জামালপুর সদর উপজেলা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

স্থানাঙ্ক: ২৪°৫৫′০০″উত্তর ৮৯°৫৭′৩০″পূর্ব / ২৪.৯১৬৭° উত্তর ৮৯.৯৫৮৩° পূর্ব / 24.9167; 89.9583

জামালপুর সদর উপজেলা
BD Districts LOC bn.svg
Red pog.svg
জামালপুর সদর
বিভাগ
 - জেলা
ঢাকা বিভাগ
 - জামালপুর জেলা
স্থানাঙ্ক ২৪°৫৫′০০″উত্তর ৮৯°৫৭′৩০″পূর্ব / ২৪.৯১৬৭° উত্তর ৮৯.৯৫৮৩° পূর্ব / 24.9167; 89.9583
আয়তন ৪৮৯.৫৬ বর্গকিমি
সময় স্থান বিএসটি (ইউটিসি+৬)
জনসংখ্যা (২০১১)
 - ঘনত্ব
 - শিক্ষার হার
৬,১৫,০৭২জন[১]
 - ১৮৪৮ বর্গকিমি
 - %
ওয়েবসাইট: উপজেলা প্রশাসনের ওয়েবসাইট

জামালপুর সদর বাংলাদেশের জামালপুর জেলার অন্তর্গত একটি উপজেলা

অবস্থান[সম্পাদনা]

জামালপুর সদর উপজেলা ২৪.৪২º উত্তর এবং ৮৯.৫২º পূর্ব দ্রাঘিমাংশে অবস্থিত। উত্তরে- শেরপুর সদর উপজেলা, দক্ষিণে- মধুপুর উপজেলাসরিষাবাড়ি উপজেলা, পশ্চিমে- মেলান্দহ উপজেলামাদারগঞ্জ উপজেলা, পূর্বে- মুক্তাগাছা উপজেলাময়মনসিংহ সদর উপজেলা

প্রশাসনিক এলাকা[সম্পাদনা]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

যমুনা, ব্রহ্মপুত্র, ঝিনাই, জিঞ্জিরাম, সুবর্ণখালী, বংশ নদী তীরবর্তী উঁচুভূমি ও জঙ্গলাকীর্ণ জামালপুরে কবে থেকে লোকালয় গড়ে উঠে এ বিষয়ে স্পষ্ট কোনো তথ্য আজো পাওয়া যায়নি। তবে ধারণা করা হয় যে, ৮'শ বছর পূর্ব থেকে জঙ্গলাকীর্ণ এই ভূ-খন্ডে জনবসতি শুরু হয়। উত্তাল যমুনা, ব্রহ্মপুত্র হয়ে জঙ্গলাকীর্ণ এই ভূ-খন্ডের বুক চিরে বয়ে যাওয়া অধূনালুপ্ত বংশ নদী হয়ে ব্যবসায়ীদের বিশাল সব বজরা নৌকা যাতায়াত করতো উত্তর-পশ্চিম থেকে পূর্ব-দক্ষিণ বঙ্গে। যাতায়াতের পথে ব্যবসায়ী সওদাগররা জঙ্গলাকীর্ণ এই এলাকার নদীর তীরে বজরা থামিয়ে বিশ্রাম নিতো। বংশ নদী তীরবর্তী ব্যবসায়ী সওদাগরদের বিশ্রামস্থলটিতে একসময় ছোট্ট একটি "গঞ্জ" গড়ে উঠে। এভাবে ক্রমশ: এই অঞ্চলটি "গঞ্জের হাট" নামে পরিচিত হয়ে উঠে। ব্যবসায়ী সওদাগরদের বিশ্রামস্থলটি এখনো শহরের মাঝখানে "রাণীগঞ্জ" বাজার নামে অতীত স্মৃতির জানান দেয়। মূলত গঞ্জের হাটকে কেন্দ্র করে সে সময় জঙ্গলাকীর্ণ এই এলাকায় জনবসতি গড়ে উঠতে থাকে। ধারণা করা হয় যে, প্রাচীন বঙ্গের গৌড়ের সেন বংশের রাজত্বকালে (১১০০-১২০৩ খ্রী:) হিন্দুদের মধ্যে যখন কলীন প্রথার প্রচলন হয়, তখন এই এলাকায় জনবসতি গড়ে উঠে। এ সময় গঞ্জের হাটের কাছের একটি এলাকায় শিবমিন্দর স্থাপিত হয়। পরবর্তী সময়ে কাছাকাছি এলাকায় স্থাপিত হয় দয়াময়ী মন্দির। একসময় শিবমন্দিরকে ঘিরে একশ্রেণীর হিন্দু সন্ন্যাসীদের আনাগোনা শুরু হয় এই অঞ্চলে। পরে দূরদেশ থেকে আগত এই সব হিন্দু সন্ন্যাসীরা আস্তানা গড়ে এই শিবমন্দিরে। হিন্দু সন্ন্যাসীদের আগমনে এবং তাদের পদচারণায় অঞ্চলটি "গঞ্জের হাট" থেকে "সন্ন্যাসীগঞ্জ" হিসেবে পরিচিতি লাভ করে। ক্রমান্বয়ে হিন্দু জমিদারদের উদ্ভব হলে সন্ন্যাসীগঞ্জকে মৌজা তৈরি করে এর নাম রাখেন "সিংহজানী"। এই সিংহজানী মৌজা থেকেই আজকের জামালপুর জেলা। জেলা শহরের দুইটি বিদ্যালয়ের নামের সাথে সিংহজানী নামটি আজও সমুন্নত। দিল্লীর তৃতীয় মোঘল সম্রাট আকবরের রাজত্বকালে (১৫৪২-১৬০৫ খ্রী:) ইয়েমেন থেকে ইসলামধর্ম প্রচারের উদ্দেশ্যে হযরত শাহ্ জামাল (রঃ) সিংহজানী মৌজায় আগমন করেন। এখানকার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যে মুগ্ধ হয়ে তিনি ক্ষরস্রোতা ব্রহ্মপুত্র নদের তীরে নিজ আস্তানা স্থাপন করেন। সে সময় হযরত শাহ্ জামাল (রঃ)-এর অলৌকিক ক্ষমতার কথা দিল্লী পৌঁছলে সম্রাট আকবর তাকে খানকাহ্ শরীফ বা আস্তানার ব্যয় নির্বাহের জন্য সিংহজানীর অন্তর্গত কয়েকটি পরগণা "পীরপাল" হিসেবে প্রদান করে তার কাছে সনদ পাঠালেও তিনি তা গ্রহণ করেননি। ইসলামের পতাকাবাহী এবং একত্মবাদের একনিষ্ঠ প্রচারক হযরত শাহ্ জামাল (রঃ) এর পূণ্যাত্মার প্রতি স্মরণার্থে পরবর্তীতে এ অঞ্চলের নামকরণ করা হয় "জামালপুর"। জামালপুর বর্তমানে ঢাকা বিভাগের একটি জেলা।

জনসংখ্যার উপাত্ত[সম্পাদনা]

শিক্ষা[সম্পাদনা]

দিগপাইত ধরণী কান্ত উচ্চ বিদ্যালয় জামালপুর জেলার অন্যতম ১টি ঐতিহ্যবাহী বিদ্যালয়।এটি ১৯৩৯ সালে স্থাপিত হয়।

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

বিবিধ[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন (জুন, ২০১৪)। "এক নজরে জামালপুর সদর"। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। সংগৃহীত ১০ জুলাই, ২০১৫ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]


জামালপুর জেলা Flag of Bangladesh
উপজেলা/থানাঃ | জামালপুর সদর | বকশীগঞ্জ | দেওয়ানগঞ্জ | ইসলামপুর | মাদারগঞ্জ | মেলান্দহ | সরিষাবাড়ি