তেম্বা বাভুমা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
তেম্বা বাভুমা
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামতেম্বা বাভুমা
জন্ম (1990-05-17) ১৭ মে ১৯৯০ (বয়স ২৯)
কেপ টাউন, কেপ প্রদেশ, দক্ষিণ আফ্রিকা
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি মিডিয়াম
ভূমিকাব্যাটসম্যান
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৩২০)
২৬ ডিসেম্বর ২০১৪ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ
শেষ টেস্ট১২ জানুয়ারি ২০১৭ বনাম শ্রীলঙ্কা
একমাত্র ওডিআই
(ক্যাপ ১১৭)
২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৬ বনাম আয়ারল্যান্ড
ওডিআই শার্ট নং১১
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
২০০৮-২০১৫গটেং
২০০৯-বর্তমানলায়ন্স
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই এফসি এলএ
ম্যাচ সংখ্যা ১৭ ১০১ ৭০
রানের সংখ্যা ৬৬০ ১১৩ ৫,৩০৪ ১,৫০৩
ব্যাটিং গড় ৩০.০০ ১১৩.০০ ৩৭.৬১ ২৮.৩৫
১০০/৫০ ১/৪ ১/০ ১২/২৫ ২/৫
সর্বোচ্চ রান ১০২* ১১৩ ১৬২ ১১৩
বল করেছে ৪৮ ২৪৮
উইকেট
বোলিং গড় ৩০.০০ ৩৩.৪০
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট - -
সেরা বোলিং ১/২৯ ২/৩৪
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৮/– ১/– ৫১/– ১৬/–
উৎস: ক্রিকেটআর্কাইভ, ১৫ জানুয়ারি ২০১৭

তেম্বা বাভুমা (ইংরেজি: Temba Bavuma; জন্ম: ১৭ মে, ১৯৯০) কেপ প্রদেশের কেপটাউনে জন্মগ্রহণকারী দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেটারদক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য তিনি। দলে তিনি মূলতঃ মাঝারি সারির ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলছেন। এছাড়াও, ঘরোয়া ক্রিকেটে গটেংয়ের পক্ষে খেলছেন তিনি।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

নিউল্যান্ডসের সাউথ আফ্রিকান কলেজ জুনিয়র স্কুলে অধ্যয়ণ করেন।[১] এরপর স্যান্ডটনের সেন্ট ডেভিডস ম্যারিস্ট ইনান্দা হাইস্কুলে পড়াশোনা করেন।

২০০৮ সালে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে ইস্টার্ন প্রভিন্সের বিপক্ষে অভিষেক ঘটে তার। খেলায় তিনি মাত্র চার রান সংগ্রহ করেন। সংক্ষিপ্তকালের জন্য জুটি গড়লেও ডেন ভিলাস করেন তার নিজস্ব সেরা স্কোর।

২০১০-১১ মৌসুমে ফ্রাঞ্চাইজ প্রতিযোগিতায় লায়ন্সের প্রতিনিধিত্ব করেন। সুপারস্পোর্ট সিরিজের প্রথম মৌসুমে ৬০.৫০ গড়ে চার খেলায় ২৪২ রান তোলেন। তন্মধ্যে নাইটসের বিরুদ্ধে করেন অপরাজিত ১২৪* রান। খেলায় তিনি ম্যান অব দ্য ম্যাচের পুরস্কার পান।[২][৩]

ঘরোয়া ক্রিকেটে চমৎকার ক্রীড়াশৈলী উপস্থাপন করায় দক্ষিণ আফ্রিকা এ ক্রিকেট দলের সদস্য হন ও পাঁচ খেলায় অংশ নেন। জুলাই, ২০১২ সালে ডারবানে শ্রীলঙ্কা এ দলের বিপক্ষে প্রথম খেলেন।[৪] ঐ বছরেরই আগস্টে আয়ারল্যান্ডে এ দলের সদস্য হিসেবে সফর করেন।[৫] কিন্তু দুই খেলার ঐ সিরিজে তিনি তেমন সফলতা পাননি।

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

২৬ ডিসেম্বর, ২০১৪ তারিখে সফরকারী ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তার টেস্ট অভিষেক ঘটে।[৬] দক্ষিণ আফ্রিকার প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ ক্রিকেটার হিসেবে সেঞ্চুরি করার কীর্তিগাঁথা রচনা করেন তিনি। ৫ জানুয়ারি, ২০১৬ তারিখে সফরকারী্ ইংল্যান্ডের বিপক্ষে কেপটাউনে অনুষ্ঠিত সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টে অপরাজিত ১০২ রান তুলেন। [৭]

৭ নভেম্বর, ২০১৬ তারিখে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম টেস্ট উইকেট পান।[৮]

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ তারিখে সফরকারী আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে তার ওডিআই অভিষেক ঘটে। বেনোনিতে অনুষ্ঠিত ঐ খেলায় তিনি ১২৩ বলে ১১৫ রানের মনোমুগ্ধকর সেঞ্চুরি করেন।[৯][১০]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Bavuma inspires school assembly"Sport। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০১-১৬ 
  2. http://www.espncricinfo.com/ci/engine/match/469438.html
  3. http://stats.espncricinfo.com/ci/engine/records/averages/batting_bowling_by_team.html?id=6028;team=3300;type=tournament
  4. http://cricketarchive.com/Archive/Scorecards/441/441835.html
  5. http://cricketarchive.com/Archive/Scorecards/439/439344.html
  6. "West Indies tour of South Africa, 2nd Test: South Africa v West Indies at Port Elizabeth, Dec 26-30, 2014"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৬ ডিসেম্বর ২০১৪ 
  7. Hopps, David (৫ জানুয়ারি ২০১৬)। "Historic Bavuma ton helps SA achieve parity"ESPNcricinfo। ESPN Sports Media। সংগ্রহের তারিখ ৫ জানুয়ারি ২০১৬ 
  8. "Australia v South Africa at Perth"। ESPNcricinfo। সংগ্রহের তারিখ ৭ নভেম্বর ২০১৬ 
  9. "Ireland tour of South Africa, Only ODI: South Africa v Ireland at Benoni, Sep 25, 2016"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  10. "Bavuma ton sets up crushing 206-run win"ESPNcricinfo। ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]