক খেয়ামাঝি ছিলো। তাঁর কাজ ছিলো ব্রহ্মপুত্রের শাখা নদী অথচগভীর খরস্রোতা ‘কাচা মাটিয়া' নদীর বুক বেয়ে ঈশ্বরগঞ্জ সদরের পাশেই দওপাড়া গ্রাম এলাকায় পিতলগঞ্জ বাজারের ঘাটে খেয়াপারাপার করা। পিতলগঞ্জ বাজারটি ছিলো ইংরেজদের স্থাপিত। ঈশ্বরগঞ্জ ছিলো গৌরীপুরের জমিদারদের পরগণা। খেয়ামাঝি ঈশ্বরপাটনীকে খেয়াপারাপারের জন্যে জমিদারের নায়েবকে নজরানা দিয়ে খেয়াপারাপার করতে হতো।ঈশ্বরপাটনী আস্তে আস্তে পরিচিত ও জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। পিতলগঞ্জ হাটে খেয়াপারাপারের জন্যেই তাঁর এই পরিচিতি ও জনপ্রিয়তা। পণ্য বেচাকেনার জন্যে মানুষকে স্বাভাবিক ভাবেই খেয়াপারাপার করতে হতো। এক পর্যায়ে ইংরেজগণ নীলকুঠি স্থাপন করে এবং মানুষকে নীল চাষে বাধ্য করে। ইংরেজরা নির্বিচারে এলাকার বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ বিশেষ করে পিতলগঞ্জের ব্যবসায়ীদের অতিষ্ঠ করে তোলে। অত্যাচারে মানুষের প্রাণ ওষ্ঠাগত অবস্থা। অত্যাচারে অতিষ্ঠ হলেও মানুষ প্রতিবাদ করার মতো সাহসী ভূমিকা পালন করতে পারেনি। ঈশ্বরপাটনী মানুষের এই দুর্ভোগ ও দুর্দশার নীরব সাক্ষী। নীলকরদের অত্যাচার মেনে নিতে পারেনি ঈশ্বরপাটনী। সেক্ষুব্ধ ও ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। প্রতিবাদী হয়ে ওঠে সে, হয় দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ। এক পর্যায়ে কোনো একদিন নীলকুঠির সাহেবগণ হাটে সমাগত মানুষদের নীলচাষ করতেবলে, ধমক দেয়, এমনকি চাবুক পর্যন্ত মারে। ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে পড়ে হাটে আসা মানুষগণ। চাবুকের আঘাতেজর্জরিত মানুষের হাহাকারে প্রকম্পিত হয় পিতলগঞ্জের আকাশ-বাতাস। ঈশ্বরপাটনী এই অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে শাল কাঠের বৈঠা হাতে নিয়ে দৌড়ে যায় এবং চিৎকার করে বলতে থাকে ‘সাহেব চাবুক মারাবন্ধ কর'। ইংরেজ সাহেবগণ এতেক্ষুব্ধ হয় এবং ঈশ্বরপাটনীরগায়ে চাবুক চালাতে থাকে। ঈশ্বরপাটনীর ধৈর্যের বাঁধ ভেঙে যায় এবং হাতের বৈঠা দিয়ে ইংরেজ সাহেবের মাথায় আঘাত করে। এতে করে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে নীলকুঠির সাহেব।রক্ত ঝরতে থাকে তার। রক্তক্ষরণে এক পর্যায়ে নীলকুঠির সাহেব মারা যায়। সৃষ্টি হয় ভীতসন্ত্রস্থ অবস্থা। পিতলগঞ্জের অবস্থা হয়ে পড়ে থমথমে। পিতলগঞ্জে যেনো ঝড় হইতে থাকে এই ঘটনায়।সমগ্র বাংলায়ও এর প্রভাব পড়ে। ঈশ্বরপাটনীও প্রাণে বাঁচতে পারেনি। ভেঙে যায় পিতলগঞ্জের হাট। তৎকালীন গৌরীপুরের জমিদার ব্রজেন্দ্র কিশোর চৌধুরী বর্তমান ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা সদরের জন্যে দত্তপাড়া চরনিখলা মৌজায় বাজার স্থাপনকরার জন্যে জমি দান করেন। তিনি ঈশ্বরপাটনীর নামের ঈশ্বরের সঙ্গে গঞ্জ যোগ করে বাজারের নাম দেন ঈশ্বরগঞ্জ।সেই থেকেই ঈশ্বরগঞ্জ নামের সূত্রপাত। যদিও অনেকে এই ইতিহাসের বিরোধিতা করেন।

মুক্তিযুদ্ধের ঘটনাবলি[সম্পাদনা]

১৯৭১ সালের ১৬ অক্টোবর মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে পাকবাহিনীর এক লড়াই হয়। উক্ত লড়াইয়ে পাকসেনাদের গুলিতে ৬ জন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন। ৯ ডিসেম্বর উপজেলা শত্রুমুক্ত হয়।

প্রশাসনিক এলাকা[সম্পাদনা]

উপজেলার মোট আয়তন ২৮৬.১৯ বর্গ কিলোমিটার

জনসংখ্যার উপাত্ত[সম্পাদনা]

  • মোট জনসংখ্যা ৩,৯১,০৭৮ জন (২০১১)
    • পুরুষ ১,৯৪,৫৫০ জন
    • মহিলা ১,৯৬,৫২৮ জন
  • জনসংখ্যার ঘনত্ব প্রতি বর্গকিলোমিটারে ১,৩৪২ জন
  • মোট খানার সংখ্যা ৮১,০৭০ টি
  • জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ১.০৬%

নির্বাচনিক পরিসংখ্যান[সম্পাদনা]

  • নির্বাচনী এলাকা: ১৫৩, ময়মনসিংহ-৮ (ঈশ্বরগঞ্জ)
  • মোট ভোটার সংখ্যা: ৪,০০,৮১৮ জন (২০১১)
    • পুরুষ ভোটার সংখ্যা - ২,০০,২৭২ জন
    • মহিলা ভোটার সংখ্যা - ২,০০,৫৪২ জন

শিক্ষা[সম্পাদনা]

শিক্ষার হার ৪৯.৯%

  • পুরুষ ৫৩.৪%
  • মহিলা ৪৬.১%

প্রাতিষ্ঠানিক পরিসংখ্যান[সম্পাদনা]

  • মোট প্রাথমিক বিদ্যালয় ১৭৩টি
  • কমিউনিটি প্রাথঃ বিদ্যালয় ৭টি
  • কিন্ডার গার্ডেন ১২টি
  • স্বতন্ত্র এবতেদায়ী মাদ্রাসা ৩২টি
    • উচ্চ মাদ্রাসা সংলগ্ন ২০টি
  • কমিউনিটি ৫টি
  • এনজিও ২টি
  • নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয় ৪টি
  • ৯ম শ্রেণীর অণুমতি প্রাপ্ত বিদ্যালয় ২টি
  • মাধ্যমিক বিদ্যালয় ২৬টি
    • সহশিক্ষা ২৩টি
    • বালিকা ৩টি
  • স্কুল এন্ড কলেজ ২টি
  • কলেজ ৪টি (সরকারী ২টি)
  • বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ১টি
  • কামিল মাদ্রাসা ১টি
    • ফাযিল মাদ্রাসা ১টি
    • আলিম মাদ্রাসা ৩টি
    • দাখিল মাদ্রাসা ২৩টি

উল্লেখযোগ্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান[সম্পাদনা]

পত্র-পত্রিকা ও সাময়িকী[সম্পাদনা]

  • অংকুর
  • বেঙ্গলটাইমস (অনলাইন)
  • উত্তরণ
  • প্রস্ত্ততি
  • কলনাদ
  • বর্ণমালা
  • ঈশ্বরগঞ্জ বার্তা
  • কাঁচামাটিয়া
  • বিকিরণ

সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান[সম্পাদনা]

  • পাঠাগার - ১০+
  • ক্লাব - ২১+
  • সিনেমা হল - ৩
  • খেলার মাঠ - ১৫+

অর্থনীতি ও বাণিজ্য[সম্পাদনা]

  • কৃষি ৭০.৫২%
  • অকৃষি
    • শ্রমিক ৩.৩৮%
    • ব্যবসা ১০.২২%
    • চাকুরি ৩.৮৪%
    • অন্যান্য ১২.০৪%
  • গ্রামীণ ও পৌর মিলিয়ে ৪৭টি হাটবাজার রয়েছে ।

কৃষিভূমির মালিকানা[সম্পাদনা]

ভূমিমালিক ৬৪.৪২%, ভূমিহীন ৩৫.৫৮%। শহরে ৫৩.৮৭% এবং গ্রামে ৬৫.৪২% পরিবারের কৃষিজমি রয়েছে।

নদীসমূহ[সম্পাদনা]

ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলায় অনেকগুলো নদী আছে। সেগুলো হচ্ছে পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদী, কাঁচামাটিয়া নদী, মঘা নদী এবং সোয়াইন নদী[২][৩]

প্রাকৃতিক সম্পদ[সম্পাদনা]

  • বালু মহল ১টি আয়তন ৯.৫৬ একর।

হাওর ও খালবিল[সম্পাদনা]

বিচারকার্য[সম্পাদনা]

এখানে রয়েছে ঈশ্বরগঞ্জ চৌকি আদালত। বৃহত্তর ঈশ্বরগঞ্জ (ঈশ্বরগঞ্জ ,গৌরীপুর, নান্দাইল ও নেত্রকোণা জেলার অংশবিশেষ) উপজেলার ফৌজদারি মামলা কার্যক্রম পরিচালনা করে।

ঐতিহাসিক নিদর্শন ও ঐতিহ্য[সম্পাদনা]

কৃতি ব্যক্তিত্ব[সম্পাদনা]

স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা[সম্পাদনা]

ব্যাংক-বীমা ও সমবায়[সম্পাদনা]

ব্যাংক-বীমা[সম্পাদনা]

উপজেলাটিতে ব্র্যাক ব্যাংক, জনতা ব্যাংক, রুপালী ব্যাংক, বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক, সোনালী ব্যাংক, গ্রামীণ ব্যাংক সহ সরকারি-বেসরকারি মিলে ১০টিরও বেশি ব্যাংকশাখা রয়েছে। এছাড়াও কারিতাস , পিপিপি ইত্যাদির শাখা রয়েছে।

সমবায় সমিতি[সম্পাদনা]

  • কেন্দ্রিয় সমবায় - ০১টি
  • মুক্তিযোদ্ধা সমবায় - ০২টি
  • ইউপিবহুমুখী সমবায় - ১১টি
  • বহুমুখী - ১০৯
  • মৎস্যজিবী সমবায় - ৩৭
  • যুব সমবায় - ১১টি
  • আবাসান সমবায় - ০৫টি
  • কৃষক সমবায় - ১২০টি
  • চালক সমবায় - ০৩টি
  • ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী সমবায় - ০২টি
  • অন্যান্য - ০৫টি

রাজনৈতিক চিত্র[সম্পাদনা]

মৎস্য ও প্রাণীসম্পদ[সম্পাদনা]

  • পুকুর ১৭১০টি
  • মৎস্যবীজ উৎপাদন খামার
    • সরকারি - ১টি
    • বেসরকারি - ৬টি
  • বাৎসরিক মৎস্যচাহিদা - ৬১৮০ মে.টন
  • বাৎসরিক মৎস্য উৎপাদন - ৫৫১৩ মে.টন
  • উন্নত মুরগির খামার - ১১টি
  • গবাদি পশুর খামার - ৯০টি
  • কৃত্রিম প্রজনন কেন্দ্র- ১টি

শিল্প, সাহিত্য ও সংস্কৃতি[সম্পাদনা]

এই উপজেলায় ৫৩৪ ধরণের লোকশিল্প রয়েছে। তন্মধ্যে কুটিরশিল্প, তাঁতশিল্প, লৌহশিল্প, মৃৎশিল্প, ওয়েল্ডিং কারখানা, বাঁশ ও কাঠের কাজ উল্লেখযোগ্য। জারিগান এ অঞ্চলের অতি কাছের যা দেশখ্যাত। এছাড়া বাউল ও যাত্রাগানও প্রচলিত।

ধর্ম[সম্পাদনা]

এই উপজেলার অধিকাংশ মানুষ ইসলাম ধর্মাবলম্বী। সুন্নি, ওয়াহাবি ও আহমাদিয়া মুসলিম বিদ্যমান। হিন্দুধর্ম এখানে দ্বিতীয় সংখ্যাগরিষ্ঠ ধর্ম। এছাড়াও খ্রিষ্টান সম্প্রদায়েরও বসবাস রয়েছে এখান। সাম্প্রতিক সময়ে অনিশ্বরবাদীতাও উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে।

  • মসজিদ - ১,০৩৬ টি
  • মন্দির - ১২টি
  • গীর্জা - ২টি

ডাক ও যোগাযোগব্যবস্থা[সম্পাদনা]

  • পোস্ট অফিস: ৩৩টি
  • পাকা রাস্তা: ১৪৭ কি.মি.
  • অর্ধপাকা রাস্তা: ৮ কি.মি.
  • কাঁচা রাস্তা: ৩৩৪ কি.মি.
  • ব্রিজ/কালভার্ট: ৪৬৬টি
  • রেল স্টপেজ : ১টি

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন (জুন, ২০১৪)। "এক নজরে ঈশ্বরগঞ্জ"। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। সংগ্রহের তারিখ ১০ জুলাই ২০১৫  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  2. ড. অশোক বিশ্বাস, বাংলাদেশের নদীকোষ, গতিধারা, ঢাকা, ফেব্রুয়ারি ২০১১, পৃষ্ঠা ৩৯৯, আইএসবিএন ৯৭৮-৯৮৪-৮৯৪৫-১৭-৯
  3. মানিক মোহাম্মদ রাজ্জাক, বাংলাদেশের নদনদী: বর্তমান গতিপ্রকৃতি, কথাপ্রকাশ, ঢাকা, ফেব্রুয়ারি, ২০১৫, পৃষ্ঠা ৬০৬, ISBN 984-70120-0436-4.