চাদ

স্থানাঙ্ক: ১৫°২৮′০.০১″ উত্তর ১৯°২৪′০.০০″ পূর্ব / ১৫.৪৬৬৬৬৯৪° উত্তর ১৯.৪০০০০০০° পূর্ব / 15.4666694; 19.4000000
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে


চাদ প্রজাতন্ত্র

جمهورية تشاد ‎(আরবি)

République du Tchad (ফরাসি)
চাদের জাতীয় পতাকা
পতাকা
চাদের কোট অফ আর্মস
কোট অফ আর্মস
নীতিবাক্য: "Unité, Travail, Progrès"  (ফরাসি)
"ঐক্য, কর্ম, প্রগতি"
(বাংলা)
জাতীয় সঙ্গীত: লা চাদিয়েন
 চাদ-এর অবস্থান (dark green)
 চাদ-এর অবস্থান (dark green)
চাদের অবস্থান
রাজধানী
ও বৃহত্তম নগরী বা বসতি
এনজামিনা
১২°০৬′ উত্তর ১৬°০২′ পূর্ব / ১২.১০০° উত্তর ১৬.০৩৩° পূর্ব / 12.100; 16.033
সরকারি ভাষা
নৃগোষ্ঠী
(২০০৯ শুমারী[১])
  • ২৬.৬% সারা
  • ১২.৯% আরব
  • ৮.৫% কানেম্বু
  • ৭.২% মাসালিট
  • ৬.৯.% তোবো
  • ৪.৮% মাসা
  • ৩.৭% বিদিয়ো
  • ৩.৭% বুলালা
  • ৩.০.% মাবা
  • ২.৬% দাজু
  • ২.৫% মুনদাং
  • ২.৪% গাবরি
  • ২.৪% জাঘাওয়া
  • ২.১% ফুলা
  • ২.০% তুপুরি
  • ১.৬% তামা
  • ১.৪% কারো
  • ১.৩% বাগির্মি
  • ১.০% মাস'মাজে
  • ২.৬% অন্যান্য চাদীয় গোষ্ঠী
  • ০.৭% বিদেশি ভাষা
ধর্ম
(২০১৫)
জাতীয়তাসূচক বিশেষণচাদীয়
সরকারএককেন্দ্রিক সেনাবাহিনী শাসন
• রাষ্ট্রপতি
মোহামাত ডেবি
• প্রধানমন্ত্রী
আলবার্ট পাহিমি পাদাস্কে
আইন-সভাঅন্তর্বর্তীকালীন সেনাবাহিনী কাউন্সিল[২][৩]
স্বাধীনতা
• প্রজাতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত
২৮ নভেম্বর ১৯৫৮
• ফ্রান্স থেকে
১১ই আগস্ট ১৯৬০
আয়তন
• মোট
১২,৮৪,০০০ কিমি (৪,৯৬,০০০ মা)[৪] (২০শ)
• পানি/জল (%)
১.৯
জনসংখ্যা
• ২০২০ আনুমানিক
১,৬২,৪৪,৫১৩[৫] (৭০ তম)
• ২০০৯ আদমশুমারি
১,১০,৩৯,৮৭৩[৬]
• ঘনত্ব
৮.৬ /কিমি (২২.৩ /বর্গমাইল)
জিডিপি (পিপিপি)২০১৮ আনুমানিক
• মোট
$৩০ বিলিয়ন[৭] (১২৩ তম)
• মাথাপিছু
২,৪২৮ ডলার[৭] (১৬৮ তম)
জিডিপি (মনোনীত)২০১৮ আনুমানিক
• মোট
$১১ বিলিয়ন[৭] (১৩০ তম)
• মাথাপিছু
$৮৯০[৭] (১৫১ তম)
জিনি (২০১১)৪৩.৩[৮]
মাধ্যম
মানব উন্নয়ন সূচক (২০১৯)হ্রাস ০.৩৯৮[৯]
নিম্ন · ১৮৭তম
মুদ্রামধ্য আফ্রিকান সিএফএ ফ্রাংক (এক্সএএফ)
সময় অঞ্চলইউটিসি+১ (পশ্চিম আফ্রিকার সময়)
কলিং কোড+২৩৫
ইন্টারনেট টিএলডি.টিডি

চাদ (ফরাসি: Tchad, আরবি: تشاد‎‎), সরকারি নাম চাদ প্রজাতন্ত্র, মধ্য আফ্রিকার একটি স্থলবেষ্টিত রাষ্ট্র। এর উত্তরে লিবিয়া, পূর্বে সুদান, দক্ষিণে মধ্য আফ্রিকান প্রজাতন্ত্র, দক্ষিণ-পশ্চিমে ক্যামেরুননাইজেরিয়া, এবং পশ্চিমে নাইজার। সমুদ্র থেকে দূরে অবস্থিত বলে এবং মরু জলবায়ুর কারণে চাদকে "আফ্রিকার মৃত হৃদয়" বলেও মাঝে মাঝে অভিহিত করা হয়।

চাদকে বাংলা ভাষা রীতিগত পরিবর্তনের কারণে শাদ বলেও অভিহিত করা হয়। চাদকে তিনটি ভৌগোলিক অঞ্চলে ভাগ করা যায়: উত্তরের সাহারা মরুভূমি অঞ্চল, মধ্যভাগের ঊষর সহিলীয় বেষ্টনী, এবং দক্ষিণের অপেক্ষাকৃত উর্বর সুদানীয় সাভানা তৃণভূমি অঞ্চল। চাদ হ্রদ দেশটির বৃহত্তম এবং আফ্রিকার দ্বিতীয় বৃহত্তম জলাশয়। এই হ্রদের নামের দেশটির চাদ নামকরণ করা হয়েছে। সাহারা অঞ্চলে অবস্থিত তিবেস্তি পর্বতমালার এমি কৌসি চাদের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ। রাজধানী এনজামেনা দেশটির বৃহত্তম শহর। চাদে ২০০ বেশি ধরনের জাতিগত ও ভাষাভিত্তিক গোষ্ঠীর বাস। ফরাসি ও আরবি এখানকার সরকারি ভাষা। ইসলাম ও খ্রিস্টধর্ম এখানে সবচেয়ে বেশি প্রচলিত।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

খ্রিস্টপূর্ব ৭ম সহস্রাব্দের শুরুতে চাদ উপত্যকাতে বড় আকারের মনুষ্য বসতি স্থাপিত হয়। খ্রিস্টপূর্ব ১ম সহস্রাব্দ নাগাদ চাদের সহিলীয় অঞ্চলটিতে বহু রাজ্য ও সাম্রাজ্যের উত্থান-পতন ঘটে; চাদের মধ্য দিয়ে চলে যাওয়া আন্তঃসাহারান বাণিজ্যপথটি নিয়ন্ত্রণ করাই ছিল এগুলির লক্ষ্য। ১৯২০ সাল নাগাদ ফ্রান্স দেশটি দখল করে এবং এটিকে ফরাসি বিষুবীয় আফ্রিকার অংশীভূত করে। ১৯৬০ সালে ফ্রঁসোয়া তোম্বালবাইয়ের নেতৃত্বে চাদ স্বাধীনতা অর্জন করে। কিন্তু মুসলিম-অধ্যুষিত উত্তরাঞ্চল তোম্বালবাইয়ের নীতির বিরোধিতা করে এবং ১৯৬৫ সালে দেশটিতে গৃহযুদ্ধ শুরু হয়। ১৯৭৯ সালে বিপ্লবীরা রাজধানী দখল করে এবং দক্ষিণের আধিপত্যের অবসান ঘটায়। কিন্তু বিপ্লবী নেতারা অন্তর্কোন্দলে জড়িয়ে পড়ে; শেষ পর্যন্ত ইসেনে আব্রে তার প্রতিদ্বন্দ্বীদের পরাজিত করেন। ১৯৯০ সালে তারই সামরিক জেনারেল ইদ্রিস দেবি তাকে ক্ষমতাচ্যুত করেন। সাম্প্রতিক সময়ে সুদানের দারফুর সংকট সীমানা পেরিয়ে চাদেও সংক্রমিত হয়েছে এবং যুদ্ধ শুরু হয়ে দেশটিতে একটি অস্থিতিশীল অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

চাদে অনেকগুলি রাজনৈতিক দল থাকলেও রাষ্ট্রপতি দেবি ও তার রাজনৈতিক দল পেট্রিয়টিক স্যালভেশন মুভমেন্ট ক্ষমতা কুক্ষিগত করে রেখেছেন। রাজনৈতিক সহিংসতা ও অভ্যুত্থান বা কু-এর ঘটনা চাদের রাজনীতিকে জর্জরিত করে রেখেছে। এটি বিশ্বের সবচেয়ে দরিদ্র ও দুর্নীতিগ্রস্ত দেশগুলির একটি। বেশির চাদীয় নাগরিক দিনমজুরি ও কৃষিকাজ করেন। ঐতিহ্যবাহী তুলা শিল্প একদা দেশের প্রধান রপ্তানিকারী শিল্প হলেও ২০০৩ থেকে খনিজ তেল দেশটির রপ্তানি আয়ের প্রধান উৎস।

রাজনীতি[সম্পাদনা]

অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক বিরোধিতা, অভ্যুত্থান প্রচেষ্টা এবং গৃহযুদ্ধ সত্ত্বেও, ইদ্রিস ডেবি ১৯৯০ থেকে ২০২১ সালে তার মৃত্যুর আগ পর্যন্ত চাদ শাসন করেছেন।

প্রশাসনিক অঞ্চলসমূহ[সম্পাদনা]

ভূগোল[সম্পাদনা]

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

জনসংখ্যা[সম্পাদনা]

চাঁদ এর আয়তনের সাথে তাল মিলিয়ে এর জনসংখ্যাও বৃদ্ধি পেয়েছে ২০১৩ অনুসারে চাদ এর জনসংখ্যা দারিয়েছে ১৩,৬৭০,০৮৪ জন ভাষাসমূহ

চাদ অন্যতম সরকারি ভাষা আরবি ও ফরাসি। কিন্তু ১০০টি ভাষা এবং উপভাষা ব্যবহৃত হয়। ভ্রাম্যমাণ আরব ব্যবসায়ী ও স্থানীয় সম্প্রদায়ের বসতি স্থাপন বণিকদের চরিত্রে অভিনয় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা কারণে চাদীয় আরবি একটি রীতি হয়ে গেছে।

চাদ ধর্ম[সম্পাদনা]

চাদ ধর্মীয়ভাবে বিচিত্র দেশ। ১৯৯৩ সালের আদমশুমারী দেখা গেছে যে ৫৪% চাদীয় লোক (একটি সংরক্ষিত আসনের অনুযায়ী এগুলোর মধ্যে প্রতিবেদন ৪৮%, সুন্নি হতে নামেমাত্র ২১% শিয়া, ৪% আহমাদী এবং ২৩% শুধুমাত্র মুসলিম) মুসলিম ছিল। যখন ৩% কোন ধর্মের মুক্তকণ্ঠে করা হয়নি চাদীয় লোক এর মোটামুটিভাবে ২০%, রোমান ক্যাথলিক, ১৪% প্রোটেস্ট্যান্ট, ১০% সর্বপ্রাণবাদী হয়। এই ধর্মীয় ঐতিহ্যের মধ্যে কেউই একশিলা হয়। সর্বপ্রাণবাদ পূর্বপুরুষ এবং স্থান ভিত্তিক ধর্মের যার অভিব্যক্তি খুব নির্দিষ্টভাবে হয় বিভিন্ন অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। ইসলাম বিচিত্র উপায়ে প্রকাশ করা হয়; উদাহরণস্বরূপ, উল্লিখিত মুসলিম চাদীয় লোক আগের ৫৫% সংরক্ষিত আসনের রিপোর্ট অনুযায়ী সুফি অন্তর্গত। খ্রীষ্টধর্ম ফরাসি ও আমেরিকান মিশনারি সঙ্গে চাদ আগত; চাদীয় লোক ইসলামের সাথে হিসেবে, এটা প্রাক খৃস্টান ধর্মীয় বিশ্বাসের দিক সমগোত্রীয়। মুসলমানদের উত্তর ও পূর্ব চাদ মধ্যে মূলত কেন্দ্রীভূত এবং আধ্যাত্ববাদ এবং খ্রিস্টান দক্ষিণ চাদ প্রাথমিকভাবে বাস। সংবিধান একটি ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্রের জন্য উপলব্ধ করা হয় এবং ধর্মীয় স্বাধীনতা নিশ্চয়তা; বিভিন্ন ধর্মীয় সম্প্রদায়ের সাধারণত সমস্যা ছাড়াই সহ-বিদ্যমান।

চাদে ধর্ম অনুযায়ী লোক(পিউ রিসার্চ)[১০][১১]
religion percent
মুসলিম
  
৫৫%
খ্রিষ্টান
  
৪১%
ধর্মহীন
  
২%
ঐতিহ্যগত
  
১%
অন্যান্য
  
১%

দেশে মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ রহস্যময় ইসলাম (সুফিবাদ) একটি মধ্যপন্থী শাখার অনুগামী হয়। তার সবচেয়ে সাধারণ অভিব্যক্তি Tijaniyah, যা স্থানীয় আফ্রিকান ধর্মীয় উপাদানের অন্তর্ভুক্ত Chadian মুসলমানদের 35% দ্বারা অনুসরণ একটি আদেশ হয়। দেশের মুসলমানদের একটি ছোট সংখ্যালঘু আরও মৌলবাদী চর্চা, যা, কিছু ক্ষেত্রে, সৌদি ওরিয়েন্টেড সালাফী আন্দোলন সাথে যুক্ত হতে পারে ধরে রাখুন। [60]

রোমান ক্যাথলিক দেশের সর্ববৃহত খ্রিস্টান আখ্যা প্রতিনিধিত্ব করে। নাইজেরিয়া-ভিত্তিক "উইনার্স চ্যাপেল" সমেত অধিকাংশ প্রোটেস্ট্যান্ট, বিভিন্ন ধর্মপ্রচারক খ্রিস্টান গোষ্ঠীর সাথে জড়িত নই। বাহাই এবং যিহোবার সাক্ষিদের ধর্মীয় সম্প্রদায়ের সদস্যরা দেশের মধ্যে উপস্থিত থাকে। উভয় ধর্মের ১৯৬০ সালে স্বাধীনতার পর চালু হয় এবং এর ফলে দেশে "নতুন" ধর্মের বলে মনে করা হয়।

চাদ উভয় খ্রিস্টান ও ইসলামী দলের প্রতিনিধিত্বমূলক বিদেশী মিশনারীরা হোম। ভ্রাম্যমাণ মুসলিম প্রচারক, সুদান, সৌদি আরব, এবং পাকিস্তান থেকে প্রাথমিকভাবে, এছাড়াও এ যান। সৌদি তহবিল সাধারণত সামাজিক এবং শিক্ষা সংক্রান্ত প্রকল্প এবং ব্যাপক মসজিদ নির্মাণ সমর্থন করে। [60] দেখুন

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Analyse Thematique des Resultats Definitifs Etat et Structures de la Population"। Institut National de la Statistique, des Études Économiques et Démographiques du Tchad। ২৮ ডিসেম্বর ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ মে ২০২০ 
  2. "Chad President Idriss Deby dies on front lines, according to an army statement"Deutsche Welle। ২০ এপ্রিল ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ২০ এপ্রিল ২০২১ 
  3. "Chad Sets Up Transitional Military Council Headed By Son Of Late President – Reports"UrduPoint। সংগ্রহের তারিখ ২০ এপ্রিল ২০২১ 
  4. "Le TCHAD en bref" (ফরাসি ভাষায়)। INSEED। ২২ জুলাই ২০১৩। ২২ ডিসেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ ডিসেম্বর ২০১৫ 
  5. Projections demographiques 2009-2050 Tome 1: Niveau national (PDF) (প্রতিবেদন) (ফরাসি ভাষায়)। INSEED। জুলাই ২০১৪। পৃষ্ঠা 7। ২২ ডিসেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ ডিসেম্বর ২০১৫ 
  6. DEUXIEME RECENSEMENT GENERAL DE LA POPULATION ET DE L'HABITAT (RGPH2, 2009): RESULTATS GLOBAUX DEFINITIFS (PDF) (প্রতিবেদন) (ফরাসি ভাষায়)। INSEED। মার্চ ২০১২। পৃষ্ঠা 7। ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ ডিসেম্বর ২০১৫ 
  7. "Chad"। International Monetary Fund। 
  8. "Gini Index"। World Bank। সংগ্রহের তারিখ ১৬ এপ্রিল ২০১৭ 
  9. Human Development Report 2020 The Next Frontier: Human Development and the Anthropocene (PDF)। United Nations Development Programme। ২০২০। পৃষ্ঠা 343–346। আইএসবিএন 978-92-1-126442-5। সংগ্রহের তারিখ ১৬ ডিসেম্বর ২০২০ 
  10. CIA, "Chad", 2009
  11. Pew Research Center's Religion & Public Life Project: Chad. Pew Research Center. 2010.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

সরকারী
সাধারণ তথ্য