ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলের ইতিহাস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ব্যাকিনো দেল মেডিটেরানিও, দেল’আতলান্তে ম্যানোস্ক্রিটো দেল ১৫৮২–১৫৮৪ আনু. বিবলিওটেকা নাজিওনালে সেন্ট্রালে ভিট্টোরিও দ্বিতীয় ইমানুয়েল, রোম (কার্ট. নট. ২ - কার্ট. নট. ৬/১-২)।

ভূমধ্যসাগর হচ্ছে তিনটি মহাদেশকে ঘিরে বিভিন্ন মানুষের মধ্যে পরিবহন, বাণিজ্য ও সাংস্কৃতিক বিনিময়ের কেন্দ্রীয় মহাসড়ক:[১] পশ্চিম এশিয়া, উত্তর আফ্রিকা এবং দক্ষিণ ইউরোপ। মেসোপটেমিয়, মিশরীয়, কেনানীয়, ফিনিশিয়, হিব্রু, কার্থজিনিয়, গ্রীক, ফার্সি, থ্রেসিয়ান, এট্রস্কান, আইবেরিয়, রোমান, বাইজেন্টাইন, বুলগেরীয়, আরব, বারবার, উসমানীয়, খ্রিস্টান এবং ইসলামী সংস্কৃতির উৎস এবং ক্রমবিকাশ উপলব্ধি করার জন্য ভূমধ্যসাগরীয় অববাহিকার সংস্কৃতি এবং মানুষের ইতিহাস গুরুত্বপূর্ণ।

প্রাথমিক ইতিহাস[সম্পাদনা]

খ্রিস্টপূর্ব দ্বিতীয় সহস্রাব্দে উর্বর চন্দ্রকলা

ফ্রান্সের লেজিগানান-লা-ক্যাবে, স্পেনের ওর্সে[২], ইতালির মন্টে পোগিওলো[৩] এবং বুলগেরিয়ার কোজার্নিকা ইউরোপের প্রাচীনতম প্যালিওলিথিক স্থান এবং এগুলো ভূমধ্যসাগরীয় অববাহিকার আশেপাশে অবস্থিত।

খ্রিস্টপূর্ব ১৩০,০০০ বছর পূর্বে ক্রেটে পাথরের সরঞ্জামের প্রমাণ রয়েছে,[৪][৫] এতে প্রমাণ হয় যে আদি মানুষ দ্বীপে পৌঁছানোর জন্য নৌকা ব্যবহার করতে সক্ষম ছিল।

সভ্যতার সাংস্কৃতিক পর্যায় (নগর কেন্দ্রগুলির আশেপাশে সংগঠিত সমাজ) প্রথম দেখা যায় দক্ষিণ-পশ্চিম এশিয়াতে, খ্রিস্টপূর্ব ৮ম সহস্রাব্দের শুরু থেকে, কাতাল হুইয়ুকের মতো প্রোটো-নগর কেন্দ্রগুলির নিওলিথিক ধারার প্রসার হিসাবে। নগর সভ্যতাগুলি যথাযথভাবে চ্যালকোলিথিতে, ৫ম থেকে ৪র্থ সহস্রাব্দে মিশরে এবং মেসোপটেমিয়ায় উত্থিত হতে শুরু করে।

বল্কান অঞ্চলে হস্তনির্মিত সোনার জিনিসসমূহ খ্রিস্টপূর্ব ৪র্থ সহস্রাব্দ থেকে পাওয়া যায়, যেমন বিশ্বের প্রাগৈতিহাসিক ইতিহাসের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ প্রত্নতাত্ত্বিক স্থান - বুলগেরিয়ার লেক ভার্নার নিকটে ভার্না নেক্রোপলিসে খ্রিস্টপূর্ব ৪৫৬৯–৪৩৪০ সালের সমাধিসৌধে পাওয়া গেছে, এক সূত্র (লা নিসে ২০০৯) মতে ধারণা করা হয় যে হস্তনির্মিত সোনার জিনিসসমূহ বহুপ্রাচীন "নিখুত ভাবে নিরূপিত-তারিখযুক্ত"।[৬] ১৯৯০ সালে পশ্চিম তীরের চতুর্থ সহস্রাব্দের ওয়াদি কানা গুহা কবরস্থানে হস্তনির্মিত সোনার জিনিসসমূহ পাওয়া যায় লেভান্তের আগে।[৭]

চতুর্থ সহস্রাব্দের শেষ শতাব্দীতে ব্রোঞ্জ যুগ এই অঞ্চলে বিকশিত হয়েছিল। উর্বর চন্দ্রকলার নগর সভ্যতায় সেসময় লিখন পদ্ধতি চালু হয়েছে এবং আমলাতন্ত্রের বিকাশ ঘটে, তৃতীয় সহস্রাব্দের মধ্যভাগে নবিন সাম্রাজ্য বিকাশের দিকে পরিচালিত হয়েছে। দ্বিতীয় সহস্রাব্দে ভূমধ্যসাগরীয় পূর্ব উপকূলরেখা বরাবর হিট্টাইট এবং মিশরীয় সাম্রাজ্য আধিপত্য বিস্তার করে, তারা নগর রাষ্ট্র লেভান্তের (কেনান) নিয়ন্ত্রণের জন্য দ্বন্দ্বে লিপ্ত হয়।

ব্রোঞ্জ যুগের পতন হলো শেষ ব্রোঞ্জ যুগ থেকে আদি আয়রন যুগে রূপান্তর, এজিয়ান এবং আনাতোলিয়ার রাজপ্রাসাদের অর্থনীতির পতনের দ্বারা এটি সূচিত হয়েছিল, যা প্রাচীন নিকট প্রাচ্যের ইতিহাসে অন্ধকার যুগের বিচ্ছিন্ন গ্রাম সংস্কৃতি দ্বারা একটি বিরতির পরে প্রতিস্থাপিত হয়েছিল। কেউ কেউ এমন অনুঘটককে বলেন যে ব্রোঞ্জ যুগ একটি "বিপর্যয়" দিয়ে শেষ হয়েছিল।[৮] ব্রোঞ্জ যুগের পতন কোনও প্রযুক্তিগত ইতিহাসের প্রসঙ্গে দেখা যেতে পারে যা ধীর গতিতে ঘটিছিল, তুলনামূলকভাবে এই অঞ্চলে লৌহ-কর্ম প্রযুক্তির ধারাবাহিক প্রসার ঘটে, ত্রয়োদশ এবং দ্বাদশ শতকে রোমানিয়া যা করছে তা হলো প্রতিভাসম্পন্ন লোহার কাজ শুরু করে। [৯] ১২০৬ থেকে ১১৫০ খ্রিস্টপূর্বাব্দের মধ্যে মাইসিনীয় রাজ্যগুলির সাংস্কৃতিক পতন, আনাতোলিয়া এবং সিরিয়ায় হিট্টাইট সাম্রাজ্য এবং সিরিয়াইস্রায়েলে মিশরীয় সাম্রাজ্য, দূরপাল্লার বাণিজ্য যোগাযোগের বিভক্তি এবং হঠাৎ শিক্ষায় অন্ধকার নেমে আসে। এই সময়ের প্রথম ধাপে, ট্রয় এবং গাজার মধ্যবর্তী প্রায় প্রতিটি শহরই নিদারুণভাবে ধ্বংস হয়ে যায় এবং এরপরে প্রায়শই জনশূণ্য হয়ে পড়ে থাকে (উদাহরণস্বরূপ, হাট্টুসাস, মাইসিনি, উগারিত)। অন্ধকার যুগের ক্রমান্বয় সমাপ্তি ঘটে যখন খ্রিস্টপূর্ব দশম শতাব্দীর মাঝামাঝি সময়ে নব্য-হিট্টাইট আরমিয়ান রাজ্যগুলির উত্থান এবং নব্য-আসিরীয় সাম্রাজ্যের উত্থান ঘটেছিল। আনু. দ্বাদশ শতকের শুরুতে লেভান্ত থেকে ফিনিশিয়া সম্প্রসারণের কারণে ভূমধ্যসাগরকে ঘিরে পুরো উপকূলীয় অঞ্চল উল্লেখযোগ্যভাবে জড়িয়ে পড়ে। ফার্নান্দ ব্রুদেল দ্য পার্সপেক্টিভ অব দ্য ওয়ার্ল্ডে মন্তব্য করেন যে সাম্রাজ্য দ্বারা বেষ্টিত "বিশ্ব-অর্থনীতি" এর প্রাথমিক উদাহরণ হচ্ছে ফিনিশিয়া। ফিনিশীয় সংস্কৃতি এবং সামুদ্রিক শক্তির উচু স্থানটি সাধারণত আনু. ১২০০-৮০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে স্থাপিত হয়। এর অনেক আগে ফোনিশীয়রা অনেকগুলি গুরুত্বপূর্ণ বসতি স্থাপন করে: বাইব্লোস, টায়ার, সিডন, সিমিরা, আরওয়াদ এবং বেরিতুস, সকলেই আমার্না ফলকে উপস্থিত।

ফিনিশীয় এবং আসিরিয়রা নিকট প্রাচ্যের শেষ ব্রোঞ্জ যুগের সংস্কৃতির উপাদানসমূহ লৌহ যুগের গ্রীস এবং ইতালিতে নিয়ে গিয়েছিল, তবে আরও উত্তর-পশ্চিম আফ্রিকা এবং আইবেরিয়ার দিকে, ভূমধ্যসাগরীয় ইতিহাসের সূচনা করে যা এখন ধ্রুপদী প্রাচীন যুগ হিসাবে পরিচিত। তাদের উল্লেখযোগ্য অবদান বর্ণানুক্রমিক লিখন পদ্ধতি, যা লৌহ যুগের ভূমধ্যসাগরীয় সভ্যতার বৈশিষ্ট্য হয়ে উঠেছে, আসিরিয়ার কিউনিফর্ম লিখনপদ্ধতি এবং দূর প্রাচ্যের লোগোগ্রাফিক পদ্ধতির (এবং পরবর্তীকালে ভারতের আবুগিদা পদ্ধতির) বিপরীত পদ্ধতি ছিল।

ধ্রুপদী প্রাচীন যুগ[সম্পাদনা]

খ্রিস্টপূর্ব ৮ম থেকে ৭ম শতাব্দী সময়ের গ্রীক উপনিবেশসমূহ।

ধ্রুপদী প্রাচীন যুগের দুটি উল্লেখযোগ্য ভূমধ্যসাগরীয় সভ্যতা হচ্ছে গ্রীক নগর রাষ্ট্র এবং ফিনিশীয় সভ্যতা। গ্রীকরা কৃষ্ণ সাগর থেকে দক্ষিণে লোহিত সাগর পেরিয়ে সম্প্রসারিত হয়েছিল। ফিনিশীয়রা পশ্চিম ভূমধ্যসাগর দিয়ে উত্তর আফ্রিকা এবং আইবেরীয় উপদ্বীপে পৌঁছেছিল। ফিনিশীয় এবং এশিয়া মাইনরের কিছু গ্রীক নগর রাষ্ট্র হাখমানেশি পারসিক সাম্রাজ্যের নৌ বাহিনী সরবরাহ করেছিল। খ্রিস্টপূর্ব ৫ম শতাব্দীতে গ্রিকো-পারসিক যুদ্ধের পরে পারস্যের আধিপত্য শেষ হয়েছিল এবং খ্রিস্টপূর্ব চতুর্থ শতাব্দীতে পারসিকরা ম্যাসেডোনিয়াদের দ্বারা জীর্ণ হয়ে যায়। ওদ্রিসীয় রাজ্যটি খ্রিস্টপূর্ব পঞ্চম শতাব্দী থেকে খ্রিস্টীয় প্রথম শতাব্দীর মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এবং শক্তিশালী থ্রেশীয় রাষ্ট্র হিসাবে বিদ্যমান ছিল।

পারসিক যুগ[সম্পাদনা]

খ্রিস্টপূর্ব ৬ষ্ঠ শতাব্দী থেকে খ্রিস্টপূর্ব চতুর্থ শতাব্দীর প্রথমার্ধ পর্যন্ত, ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলের উল্লেখযোগ্য জনগোষ্ঠী হাখমানেশি পারসিক শাসনের অধীনে এসেছিল এবং এ সময় তারা ভূমধ্যসাগরীয় এলাকায় আধিপত্য বিস্তার করেছিল। মহান সাইরাস প্রতিষ্ঠিত এই সাম্রাজ্যের মধ্যে ম্যাসেডোনিয়া, থ্রেস এবং পশ্চিম কৃষ্ণ সাগর উপকূল (আধুনিক কালের দক্ষিণপূর্ব এবং পূর্ব বুলগেরিয়া), মিশর, আনাতোলিয়া, ফিনিশীয় এলাকা, লেভান্ত এবং ভূমধ্যসাগরের অনেক অববাহিকা অঞ্চল অন্তর্ভুক্ত ছিল।[১০][১১][১২] মহান দারিয়াসকে (প্রথম দারিয়াস) পারসিক বহরে বিনিয়োগকারী প্রথম হাখমানেশি রাজা হিসাবে কৃতিত্ব দেওয়া হয়।[১৩] এমনকি তখন গ্রিস বা মিশরে কোনও প্রকৃত "সাম্রাজ্যিক নৌবাহিনী" বিদ্যমান ছিল না। দারিয়াসের অধীনে পারস্য প্রথম সাম্রাজ্য যারা প্রথম নিয়মিত সাম্রাজ্যিক নৌবাহিনীর সূত্রপাত ও কার্যক্ষেত্রে নিয়োগ করে।[১৩] ফিনিশীয় এবং গ্রীক উভয়ই সাইপ্রিয়ট এবং মিশরীয়দের পাশাপাশি হাখমানেশি পারস্য সাম্রাজ্যকে বেশিরভাগ নৌ বাহিনী সরবরাহ করেছিল।[১৪] ভূমধ্যসাগরে পুরো পারসিক আধিপত্য খ্রিস্টপূর্ব ৫ম শতাব্দীতে গ্রিকো-পারসিক যুদ্ধের পরে শেষ হয়ে যায় এবং শেষ পর্যন্ত খ্রিস্টপূর্ব চতুর্থ শতাব্দীর শেষদিকে আলেকজান্ডারের বিজয়ের পরে পারসিকরা ভূমধ্যসাগরে তাদের সমস্ত প্রভাব হারিয়ে ফেলে।

হেলেনীয় যুগ[সম্পাদনা]

খ্রিস্টপূর্ব ২২০ অব্দে ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চল।

প্রাচীন গ্রীসের উত্তরতম অংশে প্রাচীন ম্যাসিডোনিয়া রাজ্যের প্রযুক্তিগত এবং সাংগঠনিক দক্ষতাকে অশ্বারোহী যুদ্ধের দীর্ঘ ইতিহাসে অনুকরণ করা হয়েছে। হেটাইরোই (সহচর অশ্বারোহী বাহিনী) কে সে সময়ের সবচেয়ে শক্তিশালী হিসাবে বিবেচনা করা হতো।[১৫] মহান আলেকজান্ডারের অধীনে পূর্ব দিকে এবং একাধিক চূড়ান্ত লড়াইয়ের মাধ্যমে এই বাহিনী প্রমাণিত হয়েছে, এটি পারস্য বাহিনীকে নাস্তানাবুদ করেছিল এবং ভূমধ্যসাগরের প্রভাবশালী সাম্রাজ্যের দায়িত্ব গ্রহণ করেছিল। তাদের ম্যাসেডোনিয়া সাম্রাজ্যের মধ্যে বর্তমান গ্রীস, বুলগেরিয়া, মিশর, ফিনিশীয় এলাকা এবং ভূমধ্যসাগরীয় অববাহিকা এবং এশিয়া মাইনারের অনেক অঞ্চল অন্তর্ভুক্ত ছিল।

ভূমধ্যসাগরের প্রধান কেন্দ্রগুলি তখন আলেকজান্ডারের সাম্রাজ্যের অংশে পরিণত হয়েছিল। তাঁর সাম্রাজ্য দ্রুত ভেঙ্গে পড়ে এবং মধ্য প্রাচ্য, মিশর এবং গ্রীস শীঘ্রই আবার স্বাধীন হয়। আলেকজান্ডারের বিজয় পুরো অঞ্চল জুড়ে গ্রীক জ্ঞান এবং চিন্তা ছড়িয়ে দেয়।

রোমান–কার্থেজীয় দ্বন্দ্ব[সম্পাদনা]

এই পূর্বাঞ্চলীয় শক্তিগুলি শীঘ্রই আরও পশ্চিমে পশ্চিমাদের দ্বারা ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে। উত্তর আফ্রিকাতে কার্থেজের প্রাক্তন ফিনিশীয় বসতি তার চারপাশের অঞ্চলে এমন একটি সাম্রাজ্যের আধিপত্য বিস্তার করেছিল যেটিতে অনেক ফিনিশীয় প্রভাব ছিল। তবে এটি রোমের ইতালীয় উপদ্বীপের একটি শহর ছিল যা অবশেষে পুরো ভূমধ্যসাগরীয় অববাহিকায় আধিপত্য বিস্তার করে। ইতালি জুড়ে প্রথমে ছড়িয়ে পড়া রোম দ্বিতীয় পিউনিক যুদ্ধে রোমের বিরুদ্ধে হানিবলালের বিখ্যাত প্রচেষ্টা সত্ত্বেও পিউনিক যুদ্ধে কার্থেজকে পরাজিত করেছিল।

তৃতীয় পিউনিক যুদ্ধের পর রোম ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলে নেতৃস্থানীয় শক্তিতে পরিণত হয়ে ওঠে। রোমানরা শীঘ্রই গ্রীস দখল করে পূর্বদিকে অগ্রসর হয় এবং গ্রীক ঐতিহ্য রোমান সাম্রাজ্যে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এই সময়ে উপকূলীয় বাণিজ্য সংস্কৃতিগুলি এককালের মহান শক্তির প্রাণকেন্দ্র অন্তর্দেশীয় নদী উপত্যকাগুলির উপর পুরোপুরি প্রাধান্য লাভ করে। মিশরীয় শক্তি নীল নগর থেকে উপকূলীয় অঞ্চলে বিশেষত আলেকজান্দ্রিয়াতে চলে গিয়েছিল। মেসোপটেমিয়া রোমান সাম্রাজ্য এবং পারসিকদের মধ্যে একটি সীমানা পাড় অঞ্চলে পরিণত হয়েছিল।

রোমান মারে নস্ট্রাম[সম্পাদনা]

৪০০ খ্রিস্টাব্দে মারে নস্ট্রাম, চারপাশে রোমান অঞ্চল দ্বারা বেষ্টিত।

অগাস্টাস যখন রোমান সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠা করেন তখন ভূমধ্যসাগরকে রোমানরা মেরে নস্ট্রাম (লাতিন: "আমাদের সাগর") বলা শুরু করে। তাদের সাম্রাজ্য এই সাগরকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছিল এবং সমস্ত অঞ্চল বাণিজ্য ও নৌ-বিকাশে পরিপূর্ণ ছিল। ইতিহাসে প্রথমবারের মতো পুরো সমুদ্র (ভূমধ্যসাগর) জলদস্যু মুক্ত ছিল। কয়েক শতাব্দী ধরে ভূমধ্যসাগর একটি "রোমান হ্রদ" ছিল, যার চারদিক সাম্রাজ্য দ্বারা পরিবেষ্টিত ছিল।

তবে পঞ্চম শতাব্দীতে সাম্রাজ্য ভেঙে টুকরো টুকরো হতে শুরু করে, এবং ৪৭৬ খ্রিস্টাব্দের পর রোম ধ্বংস হয়ে যায় ।

সাসানীয় এবং বাইজেন্টাইন সময়[সম্পাদনা]

এবং

পূর্ব রোমান বা বাইজেন্টাইন সাম্রাজ্য প্রতিবেশী সাসানীয় পারস্যের সাথে যুদ্ধের সময় লেভান্তের আধিপত্য শুরু হয়। খ্রিস্টীয় ৬ষ্ঠ শতাব্দীর মধ্যবর্তী নিয়মে জলবায়ু অস্থিতিশীলতা দেখা দিয়েছিল, ফলে বেমানান উৎপাদন, বিতরণ এবং একটি সাধারণ অর্থনৈতিক পতন ঘটে।[১৬] সাসানীয়রা নিয়মিত ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলে ভূখণ্ড অর্জন করেছিল তবে পূর্ব রোমানরা বহু শতাব্দী ধরে ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলে শ্রেষ্ঠ ছিল। খ্রিস্টীয় ৭ম শতাব্দীর প্রথম প্রান্তিকে সাসানীয়রা ৬০২–৬২৮ এর বাইজেন্টাইন-সাসানীয় যুদ্ধের সময় পূর্ব রোমানদের কাছ থেকে ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলের অংশ দখল করে, যদিও যুদ্ধের শেষের দিকে সাসানীয়রা অঞ্চল হারিয়েছিল। শেষ পর্যন্ত আরব এবং পরবর্তী সময়ে তুর্কিদের আক্রমণে এই অঞ্চলে বাইজেন্টাইন আধিপত্য চিরতরে সমাপ্ত হয়।[১৭]

মধ্যযুগ[সম্পাদনা]

ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলে খিলাফতের সম্প্রসারণ ৬২২ থেকে ৭৫০ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত।
  মুহাম্মদের অধীনে সম্প্রসারণ, ৬২২–৬৩২
  রশিদুন খিলাফতের সময় সম্প্রসারণ, ৬৩২-৬৬১
  উমাইয়া খিলাফতের সময় সম্প্রসারণ, ৬৬১-৭৫০

দাসত্ব[সম্পাদনা]

মধ্যযুগের সময়ে দাসত্ব সমস্ত ভূমধ্যসাগরীয় সমাজগুলির একটি কৌশলগত এবং অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অংশ ছিল। কৃষক, জেলে এবং বণিকদের কাছে দাস বানানোর হুমকি নিয়মিত ভয়ের কারণ ছিল। যাদের অর্থ আছে বা যাদের আর্থিক সামর্থ ছিল তারা কেবল সহায়তার অভাবের আশঙ্কা ছিল, তাদের মুক্তিপণ আদায় করার জন্য অপহরণের হুমকি দেওয়া হতো।

মধ্যযুগে ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলে মানুষের মধ্যে এমন অনেক কিছুই ঘটতে পারতো:

  1. যখন করসিয়ার্স, জলদস্যু, বার্বারি জলদস্যু, ফরাসী জলদস্যু বা বাণিজ্য হানাদাররা তাদের কাজ চালাতো, তখন কৃষক, জেলে বা উপকূলীয় গ্রামবাসী যাদের আর্থিক কোনও সামর্থ ছিল না তাদের দাস ব্যবসায়ী বা বিরোধীদের কাছে অপহরণ করা বা বিক্রি করা হতো, তারা কোনও আন্তর্জাতিক বাজারে তা থেকে বড়ধরনের লাভ করতো;
  2. বন্দি ধনী হলে বা প্রতিপত্তিশালী আত্মীয় থাকলে বন্দীদের কাছ থেকে মুক্তিপণ আদায় করা হতো। এটি সর্বাধিক সুবিধাজনক পরিকল্পনা ছিল, যেহেতু অর্থের বিনিময়টি তাৎক্ষণিক এবং সরাসরি ছিল, দাস বাজারের ব্যবসায়ের মতো দীর্ঘ এবং নিষ্কোষিত ছিল না;
  3. জলদস্যুরা বন্দীকে কেনাবেচা করার চেয়ে জাহাজে শ্রমের জন্য তাৎক্ষণিকভাবে ব্যবহার করা হতো। এই যুগের যুদ্ধে যুদ্ধ-বন্দীদের প্রায়শই বন্দী করা হত এবং দাস হিসাবে ব্যবহার করা হত।

সম্রাটরা বিপুল সংখ্যক বন্দীকে নিয়ে যেতেন, রাজধানীর মধ্য দিয়ে তাদের কুচকাওয়াজ করাতেন, তাদের লুণ্ঠনের সম্মানে ভোজ করতেন এবং বিজয়ের স্মারক হিসাবে কূটনীতিকদের সামনে উপস্থিত করতেন।[১৮]

মধ্যযুগের শেষের দিকে[সম্পাদনা]

ভূমধ্যসাগরে জেনোয়া (লাল) এবং ভিনিসিয় (সবুজ) সামুদ্রিক বাণিজ্য পথ।

আধুনিক যুগ[সম্পাদনা]

১৩০০ এবং ১৬৮৩ খ্রিস্টাব্দের মধ্যে অর্জিত উসমানীয় সাম্রাজ্যের অঞ্চলসমূহ।
১৯৪২ গ্রীষ্মে/পতনের সময় ভূমধ্যসাগরীয় উপকূলবর্তী এবং সমুদ্র অঞ্চলে (সবুজ রেখা ও বিন্দুর মধ্যে) ইতালীর নিয়ন্ত্রণাধিন সর্বাধিক বিস্তার। মিত্র বাহিনী নিয়ন্ত্রিত অঞ্চলগুলি লাল রেখা দয়ে চিহ্নিত।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Manning and Morris, J.G and Ian (২০০৭)। The Ancient Economy: Evidence and Models (Social Science History)। Stanford University Press। আইএসবিএন 978-0-8047-5755-3 
  2. "The Human Journey: Early Settlements in Europe"www.humanjourney.us। সংগ্রহের তারিখ ২৪ মার্চ ২০১৭Human fossil evidence from sites such as Atapuerca in Spain suggests that they were a form of Homo erectus (sometimes called Homo ergaster). 
  3. National Geographic Italia – Erano padani i primi abitanti d’Italia ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০১৯-০৬-২৬ তারিখে(in ইতালীয়)
  4. Wilford, John Noble। "Discovery Dates Seafaring 100,000-Plus Years Ago"New York Times। ১০ অক্টোবর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ অক্টোবর ২০১৮ 
  5. "Hominids Went Out of Africa on Rafts"Wired। ১৯ নভেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ অক্টোবর ২০১৮ 
  6. La Niece, Susan (senior metallurgist in the British Museum Department of Conservation and Scientific Research) (১৫ ডিসেম্বর ২০০৯)। Gold। Harvard University Press। পৃষ্ঠা 10। আইএসবিএন 978-0-674-03590-4। সংগ্রহের তারিখ ১০ এপ্রিল ২০১২ 
  7. Gopher, A.; Tsuk, T.; Shalev, S. & Gophna, R. (আগস্ট–অক্টোবর ১৯৯০)। "Earliest Gold Artifacts in the Levant"। Current Anthropology31 (4): 436–443। জেস্টোর 2743275ডিওআই:10.1086/203868 
  8. Drews, Robert (১৯৯৫)। The End of the Bronze Age: Changes in Warfare and the Catastrophe CA 1200 B.C.। United States: Princeton University Press। পৃষ্ঠা 264। আইএসবিএন 978-0-691-02591-9 
  9. See A. Stoia and the other essays in M.L. Stig Sørensen and R. Thomas, eds., The Bronze Age—Iron Age Transition in Europe (Oxford) 1989, and T.H. Wertime and J.D. Muhly, The Coming of the Age of Iron (New Haven) 1980.
  10. The Oxford Classical Dictionary by Simon Hornblower and Antony Spawforth,আইএসবিএন ০-১৯-৮৬০৬৪১-৯,"page 1515,"The Thracians were subdued by the Persians by 516"
  11. Joseph Roisman, Ian Worthington A Companion to Ancient Macedonia ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০১৭-০২-২৪ তারিখে pp. 342–345, John Wiley & Sons, 7 July 2011 আইএসবিএন ১৪৪৪৩৫১৬৩X
  12. "A Companion to Ancient Macedonia"Books.google.com। পৃষ্ঠা 345। ২২ এপ্রিল ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ ডিসেম্বর ২০১৪ 
  13. Kaveh Farrokh (২০০৭)। Shadows in the desert: ancient Persia at war। Osprey Publishing। পৃষ্ঠা 68। আইএসবিএন 978-1-84603-108-3 
  14. Kaveh Farrokh (2007). Shadows in the Desert: Ancient Persia at War. Osprey Publishing. p. 68. আইএসবিএন ৯৭৮-১-৮৪৬০৩-১০৮-৩.
  15. Diodorus Siculus, Arrian
  16. Daniel Fuks, Avner Ayalon, et al., "Dust clouds, climate change and coins: consiliences of palaeoclimate and economy in the Late Antique southern Levant", Journal of the Council for British Research in the Levant 49/2 (Oct. 2017): 205-223. Download citation https://doi.org/10.1080/00758914.2017.1379181
  17. Crawford, Peter (2013). The War of the Three Gods: Romans, Persians and the Rise of Islam. Pen and Sword.
  18. Tolan, John; Veinstein, Gilles; Henry Laurens (২০১৩)। "Europe and the Islamic World: A History".Princeton University Press। পৃষ্ঠা 67–68। আইএসবিএন 978-0-691-14705-5 

গ্রন্থপঞ্জি[সম্পাদনা]

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]

  • Abulafia, David (২০১১)। The Great Sea: A Human History of the MediterraneanOxford University Pressআইএসবিএন 978-0-19-532334-4 
  • Braudel, Fernand. The Mediterranean in the Age of Philip II. 2 vol 1972), the classic history by the leader of the French Annales School; excerpt and text search vol 1; excerpt and text search vol 2
    • John A. Marino, "The Exile and His Kingdom—The Reception of Braudel’s Mediterranean," Sixteenth Century Journal (2003) 34#4
  • Burke, III, Edmund. "Toward a Comparative History of the Modern Mediterranean, 1750–1919," Journal of World History (2012) 23#4 pp. 907–939 | DOI: 10.1353/jwh.2012.0133
  • Chambers, Iain. Mediterranean Crossings: The Politics of an Interrupted Modernity (Duke University Press, 2008).
  • Horden, Peregrine and Nicholas Purcell. The Corrupting Sea: A Study of Mediterranean History. Malden, MA: Blackwell, 2000.
    • Horden, Peregrine and Purcell, Nicholas. "The Mediterranean and 'the New Thalassology'" American Historical Review (2006) 111#3 pp 722–740 online
  • Rogerson, Barnaby. The Last Crusaders: The Hundred-Year Battle for the Center of the World (Overlook Press; 2010) 482 pages. Traces power struggles in the Mediterranean between 1450 and 1590.
  • Thiollet, Jean-Pierre. Je m'appelle Byblos.
  • Philip V. Bohlman, Marcello Sorce Keller, and Loris Azzaroni (eds.), Musical Anthropology of the Mediterranean: Interpretation, Performance, Identity, Bologna, Edizioni Clueb – Cooperativa Libraria Universitaria Editrice, 2009.
  • Schlicht, Alfred, "Die Araber und Europa" Stuttgart 2008 (Kohlhammer Verlag)
  • Broodbank, Cyprian (২০১৩)। The Making of the Middle Sea: A History of the Mediterranean from the Beginning to the Emergence of the Classical WorldOxford University Pressআইএসবিএন 0-19-999978-3 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

টেমপ্লেট:ভূমধ্যসাগরীয় দেশ এবং অঞ্চলসমূহ