২০১৩-১৪ নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলের বাংলাদেশ সফর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
২০১৩-১৪ নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলের বাংলাদেশ সফর
Flag of Bangladesh.svg
বাংলাদেশ
Flag of New Zealand.svg
নিউজিল্যান্ড
তারিখ ৪ অক্টোবর, ২০১৩ – ৬ নভেম্বর, ২০১৩
অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম ব্রেন্ডন ম্যাককুলাম
কাইল মিলস (৩য় ওডিআই; টি২০)
টেস্ট সিরিজ
ফলাফল ২-ম্যাচের সিরিজ ০–০ তে ড্র হয়
সর্বাধিক রান মমিনুল হক (৩৭৬) কেন উইলিয়ামসন (২৫০)
সর্বাধিক উইকেট সোহাগ গাজী (৮) নিল ওয়াগনার (৭)
সিরিজ সেরা মমিনুল হক (বাংলাদেশ)
একদিনের আন্তর্জাতিক সিরিজ
ফলাফল ৩-ম্যাচের সিরিজ বাংলাদেশ ৩–০ তে জয়ী হয়
সর্বাধিক রান নাঈম ইসলাম (১৬৩) রস টেলর (১৬০)
সর্বাধিক উইকেট রুবেল হোসেন (৭) জেমস নিশাম (৮)
সিরিজ সেরা মুশফিকুর রহিম (বাংলাদেশ)
টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিক সিরিজ
ফলাফল ১-ম্যাচের সিরিজ নিউজিল্যান্ড ১–০ তে জয়ী হয়
সর্বাধিক রান মুশফিকুর রহিম (৫০) কলিন মুনরো (৭৩)
সর্বাধিক উইকেট আল-আমিন হোসেন (২) টিম সাউদি (৩)

নিউজিল্যান্ড জাতীয় ক্রিকেট দল ৪ অক্টোবর, ২০১৩ তারিখ থেকে ৬ নভেম্বর, ২০১৩ তারিখ পর্যন্ত বাংলাদেশ সফর করে।[১] সফরে দলটি দু’টি টেস্ট, তিনটি একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ও একটি টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিক খেলায় বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের মুখোমুখি হয়।

দলের সদস্য[সম্পাদনা]

টেস্ট ওডিআই টি২০আই
 বাংলাদেশ[২]  নিউজিল্যান্ড[৩]  বাংলাদেশ[৪]  নিউজিল্যান্ড  বাংলাদেশ  নিউজিল্যান্ড
  • ডেঙ্গু জ্বরের কারণে সাকিব আল হাসানের পরিবর্তে ইলিয়াস সানিকে দলে নেয়া হয়।[৫]
  • পায়ে আঘাতপ্রাপ্ত হওয়ায় শফিউল ইসলামের পরিবর্তে আল-আমিন হোসেনকে দলে অন্তর্ভুক্ত করা হয়।[৬]

প্রস্তুতিমূলক খেলা[সম্পাদনা]

৪-৬ অক্টোবর, ২০১৩
স্কোরকার্ড
বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড একাদশ
কোন বল মাঠে গড়ানো ছাড়াই খেলা পরিত্যক্ত
এম এ আজিজ স্টেডিয়াম, চট্টগ্রাম
  • বৃষ্টির কারণে ১ম ও ২য় দিনের খেলা বন্ধ থাকে।

টেস্ট সিরিজ[সম্পাদনা]

১ম টেস্ট[সম্পাদনা]

৯-১৩ অক্টোবর, ২০১৩
স্কোরকার্ড
৪৬৯
কেন উইলিয়ামসন ১১৪ (২১০)
আব্দুর রাজ্জাক ৩/১৪৭ (৫৫ ওভার)
৫০১
মমিনুল হক ১৮১ (২৭৪)
ডগ ব্রেসওয়েল ৩/৯৬ (২৫ ওভার)
২৮৭/৭ ডিঃ (৯০ ওভার)
কেন উইলিয়ামসন ৭৪ (১৫০)
সোহাগ গাজী ৬/৭৭ (২৬ ওভার)
১৭৩/৩ (৪৮.২ ওভার)
সাকিব আল হাসান ৫০* (৩৯)
ব্রুশ মার্টিন ২/৬২ (১৬ ওভার)
ম্যাচ ড্র
জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম, চট্টগ্রাম
আম্পায়ার: ব্রুস অক্সেনফোর্ড (অস্ট্রেলিয়া) ও এস রবি (ভারত)
ম্যাচসেরা: সোহাগ গাজী (বাংলাদেশ)

২য় টেস্ট[সম্পাদনা]

২১-২৫ অক্টোবর, ২০১৩
স্কোরকার্ড
২৮২
তামিম ইকবাল ৯৫ (১৫৩)
নিল ওয়াগনার ৫/৬৪ (১৯ ওভার)
৪৩৭
কোরে অ্যান্ডারসন ১১৬ (১৭৩)
সাকিব আল হাসান ৫/১০৩ (৪৩ ওভার)
২৬৯/৩ (৮৯ ওভার)
মমিনুল হক ১২৬* (২২৫)
নিল ওয়াগনার ২/৫২ (১৮ ওভার)
ম্যাচ ড্র
শের-ই-বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়াম, মিরপুর
আম্পায়ার: রিচার্ড ইলিংওয়ার্থ (ইংল্যান্ড) এবং ব্রুস অক্সেনফোর্ড (অস্ট্রেলিয়া)
ম্যাচসেরা: মমিনুল হক (বাংলাদেশ)
  • বাংলাদেশ টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • বৃষ্টির কারণে ১ম ও ২য় দিনের খেলা নির্ধারিত ওভারের আগেই শেষ হয় এবং ৫ম দিনের খেলা মাঠে গড়ায় নি।
  • বাংলাদেশের পক্ষে আল-আমিন হোসেনের টেস্ট অভিষেক হয়।

ওডিআই সিরিজ[সম্পাদনা]

১ম ওডিআই[সম্পাদনা]

২৯ অক্টোবর, ২০১৩
১৩:৩০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
বাংলাদেশ 
২৬৫ (৪৯.৫ ওভার)
 নিউজিল্যান্ড
১৬২ (২৯.৫ ওভার)
মুশফিকুর রহিম ৯০ (৯৮)
জেমস নিশাম ৪/৪২ (৯ ওভার)
গ্রান্ট এলিয়ট ৭১ (৭৭)
রুবেল হোসেন ৬/২৬ (৫.৫ ওভার)
বাংলাদেশ ৪৩ রানে বিজয়ী (ডি/এল)
শের-ই-বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়াম, মিরপুর
আম্পায়ার: এনামুল হক (বাংলাদেশ) এবং রানমোরে মারটিনেসয (শ্রীলঙ্কা)
সেরা খেলোয়াড়: রুবেল হোসেন (বাংলাদেশ)
  • নিউজিল্যান্ড টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • বৃষ্টির কারণে নিউজিল্যান্ডের ইনিংস ৮২/৩ (২০ ওভার)-এর পর স্থগিত করা হয়। সংশোধিত লক্ষ্যমাত্রা ৩৩ ওভারে ২০৬ নির্ধারণ করা হয়।
  • এই ম্যাচে তৃতীয় বাংলাদেশী হিসেবে রুবেল হোসেন ওডিআই হ্যাটট্রিক করেন।

২য় ওডিআই[সম্পাদনা]

১ নভেম্বর, ২০১৩
১৩:৩০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
বাংলাদেশ 
২৪৭/১০ (৪৯ ওভার)
 নিউজিল্যান্ড
২০৭/১০ (৪৬.৪ ওভার)
রস টেলর ৪৫ (৮২)
সোহাগ গাজী ৩/৩৪ (১০ ওভার)
  • বাংলাদেশ টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • বাংলাদেশের পক্ষে শামসুর রহমানের ওডিআই অভিষেক হয়।

৩য় ওডিআই[সম্পাদনা]

৪ নভেম্বর, ২০১৩
৯:১৫
স্কোরকার্ড
নিউজিল্যান্ড 
৩০৭/৫ (৫০ ওভার)
 বাংলাদেশ
৩০৯/৬ (৪৯.২ ওভার)
রস টেলর ১০৭* (৯৩)
মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ২/৩৬ (৭ ওভার)
বাংলাদেশ ৪ উইকেটে বিজয়ী
ফতুল্লা ওসমানী স্টেডিয়াম, ফতুল্লা
আম্পায়ার: এনামুল হক (বাংলাদেশ) এবং রানমোরে মারটিনেসয (শ্রীলঙ্কা)
সেরা খেলোয়াড়: শামসুর রহমান (বাংলাদেশ)
  • বাংলাদেশ টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

টুয়েন্টি২০ সিরিজ[সম্পাদনা]

একমাত্র টুয়েন্টি২০[সম্পাদনা]

৬ নভেম্বর, ২০১৩
১৩:৩০
স্কোরকার্ড
নিউজিল্যান্ড 
২০৪/৫ (২০ ওভার)
 বাংলাদেশ
১৮৯/৯ (২০ ওভার)
কলিন মুনরো ৭৩* (৩৯)
আল-আমিন হোসেন ২/৩১ (৪ ওভার)
মুশফিকুর রহিম ৫০ (২৯)
টিম সাউদি ৩/৩৮ (৪ ওভার)
নিউজিল্যান্ড ১৫ রানে বিজয়ী
শের-ই-বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়াম, মিরপুর
আম্পায়ার: আনিসুর রহমান (বাংলাদেশ) এবং শরফুদ্দৌলা (বাংলাদেশ)
সেরা খেলোয়াড়: কলিন মুনরো (নিউজিল্যান্ড)
  • নিউজিল্যান্ড টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • বাংলাদেশের পক্ষে আল-আমিন হোসেনের ও নিউজিল্যান্ডের পক্ষে আন্টন ডেভচিশের টি২০আই অভিষেক হয়।

পরিসংখ্যান[সম্পাদনা]

টেস্ট
ব্যাটিং[৭]
খেলোয়াড় দল ম্যাচ ইনিংস রান গড় সর্বোচ্চ ১০০ ৫০
মমিনুল হক  বাংলাদেশ ৩৭৬ ১৮৮.০০ ১৮১
কেন উইলিয়ামসন  নিউজিল্যান্ড ২৫০ ৮৩.৩৩ ১১৪
তামিম ইকবাল  বাংলাদেশ ২১১ ৫২.৭৫ ৯৫
বিজে ওয়াটলিং  নিউজিল্যান্ড ১৭৩ ৮৬.৫০ ১০৩
পিটার ফুলটন  নিউজিল্যান্ড ১৪৬ ৪৮.৬৬ ৭৩
বোলিং[৮]
খেলোয়াড় দল ম্যাচ ওভার উইকেট গড় সেরা ৫ উই ১০ উই
সোহাগ গাজী  বাংলাদেশ ৯২ ২৯.১২ ৬/৭৭
নিল ওয়াগনার  নিউজিল্যান্ড ৩৭ ১৬.৫৭ ৫/৬৪
সাকিব আল হাসান  বাংলাদেশ ৭৬ ৩০.১৪ ৫/১০৩
ইশ সোধি  নিউজিল্যান্ড ৭২ ৪৪.১৬ ৩/৫৯
আব্দুর রাজ্জাক  বাংলাদেশ ১১০ ৭১.৮০ ৩/১৪৭
ওডিআই
ব্যাটিং[৯]
খেলোয়াড় দল ম্যাচ ইনিংস রান গড় সর্বোচ্চ ১০০ ৫০
নাঈম ইসলাম  বাংলাদেশ ১৬৩ ৫৪.৩৩ ৮৪
রস টেলর  নিউজিল্যান্ড ১৬০ ৮৪.৬৫ ১০৭*
মুশফিকুর রহিম  বাংলাদেশ ১২৩ ৯৪.৬১ ৯০
শামসুর রাহমান  বাংলাদেশ ১২১ ৭৫.১৫ ৯৬
গ্রান্ট এলিয়ট  নিউজিল্যান্ড ৮৮ ২৯.৩৩ ৭১
বোলিং[১০]
খেলোয়াড় দল ম্যাচ ওভার উইকেট গড় সেরা ৫ উই ১০ উই
জেমস নিশাম  নিউজিল্যান্ড ১৯ ১১.৮৭ ৪/৪২
রুবেল হোসেন  বাংলাদেশ ২০.৫ ১৫.৮৫ ৬/২৬
কোরে অ্যান্ডারসন  নিউজিল্যান্ড ২৭.৫ ২০.২৮ ৪/৪০
সোহাগ গাজী  বাংলাদেশ ২৬ ২৭.৪০ ৩/৩৪
টিম সাউদি  নিউজিল্যান্ড ২০ ২৬.৩৩ ৩/৩৪
টি২০আই
ব্যাটিং[১১]
খেলোয়াড় দল ম্যাচ ইনিংস রান গড় সর্বোচ্চ ১০০ ৫০
কলিন মানরো  নিউজিল্যান্ড ৭৩ ৭৩*
অ্যান্টন ডেভসিচ  নিউজিল্যান্ড ৫৯ ৫৯.০০ ৫৯
মুশফিকুর রহিম  বাংলাদেশ ৫০ ৫০.০০ ৫০
মাহমুদুল্লাহ  বাংলাদেশ ৩৪ ৩৪.০০ ৩৪
নাসির হোসেন  বাংলাদেশ ২৮ ২৮.০০ ২৮
বোলিং[১২]
খেলোয়াড় দল ম্যাচ ওভার উইকেট গড় সেরা ৫ উই ১০ উই
টিম সাউদি  নিউজিল্যান্ড ১২.৬৬ ৩/৩৮
কোরে অ্যান্ডারসন  নিউজিল্যান্ড ১০.৫০ ২/২১
আল-আমিন হোসেন  বাংলাদেশ ১৫.৫০ ২/৩১
নাথান ম্যাককুলাম  নিউজিল্যান্ড ১৮.০০ ১/১৮
আব্দুর রাজ্জাক  বাংলাদেশ ১৯.০০ ১/১৯

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "New Zealand tour of Bangladesh, 2013/14 / Fixtures"Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৩ 
  2. "দুই বছর পর টেস্ট দলে রাজ্জাক"। প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ২ অক্টোবর ২০১৩ 
  3. "বাংলাদেশ সফরে দুই নতুন মুখ"। প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৩ 
  4. "Mortaza included for New Zealand ODIs"। ক্রিকইনফো। সংগ্রহের তারিখ ২৩ অক্টোবর ২০১৩ 
  5. Shakib down with dengue fever, Sunny called up
  6. Shafiul Islam ruled out of ODI series
  7. "Records / New Zealand in Bangladesh Test Series, 2013/14 / Most runs" (ইংরেজি ভাষায়)। ক্রিকইনফো। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০১-২২ 
  8. "Records / New Zealand in Bangladesh Test Series, 2013/14 / Most wickets" (ইংরেজি ভাষায়)। ক্রিকইনফো। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০১-২২ 
  9. "Records / New Zealand in Bangladesh ODI Series, 2013/14 / Most runs" (ইংরেজি ভাষায়)। ক্রিকইনফো। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০১-২২ 
  10. "Records / New Zealand in Bangladesh ODI Series, 2013/14 / Most wickets" (ইংরেজি ভাষায়)। ক্রিকইনফো। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০১-২২ 
  11. "Records / New Zealand in Bangladesh T20I Match, 2013/14 / Most runs" (ইংরেজি ভাষায়)। ক্রিকইনফো। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০১-২২ 
  12. "Records / New Zealand in Bangladesh T20I Match, 2013/14 / Most wickets" (ইংরেজি ভাষায়)। ক্রিকইনফো। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০১-২২ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]