শার্লিজ থেরন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
শার্লিজ থেরন
Charlize Theron by Gage Skidmore.jpg
জন্ম (১৯৭৫-০৮-০৭) ৭ আগস্ট ১৯৭৫ (বয়স ৪২)
বেননি, দক্ষিন আফ্রিকা
বাসস্থান লস এঞ্জেলেস, ক্যালিফোর্নিয়া, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
নাগরিকত্ব দক্ষিন আফ্রিকান (১৯৭৫–বর্তমান)[১]
আমেরিকান (২০০৭–বর্তমান)
পেশা অভিনেত্রী, প্রযোজক
কার্যকাল ১৯৯৫–বর্তমান
সঙ্গী স্টুয়ার্ড টাউনসেন্ড (২০০১–১০)
সন্তান
ওয়েবসাইট charlizeafricaoutreach.org

শার্লিজ থেরন (/ʃɑːrˈlz ˈθɛrən/ shar-LEEZ-' THERR-ən[২] বা /ʃɑːrˈls ˈθɛərən/ shar-LEES-' THAIR-en;[৩] Afrikaans: [ʃarˈlis trɔn];[৪] জন্ম ৭ আগস্ট ১৯৭৫)[৫] একজন দক্ষিণ আফ্রিকান-আমেরিকান অভিনেত্রী এবং চলচ্চিত্র প্রযোজক। তিনি হলিউডের অনেকগুলো চলচ্চিত্রেই অভিনয় করেছেন। যেমন: দ্য ডেভিলস্‌ অ্যাডভোকেট (১৯৯৭), মাইটি জো ইয়ং (১৯৯৮), দ্য সিডার হাউস রুলস (১৯৯৯), মনস্টার (২০০৩), ইটালিয়ান জব (২০০৩), হ্যানকক (২০০৪), আ মিলিয়ন ওয়েজ টু ডাই ইন দ্য ওয়েস্ট (২০১৪), ম্যাড ম্যাক্স: ফিউরি রোড (২০১৫) এবং দ্য ফেইট অফ দ্য ফিউরিয়াস (২০১৭)।

থেরন মনস্টার চলচ্চিত্রে সিরিয়াল কিলার আইলেন উউরনস এর চরিত্রে চিত্রায়নের জন্য সমালোচকদের প্রশংসা কুড়িয়েছিল, যার জন্য তিনি একাডেমি পুরস্কার, সিলভার বিয়ার, গোল্ডেন গ্লোব পুরস্কার এবং সাউথ অ্যাক্টরস গিল্ড পুরস্কার সহ আরো কিছু ক্ষেত্রে সেরা চলচ্চিত্র অভিনেত্রীর জন্য পুরষ্কার পেয়েছিলেন। দক্ষিন আফ্রিকার প্রথম ব্যক্তি হিসেবে এতবড় কোন শ্রেণীতে একাডেমি পুরস্কার লাভ করেন। ২০০৫ সালে তিনি নর্থ কান্ট্রি নামের যৌন নিপীড়নের-থিমযুক্ত নাটকটির অভিনয়ের জন্য একাডেমি পুরস্কার এবং গোল্ডেন গ্লোব পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন এবং জেসন রেইটম্যানের ২০১১ সালের ইয়ং এডাল্ট চলচ্চিত্রে তার অভিনয়ের জন্য একটি গোল্ডেন গ্লোব পুরস্কারের মনোনয়ন পান। থেরন ২০০৭ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একজন নাগরিক হয়ে ওঠেন, এর পূর্বে তিনি দক্ষিণ আফ্রিকান নাগরিকত্ব ধরে রেখেছিলেন। ২০০০ সালের শেষের দিকে, তিনি টেলিভিশন ও চলচ্চিত্রের উভয় ক্ষেত্রেই প্রযজকের ভূমিকায় চলে যান । ২০০৬ সালে, তিনি ইস্ট অব হাভানা ডকুমেন্টারিটি প্রযোজনা করেছিলেন। দ্য বার্নিং প্লেইন (২০০৮) এবং ডার্ক প্লেস (২০১৫) চলচ্চিত্রে তার প্রযোজনা কৃতিত্ব রয়েছে, উভয় চলচ্চিত্রেই তিনি অভিনয় করেছিলেন। ২০১২ সালে তিনি অভিনয় করেছিলেন স্নো হোয়াইট এন্ড দ্য হান্টসম্যান চলচ্চিত্রে রানী রভেনা চরিত্রে এবং প্রমিথিউস চলচ্চিত্রে মেরিডিথ ভিক্সার চরিত্রে, উভয় চলচ্চিত্রই বক্স অফিসে সাফল্য লাভ করেছিল। তিনি ২০১৬ সালের ফলো-আপ চলচ্চিত্র দ্য হান্টসম্যান: উইন্টার'স ওয়ার চলচ্চিত্রে কুইন রেভেনার ভূমিকায় নিজেকে পুনঃপ্রতিষ্ঠিত করেন। ২০১৬ সালে, টাইম ম্যাগাজিন তাদের বার্ষিকী ম্যাগাজিনে ১০০ সর্বাধিক প্রভাবশালী ব্যক্তিদের তালিকাতে তার নাম অর্ন্তভুক্ত করেছে।[৬]

প্রারম্ভের জীবন[সম্পাদনা]

থেরন জন্মগ্রহণ করেন বেননি, তখন এটি দক্ষিণ আফ্রিকার ট্রান্সওয়াল প্রদেশে ছিল, তিনি গারদা জাকাকা এলেটা (নিউ ম্যারিৎস)[৭] ও চার্লস জ্যাকুসের (জন্ম ২৭ নভেম্বর ১৯৪৭)একমাত্র সন্তান।[৮] দ্বিতীয় বোয়র যুদ্ধ এর বিখ্যাত ব্যক্তি ড্যানি থেরন ছিল তাঁর মহান-চাচা। থেরন আফ্রিকান পরিবার থেকে এসেছেন, এবং তার পূর্বপুরুষেরা ছিলেন ডাচ, ফরাসি ও জার্মান অন্তর্ভুক্ত; তার ফরাসি পূর্বপুরুষরা পূর্বে ছিল দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রটেস্ট্যান্ট সম্প্রদায়ের লোক। "থেরন" হল একটি অক্সিটান উপাধি (মূলত বানান থেরন) আফ্রিকান ভাষায় [trɔn] (বা [থ্রন]) উচ্চারিত হয়। তিনি জোহানেসবার্গের কাছাকাছি বেননিতে তার মা-বাবার খামারে বড় হয়েছিলেন।[৯][১০] থেরনের বাবা ছিল একজন মদ্যপ,১৯৯১ সালের ২১ জুন থেরনের বাবা শারীরিকভাবে তার মাকে আক্রমণ করে এবং মাতাল অবস্থায় তাকে ও তার মা উভয়কে হুমকি দেয়; থেরন এর মা তখন গুলি করে তাকে হত্যা করে। সিদ্বান্ত হয়েছিল শ্যুটিংটি ছিল আইনতভাবে আত্মরক্ষা করার জন্য, তাই তার মা কোন অভিযোগের সম্মুখীন হননি।[১১][১২] থেরন পাসফন্টেনে প্রাইমারি স্কুলে (লারসকুল পুতফন্টেন) ভর্তি হয়েছিলেন, তিনি বলেন যে সেই সময়কালে তিনি "উপযুক্ত" ছিলেন না। [১৩] তেরোতে, থেরনকে বোর্ডিং স্কুলে পাঠানো হয় এবং জোহানেসবার্গের ন্যাশনাল স্কুল অব আর্টস এ তার পড়ালেখা শুরু করেন। যদিও থেরন ইংরেজিতে প্রফুল্ল, তবে তার প্রথম ভাষা হল আফ্রিকান[১৪][১৫]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Farber, Tanya। "Charlize defends her 'unique' American accent"IOL News। "I am a South African." 
  2. "Charlize Theron pronounces her name and surname in English"। YouTube। ৭ এপ্রিল ২০১৬। সংগৃহীত ১৮ এপ্রিল ২০১৭ 
  3. "Charlize Theron Pronunciation"। Inogolo। ১৮ জুলাই ২০১১-এ মূল থেকে আর্কাইভ। সংগৃহীত ১৮ এপ্রিল ২০১৭ 
  4. "Charlize Theron Speaks Afrikaans"। YouTube। ৩০ জুন ২০১১। সংগৃহীত ১৮ এপ্রিল ২০১৭ 
  5. "Monitor"। Entertainment Weekly (1271)। ৯ আগস্ট ২০১৩। পৃ: ২২। 
  6. "Charlize Theron by Blake Mycoskie: TIME 100"। Time.com। সংগৃহীত ২০১৬-০৭-২৯ 
  7. Karsten, Chris (২০০৯)। Charlize: Life's One Helluva Ride। Human & Rousseau। পৃ: ১৮। 
  8. "Charlize"google.ca। সংগৃহীত ২ সেপ্টেম্বর ২০১৫ 
  9. "Charlize Theron Biography"Hello Magazine। সংগৃহীত ৯ আগস্ট ২০১২ 
  10. "Benoni, East Rand"www.sa-venues.com। সংগৃহীত ৯ আগস্ট ২০১২ 
  11. "Charlize Theron"BiographyChannel.co.uk। ৮ ডিসেম্বর ২০০৯-এ মূল থেকে আর্কাইভ। সংগৃহীত ৩০ নভেম্বর ২০১১ 
  12. "Charlize Theron's Family Tragedy - ABC News"। Abcnews.go.com। ২০০৬-০১-০৬। সংগৃহীত ২০১৫-০৮-০১ 
  13. Chi, Paul (২৭ নভেম্বর ২০১১)। "Charlize Theron: I Was Teased By Mean Girls in High School"People। ৩০ নভেম্বর ২০১১-এ মূল থেকে আর্কাইভ। সংগৃহীত ৩০ নভেম্বর ২০১১ 
  14. "Charlize Theron"AccessHollywood.comআসল থেকে ২৫ জুলাই ২০১০-এ আর্কাইভ করা। সংগৃহীত ৪ এপ্রিল ২০১৫ 
  15. "Charlize Theron"People। সংগৃহীত ২৪ অক্টোবর ২০০৯ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

পূর্বসূরী
ডানা কার্ভে
স্যাটারডে নাইট লাইভ উপস্থাপক
লভেম্বর ৪, ২০০০
উত্তরসূরী
ক্যালিস্টা ফ্লকহার্ট
পূর্বসূরী
এন্ড্রু গারফিল্ড
স্যাটারডে নাইট লাইভ host
মে ১০, ২০১৪
উত্তরসূরী
এন্ডি সেমবার্গ