বাংলাদেশের পথশিশু

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
Street Child, Srimangal Railway Station.jpg

পথশিশু শব্দটি সেই সব শিশুদের প্রকাশ করে, যাদের কাছে রাস্তাই (বিস্তৃত অর্থে বস্তি, পতিত জমি ইত্যাদিও এর অন্তর্ভুক্ত) তাদের স্বাভাবিক বাসস্থান এবং/অথবা জীবিকা নির্বাহের উৎস হয়ে উঠেছে এবং তারা দায়িত্বশীল কোনো প্রাপ্তবয়স্ক কর্তৃক সুরক্ষিত, পথ নির্দেশনা প্রাপ্ত ও পরিচালিত হয়।[১]

সংজ্ঞায়ন[সম্পাদনা]

পথশিশুরা স্কুলে যায় না; বরং এর পরিবর্তে রাস্তাঘাটে বিভিন্ন জিনিস বিক্রি করে বা অন্য কাজ করে। এর কারণ তাদের বাবা-মা কাজ করতে অক্ষম বা তাদের উপার্জন অতি সামান্য, যা তাদের পরিবারের ভরণপোষণের জন্য যথেষ্ট নয়। ধারণা করা হয় যে বাংলাদেশে ৬,০০,০০০-এর বেশি পথশিশু বসবাস করছে এবং এদের ৭৫% ই রাজধানী ঢাকায় বসবাস করে। মানব উন্নয়ন সূচকে ১৩৮তম স্থানে থাকা একটি দেশ, যেখানে জনসংখ্যার অর্ধেক মানুষ দারিদ্র্যসীমার নিচে বাস করে সেখানে এই শিশুরা সামাজিক স্তরগুলোর মধ্যে সর্বনিম্ন স্তরের প্রতিনিধিত্ব করে। দেশের জনসংখ্যা এখন বেড়েছে, আর রাস্তার শিশুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে আনুমানিক ৪০,০০,০০০ জনে।[২][৩]

বৈশিষ্ট্য[সম্পাদনা]

সংখ্যা[সম্পাদনা]

বর্তমানে বাংলাদেশে রাস্তার শিশুদের সংখ্যা নিয়ে সরকারি কোনো পরিসংখ্যান নেই, আর তাদের সংখ্যা কোয়ান্টিফাই করা প্রায় অসম্ভব, যা বছরে বাড়ছে।

বয়স[সম্পাদনা]

বাংলাদেশে রাস্তার শিশুদের জন্য কোনো নির্দিষ্ট বয়স নেই, যারা ৬ থেকে ১২ বছর বয়সের উদ্দেশ্যে কাজ করে, অথচ যারা অন্য কাজ করেন তাদের বয়স ১৩ থেকে ১৫ বছরের মধ্যে। পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশুরাও জিনিসপত্র বিক্রি করে কাজ করতে পারে, অথবা রাস্তায় ঘুরে বেড়ায় তাদের জীবন যাপন।

লিঙ্গ[সম্পাদনা]

বাংলাদেশের অধিকাংশ রাস্তার মেয়েরা ১০ বছর বয়স থেকে বিবাহিত, তাদের খুব কঠিন জীবনে নেতৃত্ব দেয়, অথচ পুরুষ শিশুদের পরিবারের দায়িত্ব নেওয়ার জন্য কঠোর পরিশ্রম করতে হয়।

কারণসমূহ[সম্পাদনা]

রাস্তার শিশুদের বসবাসের জায়গা নেই, বা এমনকি ঘুমও নেই, তারা রাস্তা পেরিয়ে আসতে পারে, গোলাপ বিক্রি করে।

বাংলাদেশের অনেক রাস্তার ছেলেমেয়ে কম বয়সে মারা যায়, তারা প্রয়োজনীয় যত্নও পাচ্ছেন না । প্রতি বছর জলবাহিত রোগে ১,১০,০০০ শিশুর মৃত্যু হয়। বাংলাদেশের রাস্তার শিশুরা স্বাস্থ্যকর খাবার কিনতে অক্ষম, যা অনেক সময় তাদের স্বাস্থ্যের জন্য উপযুক্ত নয় এমন খাবার খেতে বাধ্য করে। খাবারের খোঁজে তারাও খিদে পেতে পারেন।

সংগঠিত অপরাধ[সম্পাদনা]

রাস্তার ছেলেমেয়েরা অনেক সময় কাজ করতে বাধ্য হয়, তাদের মধ্যে কিছু সংগঠিত অপরাধ গোষ্ঠীর সর্বনিম্ন মাত্রার সঙ্গে কাজ করে। বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকায় সংগঠিত অপরাধ ব্যাপক, যেখানে সংগঠিত অপরাধ গোষ্ঠীর নেতাদের 'মাচাবাসী' বলা হয় এবং সারা দেশে, বিশেষত রাজধানী ঢাকার বস্তিতে তাদের কাজ ছড়িয়ে পড়ছে। অপরাধবিদ ও পরিকল্পনা বিশেষজ্ঞ ও আন্তর্জাতিক পরামর্শক স্যালি অ্যাটকিনসন শেপার্ড সংগঠিত অপরাধের ক্ষেত্রে রাস্তার শিশুদের জড়িত থাকার বিষয়ে বিস্তারিত গবেষণা চালিয়েছিলেন।

রাস্তার শিশু সংগঠনগুলি[সম্পাদনা]

রাস্তার ছেলেমেয়েরা অনেক সময় বৈধ উপায়ে অর্থ উপার্জন করে না কারণ তারা সঠিক শিক্ষা পেতে পারে না। সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো অনেক সময় তাদের সহায়তা প্রদান করে, আর যেসব এনজিও ইউনিসেফ প্রায়ই এনজিওগুলোকে সহায়তা প্রদান করে থাকে। বাংলাদেশ স্ট্রিট চিলড্রেন ফাউন্ডেশন, দ্য স্ট্রিট চিলড্রেন অ্যাকটিভিস্ট নেটওয়ার্ক, ঢাকা আহসানিয়া মিশন, চিলড্রেন ফেরদৌস, জাগো ফাউন্ডেশন, বাংলাদেশ স্ট্রিট চিলড্রেন অর্গানাইজেশন ও বিগ স্কুল-সহ বিভিন্ন রাস্তার শিশুদের সীমিত সহায়তা প্রদান করে এমন ছোট এনজিওগুলো রয়েছে ওইসআরিয়ান, সুএমবাকোনা ফাউন্ডেশন ইত্যাদি। কিছু সংগঠনও রাস্তার শিশুদের অনুদান তুলে দেয়।

বাংলাদেশের সমন্বিত কমিউনিটি ও ইন্ডাস্ট্রিয়াল ডেভেলপমেন্ট ইনিশিয়েটিভ এজেন্সি রাস্তার শিশুদের, বিশেষ করে যারা নির্যাতিত ও যৌন শোষণ করছে, তাদের অবস্থার উন্নতির জন্য কাজ করছে। এর স্বাভাবিক কার্যক্রমের পাশাপাশি স্ট্রিট চিলড্রেন ইন্টারন্যাশনালের সহযোগিতায় ২০১১ সালে এই সংগঠনটি আন্তর্জাতিক সড়ক শিশু দিবস পালন করে, যেখানে রাস্তার শিশুদের অধিকার নিয়ে প্রচার মাধ্যম ইউনিয়ন ফর স্ট্রিট চিলড্রেন (সিএসসি) ২০১১-এ চালু হয়। সারা বিশ্বেই। রাস্তার শিশুরা এনজিও, রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত নির্মাতা, সেলিব্রিটি, কোম্পানি এবং বিশ্বের বিভিন্ন ব্যক্তির সাথে তাদের আন্তর্জাতিক দিবস উদযাপন করে।

শিক্ষা[সম্পাদনা]

বাংলাদেশে পথশিশুদের স্কুলে যাওয়ার সামর্থ নেই। তাই তাদের সঠিক শিক্ষা লাভের সুযোগ নেই। অথচ, এই শিশুদের জন্য শিক্ষা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, তাদের যদি সঠিক শিক্ষা না থাকে, তাহলে তাদেরকে বাকি জীবনটাও দুর্বিষহভাবে কাটাতে হবে। তবে, কিছু এনজিও পথশিশুদের মাঝে শিক্ষার প্রসারে কাজ করে যাচ্ছে।[৪][৫]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Thomas de Benítez, Sarah (২০০৭)। "State of the world's street children"Consortium for Street Children। ফেব্রুয়ারি ২২, ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ২০, ২০১২ 
  2. Children in Bangladesh। "Street Children - Bangladesh" [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  3. End Poverty in South Asia। "World Bank Blogs" 
  4. JAAGO Schools now powered by Bangladesh’s first ‘Online Classroom’!। "JAAGO Foundation" 
  5. Bangladesh: Helping the street children of Dhaka। "Plan UK"