সোমালিয়া

স্থানাঙ্ক: ৬° উত্তর ৪৭° পূর্ব / ৬° উত্তর ৪৭° পূর্ব / 6; 47
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সোমালী জমহুরিয়াত

Jamhuuriyadda Soomaaliya  (Somali)
جمهورية الصومال (আরবি)
Jumhūriyyat aṣ-Ṣūmāl
সোমালিয়ার জাতীয় পতাকা
পতাকা
সোমালিয়ার জাতীয় মর্যাদাবাহী নকশা
জাতীয় মর্যাদাবাহী নকশা
সঙ্গীত: সোমালিয়ে তোসো
("Somalia, Wake Up") চিত্
সোমালিয়ার অবস্থান
রাজধানী
ও বৃহত্তম নগরী বা বসতি
মোগাদিশু
সরকারি ভাষা
  • সোমালী
  • আরবী[১][২]
  • জাতিগোষ্ঠী
  • সোমালী (৮৫%)
  • বেনাদিরী
  • বানতু এবং অন্য বেসোমালী জাতি (১৫%)[২]
  • জাতীয়তাসূচক বিশেষণসোমালী;[২] সোমালীয়[৩]
    সরকারপরিবর্তনকালীন সরকার
    শরিফ শেখ আহমেদ
    আব্দিওয়েলী মোহাম্মদ আলী
    আইন-সভাপরিবর্তনকালীন ফেডারেল পার্লামেন্ট
    প্রশিক্ষণ
    ১৮৮৪
    ১৮৮৯
    • ইত্তেহাদ ও আজাদী
    ১লা জুলাই ১৯৬০[২]
    • দস্তুর
    ২৫ আগস্ট ১৯৭৯[২]
    আয়তন
    • মোট
    ৬,৩৭,৬৫৭ কিমি (২,৪৬,২০১ মা) (44th)
    জনসংখ্যা
    • ২০১২ আনুমানিক
    10,085,638[২] (৮৬তম)
    • ঘনত্ব
    [রূপান্তর: অকার্যকর সংখ্যা] (১৯৯তম)
    জিডিপি (পিপিপি)২০১০ আনুমানিক
    • মোট
    $৫.৯ বিলিয়ন[২] (১৫৮তম)
    • মাথাপিছু
    $৬০০[২] (২২২nd)
    এইচডিআই (২০১১)N/A
    ত্রুটি: মানব উন্নয়ন সূচক-এর মান অকার্যকর · Not ranked
    মুদ্রাসোমালী শিলিং (SOS)
    সময় অঞ্চলইউটিসি+৩ (ইএটি)
    • গ্রীষ্মকালীন (ডিএসটি)
    ইউটিসি+৩ (not observed)
    গাড়ী চালনার দিকright
    কলিং কোড২৫২
    ইন্টারনেট টিএলডি.so

    সোমালিয়া (সোমালি: Soomaaliya, আরবি: الصومال‎‎ আস্ব্‌স্বূমাল্‌) বা ফেডেরাল সোমালী জমহুরিয়াত (সোমালি: Jamhuuriyadda Soomaaliya জামহূরিয়াদ্দা সোমালিয়া, আরবি: جمهورية الصومال الفيدرالية‎‎জুম্‌হূরিয়্‌য়ৎ আস্ব্‌স্বূমাল্‌ আল-ফীদিরালিয়হ) উত্তর-পূর্ব আফ্রিকার শৃঙ্গ অবস্থিত একটি দেশ। সোমালিয়ার পশ্চিমে আছে ইথিওপিয়া, উত্তরপশ্চিম দিকে জিবূতী, উত্তরে আদন উপসাগর, পূবদিকে ভারত মহাসাগর এবং দক্ষিণপশ্চিমে কেনিয়াআফ্রিকা মহাদেশের তামাম দেশের মাঝে সোমালিয়ারই সবচেয়ে দরাজ তটরেখা[৫] বেশীরভাগ সোমালিয়ার জমীন হচ্ছে মালভূমি, সমভূমি ও পাহাড়। সারা বছর জুড়ে গরম পরিবেশ, মৌসুমী বাতাশ ও মাঝে মাঝে বৃষ্টি।[৬] সোমালিয়ার রাজধানীর নাম মোগাদিশু

    সোমালিয়ার অঞ্চলগুলির একটি মানচিত্র।

    প্রাচীনকালে সোমালিয়া ছিল একটি জরূরী বাণিজ্যিক কেন্দ্র। এই দেশই পুরাতন পুন্ত রাজ্যের সম্ভাব্য স্থান। মধ্যযুগে কয়েক শক্তিশালী সোমালী সাম্রাজ্যগুলো আঞ্চলিক সওদা আয়ত্ত করেছিল। তাঁর মাঝে ছিল আজূরান সলতনৎ, আদল সলতনৎ এবং গেলেদি সলতনৎউনবিংশ শতাব্দীর শেষ দিকে ইতালীয় সাম্রাজ্য এসব সোমালী সলতনৎগুলোকে পরাজিত করে, এই অঞ্চলকে দখল করে ফেলে। ইউরোপীয় হানাদারবৃন্দ উপজাতীয় স্থানগুলোকে একত্র করে দুটি উপনিবেশ বানিয়েছিলেন। সেই দুই উপনিবেশ হচ্ছে ইতালীয় সোমালিস্তানবিলাতী সোমালিস্তান। তার সাথে সাথে, সোমালিয়ার ভেতর থেকে একদল দরবেশ আন্দোলন।দরবেশরা কয়েক কেল্লাগুলো নির্মাণ করেছিলে। তাদের নির্মাণ কাজের নিয়ৎ ছিল যে তারা তাদের বাদশাহ দীরিয়ে গূরে ও আমীর মোহম্মদ আব্দুল্লাহ হাসানের জন্য শাসন করবার ব্যবস্থা করে দিত। দরবেশরা বিশ বছর লড়াই করেছিল ইতালীয়, বিলাতী ও হাবশীদের বিরুদ্ধে কিন্তু ১৯২০ সালে তারা পরাজিত হলেন। তারপর ইতালী সোমালিয়ার উত্তরপূর্ব, মধ্যম ও দক্ষিণ অঞ্চলগুলোর পরিপূর্ণ ক্ষমতা পেলো।

    সোমালিয়ায় জলদস্যুতা[সম্পাদনা]

    সোমালিয়ার উপকূলে জলদস্যুতা একবিংশ শতকের প্রথম দিকে সোমালিয়ার গৃহযুদ্ধের দ্বিতীয় পর্যায় থেকে আন্তর্জাতিক জাহাজগুলোর জন্য হুমকি হয়ে উঠেছে।[৭] ২০০৫ সাল থেকে, ইন্টারন্যাশনাল মেরিটাইম অর্গানাইজেশন এবং বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচীসহ অনেক আন্তর্জাতিক সংস্থা, জলদস্যুতা ঘটনা বৃদ্ধির উপর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।[৮][৯] ওসানস বিয়ন্ড পাইরেসির এক জরীপ অনুসারে, জলদস্যুতার প্রকোপ বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে আন্তর্জাতিক জাহাজ কোম্পানিগুলোকে অতিরিক্ত খরচসহ বছরে প্রায় $৬.৬ থেকে ৬.৯ বিলিয়ন ডলার ক্ষতির সম্মুখীন হতে হচ্ছে যা বিশ্ব বাণিজ্যে প্রভাব ফেলছে।[১০] জার্মান ইন্সটিটিউট ফর ইকনমিক রিসার্চ এর এক জরীপে বলা হয়, জলদস্যুতার বৃদ্ধির ফলে জলদস্যুতার সাথে সম্পর্কিত লাভজনক প্রতিষ্ঠানের প্রকোপও বৃদ্ধি পেয়েছে। বীমা কোম্পানিগুলো জলদস্যু আক্রমণ থেকে মুনাফা অর্জন করছে, জলদস্যুতার প্রকোপ বৃদ্ধির জন্য বীমার প্রিমিয়ামের পরিমাণও বেড়ে গিয়েছে।[১১]

    গবল (বিভাগ)[সম্পাদনা]

    সোমালিয়া ১৮ গবল (বিভাগ) নিয়ে বিভক্ত

    1. বানাদির
    2. গালগুদূদ
    3. হিরান
    4. কেন্দ্রীয় শাবেল্লে
    5. দক্ষিণ শাবেল্লে
    6. বারি
    7. মুদুগ
    8. নুগাল
    9. ঔদাল
    10. সানাগ
    11. সোল
    12. তগধের
    13. ওক্ব​য়ি গালবেদ
    14. বাকোল
    15. বায়
    16. গেদ
    17. কেন্দ্রীয় জুবা
    18. দক্ষিণ জুবা

    তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

    1. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; Charter নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
    2. Central Intelligence Agency (২০১১)। "Somalia"The World Factbook। Langley, Virginia: Central Intelligence Agency। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১০-০৫ 
    3. Paul Dickson, Labels for locals: what to call people from Abilene to Zimbabwe, (Merriam-Webster: 1997), p. 175.
    4. CIA World Factbook 2011 – Population density. Photius.com (2011-05-25). Retrieved on 2011-12-15.
    5. "Coastline"The World FactbookCentral Intelligence Agency। সংগ্রহের তারিখ ৩ আগস্ট ২০১৩ 
    6. "Somalia – Climate"। countrystudies.us। ১৪ মে ২০০৯। 
    7. "Piracy in Somali Waters: Rising attacks impede delivery of humanitarian assistance"। UN ChronicleUnited Nations Department of Public Information, Outreach, Division  Authors list-এ |প্রথমাংশ1= এর |শেষাংশ1= নেই (সাহায্য)
    8. "Piracy: orchestrating the response"International Maritime Organization 
    9. "Hijackings cut aid access to south Somalia, lives at risk"World Food Programme। ১৭ ডিসেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জানুয়ারি ২০১৪ 
    10. Venetia Archer, Robert Young Pelton। "Can We Ever Assess the True Cost of Piracy?"। Somalia Report। ২ জুন ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ মে ২০১২ 
    11. "The Advantage of Piracy"। German-foreign-policy.com। সংগ্রহের তারিখ ১৭ ডিসেম্বর ২০১১ 

    বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

    সরকারি
    সাধারণ তথ্য
    মিডিয়া
    অন্যান্য