হাতিয়া পৌরসভা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
হাতিয়া
পৌরসভা
হাতিয়া পৌরসভা
হাতিয়া বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
হাতিয়া
হাতিয়া
বাংলাদেশে হাতিয়া পৌরসভার অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২২°২২′১৬″ উত্তর ৯১°৭′৩৬″ পূর্ব / ২২.৩৭১১১° উত্তর ৯১.১২৬৬৭° পূর্ব / 22.37111; 91.12667স্থানাঙ্ক: ২২°২২′১৬″ উত্তর ৯১°৭′৩৬″ পূর্ব / ২২.৩৭১১১° উত্তর ৯১.১২৬৬৭° পূর্ব / 22.37111; 91.12667 উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
দেশ বাংলাদেশ
বিভাগচট্টগ্রাম বিভাগ
জেলানোয়াখালী জেলা
উপজেলাহাতিয়া উপজেলা
প্রতিষ্ঠাকাল২০০৫
সরকার
 • পৌর মেয়রএ কে এম ইউছুপ আলী
আয়তন
 • মোট৩৫ কিমি (১৪ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)
 • মোট৬৫,০০০
 • জনঘনত্ব১৯০০/কিমি (৪৮০০/বর্গমাইল)
সময় অঞ্চলবিএসটি (ইউটিসি+৬)
পোস্ট কোড৩৮৯০ উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন

হাতিয়া পৌরসভা বাংলাদেশের নোয়াখালী জেলার অন্তর্গত একটি পৌরসভা

আয়তন[সম্পাদনা]

হাতিয়া পৌরসভার আয়তন ৩৫ বর্গ কিলোমিটার। আয়তনের দিক থেকে এটি বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ পৌরসভা

জনসংখ্যা[সম্পাদনা]

২০১১ সালের আদমশুমারী অনুযায়ী হাতিয়া পৌরসভার জনসংখ্যা প্রায় ৬৫ হাজার।

অবস্থান ও সীমানা[সম্পাদনা]

হাতিয়া উপজেলার উত্তরাংশে হাতিয়া পৌরসভার অবস্থান। এ পৌরসভার উত্তরে চর কিং ইউনিয়ন , পূর্বে চর ঈশ্বর ইউনিয়ন ও বুড়ির চর ইউনিয়ন, দক্ষিণে বুড়ির চর ইউনিয়ন এবং পশ্চিমে তমরুদ্দিন ইউনিয়ন ও চর কিং ইউনিয়ন অবস্থিত।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

২০০৫ সালে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ও বিনএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া নোয়াখালী-৬ হাতিয়া আসনের সাবেক সংসদ সদস্য প্রকৌশলী ফজলুল আজিমের অনুরোধে হাতিয়া পরিদর্শনে আসেন। পরিদর্শনেে এসে তিনি হাতিয়া দ্বীপ সরকারি কলেজ মাঠে এক জনসভায় হাতিয়াকে পৌরসভা ঘোষণা করেন রাজনৈতিক বিবেচনায় ।[১]

প্রতিষ্ঠাকাল[সম্পাদনা]

২০০৫ সালে চর ঈশ্বররায়, তমরদ্দি, বুড়িরচর, লক্ষ্মীদিয়া ও গুল্লাখালি এ ৫টি মৌজার অংশ নিয়ে গঠিত হয় হাতিয়া পৌরসভা।

প্রশাসনিক এলাকা[সম্পাদনা]

হাতিয়া পৌরসভায় ৯টি ওয়ার্ড রয়েছে। হোল্ডিং রয়েছে ১০,২০০ টি। এ পৌরসভার প্রশাসনিক কার্যক্রম হাতিয়া থানার আওতাধীন। এটি জাতীয় সংসদের ২৭৩নং নির্বাচনী এলাকা নোয়াখালী-৬ এর অংশ। এটি একটি শ্রেণীর পৌরসভা।।[২]

যোগাযোগ ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

পৌরসভার সাথে হাতিয়ার প্রধান রোড সমূহের সংযোগ রয়েছে। তাই তমরুদ্দি, নলচিরা, আফাজিয়া বাজার, জাহাজমারা সহ পুরো হাতিয়া হতে বাস, রিক্সা, অটো রিক্সা, সিএনজি, মোটরসাইকেল সহ যে কোনভাবে যোগাযোগ রক্ষা করা যায় সহজে।

শিক্ষা ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

হাতিয়া পৌরসভার সাক্ষরতার হার ৭০%। এ পৌরসভায় ২টি কলেজ, ৭টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও ৩০টি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান[সম্পাদনা]

কলেজ
  1. প্রকৌশলী মোহাম্মদ ফজলুল আজিম মহিলা কলেজ
  2. হাতিয়া দ্বীপ সরকারি কলেজ
মাধ্যমিক বিদ্যালয়
  1. এ এম উচ্চ বিদ্যালয়
  2. ওছখালী এস টি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়
  3. ওছখালী কে এস এস সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়
  4. চৌমুহনী উচ্চ বিদ্যালয়
  5. ছৈয়দিয়া উচ্চ বিদ্যালয়
  6. বঙ্গবন্ধু উচ্চ বিদ্যালয়
  7. হাতিয়া শহর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়
মাদ্রাসা
  1. সুখচর আজহারুল উলুম ফাজিল (ডিগ্রী) মাদ্রাসা।
  2. চরকিং মোহাম্মদিয়া দাখিল মাদ্রাসা।
  3. ওছখালাী হাদীয়া ফাজিল(ডিগ্রী) মাদ্রাসা।
  4. রহমানিয়া ফাজিল (ডিগ্রী) মাদ্রাসা।
  5. চৌমুহনী তবারকীয়া ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসা।

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

পৌরসভার প্রধান অর্থনেতিক উৎস হল কৃষি। কৃষি খাতের অবদান প্রায় ৮৫%। বাকি ১০-১৫% আয় আসে মৎস্য, রেমিট্যান্স, সরকারি ও বেসরকারি চাকুরী এবং সেবা ভিত্তিক খাত থেকে।।[৩]

দর্শনীয় স্থান[সম্পাদনা]

  1. দ্বীপ উন্নয়ন সংস্থা পার্ক
  2. উপজেলা পরিষদ
  3. হাতিয়া দ্বীপ সরকারি কলেজ
  4. হাতিয়া দ্বীপ নিউ মার্কেট

জনপ্রতিনিধি[সম্পাদনা]

  • বর্তমান পৌর মেয়র: এ কে এম ইউছুপ আলী[৪]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. মোঃ রিপাজ উদ্দিন। সম্ভাবনাময় হাতিয়া বাংলার সিঙ্গাপুর। পৃষ্ঠা ১৪৫। 
  2. মোঃ রিপাজ উদ্দিন। সম্ভাবনাময় হাতিয়া বাংলার সিঙ্গাপুর। পৃষ্ঠা ১৪৫। 
  3. মোঃ রিপাজ উদ্দিন। সম্ভাবনাময় হাতিয়া বাংলার সিঙ্গাপুর। পৃষ্ঠা ১৪৬। 
  4. মোঃ রিপাজ উদ্দিন। সম্ভাবনাময় হাতিয়া বাংলার সিঙ্গাপুর। পৃষ্ঠা ১৪৬। 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]