ফিলিস্তিন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(Palestine থেকে পুনর্নির্দেশিত)
دولة فلسطين (আরবি)
Dawlat Filasṭīn
ফিলিস্তিনের জাতীয় মর্যাদাবাহী নকশা
জাতীয় মর্যাদাবাহী নকশা
সঙ্গীত: "فدائي"
"ফিদা'ই"[১]
"Fedayeen Warrior"
ফিলিস্তিনের দাবিকৃত অঞ্চল (সবুজ)[২] ইসরায়েলেরও দাবিকৃত অঞ্চল (হালকা সবুজ)
ফিলিস্তিনের দাবিকৃত অঞ্চল (সবুজ)[২]
ইসরায়েলেরও দাবিকৃত অঞ্চল (হালকা সবুজ)
অবস্থাআংশিকভাবে স্বীকৃত রাষ্ট্র, জাতিসংঘের পর্যবেক্ষক রাষ্ট্র
জাতিসংঘের ১৩৮টি সদস্য রাষ্ট্র কর্তৃক স্বীকৃত
  • ঘোষিত রাজধানী
  • প্রশাসনিক
    কেন্দ্র
বৃহত্তম নগরীগাজা
সরকারি ভাষাআরবি
জাতীয়তাসূচক বিশেষণফিলিস্তিনি
সরকারএককেন্দ্রিক আধা-রাষ্ট্রপতি শাসিত প্রজাতন্ত্র[৫]
মাহমুদ আব্বাস
মোহাম্মদ শিতায়হে
সেলিম জানাউন
আইন-সভাজাতীয় পরিষদ
গঠন
১৫ নভেম্বর ১৯৮৮
২৯ নভেম্বর ২০১২
• ইসরায়েলের সাথে সার্বভৌমত্বের বিরোধ
চলমান[iii][৬][৭]
আয়তন
• মোট
৬,০২০ কিমি (২,৩২০ মা) (১৬৩তম)
• পানি/জল (%)
৩.৫[৮]
৫,৬৫৫ কিমি
৩৬৫ কিমি[৯]
জনসংখ্যা
• ২০২০ আনুমানিক
৫১,৫৯,০৭৬ জন (১২১তম)
• ঘনত্ব
৭৩১ /কিমি (১,৮৯৩.৩ /বর্গমাইল)
জিডিপি (পিপিপি)২০১৮ আনুমানিক
• মোট
$২৬.৪৭৯ বিলিয়ন[১০] ()
• মাথাপিছু
$৫,৭৯৫[১১] ()
জিডিপি (মনোনীত)২০১৮ আনুমানিক
• মোট
$১৪.৬১৬ বিলিয়ন[১২] ()
• মাথাপিছু
$৩,১৯৯[১৩] ()
জিনি (২০০৯)৩৫.৫[১৪]
মাধ্যম
এইচডিআই (২০১৯)বৃদ্ধি ০.৭০৮[১৫]
উচ্চ · ১১৫তম
মুদ্রা
সময় অঞ্চলইউটিসি+২ (ফিলিস্তিন মান সময়)
• গ্রীষ্মকালীন (ডিএসটি)
ইউটিসি+৩ (ফিলিস্তিন গ্রীষ্মকালীন সময়)
তারিখ বিন্যাসdd/mm/yyyy
গাড়ী চালনার দিকডান
কলিং কোড+970
আইএসও ৩১৬৬ কোডPS
ইন্টারনেট টিএলডি.ps
  1. এছাড়াও সরকার প্রধান।[iv]
  2. দাবি করা অঞ্চলটি ইসরায়েলি দখলের অধীনে।
  3. রামাল্লাহ হলো ফিলিস্তিনি জাতীয় কর্তৃপক্ষের প্রশাসনিক কেন্দ্র।[১৭]

ফিলিস্তিন বা প্যালেস্টাইন[i] (আরবি: فلسطين‎‎, ফিলাস্‌তীন্[১৮][১৯]), সরকারিভাবে ফিলিস্তিন রাষ্ট্র (আরবি: دولة فلسطين‎‎, দাউলাত্ ফিলাস্‌তীন্) নামে পরিচিত,[৫] হচ্ছে মধ্যপ্রাচ্য অঞ্চলের নির্বাসনে ঘোষিত একটি রাষ্ট্র, যেখানে ১৫ নভেম্বর ১৯৮৮ সালে আলজিয়ার্স শহরে প্যালেস্টাইন লিবারেশন অরগানাইজেশন (পিএলও) ও প্যালেস্টাইন জাতীয় পরিষদ (পিএনসি) একপাক্ষিক ভাবে ফিলিস্তিনের স্বাধীনতা ঘোষণা করেছিল। ১৯৮৮ ঘোষণার সময়ে কোনো অঞ্চলেই পিএলওর নিয়ন্ত্রণ ছিল না,[২০] যদিও তারা যে অঞ্চলগুলি দাবি করেছিল আন্তর্জাতিকভাবে সেইগুলি ইসরাইলের দখলে রয়েছে। [২১] ১৯৪৭ সালে জাতিসংঘ দ্বারা প্রস্তাবিত ফিলিস্তিন বিভাগ যেভাবে প্রস্তাবিত হয়েছিল, সেখানে ফিলিস্তিন ভূখণ্ড (গাজা ভূখণ্ডপশ্চিম তীর) ছাড়াও ইসরায়েল শাসনাধীন কিছু অঞ্চল এবং জেরুজালেমকে ঘোষিত রাষ্টের রাজধানী হিসাবে দাবি করে তারা। [ii][১৯][৩]

১৯৭৪ আরব লীগ শীর্ষ বৈঠকে স্থির হয়েছিল, পিএলও ফিলিস্তিনের জনগণের একমাত্র বৈধ প্রতিনিধি এবং ও তাদের জন্য জরুরি ভিত্তিতে একটি স্বাধীন দেশ প্রতিষ্ঠিত আহবান জানিয়েছিল।[২২] ২২ নভেম্বর ১৯৭৪, থেকে একটি জাতি হিসেবে পিএলওকে " রাষ্ট্রহীন-সত্ত্বা " রূপে পর্যবেক্ষক অবস্থা রাখা হয়েছিল। [২৩][২৪] যারা কেবলমাত্র জাতিসংঘে তাদের বক্তব্য রাখতে পারতেন, কিন্তু ভোট দেবারর কোনো ক্ষমতা ছিল না।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

ফিলিস্তিন সমস্যার প্রেক্ষাপট[সম্পাদনা]

ভূমধ্যসাগরের পূর্বে ১০,৪২৯ বর্গমাইলব্যাপী ফিলিস্তিন দেশটি ছিল উসমানীয় খেলাফতের অধীন, প্রথম বিশ্বযুদ্ধে যারা ছিল ব্রিটেন-বিরোধী জোটে৷ তখন যুদ্ধ জয়ে ফিলিস্তিনদের সহযোগিতা পাওয়ার আশায় ১৯১৭ সালে ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী লর্ড বেলফোর যুদ্ধে জয়ী হলে এই ভূমিতে একটি স্বাধীন রাষ্ট্র হবে বলে আশ্বাস দেন৷ যা ইতিহাসে "বেলফোর ঘোষণা" হিসেবে পরিচিত৷ যেহেতু ফিলিস্তিন অঞ্চলে আরবীয়রা ছিল ইহুদিদের তুলনায় কয়েকগুণ বেশি, সেহেতু ঘোষণাটি তাদের অনুকূল বলেই ধরে নেয় স্থানীয় আরবীয়রা।

প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় ব্রিটেনের প্রয়োজনে দুর্লভ বোমা তৈরির উপকরণ কৃত্রিম ফসফরাস তৈরি করতে সক্ষম হন ইহুদি বিজ্ঞানী ড. হেইস বাইজম্যান৷ ফলে আনন্দিত ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী জানতে চাইলেন কী ধরনের পুরস্কার তিনি চান? উত্তর ছিল- "অর্থ নয়, আমার স্বজাতির জন্য এক টুকরো ভূমি আর তা হবে ফিলিস্তিন৷"[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] ফলে ফিলিস্তিন ভূখণ্ডটি ইহুদিদের হাতে তুলে দেয়ার জন্য মানসিকভাবে প্রস্তুতি নেয় ব্রিটেন৷ প্রথম বিশ্বযুদ্ধ জয়ের পর ব্রিটেন স্বাধীনতা দেয়ার অঙ্গীকারে ১৯১৮ সাল থেকে ৩০ বছর দেশটিকে নিজেদের অধীন রাখে৷ মূলত এই সময়টিই ফিলিস্তিনকে আরব-শূন্য (বিশেষত মুসলিম-শূন্য) করার জন্য কাজে লাগায় ইঙ্গ-মার্কিন শক্তি৷ [২৫]

ফিলিস্তিনিদের উচ্ছেদকরণ[সম্পাদনা]

১৯২০ সালে জাতিপুঞ্জ ঘোষণার মাধ্যমে ব্রিটিশরা ম্যান্ডেটরি প্যালেস্টাইন প্রতিষ্ঠা করে। ব্রিটিশ কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠার পর বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে দলে দলে ইহুদিরা ফিলিস্তিনে জড়ো হতে থাকে, যাকে আলিয়াহ বলা হয়। অতঃপর ব্রিটিশ সরকার একদিকে ইহুদিদের জন্য ফিলিস্তিন উন্মুক্ত করে দেয়, অন্যদিকে ব্রিটিশ বাহিনীর সহযোগিতায় ইহুদি মিলিশিয়ারা (আধা-সামরিক বাহিনী সদৃশ) ফিলিস্তিনদের বিতাড়িত করে নিজেদের অবস্থান সুদৃঢ় করার জন্য গড়ে তুলতে থাকে৷ তার মধ্যে তিনটি প্রধান সংগঠন ছিল হাগানাহ, ইরগুনস্ট্যার্ন গ্যাং যারা হত্যা, সন্ত্রাস, ধর্ষণ আর ধ্বংসযজ্ঞ সৃষ্টির মাধ্যমে ফিলিস্তিনদের বাধ্য করে ফিলিস্তিন ছেড়ে চলে যেতে৷ সংগঠনগুলোর গণহত্যার কথা যখন আন্তর্জাতিকভাবে প্রচারিত হচ্ছিল তখন পরিস্থিতকে নিজেদের অনুকূলে আনার জন্য গুপ্ত সংগঠন হাগানাহ বেছে নেয় আত্মহনন পন্থা৷ ১৯৪০ সালে এসএস প্যাট্রিয়া নামক একটি জাহাজকে হাইফা বন্দরে তারা উড়িয়ে দিয়ে ২৭৬ জন ইহুদিকে হত্যা করে৷ ১৯৪২ সালে আরেকটি জাহাজকে উড়িয়ে দিয়ে ৭৬৯ জন ইহুদিকে হত্যা করে৷ উভয় জাহাজে করে ইহুদিরা ফিলিস্তিনে আসছিল আর ব্রিটিশরা সামরিক কৌশলগত কারণে জাহাজ দুটিকে ফিলিস্তিনের বন্দরে ভিড়তে দিচ্ছিল না৷ হাগানাহ এভাবে ইহুদিদের হত্যা করে বিশ্ব জনমতকে নিজেদের পক্ষে আনার চেষ্টা করে৷ পাশাপাশি ইহুদিদের বসতি স্থাপন ও আরবদের উচ্ছেদকরণ চলতে থাকে খুব দ্রুত৷ এর ফলে ২০ লাখ বসতির মধ্যে বহিরাগত ইহুদির সংখ্যা বেড়ে দাড়ায় ৫ লাখ ৪০ হাজার৷ এ সময়ই ১৯৪৭ সালের ২৯ নভেম্বর ইহুদি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে ইঙ্গ-মার্কিন চাপে জাতিসংঘে ভোট গ্রহণ করা হয়, তাতে ৩৩টি রাষ্ট্র ফিলিস্তিনে ইহুদি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার পক্ষে, ১৩টি বিপক্ষে এবং ১০টি ভোট প্রদানে বিরত থাকে৷ প্রস্তাব অনুযায়ী মোট জনসংখ্যার এক-চতুর্থাংশ হয়েও ইহুদিরা পেল ভূমির ৫৭% আর ফিলিস্তিনীরা পেল ৪৩% তবে প্রস্তাবিত ইহুদি রাষ্ট্রটির উত্তর-পশ্চিম সীমানা ছিল অনির্ধারিত ফলে ভবিষ্যতে ইহুদিরা সীমানা বাড়াতে পারে৷ এভাবে ইহুদিদের কাঙ্ক্ষিত ইসরায়েল রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা নিশ্চিত হয়ে পড়ে।

ইসরায়েল রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা[সম্পাদনা]

ফিলিস্তিন অঞ্চলের কার্যত মালিকানা লাভের পর ইহুদি বসতি বাড়ানোর লক্ষ্যে এবং ফিলিস্তিনদের উচ্ছেদ করার উদ্দেশে রাতে তাদের ফোন লাইন, বিদ্যুৎ লাইন কাটা, বাড়িঘরে হ্যান্ড গ্রেনেড নিক্ষেপ, জোর করে জমি দখল এবং বিভিন্নভাবে নারী নির্যাতনের মতো কাজে জড়িয়ে পড়লো স্থানীয় ও বহিরাগত ইহুদি ও সরকারের মদদপুষ্ট সেনাবাহিনী৷ ফলে লাখ লাখ ফিলিস্তিনি আরব দেশ ত্যাগ করতে বাধ্য হয়।

এরপরই ১৯৪৮ সালের ১২ মে রাত ১২টা এক মিনিটে ইসরায়েল রাষ্ট্র ঘোষণা করে ইহুদি জায়নবাদীরা, যাদের প্রধান ছিলেন দাভিদ বেন গুরিয়ন (পরবর্তীতে ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী)৷ ১০ মিনিটের ভেতর যুক্তরাষ্ট্র ইসরায়েলকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দেয়, অতঃপর সোভিয়েত ইউনিয়ন ও ব্রিটেন স্বীকৃতি দেয়।[২৫]

আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি[সম্পাদনা]

ফিলিস্তিনকে স্বীকৃতি দেওয়া দেশসমূহের মানচিত্র।
ইউনেস্কো সদস্যপদের ভোটদানের ফলাফল:   পক্ষপাতী   বিরুদ্ধে   নিবৃত্তি   অনুপস্থিত   জাতিসংঘের সদস্য নন / ভোট অযোগ্য

এশিয়া[সম্পাদনা]

দক্ষিণ আমেরিকা[সম্পাদনা]

উত্তর আমেরিকা[সম্পাদনা]

ইউরোপ[সম্পাদনা]

মধ্যপ্রাচ্য[সম্পাদনা]

আফ্রিকা[সম্পাদনা]

চিত্রশালা[সম্পাদনা]

পাদটীকা[সম্পাদনা]

i.   ^ Note that the name Palestine can commonly be interpreted as the entire territory of the former British Mandate, which today also incorporates Israel. The history was expressed by Mahmoud Abbas in his September 2011 speech to the United Nations: "... we agreed to establish the State of Palestine on only 22% of the territory of historical Palestine - on all the Palestinian Territory occupied by Israel in 1967."[৩৩] The name is also officially used as the short-form reference to the State of Palestine[৩৪] and this should be distinguished from other homonymous uses for the term including the Palestinian Authority,[১৯] the Palestine Liberation Organization,[৩৫] and the subject of otherproposals for the establishment of a Palestinian state.
ii.   ^ The Palestinian Declaration of Independence proclaims the "establishment of the State of Palestine on our Palestinian territory with its capital Jerusalem (Al-Quds Ash-Sharif)."[৫] The same decision was taken also by the PLC in May 2002 when it approved the PNA Basic Law, which states unambiguously "Jerusalem is the Capital of Palestine".[৩৬] Ramallah is the administrative capital where government institutions and foreign representative offices are located. Jerusalem's final status awaits future negotiations between Israel and the Palestinian Authority (see "Negotiating Jerusalem", University of Maryland). The United Nations and most countries do not accept Israel's annexation of East Jerusalem through the Jerusalem Law of 1980 (see Kellerman 1993, পৃ. 140) and maintain their embassies to Israel in Tel Aviv (see the The World Factbook. Central Intelligence Agency).
iii.   ^ Israel allows the PNA to execute some functions in the Palestinian territories, depending on the area classification. It maintains minimal interference (retaining control of borders: air,[৩৭] sea beyond internal waters,[৩৭][৩৮] land[৩৯]) in the Gaza Strip, and varying degrees of interference elsewhere.[৪০][৪১][৪২][৪৩][৪৪] See also Israeli-occupied territories.

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Palestine"nationalanthems.info। ৩১ মার্চ ২০১৪ তারিখে মূল (includes audio) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ জুন ২০১৪ 
  2. "Ban sends Palestinian application for UN membership to Security Council"United Nations News Centre। ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১১। ১০ অক্টোবর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৫ 
  3. Bissio, Robert Remo, সম্পাদক (১৯৯৫)। The World: A Third World Guide 1995–96Montevideo: Instituto del Tercer Mundo। পৃষ্ঠা 443আইএসবিএন 978-0-85598-291-1 
  4. Lapidoth, Ruth (২০১১)। "Jerusalem: Some Legal Issues" (PDF)The Jerusalem Institute for Israel Studies। পৃষ্ঠা 26। ৫ জুন ২০১৪ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ জুন ২০১৪The attitude of the Palestinians was expressed inter alia in 1988 and 2002. When the Palestine National Council proclaimed in November 1988 the establishment of a Palestinian State, it asserted that Jerusalem was its capital. In October 2002, the Palestinian Legislative Council adopted the Law on the Capital, which stipulates that Jerusalem is the capital of the Palestinian State, the main seat of its three branches of government. The State of Palestine is the sovereign of Jerusalem and of its holy places. Any statute or agreement that diminishes the rights of the Palestinian State in Jerusalem is invalid. This statute can be amended only with the consent of two-thirds of the members of the Legislative Council. The 2003 Basic Law also asserts that Jerusalem is the capital of the State of Palestine.  Reprinted from: Wolfrum, Rüdiger (ed.) (online 2008, print 2011). The Max Planck Encyclopedia of Public International Law. Oxford University Press.
  5. "Declaration of Independence (1988) (UN Doc)"State of Palestine Permanent Observer Mission to the United Nations। United Nations। ১৮ নভেম্বর ১৯৮৮। ৮ জুন ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ জুন ২০১৪ 
  6. Miskin, Maayana (৫ ডিসেম্বর ২০১২)। "PA Weighs 'State of Palestine' Passport"israelnationalnews.com। Arutz Sheva। ৭ ডিসেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ জুন ২০১৪A senior PA official revealed the plans in an interview with Al-Quds newspaper. The change to 'state' status is important because it shows that 'the state of Palestine is occupied,' he said. 
  7. "State of Palestine name change shows limitations"। AP। ১৭ জানুয়ারি ২০১৩। ১০ জানুয়ারি ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। Israel remains in charge of territories the world says should one day make up that state. 
  8. "The World Factbook: Middle East: West Bank"cia.gov। Central Intelligence Agency। ৭ এপ্রিল ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ৮ জুন ২০১৪ 
  9. "The World Factbook: Middle East: Gaza Strip"cia.gov। Central Intelligence Agency। ১২ মে ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ৮ জুন ২০১৪ 
  10. "World Bank, International Comparison Program database: GDP, PPP (current international $)" (PDF)Data World Bank। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জুলাই ২০২০ 
  11. "GDP per capita, PPP (current international $) – West Bank and Gaza | Data"data.worldbank.org। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জুলাই ২০২০ 
  12. "GDP (current US$) – West Bank and Gaza | Data"data.worldbank.org। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জুলাই ২০২০ 
  13. "GDP per capita (current US$) – West Bank and Gaza | Data"data.worldbank.org। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জুলাই ২০২০ 
  14. "GINI Index: West Bank and Gaza"The World Bank: Data। ৮ জুন ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ জুন ২০১৪ 
  15. Human Development Report 2020 The Next Frontier: Human Development and the Anthropocene (PDF)। United Nations Development Programme। ১৫ ডিসেম্বর ২০২০। পৃষ্ঠা 343–346। আইএসবিএন 978-92-1-126442-5। সংগ্রহের তারিখ ১৬ ডিসেম্বর ২০২০ 
  16. According to Article 4 of the 1994 Paris Protocol. The Protocol allows the Palestinian Authority to adopt multiple currencies. In the West Bank, the Israeli new sheqel and Jordanian dinar are widely accepted; while in the Gaza Strip, the Israeli new sheqel and Egyptian pound are widely accepted.
  17. Eqeiq, Amal (১ মে ২০১৯)। [/jps/article/48/3/26/55117/From-Haifa-to-Ramallah-and-Back-New-Old "From Haifa to Ramallah (and Back): New/Old Palestinian Literary Topography"] |url= এর মান পরীক্ষা করুন (সাহায্য)Journal of Palestine Studies48 (3): 26–42। আইএসএসএন 0377-919Xডিওআই:10.1525/jps.2019.48.3.26। সংগ্রহের তারিখ ২২ নভেম্বর ২০২০ 
  18. Bissio, 1995, p. 433.
  19. Baroud, Ramzy (২০০৪)। Kogan Page, সম্পাদক। Middle East Review (27th সংস্করণ)। London: Kogan Page। পৃষ্ঠা 161। আইএসবিএন 978-0-749-44066-4 
  20. Bercovitch and Zartman, 2008, 43 (via Google Books).
  21. Staff (২০ ফেব্রুয়ারি ২০০৮)। "Palestinians 'May Declare State'"BBC News। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৯-২৭But another negotiator and senior official, Saeb Erekat, disagreed arguing that the Palestine Liberation Organisation had already declared independence in 1988. 'Now we need real independence, not a declaration. We need real independence by ending the occupation. We are not Kosovo. We are under Israeli occupation and for independence we need to acquire independence', Mr Erekat said. 
  22. al Madfai, Madiha Rashid (১৯৯৩)। Jordan, the United States and the Middle East Peace Process, 1974–1991। Cambridge Middle East Library। 28। Cambridge: Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 21। আইএসবিএন 978-0-521-41523-1 
  23. UN General Assembly (২২ নভেম্বর ১৯৭৪)। "UN General Assembly Resolution 3237"UN General Assembly (via The Jerusalem Fund)। ২০১১-১১-১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৯-২৯ 
  24. Geldenhuys, Deon (১৯৯০)। Isolated States: A Comparative Analysis। Cambridge Studies in International Relations। 15। Cambridge: Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 155। আইএসবিএন 978-0-521-40268-2 
  25. দৈনিক যায় যায় দিন, ২৯ নভেম্বর, ফোকাস পাতা
  26. ড় ঢ় য় কক কখ কগ কঘ কঙ কচ কছ কজ কঝ কঞ কট কঠ কড কঢ OIC members and Palestine ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৩ মার্চ ২০১৬ তারিখে The Statistical, Economic and Social Research and Training Centre for Islamic Countries
    OIC members urge recognition of Hamas People's Daily
  27. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; un নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  28. "http://www.mofa.gov.vn/en/bng_vietnam/dscqdd/dt041206142716/view"  |title= এ বহিঃসংযোগ দেয়া (সাহায্য)
  29. "http://www.palestina.int.ar/"  |title= এ বহিঃসংযোগ দেয়া (সাহায্য)
  30. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ১২ আগস্ট ২০০৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০১২ 
  31. "http://www.mip.vlada.cg.yu/index.php?akcija=vijesti&id=15103"। ২৪ মার্চ ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা।  |title= এ বহিঃসংযোগ দেয়া (সাহায্য)
  32. "http://www.mfa.gov.ua/mfa/ua/publication/content/1757.htm"। ২৩ নভেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা।  |title= এ বহিঃসংযোগ দেয়া (সাহায্য)
  33. Abbas speech transcript
  34. Bissio, Robert Remo, সম্পাদক (১৯৯৫)। The World: A Third World Guide 1995–96। Montevideo: Instituto del Tercer Mundo। পৃষ্ঠা 443আইএসবিএন 978-0-85598-291-1 
  35. UN General Assembly (৯ ডিসেম্বর ১৯৮৮)। "United Nations General Assembly Resolution 43/177"UN Information System on the Question of Palestine। ২০১১-১১-০১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৯-২৯ 
  36. "2002 Basic Law"। The Palestinian Basic Law। ২০১০-০৩-১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৮-০২ 
  37. control of the airspace and the territorial waters of the Gaza Strip.
  38. Map of Gaza fishing limits, "security zones".
  39. Disengagement Plan: Renewing the Peace Process: "Israel will guard the perimeter of the Gaza Strip, continue to control Gaza air space, and continue to patrol the sea off the Gaza coast. ... Israel will continue to maintain its essential military presence to prevent arms smuggling along the border between the Gaza Strip and Egypt (Philadelphi Route), until the security situation and cooperation with Egypt permit an alternative security arrangement."
  40. "Israel: 'Disengagement' Will Not End Gaza Occupation"Human Rights Watch। ২৯ অক্টোবর ২০০৪। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৭-১৬ 
  41. Gold, Dore; Institute for Contemporary Affairs (২৬ আগস্ট ২০০৫)। "Legal Acrobatics: The Palestinian Claim that Gaza Is Still 'Occupied' Even After Israel Withdraws"Jerusalem Issue BriefJerusalem Center for Public Affairs5 (3)। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৭-১৬ 
  42. Bell, Abraham (২৮ জানুয়ারি ২০০৮)। "International Law and Gaza: The Assault on Israel's Right to Self-Defense"Jerusalem Issue BriefJerusalem Center for Public Affairs7 (29)। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৭-১৬ 
  43. Transcript (২২ জানুয়ারি ২০০৮)। "Address by FM Livni to the 8th Herzliya Conference"Israeli Ministry of Foreign Affairs। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৯-২৬ 
  44. Salih, Zak M. (১৭ নভেম্বর ২০০৫)। "Panelists Disagree Over Gaza's Occupation Status"University of Virginia School of Law। ২০১৬-০৩-০৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৯-২৬ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]