ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশন
স্থানীয় সরকার
ধরন
ধরন
এক কক্ষ
মেয়াদসীমা৫ বছর
ইতিহাস
প্রতিষ্ঠাকাল২ এপ্রিল ২০১৮ (2018-04-02)
নেতৃত্ব
মেয়রইকরামুল হক টিটু
সভাস্থল
মহানগর ভবন
ওয়েবসাইট
প্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট

ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশন (মসিক) বাংলাদেশের ময়মনসিংহের একটি স্থানীয় সরকার সংস্থা। ১৭৯১ খ্রিস্টাব্দে জেলা সদরের পত্তন হয় এবং ১৮৬৯ খ্রিস্টাব্দে ময়মনসিংহ শহরের সার্বিক উন্নয়ন এবং ব্যবস্থাপনা করার লক্ষ্যে পৌরসভা গঠিত হয়। ২০১৮ সালের ২ এপ্রিল ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশন ঘোষণা করা হয়। ২০১৮ সালের ১৪ই অক্টোবর স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় প্রজ্ঞাপন জারি করে।[১] এটি বাংলাদেশের দ্বাদশ সিটি কর্পোরেশন। এর আয়তন ৯১ দশমিক ৩১৫ বর্গ কিঃমিঃ।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

ময়মনসিংহ শহর প্রতিষ্ঠিত হয় ১৮১১ সালে। মুক্তাগাছার জমিদার রঘুনন্দন আচার্য এই শহরের জন্য জায়গা দেন । ১৮৮৪ সালে রাস্তায় প্রথম কেরোসিনের বাতি জ্বালানো হয়। ১৮৮৬ সালে ঢাকা‌-ময়মনসিংহ রেলপথ ও ১৮৮৭ সালে জেলা বোর্ড গঠন করা হয়। ১৮৬৯ সালে স্থাপিত ময়মনসিংহ পৌরসভা একটি প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী পৌরসভা। তৎকালীন নাম ছিল নাসিরাবাদ টাউন কমিটি। পাঁচটি গ্রাম যথা নাসিরাবাদ, কৃষ্ণপুর, সেহড়া, চরপাড়া এবং কাশর নিয়ে পৌরসভার বিস্তৃতি ছিল, যার আয়তন ছিল ২.১৫ বর্গ কিলোমিটার। ১৯৭৭ সালে এটি মিউনিসিপ্যাল কমিটিতে উন্নীত হয়। ১৯০৫ সালে নাসিরাবাদের পরিবর্তে ময়মনসিংহ নাম ধারণ করে এবং ১৯৩৬ সালে কৃষ্ণপুর ছাড়া বাকি চারটি গ্রাম মিলে ময়মনসিংহ শহর মৌজা গঠিত হয়। ১৯৭২ সালের Bangladesh Local Council and Municipal Committee Order দ্বারা ময়মনসিংহ টাউন কমিটি বিলুপ্ত করে ময়মনসিংহ পৌরসভা নামকরণ করা হয়। ১৯৭৮ সালে Declaration and Alteration of Municipalities Rulesঅনুসারে ৮.৩৯ বর্গকিলোমিটার এলাকা বর্ধিত করা হয়। বর্তমানে পৌরসভার আয়তন ২১.৭৩ বর্গকিলোমিটার এবং জনসংখ্যা প্রায় পাঁচ লক্ষাধিক।শ হরটি রাজধানী ঢাকা থেকে ১২১ কি.মি. উত্তরে প্রায় সমতল ভূমির ওপর অবস্থিত। ময়মনসিংহ শহরের উত্তর পূর্ব প্রান্ত দিয়ে প্রবাহিত ব্রহ্মপুত্র নদ, মহাপর্বত হিমালয় সরোবর হতে উৎসরিত হয়ে, আসাম ও ময়মনসিংহ শহরের উপকন্ঠের ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়ে, ভৈরবের কাছে মেঘনায় মিলিত হয়ে, দক্ষিণে বঙ্গোপসাগরে মিলিত হয়েছে। শহরটির উত্তরে কাকারধারী ইউনিয়ন ও ব্রহ্মপুত্র নদ দক্ষিণে কেওয়াটখালী ইউনিয়ন, পূর্বে ব্রহ্মপূত্র নদ ও পশ্চিমে আকুয়া ইউনিয়ন।[২]

আত্মপ্রকাশ[সম্পাদনা]

২ এপ্রিল ২০১৮ তারিখে প্রশাসনিক পুনর্বিন্যাস-সংক্রান্ত জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির (নিকার) সভায় অনুমোদনের মধ্য দিয়ে ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশন গঠিত হয়।[৩] ২০১৮ সালের ১৪ই অক্টোবর ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশন এর প্রজ্ঞাপন জারি হয়।[১] ময়মনসিংহ সদর উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নের মধ্যে বয়ড়া ও আকুয়া সম্পূর্ণ এবং খাগডহর, চর ঈশ্বরদিয়া, দাপুনিয়া, ভাবখালী, সিরতা ও চর নিলক্ষীয়ার আংশিক পল্লী এলাকাকে পৌরসভার অন্তর্ভুক্ত করে সিটি কর্পোরেশন এলাকা নির্ধারণ করা হয়।

প্রশাসনিক অবকাঠামো[সম্পাদনা]

২০১৮ সালের ১৬ ই অক্টোবর বিলুপ্ত ময়মনসিংহ পৌরসভার প্রাক্তন মেয়র ইকরামুল হক টিটুকে ১৮০ দিনের জন্য প্রশাসক হিসেবে নিযুক্ত করা হয়। [৪]

৫ মে ২০১৯ ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ৩৩টি ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলর পদে ২৪২জন ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ৭০জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। মেয়র পদে কোনো প্রার্থী না থাকায় আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী সাবেক মেয়র ও কর্পোরেশন প্রশাসক ইকরামুল হক টিটু বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় মেয়র নির্বাচিত হন।

ভৌগোলিক সীমানা[সম্পাদনা]

ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশন এর আয়তন ৯১.৩১৫ বর্গ কি.মি.।[৫]

ময়মেনসিংহ সিটি কর্পোরশনের ৩৩টি সাধারণ ও ১১টি সংরক্ষতি ওয়ার্ড নির্ধারণ করা হয়েছে। সাধারণ ওয়ার্ড নির্ধারণ বিলুপ্ত ময়মনসিংহ পৌরসভার ২১টি ওয়ার্ডের  সীমানা ঠিক রেখে  নতুন আরও ১২টি ওয়ার্ড  সংযোজন করা হয়েছে। ফলে ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরশনের র্নিবাচনের সকল বাধা কেটে গেলো।

পৌরসভার ২১টি ওয়ার্ডের বাহিরে নতুন যে ১২টি ওয়ার্ড সংযোজন করা হয়েছে। তার সীমানা হচ্ছে ২২ নং ওয়ার্ডে বিলুপ্তু বয়ড়া ইউনিয়নের ১, ২ ও ৩ ওয়ার্ডের সর্ম্পূণ অংশ; ২৩ নং ওয়ার্ডে সুতিয়াখালী ও বেলতলী; ২৪ নং ওয়ার্ডে বয়ড়া ইউনিয়নের ৭ ও ৯ ওয়ার্ডে এবং ছভাগিয়া ও ছালাকান্দি; ২৫ নং ওয়ার্ডে দিঘারকান্দা ও ফকিরাকান্দা; ২৬ নং ওয়ার্ডে উজান রাড়েরা (আকুয়া ইউনিয়নের আগের ৩ নং ওয়ার্ডের অংশ), কান্দাপাড়া, মধ্যবাড়েরা, ভাটিবাড়েরা ও শিকারীকান্দা; ২৭ নং ওয়ার্ডে আকুয়া দক্ষিণপাড়া (আকুয়া ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের অংশ) ও মোড়লপাড়া; ২৮ নং ওয়ার্ডে চুকাইতলা, আকুয়া দক্ষিণপাড়া (আকুয়া ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের অংশ); ২৯ নং ওয়ার্ডে উত্তর দাপুনিয়া (দাপুনিয়া ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের অংশ), কলাপাড়া (দাপুনিয়া ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের অংশ), হাড় গুজিরপাড়, দাপুনিয়া ভাটিপাড়া (পশ্চিম) (দাপুনিয়া ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ডের অংশ), বাদকেল্পা (নাজমি), বাদকেল্পা (রুস্তম), উজানবাড়রো (আকুয়া ইউনিয়নের আগরে ২ নং ওয়ার্ডের অংশ) ও গন্দ্রপা; ৩০ নং ওয়ার্ডের খাগডহর (খাগডহর ইউনিয়নের পুরাতন ৯ নং ওয়ার্ডের অংশ), কিসমত, হাসিবাসী, বৈশাখাই, বাঘেরকান্দা, নিজকল্পা, রহমতপুর (খাগডহর ইউনিয়নের আগরে ৩ নং ওয়ার্ডের অংশ); ৩১ নং ওয়ার্ড জেলখানার চর (খাগডহর ইউনিয়নের আগের ৯ নং ওয়ার্ডের অংশ), চরঈশ্বরদিয়া ও চরগোবিন্দপুর; ৩২ নং ওয়ার্ডে চরকালিবাড়ি এবং ৩৩ নং ওয়ার্ডে চরঝাওগড়া, চরগোবদিয়া ও রঘুরামপুর।

জনসংখ্যা[সম্পাদনা]

ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশন এর মোট জনসংখ্যা ৪ লাখ ৭১ হাজার ৮৫৮ জন। জনসংখ্যার ঘনত্ব হবে প্রতি বর্গকিলোমিটারে ৫ হাজার ১৬৭ জন।

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

ময়মনসিংহ মহানগরীর একমাত্র ভারী শিল্পপ্রতিষ্ঠান হলো ময়মনসিংহ জুট মিলস লি: যা নগরীর শম্ভূগঞ্জ এলাকায় অবস্থিত।

এছাড়াও ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশন এর আওতায় রয়েছে ১৯৬৮ সালে তৎকালীন পাকিস্তান সরকার কর্তৃক প্রতিষ্ঠত বিসিক শিল্পনগরী যা ২১.00 একর জায়গার উপর শহরের মাসকান্দা এলাকায় অবস্থিত।

শিক্ষাব্যবস্থা[সম্পাদনা]

এখানে ১টি বিশ্ববিদ্যালয় (বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়), ২টি মেডিক্যাল কলেজ (ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ, কমিউনিটি বেজড মেডিকেল কলেজ, বাংলাদেশ) ১টি প্রকৌশল কলেজ (ময়মনসিংহ ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ), ১টি ক্যাডেট কলেজ (ময়মনসিংহ গার্লস ক্যাডেট কলেজ) ২টি শিক্ষক প্রশিক্ষণ কলেজ ছাড়াও ময়মনসিংহ জিলা স্কুল, বিদ্যাময়ী সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, গভর্নমেন্ট ল্যাবরেটরী হাই স্কুল,ময়মনসিংহ, মুকুল নিকেতন উচ্চ বিদ্যালয়, ময়মনসিংহ, আনন্দ মোহন কলেজ, ময়মনসিংহ, রয়েল মিডিয়া কলেজ, ময়মনসিংহ, মুমিনুন্নিসা সরকারি মহিলা কলেজ, শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম কলেজ, নাসিরাবাদ কলেজ, ময়মনসিংহ পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট এর মতো আরো অসংখ্য ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

যাতায়াত ব্যাবস্থা[সম্পাদনা]

ময়মনসিংহ থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানের সাথে রয়েছে ট্রেন যোগাযোগ। রয়েছে আন্তঃনগর এবং মেইল ট্রেন উভয়ই।

আন্তঃনগর ট্রেন সমূহঃ

  • আন্তঃনগর তিস্তা এক্সপ্রেস
  • আন্তঃনগর ব্রহ্মপুত্র এক্সপ্রেস
  • আন্তঃনগর যমুনা এক্সপ্রেস
  • আন্তঃনগর অগ্নিবীণা এক্সপ্রেস
  • আন্তঃনগর বিজয় এক্সপ্রেস
  • আন্তঃনগর হাওর এক্সপ্রেস
  • আন্তঃনগর মোহনগঞ্জ এক্সপ্রেস
  • মেইল ট্রেনসমূহ হলো:
  • ধলেশ্বরী এক্সপ্রেস,
  • ভাওয়াল এক্সপ্রেস,
  • ময়মনসিংহ এক্সপ্রেস,
  • ঈশাখা এক্সপ্রেস,
  • মহুয়া এক্সপ্রেস,
  • জামালপুর কমিউটার,
  • দেওয়ানগঞ্জ এক্সপ্রেস।[৬]

এছাড়া সড়ক ও জলপথেও যাতায়াত করা যায় ময়মনসিংহে।

প্রত্নসম্পদ এবং দর্শনীয় স্থাপনা[সম্পাদনা]

  • চকবাজার মসজিদ (বড় মসজিদ)
  • বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়
  • আলেকজান্ডার ক্যাসল
  • গৌরিপুর লজ
  • ময়মনসিংহ রাজবাড়ী (শশী লজ)
  • ময়মনসিংহ জাদুঘর (মদন বাবুর বাগান বাড়ি)
  • ময়মনসিংহ সেনানিবাস
  • ময়মনসিংহ কেন্দ্রীয় কারাগার
  • ময়মনসিংহ পুলিশ লাইন
  • বিজিবি সেক্টর সদর দপ্তর, ময়মনসিংহে সেক্টর
  • র‌্যাব-১৪, সদর দপ্তর ময়মনসিংহ
  • বাংলাদেশ ব্যাংক, ময়মনসিংহ
  • ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল ও কলেজ, ময়মনসিংহ সেনানিবাস
  • শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন সংগ্রহশালা,
  • আনন্দ মোহন বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ
  • এস কে হাসপাতাল (সূর্যকান্ত কালাজ্বর গবেষণা কেন্দ্র)
  • হাসান মঞ্জিল (ধনবাড়ি জমিদারের শহরের বাড়ি)
  • ধলা জমিদার বাড়ি
  • তাজভাঙ্গা জমিদার বাড়ি (তাজভাঙ্গা জমিদারের শহরের বাড়ি)
  • চাকলাদার হাউজ
  • রামগোপালপুর জমিদার বাড়ি (রামগোপালপুর জমিদারের শহরের বাড়ি)
  • অঘোর বন্ধু গুহের বাড়ি
  • মসুয়ার জমিদার বাড়ি (মসুয়ার জমিদারের শহরের বাড়ি)
  • পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদী,
  • সার্কিট হাউজ,
  • সিলভার প্যালেস,
  • বিপিন পার্ক,
  • বোটানিক্যাল গার্ডেন,
  • জার্ প্লাজম সেন্টার, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়
  • কৃষি মিউজিয়াম, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়
  • মৎস জাদুঘর, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যািলয়
  • মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট , বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়
  • বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিনা), বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়
  • টিচার্ ট্রেনিং কলেজ (পুরুষ)
  • টিচার্ ট্রেনিং কলেজ (মহিলা)
  • ময়মনসিংহ গালর্ ক্যাডেট কলেজ
  • ময়মনসিংহ টাউন হল,
  • দুর্গাবাড়ী,
  • জয়নুল আবেদিন পার্ক।
  • ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল
  • কমিউনিটি বেজড মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, চুরখাই
  • ময়মনসিংহ ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ (প্রস্তাবিত ময়মনসিংহ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়)
  • জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা একাডেমী (ন্যাপ)
  • স্বাধীনতা স্মৃতিস্তম্ব, বলাশপুর
  • মুক্তিযুদ্ধ যাদুঘর, ময়মনসিংহ সেনানিবাস
  • বিজয় ৭১, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়
  • শহীদ মিনার, টউন হল, ময়মনসিংহ
  • ডিসি পার্ক
  • বুড়া পীরের মাজার
  • লালকুঠি দরবার শরীফ
  • হযরত বুরহান উদ্দিন আউলিয়ার মাজার শরীফ
  • রামকৃষ্ণ মিশন
  • ধর্মপ্রদেশ মিশন হাউজ
  • ময়মনসিংহ সার্কিট হাউজ
  • রিভার প্যালেস
  • ময়মনসিংহ জুট মিলস
  • ময়মনসিংহ পাওয়ার স্টেশন

ব্যক্তিত্ব[সম্পাদনা]

কবি জালাল উদ্দিন আহম্মেদ। প্রতিষ্ঠাতা, কবি প্রাঙ্গণ বাংলাদেশ।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. [১],ময়মনসিংহ বিভাগ প্রজ্ঞাপন।
  2. [২],ময়মনসিংহ বিভাগ।
  3. "ময়মনসিংহ এখন সিটি করপোরেশন"দৈনিক যুগান্তর। সংগ্রহের তারিখ ২ এপ্রিল ২০১৮ 
  4. https://lgd.portal.gov.bd/sites/default/files/files/lgd.portal.gov.bd/divisional_noc/1233f28f_c3f0_4fdc_aab7_7d71c1ce9174/669(16-10-18).pdf,প্রশাসক।
  5. [৩],দৈনিক যুগান্তর।
  6. বাংলাদেশ রেলওয়ে ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২৩ মার্চ ২০১৩ তারিখে, www.railway.gov.bd; সংগ্রহের তারিখ: ২৪ মার্চ ২০১৩ খ্রিস্টাব্দ।

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]