পূর্ব তিমুর

স্থানাঙ্ক: ৮°৩৩′ দক্ষিণ ১২৫°৩৪′ পূর্ব / ৮.৫৫° দক্ষিণ ১২৫.৫৬° পূর্ব / -8.55; 125.56
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
তিমুর-লেস্তে গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র

পূর্ব তিমুরের প্রতীক
প্রতীক
নীতিবাক্য: 
Unidade, Acção, Progresso  (পর্তুগিজ)
Unidade, Asaun, Progresu  (Tetum)
("একতা, কর্ম ও প্রগতি")
জাতীয় সঙ্গীত: Pátria  (পর্তুগিজ)
("ফাদারল্যান্ড")
পূর্ব তিমুরের অবস্থান
রাজধানী
ও বৃহত্তম নগরী বা বসতি
দিলি
৮°৩৩′ দক্ষিণ ১২৫°৩৪′ পূর্ব / ৮.৫৫° দক্ষিণ ১২৫.৫৬° পূর্ব / -8.55; 125.56
সরকারি ভাষা
জাতীয় ভাষা সমূহ
কাজের ভাষাসমূহ
ধর্ম
(২০১৫ সালের আদমশুমারি)[১]
জাতীয়তাসূচক বিশেষণ
  • পূর্ব তিমুরিজ
  • তিমুরিজ
  • মৌবের (অনানুষ্ঠানিক)[২][৩]
সরকারএকক আধা-রাষ্ট্রপতি প্রজাতন্ত্র[৪]
ফ্রান্সিসকো গুতেরেস
জোস মারিয়া ভ্যাসকনসেলস
আইন-সভাজাতীয় সংসদ
স্বাধীনতা 
১৬ শতক
• স্বাধীনতা ঘোষিত
২৮ নভেম্বর ১৯৭৫
১৭ জুলাই ১৯৭৬
• ইউএনটিএইটি দ্বারা পরিচালিত
২৫ অক্টোবর ১৯৯৯
• স্বাধীনতা পুনরুদ্ধার
২০ মে ২০০২; ১৯ বছর আগে (20 May 2002)
আয়তন
• মোট
[রূপান্তর: অকার্যকর সংখ্যা] (১৫৪তম)
• পানি/জল (%)
নগণ্য
জনসংখ্যা
• ২০২১ আনুমানিক
১,৩৪০,৫১৩ (১৫৩তম)
• ২০১৫ আদমশুমারি
১,১৮৩,৬৪৩[৬]
• ঘনত্ব
৭৮ /কিমি (২০২.০ /বর্গমাইল)
জিডিপি (পিপিপি)২০২০ আনুমানিক
• মোট
৫.৩১৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার
• মাথাপিছু
৪,০৩১ ডলার[৭]
জিডিপি (মনোনীত)২০২০ আনুমানিক
• মোট
১.৯২০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার
• মাথাপিছু
১,৪৫৬ ডলার[৭]
জিনি (২০১৪)২৮.৭[৮]
নিম্ন
মানব উন্নয়ন সূচক (২০১৯)হ্রাস ০.৬০৬[৯]
মধ্যম · ১৪১তম
মুদ্রামার্কিন ডলারb (ইউএসডি)
সময় অঞ্চলইউটিসি+৯ (টিএলটি)
গাড়ী চালনার দিকবামদিক
কলিং কোড+৬৭০
আইএসও ৩১৬৬ কোডTL
ইন্টারনেট টিএলডি.tlc
ওয়েবসাইট
timor-leste.gov.tl
  1. আরও পনেরটি "জাতীয় ভাষা" সংবিধান দ্বারা স্বীকৃত।
  2. সেন্টাভো কয়েনও ব্যবহার করা হয়েছিল
  3. .tp পর্যায়ক্রমে বন্ধ করা হয়েছে

পূর্ব তিমুর (/-ˈtmɔːr/ (এই শব্দ সম্পর্কেশুনুন)) বা তিমুর-লেস্তে (/tiˈmɔːr ˈlɛʃt/; Tetum: Timór Lorosa'e[১০]), সরকারিভাবে তিমুর-লেস্তে গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র[১১] (পর্তুগিজ: República Democrática de Timor-Leste,[১২] Tetum: Repúblika Demokrátika Timór-Leste[১০]),[১৩] দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার একটি রাষ্ট্র। এটি তিমুর দ্বীপের পূর্ব অর্ধাংশ, আতাউরো, জ্যাকো এবং ওকাসের নিকটবর্তী দ্বীপগুলি নিয়ে গঠিত, যা ইন্দোনেশীয় পশ্চিম তিমুর দ্বারা বেষ্টিত দ্বীপের উত্তর-পশ্চিম দিকের একটি ক্ষুদ্র উপনিবেশ। অস্ট্রেলিয়া তিমুর সাগর দ্বারা বিচ্ছিন্ন দেশটির দক্ষিণ প্রতিবেশী। দেশটির আয়তন ১৫,০০৭ বর্গকিলোমিটার (৫,৭৯৪ মা)।[৫]দিলি এর রাজধানী।

ষোড়শ শতাব্দীতে পূর্ব তিমুর পর্তুগালের উপনিবেশ ছিল এবং ১৯৭৫ সালের ২৮ নভেম্বর পর্যন্ত পর্তুগিজ তিমুর নামে পরিচিত ছিল, যখন স্বাধীন পূর্ব তিমুরের জন্য বিপ্লবী ফ্রন্ট (ফ্রেটিলিন) এই অঞ্চলটির স্বাধীনতা ঘোষণা করেছিল। নয় দিন পরে, ইন্দোনেশিয়ার সামরিক বাহিনী এটি আক্রমণ করে এবং দখল করে নেয়; পরের বছর এটিকে ইন্দোনেশিয়ার ২৭তম প্রদেশ হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছিল। পূর্ব তিমুরের ইন্দোনেশীয় দখলকে বিচ্ছিন্নতাবাদী গোষ্ঠী (বিশেষ করে ফ্রেটিলিন) এবং ইন্দোনেশীয় সেনাবাহিনীর মধ্যে কয়েক দশক ধরে চলা সহিংস দ্বন্দ্ব দ্বারা চিহ্নিত করা হয়েছিল।

১৯৯৯ সালে, জাতিসংঘের পৃষ্ঠপোষকতায় স্ব-নিয়ন্ত্রণ আইন অনুসরণ করে ইন্দোনেশিয়া এই অঞ্চলটির নিয়ন্ত্রণ ত্যাগ করেছিল। ২০০২ সালের ২০ মে তিমুর-লেস্তে হিসাবে এটি একবিংশ শতাব্দীর প্রথম নতুন সার্বভৌম রাষ্ট্র হয়ে ওঠে এবং জাতিসংঘ[১৪]পর্তুগিজ ভাষার দেশের সম্প্রদায়ে যোগদান করে।[১৫] ২০১১ সালে, পূর্ব তিমুর দক্ষিণ–পূর্ব এশীয় জাতি সংস্থা (আসিয়ান) এর একাদশ সদস্য হওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করে।[১৬]এটি দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দুটি খ্রিস্টান প্রধান দেশগুলির মধ্যে একটি, অন্যটি হল ফিলিপাইন,[১৭] পাশাপাশি এটি এশিয়ার একমাত্র দেশ যা সম্পূর্ণরূপে দক্ষিণ গোলার্ধে অবস্থিত।[১৮]

ব্যুৎপত্তি[সম্পাদনা]

"তিমূর" (Timur) থেকে তিমুর (Timor) উদ্ভূত হয়েছে, মালয় ভাষার "পূর্ব" শব্দটি পর্তুগিজ ভাষায় তিমুর হিসাবে সংরক্ষিত হয়ে যায়, ফলে টোটোলজিক টপানাম যার অর্থ "পূর্ব পূর্ব": পর্তুগিজ ভাষায় তিমুর-লেস্তে (লেস্তে শব্দটির অর্থ "পূর্ব"); তেতুম ভাষায় তিমোর্‌ লোরোসা'এ (লোরোসা'এ এর অর্থ হল "পূর্ব" (আক্ষরিক অর্থে "উদীয়মান সূর্য")) এর অর্থপ্রকাশকারী শব্দ )।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] ইন্দোনেশীয় ভাষায়, দেশটিকে তিমুর তিমূর (Timor Timur) বলা হয়, এর মাধ্যমে দ্বীপটির পর্তুগিজ নাম ব্যবহার করে এর পরে "পূর্ব" শব্দটি ব্যবহৃত হয়, কারণ ইন্দোনেশিয়ান ভাষায় বিশেষণের পরে বিশেষ্য দেওয়া হয়।

সংবিধানের অধীনে সরকারি নামগুলি হল ইংরেজিতে ডেমোক্র্যাটিক রিপাবলিক অব তিমুর-লেস্তে,[১৯] পর্তুগিজ ভাষায় রেপাব্লিকা ডেমোক্র্যাটিকা দে তিমুর-লেস্তে,[১২] এবং তেতুম ভাষায় রেপব্লিকা ডেমোক্রিতিকা তিমোর্‌ লোরোসা'এ।[১৩]

আন্তর্জাতিক মান সংস্থা (আইএসও) অনুযায়ী ইংরেজি এবং অন্যান্য সব ভাষায় সরকারী সংক্ষিপ্ত রূপটি হল তিমুর-লেস্তে (কোড: TLS এবং TL),[২০] যা জাতিসংঘ, ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং ফ্রান্স (এএফএনওআর), মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র (এএনএসআই), যুক্তরাজ্য (বিএসআই), জার্মানি (ডিআইএন) ও সুইডেন (এসআইএস) এর জাতীয় মান সংস্থাগুলি দ্বারা গৃহীত হয়েছিল,[২১] প্রোটোকল এবং সিআইএ ওয়ার্ল্ড ফ্যাক্টবুকের মাধ্যমে দেশটিতে সমস্ত কূটনৈতিক মিশন রয়েছে।[২২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

প্রাগৈতিহাসিক যুগ[সম্পাদনা]

পূর্ব তিমুরের পূর্ব প্রান্তে জেরিমালাইতে অবস্থিত সাংস্কৃতিক পুরাণিদর্শনগুলো ৪২,০০০ বছর আগের, যা এই স্থানটিকে সামুদ্রিক দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার আধুনিক মানব ক্রিয়াকলাপের প্রাচীনতম স্থানগুলির মধ্যে একটি করে তুলেছে।[২৩]অভিবাসনের অন্তত তিনটি দফায় বংশধররা এখনও পূর্ব তিমুরে বসবাস করে বলে ধারণা করা হয়। প্রথমটিকে নৃতাত্ত্বিকরা ভেদো-অস্ট্রালয়েড ধরণের মানুষ হিসাবে বর্ণনা করেছেন। ৩০০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দের দিকে, দ্বিতীয় অভিবাসন মেলানেশীয়দের এখানে নিয়ে এসেছিল। পূর্ববর্তী ভেদো-অস্ট্রালয়েড জাতিগোষ্ঠী এই সময়ে পাহাড়ের মধ্যদেশে চলে গিয়েছিল। অবশেষে, প্রোটো-মালয়রা দক্ষিণ চীন এবং উত্তর ইন্দোচীন থেকে এখানে এসেছিল।[২৪] হাক্কা ব্যবসায়ীরা এই সর্বশেষ গোষ্ঠীর বংশধরদের মধ্যে অন্যতম।[২৫]

তিমুরীয় বংশোদ্ভূত পৌরাণিক কাহিনীগুলিতে পূর্বপুরুষদের সম্পর্কে বলা হয়েছে যে, তারা তিমুরের পূর্ব প্রান্তের চারপাশে যাত্রা করে দক্ষিণ ভূমিতে পৌঁছেছিল। কিছু গল্পে মালয় উপদ্বীপ বা সুমাত্রার মিনাংকাবাউ উচ্চভূমি থেকে ভ্রমণ করা তিমুরীয় পূর্বপুরুষদের বর্ণনাও করা হয়েছে।[২৬]অস্ট্রোনেশীয়রা তিমুরে অভিবাসীত হয়েছিল এবং দ্বীপটিতে কৃষির উন্নয়নের সাথে যুক্ত ছিল বলে ধারণা করা হয়।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

চিরায়ত যুগ[সম্পাদনা]

ইউরোপীয় ঔপনিবেশিকতার আগে, তিমুর ইন্দোনেশীয়/মালয়েশীয়, চীনা ও ভারতীয় বাণিজ্য নেটওয়ার্কের অন্তর্ভুক্ত ছিল এবং চতুর্দশ শতাব্দীতে সুগন্ধি চন্দন কাঠ, দাস, মধু ও মোমের রপ্তানিকারক ছিল। ১৫০০-এর দশক থেকে তিমুরবাসীদের সাথে বর্তমান উত্তর ফিলিপাইনের লুসিওদের সাথে সামরিক সম্পর্ক ছিল।[২৭][২৮] তিমুরে চন্দন কাঠের আপেক্ষিক প্রাচুর্য ছিল যা ষোড়শ শতাব্দীর প্রথম দিকে ইউরোপীয় অভিযাত্রীদেরকে দ্বীপে আকৃষ্ট করেছিল, তাদের বিবরণ অনুসারে জানা যায়, দ্বীপটিতে বেশ কয়েকটি ছোট প্রধান রাজ্য বা রাজত্ব ছিল।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

পর্তুগিজ যুগ (১৭৬৯-১৯৭৫)[সম্পাদনা]

পর্তুগিজরা তিমুর এবং মালুকুতে ফাঁড়ি স্থাপন করেছিল। ১৭৬৯ সালে বর্তমান পূর্ব তিমুরের একটি ছোট অংশে সক্রিয় ইউরোপীয় দখল শুরু হয়েছিল যখন দিলি শহরটি প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল এবং একে পর্তুগিজ তিমুর উপনিবেশ হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছিল।[২৯]১৯১৪ সালের[৩০] স্থায়ী সালিসি আদালত দ্বারা এই দ্বীপের ডাচ-উপনিবেশিত পশ্চিমের অর্ধাংশ এবং পর্তুগিজ-উপনিবেশিত পূর্বের অর্ধাংশের মধ্যে একটি নির্দিষ্ট সীমানা প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল এবং এটি উত্তরসূরি রাষ্ট্র যথাক্রমে ইন্দোনেশিয়া ও পূর্ব তিমুরের মধ্যে আন্তর্জাতিক সীমানা হিসাবে রয়ে গেছে। পর্তুগিজদের কাছে পূর্ব তিমুর ঊনবিংশ শতাব্দীর শেষভাগ পর্যন্ত অবকাঠামো, স্বাস্থ্য এবং শিক্ষায় ন্যূনতম বিনিয়োগ সহ একটি অবহেলিত বাণিজ্য স্থলের চেয়ে সামান্য বেশি কিছু ছিল। ঊনবিংশ শতাব্দীর মাঝামাঝি সময়ে কফি উল্লেখযোগ্য রপ্তানি পণ্য হয়ে ওঠার সাথে চন্দন কাঠ তখনও প্রধান রপ্তানি ফসল হিসাবে অব্যাহত ছিল।

বিংশ শতাব্দীর শুরুতে একটি ক্ষয়িষ্ণু গৃহ অর্থনীতি পর্তুগিজদের তাদের উপনিবেশগুলি থেকে বৃহত্তর সম্পদ আহরণের জন্য প্ররোচিত করেছিল যা পূর্ব তিমুরীয়দের প্রতিরোধের কারণে বাধাগ্রস্ত হয়েছিল।[৩১]

ঊনবিংশ শতাব্দীর শেষের দিক থেকে পর্তুগিজ তিমুর নগর থেকে নির্বাসিত রাজনৈতিক ও সামাজিক বিরোধীদের নির্বাসনের জায়গা ছিল। তাদের মধ্যে একটি বড় অংশ ছিল নৈরাজ্যবাদী এবং নৈরাজ্য-শ্রমিকতান্ত্রিক আন্দোলনের সদস্য, যা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পর্যন্ত পর্তুগালের বামপন্থী আন্দোলনের সবচেয়ে প্রভাবশালী ছিল। তিমুরে নির্বাসনের প্রধান ঢেউ ছিল ১৮৯৬, ১৯২৭ এবং ১৯৩১ সাল। কিছু কর্মী নির্বাসনেও তাদের প্রতিরোধ অব্যাহত ছিল। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর, বাকি নির্বাসিতদের ক্ষমা করা হয়েছিল এবং ফিরে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল।[৩২]

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়, প্রথমে মিত্রশক্তি এবং পরে জাপানিরা দিলি দখল করেছিল এবং উপনিবেশের পর্বতের অভ্যন্তরে একটি গেরিলা অভিযানের ঘটনা ঘটেছিল, যা তিমুরের যুদ্ধ নামে পরিচিত। জাপানিদের বিরুদ্ধে পূর্ব তিমুরীয় স্বেচ্ছাসেবক ও মিত্র বাহিনী দ্বারা পরিচালিত এই যুদ্ধে প্রায় ৪০,০০০ থেকে ৭০,০০০ পূর্ব তিমুরীয় বেসামরিক লোক নিহত হয়েছিল।[৩৩] জাপানিরা শেষ পর্যন্ত অস্ট্রেলীয় এবং মিত্রবাহিনীকে তাড়িয়ে দিয়েছিল। যাইহোক, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের শেষে জাপানিদের আত্মসমর্পণের পর পর্তুগিজ নিয়ন্ত্রণ পুনঃপ্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।

১৯৭৪ সালের পর্তুগিজ বিপ্লবের পর, পর্তুগাল কার্যকরভাবে তিমুরে এর উপনিবেশ ত্যাগ করে এবং ১৯৭৫ সালে পূর্ব তিমুরের রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে গৃহযুদ্ধ শুরু হয়েছিল।

পূর্ব তিমুরের স্বাধীনতাকামী বিপ্লবী ফ্রন্ট (ফ্রেটিলিন) ১৯৭৫ সালের আগস্ট মাসে তিমুরিজ ডেমোক্রেটিক ইউনিয়নের (ইউডিটি) অভ্যুত্থানের প্রচেষ্টাকে প্রতিহত করেছিল এবং ১৯৭৫ সালের ২৮ নভেম্বর একতরফাভাবে স্বাধীনতা ঘোষণা করেছিল।[৩৪] ইন্দোনেশীয় দ্বীপপুঞ্জের মধ্যে একটি কমিউনিস্ট রাষ্ট্রের ভয়ে ইন্দোনেশীয় সেনাবাহিনী ১৯৭৫ সালের ডিসেম্বরে পূর্ব তিমুরে আক্রমণ শুরু করেছিল।[৩৫]১৯৭৬ সালের ১৭ জুলাই ইন্দোনেশিয়া পূর্ব তিমুরকে এর ২৭তম প্রদেশ হিসাবে ঘোষণা করেছিল।[৩৬] জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ আগ্রাসনের বিরোধিতা করেছিল এবং "পর্তুগিজ প্রশাসনের অধীনে অ-স্ব-শাসিত অঞ্চল" হিসাবে জাতিসংঘে অঞ্চলটির নামমাত্র মর্যাদা বিদ্যমান ছিল।[৩৭]

ইন্দোনেশীয় যুগ (১৯৭৫-১৯৯৯)[সম্পাদনা]

ইন্দোনেশিয়া থেকে স্বাধীনতার জন্য ১৯৯৯ সালের সেপ্টেম্বরে অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠিত একটি বিক্ষোভ

ইন্দোনেশিয়ার পূর্ব তিমুর দখলকে সহিংসতা এবং বর্বরতা দ্বারা চিহ্নিত করা হয়েছিল। পূর্ব তিমুরে অভ্যর্থন, সত্য ও মীমাংসা কমিশনের তৈরি করা একটি বিশদ পরিসংখ্যানের প্রতিবেদনে ১৯৭৪-১৯৯৯ সময়কালে ন্যূনতম ১০২,৮০০টি সংঘাত-সম্পর্কিত মৃত্যুর উল্লেখ করা হয়েছে, অর্থাৎ প্রায় ১৮,৬০০টি হত্যাকাণ্ড এবং ৮৪,২০০টি "অতিরিক্ত" ক্ষুধা ও অসুস্থতার কারণে মৃত্যু, যা পর্তুগিজ, ইন্দোনেশীয় এবং ক্যাথলিক চার্চের তথ্যের উপর ভিত্তি করে ২০০,০০০ মানুষের মৃত্যুর একটি অনুমিত পরিসংখ্যান।[৩৮]পূর্ব তিমুরীয় গেরিলা বাহিনী (Forças Armadas da Libertação Nacional de Timor-Leste, Falintil) ১৯৭৫ থেকে ১৯৯৮ সাল পর্যন্ত ইন্দোনেশীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়েছিল।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

১৯৯১ সালের দিলি গণহত্যা ছিল স্বাধীনতার পথে একটি গুরুত্বপূর্ণ সন্ধিক্ষণ এবং পূর্ব তিমুরের সংহতি আন্দোলন পর্তুগাল, ফিলিপাইন, অস্ট্রেলিয়া ও অন্যান্য পশ্চিমা দেশগুলিতে বৃদ্ধি পায়।

ইন্দোনেশিয়ার রাষ্ট্রপতি সুহার্তোর পদত্যাগের পর, ১৯৯৯ সালের আগস্টে জাতিসংঘের পৃষ্ঠপোষকতায় ইন্দোনেশিয়া এবং পর্তুগালের মধ্যে একটি চুক্তি জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে গণভোটের মাধ্যমে অনুমোদিত হয়েছিল। ইন্দোনেশীয় সেনাবাহিনীর শক্তির সমর্থনে পূর্ব তিমুরীয় সমর্থক মিলিশিয়াদের দ্বারা সহিংসতার একটি শাস্তিমূলক অভিযানের মাধ্যমে স্বাধীনতার জন্য একটি স্বচ্ছ ভোট পাওয়া গিয়েছিল। এর প্রতিক্রিয়ায় ইন্দোনেশিয়া সরকার ইন্টারফেট নামে একটি বহুজাতিক শান্তিরক্ষা বাহিনীকে পূর্ব তিমুরীয় শরণার্থী ও অভ্যন্তরীণভাবে বাস্তুচ্যুত লোকদের শৃঙ্খলা পুনরুদ্ধার এবং সহায়তা করার অনুমতি দিয়েছিল।[৩৯] ১৯৯৯ সালের ২৫ অক্টোবর পূর্ব তিমুরের প্রশাসন পূর্ব তিমুর জাতিসংঘ পরিবর্তনসূচক প্রশাসন (UNTAET) এর মাধ্যমে জাতিসংঘ কর্তৃক গৃহীত হয়েছিল।[৪০][৪১] ২০০০ সালের ফেব্রুয়ারিতে জাতিসংঘে সামরিক কমান্ড হস্তান্তরের মাধ্যমে ইন্টারফেটের বিস্তারণ শেষ হয়েছিল।[৪২]

সমসাময়িক যুগ[সম্পাদনা]

হোজে রামোস হোর্তা, ১৯৯৬ সালে নোবেল শান্তি পুরস্কার বিজয়ী ও পূর্ব তিমুরের দ্বিতীয় রাষ্ট্রপতি।

২০০১ সালের ৩০ আগস্ট, গণপরিষদের সদস্য নির্বাচিত করার জন্য পূর্ব তিমুরবাসী জাতিসংঘ কর্তৃক আয়োজিত তাদের প্রথম নির্বাচনে ভোট দিয়েছিল।[১৯][৪৩]২০০২ সালের ২২ মার্চ, গণপরিষদ সংবিধান অনুমোদন করেছিল।[১৯]২০০২ সালের মে'র মধ্যে, ২০৫,০০০ এরও অধিক শরণার্থী ফিরে এসেছিল। ২০০২ সালের ২০ মে পূর্ব তিমুরের গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্রের সংবিধান কার্যকর হয়েছিল এবং পূর্ব তিমুর জাতিসংঘ কর্তৃক স্বাধীন হিসাবে স্বীকৃত পেয়েছিল।[৪৪]গণপরিষদের নাম পরিবর্তন করে জাতীয় সংসদ রাখা হয় এবং জানানা গুসমাও দেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি হিসেবে শপথ নেন। ২০০২ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর, পর্তুগিজ ভাষা ব্যবহার করে পূর্ব তিমুরের নাম পরিবর্তন করে তিমুর-লেস্তে রাখা হয় এবং জাতিসংঘের সদস্য রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি পায়।[৪৫]

২০০৬ সালে, দেশটিতে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনার জন্য জাতিসংঘ নিরাপত্তা বাহিনী পাঠিয়েছিল যখন অশান্তি ও দলগত লড়াইয়ের কারণে জনসংখ্যার ১৫ শতাংশ (১৫৫,০০০ মানুষ) তাদের বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়ে যেতে বাধ্য হয়েছিল।[৪৬]পরের বছর, গুসমাও আরেকটি রাষ্ট্রপতির মেয়াদ প্রত্যাখ্যান করেন এবং মধ্যবর্তী রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের জন্য নতুন করে সহিংসতার প্রাদুর্ভাব ঘটেছিল। সেই নির্বাচনে, হোসে রামোস-হোর্তা রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হয়েছিলেন। ২০০৭ সালের জুনে, গুসমাও সংসদ নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলেন এবং প্রধানমন্ত্রী হয়েছিলেন। ২০০৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে, রামোস-হোর্তা গুপ্তহত্যার চেষ্টায় গুরুতরভাবে আহত হয়েছিলেন। প্রধানমন্ত্রী গুসমাও আলাদাভাবে বন্দুকযুদ্ধের মুখোমুখি হয়েছিলেন কিন্তু অক্ষত অবস্থায় রক্ষা পান। তাৎক্ষণিকভাবে শৃঙ্খলা বজায় রাখতে সাহায্য করার জন্য অস্ট্রেলিয়া শক্তিবৃদ্ধির জন্য জনবল পাঠিয়েছিল। ২০১১ সালের মার্চে জাতিসংঘ পূর্ব তিমুর কর্তৃপক্ষের কাছে পুলিশ বাহিনীর অপারেশনাল নিয়ন্ত্রণ হস্তান্তর করেছিল। ২০১২ সালের ৩১ ডিসেম্বর জাতিসংঘ এর শান্তিরক্ষা মিশন শেষ করেছিল।

পূর্ব তিমুর ২০১৭ সালের ৩১ জানুয়ারি ইউনেস্কো বিশ্ব ঐতিহ্য কনভেনশনের একটি মর্যাদাসম্পন্ন অংশ হয়ে ওঠে।[৪৭]

মধ্য-বামপন্থী ফ্রেটিলিন পার্টির ফ্রান্সিসকো গুতেরেস ২০১৭ সালের মে থেকে পূর্ব তিমুরের রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালন করছেন। এএমপি জোটের প্রধান দল কংগ্রেস ফর তিমুরিজ রিকনস্ট্রাকশন স্বাধীনতার নায়ক জানানা গুসমাওর নেতৃত্বে ২০০৭ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় ছিল, কিন্তু ফ্রেটিলিনের নেতা মারি আল কাতিরি ২০১৭ সালের জুলাইয়ে সংসদ নির্বাচনের পর একটি জোট সরকার গঠন করেছিলেন। যাইহোক, নতুন সংখ্যালঘু সরকারের শীঘ্রই পতন ঘটেছিল, যার ফলে ২০১৮ সালের মে'তে দ্বিতীয় সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। ২০১৮ সালের জুনে, তিন-দলীয় জোট অ্যালায়েন্স অফ চেঞ্জ ফর প্রগ্রেস (এএমপি) এর সাবেক রাষ্ট্রপতি এবং স্বাধীনতা সংগ্রামী জোসে মারিয়া ডি ভাসকনসেলোস, (যিনি টাউর মাতান রুক নামে পরিচিত) নতুন প্রধানমন্ত্রী হয়েছিলেন।[৪৮]

প্রশাসনিক অঞ্চলসমূহ[সম্পাদনা]

পূর্ব তিমুরের ১৩টি পৌরসভা

পূর্ব তিমুরকে তেরোটি পৌরসভায় বিভক্ত করা হয়েছে, যা পরবর্তীতে ৬৫টি প্রশাসনিক কর্মস্থল, ৪৪২টি সুকোস (গ্রাম) এবং ২,২২৫টি অ্যালডেয়াস (পল্লী) এ বিভক্ত।[৪৯][৫০]

  1. ওকাস
  2. লিকুইকা
  3. দিলি
  4. মানাতুতো
  5. বাউকাউ
  6. লাউটেম
  7. বোবোনারো
  8. এরমেরা
  9. আইলিউ
  10. ভিক
  11. কোভা লিমা
  12. আইনারো
  13. মনুফাহি

২০০২ সালের সংবিধানের অনুচ্ছেদ ৫ এবং ৭১ বলা হয়েছে, ওকাস একটি বিশেষ প্রশাসনিক নীতি এবং অর্থনৈতিক শাসন দ্বারা পরিচালিত হবে। ২০১৪ সালের ১৮ জুন আইন ৩/২০১৪ ওকাস আম্বেনো-এর বিশেষ প্রশাসনিক অঞ্চল তৈরি করেছে।[৫১]

ভূগোল[সম্পাদনা]

এটি দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া এবং ওশেনিয়ার মধ্যে অবস্থিত,[৫২] তিমুর দ্বীপ সামুদ্রিক দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার অংশ এবং লেসার সুন্দা দ্বীপপুঞ্জের বৃহত্তম ও পূর্বদিকে অবস্থিত। দ্বীপটির উত্তরে ওমবাই প্রণালী, ওয়েটার প্রণালী এবং বৃহত্তর বান্দা সাগর রয়েছে। তিমুর সাগর দ্বীপটিকে অস্ট্রেলিয়া থেকে দক্ষিণে আলাদা করেছে এবং পূর্ব তিমুরের পশ্চিমে ইন্দোনেশিয়ার পূর্ব নুসা টেঙ্গারা প্রদেশ রয়েছে। মোট ভূমির আয়তন হল ১৪,৯১৯ কিমি (৫,৭৬০ মা)। পূর্ব তিমুরের ৭০,৩২৬ কিমি (২৭,১৫৩ মা) একটি অন্যন্য অর্থনৈতিক অঞ্চল রয়েছে।[৫৩]

দেশের বেশিরভাগ অংশই পাহাড়ি, এবং এর সর্বোচ্চ চূড়া হল তাতামাইলাউ (রামেলাউ পর্বত নামেও পরিচিত), যার উচ্চতা ২,৯৬৩ মিটার (৯,৭২১ ফু)।[৫৪] এর জলবায়ু গ্রীষ্মমন্ডলীয় এবং সাধারণত উষ্ণ ও আর্দ্র। এটিকে বৈশিষ্ট্যপূর্ণ বর্ষা ও শুষ্ক ঋতু দ্বারা চিহ্নিত করা হয়। এটির রাজধানী, বৃহত্তম শহর ও প্রধান বন্দর হল দিলি এবং দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর হল পূর্বাঞ্চলীয় শহর বাউকাও। পূর্ব তিমুর ৮° ও ১০°উত্তর অক্ষাংশ এবং ১২৪° ও ১২৮°দক্ষিণ দ্রাঘিমাংশের মধ্যে অবস্থিত।

পূর্ব তিমুরের জন্য কোপেন জলবায়ু শ্রেণীবিভাগ মানচিত্র

পূর্ব তিমুরের পূর্বতম এলাকাটি পাইচাউ পর্বতমালা ও হ্রদ ইরা লালারো এলাকা নিয়ে গঠিত, যেখানে দেশের প্রথম সংরক্ষণ এলাকা নিনো কোনিস সান্তানা জাতীয় উদ্যান রয়েছে।[৫৫]এটি দেশের মধ্যে সর্বশেষ অবশিষ্ট গ্রীষ্মমন্ডলীয় শুষ্ক বনাঞ্চল। এটি বেশ কয়েকটি অনন্য উদ্ভিদ ও প্রাণী প্রজাতির আবাসস্থল এবং খুব কম জনবহুল এলাকা।[৫৬] উত্তর উপকূলটিতে বেশ কয়েকটি প্রবাল প্রাচীর রয়েছে যা ঝুঁকিপূর্ণ বলে নির্ধারিত হয়েছে।[৫৭]

পূর্ব তিমুর তিমুর এবং ওয়েটার পর্ণমোচী বন ইকোরিজিয়নের আবাসস্থল।[৫৮] ২০১৮ সালের বন প্রাকৃতিক ভূদৃশ্য অখণ্ডতা সূচকে এটির গড় স্কোর ছিল ৭.১১/১০, ১৭২টি দেশের মধ্যে বিশ্বব্যাপী এটির স্থান ছিল ৫৭তম।[৫৯]

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

Economy of East Timor (nominal GDP)(previous and data)
পূর্ব তিমুরের নামানুযায়ী জিডিপি (পূর্বের এবং উপাত্ত)
পূর্ব তিমুরের রপ্তানির আনুপাতিক চিত্র, ২০১৯

পূর্ব তিমুরের অর্থনীতি হল একটি বাজার অর্থনীতি, যা কফি, মার্বেল, পেট্রোলিয়াম এবং চন্দন কাঠের মতো কয়েকটি পণ্য রপ্তানির উপর নির্ভরশীল।[৬০] এটি ২০১১ সালে প্রায় ১০% বৃদ্ধি পেয়েছিল এবং ২০১২ সালেও একই হার ছিল।[৬১]

বর্তমানে পূর্ব তিমুর উপকূলীয় তেল এবং গ্যাসের মজুদ থেকে রাজস্ব পায়,[৬২] তবে এর সামান্যই গ্রামগুলির উন্নয়নে ব্যয় করা হয়েছে এবং এখনও জীবিকা নির্বাহ চাষের উপর নির্ভরশীল। ২০১২ সালের হিসাবে, পূর্ব তিমুরের জনসংখ্যার প্রায় অর্ধেক চরম দারিদ্র্যের মধ্যে বসবাস করতো।[৬২]

তিমুর-লেস্তে পেট্রোলিয়াম তহবিল ২০০৫ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল[৬৩] এবং ২০১১ সালের মধ্যে এটির মূল্য ৮.৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে পৌঁছেছিল। পূর্ব তিমুরকে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল "বিশ্বের সবচেয়ে তেল-নির্ভর অর্থনীতি" হিসাবে চিহ্নিত করেছে।[৬৪] পেট্রোলিয়াম তহবিল সরকারের প্রায় সমস্ত বার্ষিক বাজেটের জন্য অর্থ প্রদান করে, যা ২০০৪ সালে ছিল ৭০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার, তা ২০১১ সালে বেড়ে ১.৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার এবং ২০১২ সালে তা বেড়ে প্রস্তাবিত ১.৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলার হয়েছিল। অস্ট্রেলিয়ার সাথে একটি বিতর্কিত চুক্তি বাতিল করার পর তেল ও গ্যাস থেকে পূর্ব-তিমুরের আয় উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে, যা ২০০৬ সাল থেকে অস্ট্রেলিয়াকে তেল ও গ্যাস থেকে আয়ের অর্ধেক দিয়েছিল।[৬৫]

দেশের অর্থনীতি সরকারি ব্যয় এবং কিছুটা হলেও বিদেশী দাতাদের সহায়তার উপর নির্ভরশীল।[৬৬] এখানে মানব মূলধনের ঘাটতি, অবকাঠামোগত দুর্বলতা, অসম্পূর্ণ আইনি ব্যবস্থা ও একটি অদক্ষ নিয়ন্ত্রক পরিবেশের কারণে বেসরকারি খাতের উন্নয়ন পিছিয়ে আছে। পেট্রোলিয়ামের পরে, দ্বিতীয় বৃহত্তম রপ্তানি পণ্য হল কফি, যা থেকে বছরে প্রায় ১০ মিলিয়ন ডলার আয় হয়।[৬৬]

ভগ্নাংশ মুদ্রা "সেন্টাভোস"

২০১২ সালে ৯,০০০ টন কফি, ১০৮ টন দারুচিনি এবং ১৬১ টন কোকো চাষ করা হয়েছিল যা দেশটিকে বিশ্বব্যাপী কফি উৎপাদকে ৪০তম, দারুচিনি ৬তম এবং ৫০তম কোকো উৎপাদক হিসাবে পরিণত করেছে।

২০১০ সালের আদমশুমারির সংগৃহীত তথ্য অনুযায়ী, ৮৭.৭% শহুরে (৩২১,০৪৩ জন) এবং ১৮.৯% গ্রামীণ (৮২১,৪৫৯ জন) পরিবারে বিদ্যুৎ সরবরাহ রয়েছে, যার সামগ্রিক গড় ৩৮.২%।

পূর্ব তিমুরের কর্মঠ জনসংখ্যার ৮০% কৃষি খাতে নিয়োজিত। ২০০৯ সালে, পূর্ব তিমুরে প্রায় ৬৭,০০০ পরিবার কফি চাষ করেছিল এবং সেই পরিবারের একটি বড় অংশ দরিদ্র ছিল। বর্তমানে গ্রোস মার্জিন প্রতি হেক্টরে প্রায় ১২০ মার্কিন ডলার সহ প্রতি শ্রম-দিনে আয় প্রায় ৩.৭০ মার্কিন ডলার। ২০০৯ সাল পর্যন্ত ১১,০০০ পরিবার মুগবিন চাষ করেছিল, যাদের অধিকাংশই চাষাবাদের মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহ করে।

বিশ্বব্যাংকের ২০১৩ সালের ডুয়িং বিজনেস প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পূর্ব তিমুর পূর্ব এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে সামগ্রিকভাবে ১৬৯তম এবং সর্বশেষ স্থানে ছিল। "সম্পত্তি নিবন্ধন করা", "চুক্তি প্রয়োগ করা" এবং "দেউলিয়া অবস্থার সমাধান" এই তিনটি বিভাগেই বিশ্বব্যাপী শেষ র‍্যাঙ্কিংয়ে থাকা দেশটি বিশেষভাবে খারাপ করেছে।[৬৭]

টেলিকমিউনিকেশন অবকাঠামোর ক্ষেত্রে, পূর্ব তিমুর ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের নেটওয়ার্ক রেডিনেস ইনডেক্সে (এনআরআই) এশিয়ান দেশগুলির মধ্যে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় শুধুমাত্র মিয়ানমারই এর পিছনে রয়েছে। এনআরআই হল একটি দেশের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির উন্নয়নের স্তর নির্ধারণের জন্য একটি সূচক। ২০১৪ সালের এনআরআই র‍্যাঙ্কিংয়ে, পূর্ব তিমুর সামগ্রিকভাবে ১৪১ নম্বরে ছিল, যা ২০১৩ সালে ১৩৪ নম্বর থেকে নেমে এসেছে।[৬৮]

পর্তুগিজ ঔপনিবেশিক প্রশাসন অস্ট্রেলিয়া-গামী ওশেনিক এক্সপ্লোরেশন কর্পোরেশনকে তিমুরের দক্ষিণ-পূর্ব জলসীমায় পেট্রোলিয়াম এবং প্রাকৃতিক গ্যাসের মজুদের বিকাশের জন্য অনুমতি দিয়েছিল। যাইহোক, ১৯৭৬ সালে ইন্দোনেশিয়ার আগ্রাসনের দ্বারা এটি হ্রাস পায়।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] ১৯৮৯ সালে তিমুর গ্যাপ চুক্তির মাধ্যমে সম্পদগুলি ইন্দোনেশিয়া এবং অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে ভাগ করা হয়েছিল।[৬৯]পূর্ব তিমুর স্বাধীনতা লাভ করার সময় কোন স্থায়ী সামুদ্রিক সীমানা উত্তরাধিকার সূত্রে পায়নি।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] যৌথ পেট্রোলিয়াম উন্নয়ন এলাকা (জেপিডিএ) একটি অস্থায়ী চুক্তি (যখন ২০০২ সালের ২০ মে পূর্ব তিমুর স্বাধীন হয়েছিল, তখন তিমুর সমুদ্র চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছিল) নির্ধারণ করেছিল এবং সেই এলাকার বিদ্যমান প্রকল্পগুলি থেকে ৯০% রাজস্ব পূর্ব তিমুরকে এবং ১০% অস্ট্রেলিয়াকে প্রদান করেছিল।[৭০] ২০০৫ সালে পূর্ব তিমুর এবং অস্ট্রেলিয়া সরকারের মধ্যে একটি চুক্তি হয়েছিল যার ফলে উভয় দেশই সমুদ্রসীমা নিয়ে তাদের বিরোধ প্রত্যাহার করে নিয়েছিল এবং[৭১] পূর্ব তিমুর বৃহত্তর সাইনরাইজ উন্নয়ন থেকে এই অঞ্চলের সম্পদের অংশ থেকে রাজস্বের ৫০% পায় (আনুমানিক ২৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার, বা প্রায় প্রকল্পের সময়সীমায় ২০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার)।[৭২] ২০১৩ সালে, পূর্ব তিমুর অস্ট্রেলিয়ার সাথে স্বাক্ষরিত একটি গ্যাস চুক্তি থেকে বেরিয়ে আসার জন্য হেগের স্থায়ী সালিসি আদালতে একটি মামলা শুরু করেছিল এবং ২০০৪ সালে অস্ট্রেলীয় গোপন গোয়েন্দা সার্ভিস (এএসআইএস)-কে দিলিতে পূর্ব তিমুরীয় মন্ত্রিসভা কক্ষে বাগড়া দেওয়ার জন্য অভিযুক্ত করেছিল।[৭৩] পূর্ব তিমুর হল তিমুর লেস্তে-ইন্দোনেশিয়া-অস্ট্রেলিয়া গ্রোথ ট্রায়াঙ্গেলের (TIA-GT) অংশ।

পূর্ব তিমুরে কোন কৃতিস্বত্ব আইন নেই।[৭৪]

পর্যটন[সম্পাদনা]

২০১৭ সালে, ৭৫,০০০ পর্যটক দেশটি ভ্রমণ করেছিল। ২০১০ সালের পর থেকে, পর্যটন বৃদ্ধি পেয়েছে এবং হোটেল ও রিসোর্টের সংখ্যাও বৃদ্ধি পেয়েছে। দিলি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর সম্প্রসারণে বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

জনসংখ্যা[সম্পাদনা]

একজন পূর্ব তিমুরের লোক আংশিকভাবে ঐতিহ্যবাহী পোশাক পরিহিত
ঐতিহাসিক জনসংখ্যা
বছরজন.±%
১৯৮০৫,৫৫,৩৫০—    
১৯৯০৭,৪৭,৫৫৭+৩৪.৬%
২০০১৭,৮৭,৩৪০+৫.৩%
২০০৪৯,২৩,১৯৮+১৭.৩%
২০১০১০,৬৬,৫৮২+১৫.৫%
২০১৫১১,৮৩,৬৪৩+১১%
জনসংখ্যা পিরামিড
১৮৬১ এবং ২০১০ সালের মধ্যে পূর্ব তিমুরের জনসংখ্যার পরিবর্তন

পূর্ব তিমুরের ২০১৫ সালের আদমশুমারিতে ১,১৮৩,৬৪৩ জনসংখ্যা নথিবদ্ধ করা হয়েছে।

সিআইএ'র ওয়ার্ল্ড ফ্যাক্টবুক পূর্ব তিমুরের ইংরেজি ভাষার জাতীয়তাসূচক বিশেষণকে তিমুরিজ (Timorese) হিসাবে তালিকাভুক্ত করেছে, [৭৫] যেমনটি তিমুর-লেস্তে সরকারের ওয়েবসাইটে রয়েছে। [৭৬]অন্যান্য রেফারেন্স উৎসে এটি পূর্ব তিমুরিজ হিসাবে তালিকাভুক্ত।[৭৭] [৭৮]

মাউবেরে শব্দটি,[৭৯] পূর্বে পর্তুগিজরা স্থানীয় পূর্ব তিমুরিজদের বুঝাতে ব্যবহার করতো এবং প্রায়শই নিরক্ষর ও অশিক্ষিতদের সমার্থক হিসাবে ব্যবহৃত হতো, ফ্রেটিলিন গর্বিত শব্দ হিসাবে গৃহীত হয়েছিল।[৮০]স্থানীয় পূর্ব তিমুরীয়রা বেশ কয়েকটি স্বতন্ত্র জাতিগোষ্ঠী নিয়ে গঠিত, বৃহত্তম মালয়ো-পলিনেশীয় জাতিগোষ্ঠী হল তেতুম[৮১] (জনসংখ্যা ১০০,০০০), তারা প্রাথমিকভাবে উত্তর উপকূল এবং দিলির আশেপাশে থাকে; মাম্বাই (জনসংখ্যা ৮০,০০০) জাতিগোষ্ঠী এরা কেন্দ্রীয় পাহাড়ে থাকে; টুকুদেদে (জনসংখ্যা ৬৩,১৭০) জাতিগোষ্ঠী মাওবারা এবং লিকুইকা এর আশেপাশের এলাকায় থাকে; গ্যালোলি (জনসংখ্যা ৫০,০০০) জাতিগোষ্ঠী মাম্বা এবং মাকাসে উপজাতির মধ্যে থাকে; কেমাক (জনসংখ্যা ৫০,০০০) জাতিগোষ্ঠী উত্তর-মধ্য তিমুর দ্বীপে থাকে; এবং বাইকেনো (জনসংখ্যা ২০,০০৯) জাতিগোষ্ঠী পান্তে ম্যাকাসারের আশেপাশের এলাকায় থাকে।

প্রধানত পাপুয়ান বংশোদ্ভূত প্রধান উপজাতির মধ্যে রয়েছে বুনাক (জনসংখ্যা ৮৪,০০০), এরা তিমুর দ্বীপের কেন্দ্রীয় অভ্যন্তরে থাকে; ফাতালুকু (জনসংখ্যা ৪০,০০০) উপজাতি লোসপালোসের কাছে দ্বীপের পূর্ব প্রান্তে থাকে; এবং মাকাসে (জনসংখ্যা ৭০,০০০) উপজাতি দ্বীপের পূর্ব প্রান্তের দিকে থাকে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] পর্তুগিজ যুগে আন্তঃজাতিগত বিবাহের ফলে মিশ্র পূর্ব তিমুরীয় এবং পর্তুগিজ বংশোদ্ভূত লোকের উল্লেখযোগ্য জনসংখ্যা ছিল, যা পর্তুগিজ ভাষায় মেসটিকোস নামে পরিচিত। একটি ছোট চীনা সংখ্যালঘু রয়েছে, যাদের অধিকাংশই হল হাক্কা। অনেক চীনা ১৯৭০-এর দশকের মাঝামাঝি সময়ে চলে গিয়েছিল, কিন্তু ইন্দোনেশীয় দখলের অবসানের পর উল্লেখযোগ্য সংখ্যক পূর্ব তিমুরে ফিরে এসেছিল।[৮২]পূর্ব তিমুরে তিমুরীয় ভারতীয়দের একটি ছোট সম্প্রদায় রয়েছে, বিশেষ করে এরা গোয়ান বংশোদ্ভূত।[৮৩]এই গোয়ানরা ঔপনিবেশিক আমলা, ধর্মপ্রচারক ও বেতনভোগী শ্রমিক হিসাবে তিমুরে এসেছিল, তাদের মধ্যে কেউ কেউ পূর্ব তিমুরে থেকে গিয়েছিল এবং প্রায়ই স্থানীয় জনগণের সাথে আন্তঃবিবাহ করেছিল।

ভাষা[সম্পাদনা]

সুকো কর্তৃক পূর্ব তিমুরের প্রধান ভাষা গোষ্ঠী

পূর্ব তিমুরের দুটি সরকারি ভাষা হল পর্তুগিজ এবং তেতুম। এছাড়া ইংরেজি এবং ইন্দোনেশীয় ভাষাকে সংবিধান দ্বারা "কাজের ভাষা" হিসাবে মনোনীত করা হয়েছে।[৮৪]তেতুম সমগ্র দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া এবং প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে কথ্য ভাষার অস্ট্রোনেশীয় পরিবারের অন্তর্গত।[৮৫]

২০১৫ সালের আদমশুমারিতে দেখা গেছে যে, সর্বাধিক প্রচলিত মাতৃভাষাগুলি হল তেতুম প্রাসা (৩০.৬% জনসংখ্যার মাতৃভাষা), মাম্বাই (১৬.৬%), মাকাসাই (১০.৫%), তেতুম টেরিক (৬.০৫%), বাইকেনু (৫.৮৭%), কেমাক (৫.৮৫%), বুনাক (৫.৪৮%), তোকোদেদে (৩.৯৭%), এবং ফাতালুকু (৩.৫২%)। অন্যান্য আদিবাসী ভাষার হার ১০.৪%, যেখানে জনসংখ্যার ১.০৯% স্থানীয়ভাবে বিদেশী ভাষায় কথা বলে।

ইন্দোনেশীয় শাসনের অধীনে, পর্তুগিজ ভাষার ব্যবহার নিষিদ্ধ করা হয়েছিল এবং শুধুমাত্র ইন্দোনেশীয় ভাষা সরকারি অফিস, বিদ্যালয় ও পাবলিক ব্যবসায় ব্যবহার করার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল।[৮৬]ইন্দোনেশীয় দখলের সময়, তেতুম এবং পর্তুগিজ জাভানিজ সংস্কৃতির বিরোধিতা করার জন্য পূর্ব তিমুরের জনগণের জন্য গুরুত্বপূর্ণ এক ঐক্যবদ্ধ উপাদান ছিল।[৮৭]এই কারণে ২০০২ সালে স্বাধীনতার পর পর্তুগিজ দুটি সরকারী ভাষার একটি হিসাবে গৃহীত হয়েছিল এবং বিশ্বের অন্যান্য অংশে লুসোফোন জাতির সাথে একটি সংযোগ হিসাবে কাজ করছে। এটি এখন ব্রাজিল, পর্তুগাল এবং পর্তুগিজ ভাষার দেশগুলির সম্প্রদায়ের সহায়তায় শেখানো এবং প্রচার করা হচ্ছে।[৮৮]

পর্তুগিজ ভাষার মানমন্দির অনুযায়ী, পূর্ব তিমুরীয়দের সাক্ষরতার হার ছিল তেতুম ভাষায় ৭৭.৮%, ইন্দোনেশীয়তে ৫৫.৬% ও পর্তুগিজে ৩৯.৩% এবং প্রাথমিক সাক্ষরতার হার ২০০৯ সালে ৭৩% থেকে বেড়ে ২০১২ সালে ৮৩% হয়েছে। কোনো চূড়ান্ত তারিখ নির্ধারণ না করেই ইন্দোনেশীয় এবং ইংরেজি ভাষাকে সংবিধানের অধীনে চূড়ান্ত ও অন্তর্বর্তীকালীন বিধানে কাজের ভাষা হিসেবে নির্ধারিত করা হয়েছে। ২০১২ সালে, জনসংখ্যার ৩৫% পর্তুগিজ ভাষা বলতে, পড়তে এবং লিখতে পারে, যা ২০০৬ সালের জাতিসংঘের উন্নয়ন প্রতিবেদনের ৫% এর কম থেকে উল্লেখযোগ্যভাবে বেশি ছিল। পর্তুগিজ ভাষা পুনরায় ফিরে এসেছে কারণ এটিকে এখন তিমুরের প্রধান সরকারি ভাষা করা হয়েছে এবং অধিকাংশ বিদ্যালয়ে পড়ানো হচ্ছে।[৮৪] ২০১৫ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী, ১৪ থেকে ২৪ বছর বয়সী জনসংখ্যার ৫০% পর্তুগিজ বলতে এবং বুঝতে পারে।[৮৯]এটা ধারণা করা হয় যে, জনসংখ্যার ৩১.৪% ইংরেজি ভাষা বুঝে। পূর্ব তিমুর পর্তুগিজ ভাষা দেশগুলির সম্প্রদায়ের সদস্য (যা লুসোফোন কমনওয়েলথ নামেও পরিচিত)।[৯০]

তেতুম ছাড়াও, এথনোলগ নিম্নলিখিত আদিবাসী ভাষার তালিকা প্রদান করে: আদাবে, বাইকেনো, বুনাক, ফাতালুকু, গ্যালোলি, হাবুন, ইদাতে, কাইরুই-মিডিকি, কেমাক, লাকালেই, মাকাসে, মাকুভা, মাম্বাই, ওয়াইমাদে এবং নাউয়েদে।[৯১]অ্যাটলাস অফ দ্য ওয়ার্ল্ডস ল্যাঙ্গুয়েজেস ইন ডেঞ্জার অনুযায়ী, পূর্ব তিমুরে ছয়টি বিপন্ন ভাষা রয়েছে: আদাবে, হাবু, কাইরুই-মিডিকি, মাকুয়া, নৌয়েতি এবং ওয়াইমা'আ।[৯২]

শিক্ষা[সম্পাদনা]

এসকোলা পর্তুগিজা রুই সিনাত্তি, দিলির পর্তুগিজ বিদ্যালয়

২০১০ সালে পূর্ব তিমুরের প্রাপ্তবয়স্ক সাক্ষরতার হার ছিল ৫৮.৩%, যা ২০০১ সালে ৩৭.৬% ছিল।[৯৩]পর্তুগিজ শাসনের শেষের দিকে, সাক্ষরতার হার ছিল ৫%।[৯৪]

দেশটির প্রধান বিশ্ববিদ্যালয় হল পূর্ব তিমুর জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়। এছাড়াও চারটি কলেজ রয়েছে।[৯৫]

স্বাধীনতার পর থেকে, পর্তুগিজ ভাষার বৃদ্ধির কারণে ইন্দোনেশীয় এবং তেতুম উভয়ই শিক্ষার মাধ্যম হিসাবে গুরুত্ব হারিয়েছে: ২০০১ সালে শুধুমাত্র ৮.৪% প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং ৬.৮% মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা একটি পর্তুগিজ-মাঝারি বিদ্যালয়ে পড়াশোনা করতো; তা ২০০৫ সালে প্রাথমিকে ৮১.৬% এবং মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ৪৬.৩% বৃদ্ধি পেয়েছে।[৯৬]ইন্দোনেশীয় ভাষা পূর্বে শিক্ষার ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করেছিল, শিক্ষার মাধ্যম হিসাবে সব মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৭৩.৭% শিক্ষার্থীরা এই ভাষা ব্যবহার করতো, কিন্তু ২০০৫ সাল থেকে বাউকাউ, মানাতুতো এবং সেইসাথে রাজধানী জেলার অধিকাংশ বিদ্যালয়ে পর্তুগিজ ভাষার ব্যবহার শুরু করা হয়েছিল।[৯৬]

ফিলিপাইন ইংরেজি শেখানোর জন্য ফিলিপিনো শিক্ষকদের পূর্ব তিমুরে প্রেরণ করেছিল, যাতে দুই দেশের মধ্যে একটি প্রোগ্রাম সহজতর হয়, যার অধীনে ইংরেজি ভাষায় দক্ষতাসম্পন্ন যোগ্য পূর্ব তিমুরীয় নাগরিকদের ফিলিপাইনে বিশ্ববিদ্যালয় বৃত্তি দেওয়া হবে।[৯৬]

স্বাস্থ্য[সম্পাদনা]

ধর্ম[সম্পাদনা]

সান্তো আন্তোনিও ডি মোটায়েলের চার্চ, দিলি

২০১৫ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী, জনসংখ্যার ৯৭.৫৭% ক্যাথলিক; ১.৯৬% প্রোটেস্ট্যান্ট; ০.২৪% মুসলিম; ০.০৮% ঐতিহ্যগত; ০.০৫% বৌদ্ধ; ০.০২% হিন্দু, এবং ০.০৮% অন্যান্য ধর্ম। জনসংখ্যা ও স্বাস্থ্য জরিপ প্রোগ্রাম দ্বারা পরিচালিত ২০১৬ সালের একটি জরিপে দেখায় যে, ক্যাথলিক জনসংখ্যার ৯৮.৩%, প্রোটেস্ট্যান্ট ১.২% এবং মুসলিম ০.৩%।[৯৭]

গির্জার সংখ্যা ১৯৭৪ সালে ১০০ থেকে বেড়ে ১৯৯৪ সালে ৮০০-এর উপরে হয়েছে,[৯৫] ইন্দোনেশীয় শাসনের অধীনে চার্চের সদস্যপদ উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে কারণ ইন্দোনেশিয়ার রাষ্ট্রীয় আদর্শ প্যানকাসিলা, সব নাগরিককে এক ঈশ্বরে বিশ্বাস করা প্রয়োজন এবং ঐতিহ্যগত বিশ্বাসকে স্বীকৃতি দেয় না। পূর্ব তিমুরীয়দের অ্যানিমিস্ট বিশ্বাস ব্যবস্থা ইন্দোনেশিয়ার সাংবিধানিক একেশ্বরবাদের সাথে খাপ খায় না, যার ফলে খ্রিস্টান ধর্মে ব্যাপক ধর্মান্তরিত হয়।পর্তুগিজ পাদ্রীরা ইন্দোনেশীয় যাজকদের স্থলাভিষিক্ত হয়েছিল এবং ল্যাটিনপর্তুগিজ গণ ইন্দোনেশীয় গণের স্থলাভিষিক্ত হয়েছিল। [৯৮]১৯৭৫ সালের আগ্রাসনের সময় পূর্ব তিমুরের মাত্র ২০% নিজেদেরকে ক্যাথলিক বলত, আক্রমণের পর প্রথম দশকের শেষ নাগাদ এই হার ৯৫%-এ পৌঁছেছিল।[৯৮] [৯৯]গ্রামীণ এলাকায়, রোমান ক্যাথলিক ধর্ম স্থানীয় অ্যানিমিস্ট বিশ্বাসের সাথে একত্রিত হয়। [১০০]৯৫% এর বেশি ক্যাথলিক জনসংখ্যা নিয়ে পূর্ব তিমুর বর্তমানে ভ্যাটিকানের পরে বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বাধিক ঘনত্বপূর্ণ ক্যাথলিক দেশ।[১০১]

ভিকুয়েকে ইগ্রেজা দা ইমাকুলাদা কনসেইকাও গির্জা

প্রোটেস্ট্যান্ট এবং মুসলমানদের সংখ্যা ১৯৯৯ সালের সেপ্টেম্বরের পরে উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস পেয়েছে কারণ এই গোষ্ঠীগুলি ইন্দোনেশিয়ার সাথে একীকরণের সমর্থক ছিল এবং ইন্দোনেশিয়ার অন্যান্য অংশ থেকে প্রদেশে কাজ করার জন্য নিযুক্ত ইন্দোনেশীয় বেসামরিক কর্মচারীদের মধ্যে অসামঞ্জস্যপূর্ণভাবে প্রতিনিধিত্ব করেছিল, যাদের মধ্যে অনেকেই ১৯৯৯ সালে দেশ ছেড়ে চলে গিয়েছিল।[১০২]এছাড়াও এখানে ছোট প্রোটেস্ট্যান্ট এবং মুসলিম সম্প্রদায় রয়েছে।[১০২]পূর্বে দেশটিতে অবস্থানরত ইন্দোনেশীয় সেনাবাহিনীতে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক প্রোটেস্ট্যান্ট অন্তর্ভুক্ত ছিল, যারা এই অঞ্চলে প্রোটেস্ট্যান্ট গীর্জা প্রতিষ্ঠায় প্রধান ভূমিকা পালন করেছিল।[১০২]১৯৯৯ সালের সেপ্টেম্বরের পরব এই ধর্মসভাগুলি অর্ধেকেরও কম বিদ্যমান ছিল এবং এবং যারা পশ্চিম তিমুরে থেকে গিয়েছিল তাদের মধ্যে অনেক প্রোটেস্ট্যান্ট ছিল।[১০২]অ্যাসেম্বলিস অফ গড প্রোটেস্ট্যান্ট সম্প্রদায়ের মধ্যে বৃহত্তম এবং সবচেয়ে সক্রিয়।[১০২]

যদিও পূর্ব তিমুরের সংবিধানে ধর্মের স্বাধীনতা এবং গির্জা ও রাষ্ট্রের মধ্যে পৃথকীকরণের নীতিগুলি অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে, ধারা ৪৫ কমা ১ এর প্রস্তাবনায় "জাতীয় মুক্তির প্রক্রিয়ায় ক্যাথলিক চার্চের অংশগ্রহণ"-কে স্বীকার করেছে (যদিও এর কোনও আইনি মূল্য নেই)।[১০৩]স্বাধীনতার পর দেশটি ফিলিপাইনের সাথে যুক্ত হয়ে এশিয়ার প্রধানতম দুটি রোমান ক্যাথলিক রাষ্ট্রে পরিণত হয়, যদিও পূর্ব ইন্দোনেশিয়ার কাছাকাছি অংশে যেমন পশ্চিম তিমুর এবং ফ্লোরেসেও রোমান ক্যাথলিকের সংখ্যাগরিষ্ঠতা রয়েছে।

রোমান ক্যাথলিক গির্জা পূর্ব তিমুরকে তিনটি ডায়োসিসে বিভক্ত করেছে: দিলির আর্চডায়োসিস, বাউকাওর ডায়োসিস এবং মালিয়ানার ডায়োসিস।[১০৪]

সংস্কৃতি[সম্পাদনা]

লোসপালোসে পবিত্র বাড়ি (লি টিনু)

পূর্ব তিমুরের সংস্কৃতি তিমুরের আদিবাসী অস্ট্রোনেশীয় এবং মেলানেশীয় সংস্কৃতির উপর পর্তুগিজ, রোমান ক্যাথলিক এবং ইন্দোনেশীয় সহ অসংখ্য প্রভাবকে প্রতিফলিত করে। পূর্ব তিমুরের সংস্কৃতি অস্ট্রোনেশীয় কিংবদন্তি দ্বারা ব্যাপকভাবে প্রভাবিত। উদাহরণ স্বরূপ, পূর্ব তিমুরের সৃষ্টির পৌরাণিক কাহিনীতে বলা হয়েছে যে একটি বৃদ্ধ কুমির তিমুর দ্বীপে এসেছিল, তখন একজন অল্পবয়সী বালক তার ঋণ পরিশোধের অংশ হিসাবে অসুস্থ অবস্থায় কুমিরটিকে সাহায্য করেছিল।[১০৫] ফলস্বরূপ, দ্বীপটি একটি কুমিরের মতো আকার ধারণ করে এবং বালকটির বংশধররা হল স্থানীয় পূর্ব তিমুরীয় যারা এখানে বসবাস করে। "কুমির ছেড়ে যাওয়া" বাক্যাংশটি দ্বারা পূর্ব তিমুরীয়দের তাদের দ্বীপ থেকে বেদনাদায়ক নির্বাসনকে বুঝায়। পূর্ব তিমুর বর্তমানে ইউনেস্কোর বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকা, ইউনেস্কোর অস্পষ্ট সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের তালিকা, ইউনেস্কো ক্রিয়েটিভ সিটিস নেটওয়ার্ক, ইউনেস্কো গ্লোবাল জিওপার্কস নেটওয়ার্ক, এবং ইউনেস্কো বায়োস্ফিয়ার রিজার্ভ নেটওয়ার্কে মনোনয়নের জন্য প্রয়োজনীয় দলিলপত্র চূড়ান্ত করছে। দেশটির বর্তমানে ইউনেস্কো মেমোরি অফ দ্য ওয়ার্ল্ড রেজিস্টারে একটি নথি রয়েছে, যথা, একটি জাতির জন্ম: সন্ধিক্ষণ[১০৬]

শিল্পকলা[সম্পাদনা]

ঐতিহ্যবাহী তিমুরীয় নৃত্যশিল্পী

দেশে কবিতার একটি শক্তিশালী ঐতিহ্য রয়েছে। [১০৭]উদাহরণস্বরূপ, প্রধানমন্ত্রী জানানা গুসমাও একজন বিশিষ্ট কবি, যিনি "কবি যোদ্ধা" উপাধি অর্জন করেছেন।[১০৮]

স্থাপত্যগতভাবে, পূর্বাঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী টোটেম ঘরগুলির সাথে প্রায়শই ভবনগুলি পর্তুগিজ শৈলীর হয়। এগুলি তেতুমে উমা লুলিক ("পবিত্র ঘর") এবং ফাতালুকুতে লি তেইনু ("পদ ঘর") নামে পরিচিত।[যাচাই করার জন্য উদ্ধৃতি প্রয়োজন] কারুকাজ এবং ঐতিহ্যবাহী স্কার্ফ (তাইস) বুননও ব্যাপক রয়েছে।[যাচাই করার জন্য উদ্ধৃতি প্রয়োজন]

তিমুরীয় অডিওভিজ্যুয়াল সামগ্রীর একটি বিস্তৃত সংগ্রহ অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় চলচ্চিত্র এবং শব্দ সংরক্ষণাগার-এ অনুষ্ঠিত হয়। এনএফএসএ তিমুর-লেস্তে সংগ্রহ পরিলেখ শিরোনামের একটি নথিতে এই হোল্ডিংগুলি চিহ্নিত করা হয়েছে, যা ২০ শতকের প্রথম দিক থেকে পূর্ব তিমুরের ইতিহাস ও সংস্কৃতিকে ধারণ করেছে এমন মোট ৭৯৫টি এনএফএসএ-ধারিত চলমান চিত্র, সংরক্ষণ করা শব্দ এবং ডকুমেন্টেশনের জন্য ক্যাটালগ এন্ট্রি এবং প্রবন্ধ রয়েছে।[১০৯]এনএফএসএ পূর্ব টিমোরিজ সরকারের সাথে কাজ করছে যাতে এই সব সামগ্রী সেই দেশের জনগণ ব্যবহার করতে পারে এবং উপলন্ধি করতে পারে।[১১০]

চলচ্চিত্র এবং টিভি নাটক[সম্পাদনা]

২০০৯ ও ২০১০ সালে, পূর্ব তিমুর ছিল অস্ট্রেলীয় চলচ্চিত্র বালিবো এবং দক্ষিণ কোরীয় চলচ্চিত্র এ বেয়ারফুট ড্রিমের পরিবেশের স্থান। ২০১৩ সালে, প্রথম পূর্ব তিমুরীয় ফিচার সিনেমা, বিয়াট্রিজের যুদ্ধ মুক্তি পেয়েছিল।[১১১]আরও দুটি বৈশিষ্ট্য-দৈর্ঘ্যের চলচ্চিত্র, আব্দুল ও জোসে এবং এমা নুদার উমানু, যথাক্রমে ২০১৭ সালের ৩০ জুলাই আরটিটিএল [১১২] [১১৩] টেলিভিশন নেটওয়ার্কের মাধ্যমে এবং ২০১৮ সালের ১৬ আগস্ট মেলবোর্ন আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে মুক্তি পায়[১১৪]

রন্ধনপ্রণালী[সম্পাদনা]

পূর্ব তিমুরের রন্ধনপ্রণালীতে রয়েছে আঞ্চলিক জনপ্রিয় খাবার যেমন শুয়োরের মাংস, মাছ, তুলসী, তেঁতুল, লেবু, ভুট্টা, চাল, মূল শাকসবজি এবং গ্রীষ্মমন্ডলীয় ফল। দক্ষিণ-পূর্ব এশীয় রন্ধনপ্রণালী এবং পর্তুগালের উপনিবেশ থেকে পর্তুগিজ খাবারে পূর্ব তিমুরীয় রন্ধনপ্রণালীর প্রভাব রয়েছে। দ্বীপে শতাব্দীকাল ধরে প্রাচীন পর্তুগিজদের উপস্থিতির কারণে অন্যান্য সাবেক পর্তুগিজ উপনিবেশগুলির খাবারের স্বাদ এবং খাদ্য উপাদানগুলি এখানে পাওয়া যায়। পূর্ব তিমুরের রন্ধনপ্রণালী পূর্ব এবং পশ্চিমের সংমিশ্রণের কারণে এটি ফিলিপিনো রন্ধনপ্রণালীর সাথে সম্পর্কিত বৈশিষ্ট্যগুলি তৈরি করেছে, যা পূর্ব-পশ্চিমের রন্ধনশৈলী সম্পর্কে অভিজ্ঞ করে তুলেছে।

খেলাধুলা[সম্পাদনা]

২০০৯ সালের ১৮ অক্টোবর দিলির ন্যাশনাল স্টেডিয়ামে পূর্ব তিমুর বনাম ইউএস সার্ভিস সদস্যদের ফুটবল ম্যাচ। পূর্ব তিমুর যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক বলেছিলেন যে, ম্যাচটি এই অঞ্চলে শান্তি ও স্থিতিশীলতা প্রচারের উদ্দেশ্যে ছিল। পূর্ব তিমুর ৪-০ গোলে জিতেছিল

পূর্ব তিমুরের সাথে যোগদানকারী ক্রীড়া সংস্থাগুলির মধ্যে রয়েছে আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটি (আইওসি), আন্তর্জাতিক অ্যাথলেটিক্স ফেডারেশন (আইএএএফ), আন্তর্জাতিক ব্যাডমিন্টন ফেডারেশন (আইবিএফ), ইউনিয়ন সাইক্লিস্ট ইন্টারন্যাশনাল, আন্তর্জাতিক ভারোত্তোলন ফেডারেশন, আন্তর্জাতিক টেবিল টেনিস ফেডারেশন (ইটটা)), ইন্টারন্যাশনাল বাস্কেটবল ফেডারেশন (ফিবা), এবং পূর্ব তিমুরের জাতীয় ফুটবল দল ফিফাতে যোগদান করেছে। ২০০৩ সালে অনুষ্ঠিত ২০০৩ দক্ষিণ-পূর্ব এশীয় গেমস-এ পূর্ব তিমুরের ক্রীড়াবিদরা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিল। ২০০৩ আসিয়ান প্যারালিম্পিক গেমসে পূর্ব তিমুর একটি ব্রোঞ্জ পদক জিতেছিল। ২০০৪ এথেন্স অলিম্পিক গেমসে পূর্ব তিমুরের ক্রীড়াবিদরা অ্যাথলেটিক্স, ভারোত্তোলন এবং বক্সিংয়ে অংশগ্রহণ করেছিল। ২০০৫ দক্ষিণ-পূর্ব এশীয় গেমসে পূর্ব তিমুর আর্নিসে তিনটি পদক জিতেছিল। পূর্ব তিমুর প্রথম লুসোফোনি গেমসে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিল এবং ২০০৮ সালের অক্টোবরে কম্বোডিয়ার বিরুদ্ধে ২-২ গোলে ড্র করে ফিফা ফুটবল ম্যাচে দেশটি প্রথম আন্তর্জাতিক পয়েন্ট অর্জন করেছিল।[১১৫] পূর্ব তিমুর ২০১৪ সালের শীতকালীন অলিম্পিকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিল।

টমাস আমেরিকান ছিলেন প্রথম পূর্ব তিমুরোয় যোদ্ধা যিনি বিশ্ব বক্সিং খেতাবের জন্য লড়াই করেছিলেন। ১৯৯৯ সালে পূর্ব তিমুরের ইন্দোনেশীয় দখলদারিত্ব শেষ হওয়ার কিছুদিন আগে তাকে হত্যা করা হয়েছিল।[১১৬]

রাজনীতি ও সরকার[সম্পাদনা]

জানানা গুসমাও, ইন্দোনেশীয় দখলের পর পূর্ব তিমুরের প্রথম রাষ্ট্রপতি।

পূর্ব তিমুরের রাষ্ট্রপ্রধান হলেন প্রজাতন্ত্রের রাষ্ট্রপতি, যিনি জনগণের ভোটে পাঁচ বছর মেয়াদের জন্য নির্বাচিত হন। যদিও রাষ্ট্রপতির কার্যনির্বাহী ক্ষমতা কিছুটা সীমিত, তার কাছে প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ এবং সরকারি আইনে ভেটো প্রদান করার ক্ষমতা রয়েছে। নির্বাচনের পর, রাষ্ট্রপতি সাধারণত সংখ্যাগরিষ্ঠ দল বা জোটের নেতাকে পূর্ব তিমুরের প্রধানমন্ত্রী হিসাবে এবং পরবর্তীদের প্রস্তাবে মন্ত্রিসভা নিয়োগ করেন। সরকার প্রধান হিসেবে প্রধানমন্ত্রী মন্ত্রিসভার সভাপতিত্ব করেন।[১১৭]

এককক্ষ বিশিষ্ট পূর্ব তিমুরীয় সংসদ হল জাতীয় সংসদ বা পার্লামেন্টো ন্যাসিওনাল, যার সদস্যরা জনগণের ভোটে পাঁচ বছর মেয়াদের জন্য নির্বাচিত হন। আসন সংখ্যা সর্বনিম্ন বায়ান্ন থেকে সর্বোচ্চ পঁয়ষট্টির মধ্যে পরিবর্তিত হতে পারে। পূর্ব তিমুরের সংবিধান পর্তুগালের আদলে তৈরি করা হয়েছিল। দেশটি এখনও এর প্রশাসন ও সরকারি প্রতিষ্ঠান গড়ার প্রক্রিয়ায় রয়েছে। সরকারি বিভাগগুলির মধ্যে রয়েছে পুলিসিয়া ন্যাসিওওনাল দে তিমুর-লেস্তে (পুলিশ), পূর্ব তিমুর রাজ্য ও অভ্যন্তরীণ প্রশাসন মন্ত্রণালয়, তিমুর-লেস্তে বেসামরিক বিমান চলাচল বিভাগ এবং তিমুর-লেস্তে অভিবাসন বিভাগ।

পূর্ব তিমুরের ন্যাশনাল পুলিশ বা পিএনটিএল হল পূর্ব তিমুরের জাতীয় পুলিশ বাহিনী, যা ২০০২ সালের মে মাসে জাতিসংঘ কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল, নতুন রাষ্ট্রের সার্বভৌমত্ব জারি করার পূর্বে রাষ্ট্রে নিরাপত্তা প্রদান ও সারাদেশে আইন-শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য এবং একটি বিশ্বাসযোগ্য, পেশাদার ও নিরপেক্ষ পুলিশ পরিষেবার দ্রুত বিকাশকে সক্ষম করার জন্য একটি আদেশ জারি করা হয়েছিল।

বৈদেশিক সম্পর্ক এবং সেনাবাহিনী[সম্পাদনা]

Timor-Leste Defense Forces soldiers in military training
সামরিক প্রশিক্ষণে তিমুর-লেস্তে প্রতিরক্ষা বাহিনীর সৈন্যরা

পূর্ব তিমুর হল পর্তুগিজ ভাষা দেশগুলির সম্প্রদায়ের (সিপিএলপি) একটি পূর্ণ সদস্য রাষ্ট্র, যা লুসোফোন কমনওয়েলথ নামেও পরিচিত, এটি একটি আন্তর্জাতিক সংস্থা এবং চারটি মহাদেশের লুসোফোন জাতির রাজনৈতিক সংঘ। এইসব প্রতিটি দেশে, পর্তুগিজ একটি সরকারি ভাষা। পূর্ব তিমুর ২০০৭ সালে দক্ষিণ-পূর্ব এশীয় জাতি সংস্থার (আসিয়ান) সদস্যপদ চেয়েছিল এবং ২০১১ সালের মার্চে একটি আনুষ্ঠানিক আবেদন জমা[১১৮] দিয়েছিল।

পূর্ব তিমুর প্রতিরক্ষা বাহিনী (Forças de Defesa de Timor-Leste, F-FDTL) পূর্ব তিমুরের প্রতিরক্ষার জন্য দায়বদ্ধ সামরিক সংস্থা। ২০০১ সালের ফেব্রুয়ারিতে এফ-এফডিটিএল প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল এবং এতে দুটি ছোট পদাতিক ব্যাটালিয়ন, একটি ছোট নৌ অংশ এবং বেশ কয়েকটি সহায়ক ইউনিট রয়েছে।

এফ-এফডিটিএল-এর প্রাথমিক ভূমিকা হল পূর্ব তিমুরকে বর্হিমুখী হুমকি থেকে রক্ষা করা। এটির একটি অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা ভূমিকাও রয়েছে, যা পূর্ব তিমুরের জাতীয় পুলিশ (Polícia Nacional de Timor-Leste, PNTL) এর সাথে অধিক্রমণ করে। এই অধিক্রমণটি পরিষেবাগুলির মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি করেছে, যা দুর্বল মনোবল এবং এফ-এফডিটিএল-এর মধ্যে শৃঙ্খলার অভাবের কারণে বৃদ্ধি পেয়েছিল।

২০০৬ সালে এফ-এফডিটিএল-এর সমস্যাগুলি মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে তখন বৈষম্য এবং খারাপ অবস্থার প্রতিবাদের কারণে বাহিনীর প্রায় অর্ধেক সদস্যদের বরখাস্ত করা হয়েছিল। বরখাস্তের ফলে মে মাসে এফ-এফডিটিএল এবং পিএনটিএল উভয়েরই সাধারণভাবে পতন ঘটে এবং নিরাপত্তা ব্যবস্থা ফিরিয়ে আনার জন্য বিদেশী শান্তিরক্ষীদের অনুরোধ করতে সরকারকে বাধ্য করেছিল। এফ-এফডিটিএল বিদেশী সহায়তায় পুনর্গঠন করা হচ্ছে এবং একটি দীর্ঘমেয়াদী শক্তি উন্নয়ন পরিকল্পনা তৈরি করেছে।

২০১৩ সালের ডিসেম্বরে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ

১৯৭০-এর দশকে তিমুর সাগরে পেট্রোলিয়াম আবিষ্কারের পর থেকে তিমুর সাগরের একটি অংশে অবস্থিত সম্পদের মালিকানা এবং শোষণের অধিকারকে ঘিরে বিরোধ রয়েছে যা তিমুর গ্যাপ নামে পরিচিত[১১৯]এটি তিমুর সাগরের এলাকায় যা তিমুর সাগরের উত্তর ও দক্ষিণে দেশগুলির আঞ্চলিক সীমানার বাইরে অবস্থিত। এই মতবিরোধ প্রাথমিকভাবে অস্ট্রেলিয়া এবং ইন্দোনেশিয়ার সাথে সম্পৃক্ত, যদিও তা শেষ পর্যন্ত তিমুর গ্যাপ চুক্তি রূপে একটি সমাধানে পৌঁছেছিল। ১৯৯৯ সালে পূর্ব তিমুরের জাতীয়তা ঘোষণার পর, তিমুর গ্যাপ চুক্তির শর্তাবলী পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়েছিল এবং অস্ট্রেলিয়া ও পূর্ব তিমুরের মধ্যে আলোচনা শুরু হয়, যার ফলে চূড়ান্তভাবে তিমুর সাগর চুক্তি হয়েছিল।

অস্ট্রেলিয়ার আঞ্চলিক দাবি বাথমেট্রিক অক্ষ (সমুদ্রের সবচেয়ে গভীরতার রেখা) তিমুর খাদ বিস্তৃত। এটি পূর্ব তিমুরের নিজস্ব আঞ্চলিক দাবিকে অধিক্রমণ করেছে, যা সাবেক ঔপনিবেশিক শক্তি পর্তুগাল এবং সমুদ্রের আইন সম্পর্কিত জাতিসংঘের কনভেনশনকে অনুসরণ করে দাবি করে যে বিভাজন রেখা দুটি দেশের মাঝপথে হওয়া উচিত।

এটি ২০১৩ সালে প্রকাশ হয়েছিল যে, অস্ট্রেলীয় গোপন গোয়েন্দা সংস্থা (এএসআইএস) গ্রেটার সানরাইজ তেল এবং গ্যাস ক্ষেত্রের বিষয়ে আলোচনার সময় পূর্ব তিমুরীয় সরকারের কথা শোনার জন্য আড়িপাতার যন্ত্র লাগিয়েছিল। এটি অস্ট্রেলিয়া–পূর্ব তিমুর গুপ্তচরবৃত্তি কেলেঙ্কারি নামে পরিচিত।[১২০]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

গ্রন্থপঞ্জি[সম্পাদনা]

  • Cashmore, Ellis (১৯৮৮)। Dictionary of Race and Ethnic Relations। New York: Routledge। এএসআইএন B000NPHGX6 
  • Charny, Israel W. (সম্পাদক)। Encyclopedia of Genocide1। Santa Barbara, California: ABC-Clio। আইএসবিএন 0-87436-928-2 
  • Dunn, James (১৯৯৬)। East Timor: A People Betrayed। Sydney: Australian Broadcasting Corporation। 
  • Durand, Frédéric (২০০৬)। East Timor: A Country at the Crossroads of Asia and the Pacific, a Geo-Historical Atlas। Chiang Mai: Silkworm Books। আইএসবিএন 9749575989 
  • Durand, Frédéric (২০১৬)। History of Timor Leste। Chiang Mai: Silkworm Books। আইএসবিএন 978-616-215-124-8 
  • Groshong, Daniel J (২০০৬)। Timor-Leste: Land of Discovery। Hong Kong: Tayo Photo Group। আইএসবিএন 988987640X 
  • Gunn, Geoffrey C. (১৯৯৯)। Timor Loro Sae: 500 Years। Macau: Livros do Oriente। আইএসবিএন 972-9418-69-1 
  • Hägerdal, Hans (২০১২)। Lords of the Land, Lords of the Sea: Conflict and Adaptation in Early Colonial Timor, 1600-1800। Leiden: KITLV Press। hdl:20.500.12657/34566অবাধে প্রবেশযোগ্যআইএসবিএন 978-90-6718-378-9ডিওআই:10.26530/oapen_408241অবাধে প্রবেশযোগ্য – Oapen-এর মাধ্যমে। 
  • Kingsbury, Damien; Leach, Michael (২০০৭)। East Timor: Beyond Independence। Monash Papers on Southeast Asia, no 65। Clayton, Vic: Monash University Press। আইএসবিএন 9781876924492 
  • Hill, H; Saldanha, J, সম্পাদকগণ (২০০২)। East Timor: Development Challenges for the World's Newest Nation। London: Palgrave Macmillan UK। আইএসবিএন 978-0-333-98716-2 
  • Leach, Michael; Kingsbury, Damien, সম্পাদকগণ (২০১৩)। The Politics of Timor-Leste: Democratic Consolidation After Intervention। Studies on Southeast Asia, no 59। Ithaca, NY: Cornell University, Southeast Asia Program Publications। আইএসবিএন 9780877277897 
  • Levinson, David (১৯৯৮)। Ethnic Relations: A Cross-Cultural Encyclopedia। Santa Barbara, California: ABC-Clio। 
  • Molnar, Andrea Katalin (২০১০)। Timor Leste: Politics, History, and Culture। Routledge Contemporary Southeast Asia series, 27। London; New York: Routledge। আইএসবিএন 9780415778862 
  • Rudolph, Joseph R., সম্পাদক (২০০৩)। Encyclopedia of Modern Ethnic Conflicts। Westport, Connecticut: Greenwood Press। পৃষ্ঠা 101–106। আইএসবিএন 0-313-01574-0 
  • Shelton, Dinah L., সম্পাদক (২০০৫)। Encyclopedia of Genocide and Crimes Against Humanity। Detroit: Thompson Gale। 
  • Taylor, John G. (১৯৯৯)। East Timor: The Price of Freedom। Annandale: Pluto Press। আইএসবিএন 978-1-85649-840-1 
  • Viegas, Susana de Matos; Feijó, Rui Graça, সম্পাদকগণ (২০১৭)। Transformations in Independent Timor-Leste: Dynamics of Social and Cultural Cohabitations। London: Routledge। আইএসবিএন 9781315534992 
  • Berlie, Jean A. (২০০১)। East Timor: A Bibliography। Paris: Indes savantes। আইএসবিএন 2-84654-012-8 , a bibliographic reference, launched by PM Xanana Gusmão
  • East Timor, politics and elections (in Chinese)/ 东帝汶政治与选举 (2001–2006): 国家建设及前景展望, Jean A. Berlie, Institute of Southeast Asian Studies of Jinan University editor, Jinan, China, published in 2007.
  • Lundahl, Mats; Sjöholm, Fredrik (২০১৯)। The Creation of the East Timorese Economy1–2। Cham: Springer। 

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Nationality, Citizenship, and Religion"। Government of Timor-Leste। ২৫ অক্টোবর ২০১৫। ১৪ জুলাই ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জানুয়ারি ২০২০ 
  2. Hicks, David (১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৪)। Rhetoric and the Decolonization and Recolonization of East Timor। Routledge। আইএসবিএন 9781317695356 – Google Books-এর মাধ্যমে। 
  3. Adelman, Howard (২৮ জুন ২০১১)। No Return, No Refuge: Rites and Rights in Minority Repatriation। Columbia University Press। আইএসবিএন 9780231526906 – Google Books-এর মাধ্যমে। 
  4. Shoesmith, Dennis (মার্চ–এপ্রিল ২০০৩)। "Timor-Leste: Divided Leadership in a Semi-Presidential System"Asian Survey43 (2): 231–252। আইএসএসএন 0004-4687ওসিএলসি 905451085ডিওআই:10.1525/as.2003.43.2.231The semi-presidential system in the new state of Timor-Leste has institutionalized a political struggle between the president, Xanana Gusmão, and the prime minister, Mari Alkatiri. This has polarized political alliances and threatens the viability of the new state. This paper explains the ideological divisions and the history of rivalry between these two key political actors. The adoption of Marxism by Fretilin in 1977 led to Gusmão's repudiation of the party in the 1980s and his decision to remove Falintil, the guerrilla movement, from Fretilin control. The power struggle between the two leaders is then examined in the transition to independence. This includes an account of the politicization of the defense and police forces and attempts by Minister of Internal Administration Rogério Lobato to use disaffected Falintil veterans as a counterforce to the Gusmão loyalists in the army. The December 4, 2002, Dili riots are explained in the context of this political struggle. 
  5. "East Timor Geography"www.easttimorgovernment.com 
  6. "Population by Age & Sex"। Government of Timor-Leste। ২৫ অক্টোবর ২০১৫। ২৫ জানুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জানুয়ারি ২০২০ 
  7. "Report for Selected Countries and Subjects"www.imf.org। সংগ্রহের তারিখ ৪ মে ২০১৯ 
  8. "Gini Index coefficient"। CIA World Factbook। সংগ্রহের তারিখ ১৬ জুলাই ২০২১ 
  9. Human Development Report 2020 The Next Frontier: Human Development and the Anthropocene (PDF)। United Nations Development Programme। ১৫ ডিসেম্বর ২০২০। পৃষ্ঠা 343–346। আইএসবিএন 978-92-1-126442-5। সংগ্রহের তারিখ ১৬ ডিসেম্বর ২০২০ 
  10. "tetun.org"tetun.org 
  11. "UNGEGN list of country names" (PDF)United Nations Group of Experts on Geographical Names। ২–৬ মে ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০১৬ 
  12. "Constituição da República Democrática de Timor" (PDF)Government of Timor-Leste। সংগ্রহের তারিখ ২ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  13. "Konstituisaun Repúblika Demokrátika Timór-Leste" (PDF)Government of Timor-Leste। সংগ্রহের তারিখ ২ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  14. United Nations General Assembly। "Unanumous Assembly Decision Makes Timor-Leste 191st United Nations Member State"United Nations Meetings Coverage and Press ReleasesUnited Nations। সংগ্রহের তারিখ ২১ জুন ২০২০ 
  15. Taylor-Leech, Kerry (২০০৯)। "The language situation in Timor-Leste"। Current Issues in Language Planning10 (1): 1–68। এসটুসিআইডি 146270920ডিওআই:10.1080/14664200802339840 
  16. East Timor Bid to Join ASEAN Wins 'Strong Support'[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ], Bangkok Post, date: 31 January 2011.
  17. Cavanaugh, Ray (২৪ এপ্রিল ২০১৯)। "Timor-Leste: A young nation with strong faith and heavy burdens"The Catholic World Report 
  18. Bada, Ferdinand (২৯ আগস্ট ২০১৯)। "Countries Located Completely in the Southern Hemisphere"www.worldatlas.com 
  19. "Constitution of the Democratic Republic of Timor-Leste" (PDF)Government of Timor-Leste। সংগ্রহের তারিখ ২ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  20. "United Nations Member States"। United Nations। ২৪ অক্টোবর ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  21. "US Department of State: Timor-Leste"। State.gov। ২০ জানুয়ারি ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ২৮ মার্চ ২০১০ 
  22. "CIA World Factbook"। US Govt.। ১ জুলাই ২০১৪। 
  23. Marwick, Ben; Clarkson, Chris; O'Connor, Sue; Collins, Sophie (ডিসেম্বর ২০১৬)। "Early modern human lithic technology from Jerimalai, East Timor"Journal of Human Evolution (Submitted manuscript)। 101: 45–64। ডিওআই:10.1016/j.jhevol.2016.09.004পিএমআইডি 27886810 
  24. "Lesson 1 (First Part): Population Settlements in East Timor and Indonesia"University of Coimbra। ১৯৯৯-০২-০২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  25. "About Timor-Leste > Brief History of Timor-Leste: A History"Timor-Leste.gov.tl। ২৯ অক্টোবর ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  26. Taylor, Jean Gelman (২০০৩)। Indonesia: Peoples and Historiesবিনামূল্যে নিবন্ধন প্রয়োজন। New Haven and London: Yale University Press। পৃষ্ঠা 378আইএসবিএন 978-0-300-10518-6 
  27. Pigafetta, Antonio (1969) [1524]. "First voyage around the world". Translated by J.A. Robertson. Manila: Filipiniana Book Guild.
  28. The former sultan of Malacca decided to retake his city from the Portuguese with a fleet of ships from Lusung in 1525 A.D., SOURCE: Barros, Joao de, Decada terciera de Asia de Ioano de Barros dos feitos que os Portugueses fezarao no descubrimiento dos mares e terras de Oriente [1628], Lisbon, 1777, courtesy of William Henry Scott, Barangay: Sixteenth-Century Philippine Culture and Society, Quezon City: Ateneo de Manila University Press, 1994, page 194.
  29. "The Portuguese Colonization and the Problem of East Timorese Nationalism"। ২৩ নভেম্বর ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  30. Deeley, Neil (২০০১)। The International Boundaries of East Timor। পৃষ্ঠা 8। 
  31. Schwarz, A. (১৯৯৪)। A Nation in Waiting: Indonesia in the 1990s। Westview Press। পৃষ্ঠা 198আইএসবিএন 978-1-86373-635-0 
  32. Damier, Vadim; Limanov, Kirill (২০১৯)। "Portuguese Anarchist in the 'Tropical Siberia'"Latin-American Historical Almanac22 (1): 78–106। এসটুসিআইডি 200077700ডিওআই:10.32608/2305-8773-2019-22-1-78-106 
  33. "Department of Defence (Australia), 2002, "A Short History of East Timor""। ৩ জানুয়ারি ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ জানুয়ারি ২০০৭  Access date: 3 January 2007.
  34. Ricklefs, M. C. (১৯৯১)। A History of Modern Indonesia since c.1300, Second Edition। MacMillan। পৃষ্ঠা 301। আইএসবিএন 978-0-333-57689-2 
  35. Jardine, pp. 50–51.
  36. "Official Web Gateway to the Government of Timor-Leste – Districts"। Government of the Democratic Republic of Timor-Leste। ২১ মার্চ ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ জুলাই ২০১১ 
  37. "The United Nations and Decolonization"www.un.org 
  38. Benetech Human Rights Data Analysis Group (৯ ফেব্রুয়ারি ২০০৬)। "The Profile of Human Rights Violations in Timor-Leste, 1974–1999"A Report to the Commission on Reception, Truth and Reconciliation of Timor-Leste। Human Rights Data Analysis Group (HRDAG)। পৃষ্ঠা 2–4। ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  39. United States Congress House Committee on International Relations Subcommittee on Asia and the Pacific; United States Congress Senate Committee on Foreign Relations Subcommittee on East Asian and Pacific Affairs (২০০০)। East Timor: A New Beginning? : Joint Hearing Before the Subcommittee on Asia and the Pacific of the Committee on International Relations, House of Representatives, and the Subcommittee on East Asian and Pacific Affairs of the Committee on Foreign Relations, United States Senate, One Hundred Sixth Congress, Second Session, February 10, 2000 (ইংরেজি ভাষায়)। U.S. Government Printing Office। পৃষ্ঠা 51–53। আইএসবিএন 9780160607820। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুলাই ২০২০ 
  40. "One Man's Legacy in East Timor"thediplomat.com। সংগ্রহের তারিখ ৩০ মে ২০২০ 
  41. "UNITED NATIONS TRANSITIONAL ADMINISTRATION IN EAST TIMOR – UNTAET"। United Nations। সংগ্রহের তারিখ ১৭ জুলাই ২০১১ 
  42. Etan/Us (১৫ ফেব্রুয়ারি ২০০০)। "UN takes over East Timor command"। Etan.org। সংগ্রহের তারিখ ১৭ জুলাই ২০১১ 
  43. Security Council (৩১ অক্টোবর ২০০১)। "Council Endorses Proposal to Declare East Timor's Independence 20 May 2002"United Nations (সংবাদ বিজ্ঞপ্তি)। সংগ্রহের তারিখ ২ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  44. "Unanimous Assembly decision makes Timor-Leste 191st United Nations member state" (সংবাদ বিজ্ঞপ্তি)। United Nations। ২৭ সেপ্টেম্বর ২০০২। সংগ্রহের তারিখ ২ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  45. "Unanimous Assembly decision makes Timor-Leste 191st United Nations member state" (সংবাদ বিজ্ঞপ্তি)। United Nations। ২৭ সেপ্টেম্বর ২০০২। সংগ্রহের তারিখ ২ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  46. "UN wraps up East Timor mission"ABC News। ৩০ ডিসেম্বর ২০১২। 
  47. "The World Heritage Convention has entered into force for Timor-Leste"UNESCO World Heritage Centre (ইংরেজি ভাষায়)। ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ৪ মে ২০১৯ 
  48. Cruz, Nelson de la (২২ জুন ২০১৮)। "New East Timor PM pledges to bring unity after political deadlock"Reuters – www.reuters.com-এর মাধ্যমে। 
  49. "Diploma Ministerial No:199/GM/MAEOT/IX/09 de 15 de Setembro de 2009 Que fixa o número de Sucos e Aldeias em Território Nacional Exposição de motivos" (PDF), Jornal da Républica, Série I, N.° 33, 16 de Setembro de 2009, 3588-3620, ১ মার্চ ২০১২ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা 
  50. Population and Housing Census 2015, Preliminary Results (PDF), Direcção-Geral de Estatística, সংগ্রহের তারিখ ১৫ জানুয়ারি ২০১৮ 
  51. "Lei N.º 3/2014 de 18 de Junho Cria a Região Administrativa Especial de Oe-Cusse Ambeno e estabelece a Zona Especial de Economia Social de Mercado" (PDF), Jornal da República, Série I, N.° 21, 18 de Junho de 2014, 7334-7341 
  52. "United Nations"। United Nations। ২ এপ্রিল ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ মার্চ ২০১০ 
  53. Exclusive Economic Zones – Sea Around Us Project – Fisheries, Ecosystems & Biodiversity – Data and Visualization.
  54. "Mount Ramelau"। Gunung Bagging। ১০ এপ্রিল ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১৮ ডিসেম্বর ২০১৬ 
  55. "Nino Konis Santana National Park declared as Timor-Leste's (formerly East Timor) first national park"Petside। Wildlife Extra। 
  56. Norwegian energy and Water Resources Directorate (NVE) (2004), Iralalaro Hydropower Project Environmental Assessment
  57. "ReefGIS – Reefs At Risk – Global 1998"। Reefgis.reefbase.org। সংগ্রহের তারিখ ২৮ মার্চ ২০১০ 
  58. Dinerstein, Eric; Olson, David; Joshi, Anup; Vynne, Carly; Burgess, Neil D.; Wikramanayake, Eric; Hahn, Nathan; Palminteri, Suzanne; Hedao, Prashant; Noss, Reed; Hansen, Matt; Locke, Harvey; Ellis, Erle C; Jones, Benjamin; Barber, Charles Victor; Hayes, Randy; Kormos, Cyril; Martin, Vance; Crist, Eileen; Sechrest, Wes; Price, Lori; Baillie, Jonathan E. M.; Weeden, Don; Suckling, Kierán; Davis, Crystal; Sizer, Nigel; Moore, Rebecca; Thau, David; Birch, Tanya; Potapov, Peter; Turubanova, Svetlana; Tyukavina, Alexandra; de Souza, Nadia; Pintea, Lilian; Brito, José C.; Llewellyn, Othman A.; Miller, Anthony G.; Patzelt, Annette; Ghazanfar, Shahina A.; Timberlake, Jonathan; Klöser, Heinz; Shennan-Farpón, Yara; Kindt, Roeland; Lillesø, Jens-Peter Barnekow; van Breugel, Paulo; Graudal, Lars; Voge, Maianna; Al-Shammari, Khalaf F.; Saleem, Muhammad (২০১৭)। "An Ecoregion-Based Approach to Protecting Half the Terrestrial Realm"BioScience67 (6): 534–545। আইএসএসএন 0006-3568ডিওআই:10.1093/biosci/bix014অবাধে প্রবেশযোগ্যপিএমআইডি 28608869পিএমসি 5451287অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  59. Grantham, H. S.; Duncan, A.; Evans, T. D.; Jones, K. R.; Beyer, H. L.; Schuster, R.; Walston, J.; Ray, J. C.; Robinson, J. G.; Callow, M.; Clements, T.; Costa, H. M.; DeGemmis, A.; Elsen, P. R.; Ervin, J.; Franco, P.; Goldman, E.; Goetz, S.; Hansen, A.; Hofsvang, E.; Jantz, P.; Jupiter, S.; Kang, A.; Langhammer, P.; Laurance, W. F.; Lieberman, S.; Linkie, M.; Malhi, Y.; Maxwell, S.; Mendez, M.; Mittermeier, R.; Murray, N. J.; Possingham, H.; Radachowsky, J.; Saatchi, S.; Samper, C.; Silverman, J.; Shapiro, A.; Strassburg, B.; Stevens, T.; Stokes, E.; Taylor, R.; Tear, T.; Tizard, R.; Venter, O.; Visconti, P.; Wang, S.; Watson, J. E. M. (২০২০)। "Anthropogenic modification of forests means only 40% of remaining forests have high ecosystem integrity - Supplementary Material"Nature Communications11 (1): 5978। আইএসএসএন 2041-1723ডিওআই:10.1038/s41467-020-19493-3অবাধে প্রবেশযোগ্যপিএমআইডি 33293507 |pmid= এর মান পরীক্ষা করুন (সাহায্য)পিএমসি 7723057অবাধে প্রবেশযোগ্য |pmc= এর মান পরীক্ষা করুন (সাহায্য) 
  60. de Brouwer, Gordon (২০০১), Hill, Hal; Saldanha, João M., সম্পাদকগণ, East Timor: Development Challenges For The World's Newest Nation, Canberra, Australia: Asia Pacific Press, পৃষ্ঠা 39–51, আইএসবিএন 978-0-3339-8716-2 
  61. "Timor-Leste's Economy Remains Strong, Prospects for Private Sector Development Strengthened"। Asian Development Bank। ৯ মার্চ ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  62. Schonhardt, Sara (১৯ এপ্রিল ২০১২)। "Former Army Chief Elected President in East Timor"The New York Times 
  63. "Observers divided over oil fund investment"। IRIN Asia। ১৮ অক্টোবর ২০১১। 
  64. "Article IV Consultation with the Democratic Republic of Timor-Leste"। IMF। 
  65. "East Timor axes Australia border treaty over oil reserves"BBC News। BBC UK। ১০ জানুয়ারি ২০১৭। 
  66. "U.S. Relations With Timor-Leste"। U.S. Department of State। ৩ জুলাই ২০১২। 
  67. "Doing Business in Timor-Leste"। World Bank। ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ 
  68. "NRI Overall Ranking 2014" (PDF)। World Economic Forum। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জুন ২০১৪ 
  69. "TIMOR GAP TREATY between Australia and the Republic of Indonesia ..."। Agreements, Treaties and Negotiated Settlements Project। ১৬ জুন ২০০৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ 
  70. "The Timor Sea Treaty: Are the Issues Resolved?"। Aph.gov.au। ৪ জুন ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ জুলাই ২০১১ 
  71. Geoff A. McKee। "McKee: How much is Sunrise really worth?: True Value of a Timor Sea Gas Resource (26 Mar 05)"। Canb.auug.org.au। সংগ্রহের তারিখ ১৭ জুলাই ২০১১ 
  72. "Prime Minister and Cabinet, Timor-Leste Government – Media Releases"। Pm.gov.tp। ১৫ জুন ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ জুলাই ২০১১ 
  73. Australian Broadcasting Corporation (৫ ডিসেম্বর ২০১৩)। "East Timor spying case: PM Xanana Gusmao calls for Australia to explain itself over ASIO raids"Australian Broadcasting Corporation 
  74. "Gazetteer – Patents"। Billanderson.com.au। সংগ্রহের তারিখ ২৮ মার্চ ২০১০ 
  75. "The World Factbook"Cia.gov। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জানুয়ারি ২০১৮ 
  76. "Government of Timor-Leste"Timor-leste.gov.tl। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জানুয়ারি ২০১৮ 
  77. Dickson, Paul (২০০৬)। Labels for Locals: What to Call People from Abilene to Zimbabwe। Collins। আইএসবিএন 978-0-06-088164-1 
  78. "The International Thesaurus of Refugee Terminology"। UNHCR & FMO। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জানুয়ারি ২০১৮ 
  79. "Maubere" article at the German Wikipedia.
  80. Fox, James J.; Soares, Dionisio Babo (২০০০)। Out of the Ashes: Destruction and Reconstruction of East Timor। C. Hurst। পৃষ্ঠা 60। আইএসবিএন 978-1-85065-554-1 
  81. Taylor, Jean Gelman (২০০৩)। Indonesia: Peoples and Histories। Yale University Press। পৃষ্ঠা 378আইএসবিএন 978-0-300-10518-6 
  82. Constâncio Pinto; Matthew Jardine (১৯৯৭)। East Timor's Unfinished Struggle: Inside the East Timorese Resistance। South End Press। পৃষ্ঠা 263। আইএসবিএন 978-0-89608-541-1 
  83. "Relations with a new nation, How far South East is New Delhi prepared to go?"www.etan.org। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৬-২২ 
  84. Ramos-Horta, J. (২০ এপ্রিল ২০১২)। "Timor Leste, Tetum, Portuguese, Bahasa Indonesia or English?"The Jakarta Post (ইংরেজি ভাষায়)। 
  85. Taylor, Jean Gelman (২০০৩)। Indonesia: Peoples and Histories। Yale University Press। পৃষ্ঠা 378আইএসবিএন 978-0-300-10518-6 
  86. Gross, Max L. (১৪ ফেব্রুয়ারি ২০০৮)। A Muslim Archipelago: Islam and Politics in Southeast Asia: Islam and Politics in Southeast Asia। Government Printing Office। পৃষ্ঠা 119। আইএসবিএন 978-0-16-086920-4 
  87. Paulino, Vicente (২০১২)। "Remembering the Portuguese Presence in Timor and Its Contribution to the Making of Timor's National and Cultural Identity"Portuguese and Luso-Asian Legacies in Southeast Asia, 1511–2011। Institute of Southeast Asian Studies। পৃষ্ঠা 106। আইএসবিএন 978-981-4345-50-7 
  88. Bivona, Kristal। "East Timor Pumps Up Portuguese"Language Magazine। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জানুয়ারি ২০১৮ 
  89. Fernandes, Neila। "Longuinhos pede a académicos que utilizem a língua portuguesa na transmissão de conhecimento"Tatoli। সংগ্রহের তারিখ ৯ মে ২০২১ 
  90. "Estados Membros"। União Latina। 
  91. "Languages of East Timor"। Ethnologue। 
  92. "Interactive Atlas of the World's Languages in Danger"। UNESCO। 
  93. "National adult literacy rates (15+), youth literacy rates (15–24) and elderly literacy rates (65+)"। UNESCO Institute for Statistics। 
  94. Roslyn Appleby (৩০ আগস্ট ২০১০)। ELT, Gender and International Development: Myths of Progress in a Neocolonial World। Multilingual Matters। পৃষ্ঠা 92। আইএসবিএন 978-1-84769-303-7 
  95. Robinson, G. If you leave us here, we will die, Princeton University Press 2010, p. 72.
  96. "Table 5.7 – Profile Of Students That Attended The 2004/05 Academic Year By Rural And Urban Areas And By District"। Direcção Nacional de Estatística। ১৪ নভেম্বর ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  97. "Timor-Leste: Demographic and Health Survey, 2016" (PDF)। General Directorate of Statistics, Ministry of Planning and Finance & Ministry of Health। পৃষ্ঠা 35। সংগ্রহের তারিখ ২১ এপ্রিল ২০১৮ 
  98. Taylor, Jean Gelman (২০০৩)। Indonesia: Peoples and Histories। Yale University Press। পৃষ্ঠা 381আইএসবিএন 978-0-300-10518-6 
  99. Head, Jonathan (৫ এপ্রিল ২০০৫)। "East Timor mourns 'catalyst' Pope"BBC News 
  100. Hajek, John; Tilman, Alexandre Vital (১ অক্টোবর ২০০১)। East Timor Phrasebook। Lonely Planet। পৃষ্ঠা 56আইএসবিএন 978-1-74059-020-4 
  101. East Timor slowly rises from the ashes ETAN 21 September 2001 Online at etan.org.
  102. International Religious Freedom Report 2007: Timor-Leste.
  103. "Constitution of the Democratic Republic of Timor-Leste" (PDF)। Governo de Timor-Leste। 
  104. "Pope Benedict XVI erects new diocese in East Timor"। Catholic News Agency। 
  105. Wise, Amanda (২০০৬)। Exile and Return Among the East Timorese। University of Pennsylvania Press। পৃষ্ঠা 211–218। আইএসবিএন 978-0-8122-3909-6 
  106. "Timor-Leste – Memory of the World Register – United Nations Educational, Scientific and Cultural Organization"www.unesco.org "Timor-Leste – Memory of the World Register – United Nations Educational, Scientific and Cultural Organization". www.unesco.org.
  107. "Literatura timorense em língua portuguesa"lusofonia.x10.mx (পর্তুগিজ ভাষায়)। ২০১৯-০৯-২৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  108. "East Timor's president accepts Xanana Gusmao's resignation"ABC News (ইংরেজি ভাষায়)। ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২২ জানুয়ারি ২০১৭ 
  109. NFSA provides insight into Timor-Leste history on nfsa.gov.au
  110. A connection with Timor-Leste on nfsa.gov.au
  111. "Fresh start for East Timor's film scene"Sydney Morning Herald। সংগ্রহের তারিখ ৩ অক্টোবর ২০১৩ 
  112. "Abdul & José EN (2017)"FIFO Tahiti [fr]। Association FIFO। সংগ্রহের তারিখ ১০ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  113. ETAN; Media ONE Timor (২৫ জুলাই ২০১৭)। "The Stolen Child New Documentary"Media ONE Timor। MediaONETimor.com। ১১ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  114. "Ema Nudar Umanu"MIFF। Melbourne International Film Festival। সংগ্রহের তারিখ ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  115. Madra, Ek (৩০ অক্টোবর ২০০৮)। "World's worst football team happy to win first point"Reuters। সংগ্রহের তারিখ ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ Madra, Ek (30 October 2008).
  116. "Thomas Americo – BoxRec"boxrec.com "Thomas Americo – BoxRec". boxrec.com.
  117. Neto, Octávio Amorim; Lobo, Marina Costa (২০১০)। "Between Constitutional Diffusion and Local Politics: Semi-Presidentialism in Portuguese-Speaking Countries" (PDF)এসএসআরএন 1644026অবাধে প্রবেশযোগ্য। সংগ্রহের তারিখ ২৫ আগস্ট ২০১৭ 
  118. "East Timor aims to join ASEAN"। Investvine। ৩০ ডিসেম্বর ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ৩০ ডিসেম্বর ২০১২ 
  119. Richard Baker (২১ এপ্রিল ২০০৭)। "New Timor treaty 'a failure'"Theage.com.au। The Age Company Ltd। সংগ্রহের তারিখ ৩ জানুয়ারি ২০১০ Richard Baker (21 April 2007).
  120. "Timor-Leste activists 'shocked' by Australia's prosecution of spy Witness K and lawyer"The Guardian। ২১ জুলাই ২০১৮। "Timor-Leste activists 'shocked' by Australia's prosecution of spy Witness K and lawyer".

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

সরকার

সাধারণ তথ্য