নেওমি ওয়াটস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
নেওমি ওয়াটস
Naomi Watts
Naomi Watts (36037832511) (cropped).jpg
২০১৭ সালে স্যান ডিয়েগো কমিক কনে ওয়াটস
জন্ম
নেওমি এলেন ওয়াটস

(1968-09-28) ২৮ সেপ্টেম্বর ১৯৬৮ (বয়স ৫৩)
জাতীয়তাব্রিটিশ
পেশা
  • অভিনেত্রী
  • চলচ্চিত্র প্রযোজক
কর্মজীবন১৯৮৬-বর্তমান
সঙ্গীহিথ লেজার (২০০২-২০০৪)
লিয়েফ স্ক্রিবার (২০০৫-২০১৬)
বিলি ক্রুডুপ (২০১৭-বর্তমান)
সন্তান
পিতা-মাতা
আত্মীয়বেন ওয়াটস (ভাই)

নেওমি এলেন ওয়াটস (জন্ম ২৮ সেপ্টেম্বর ১৯৬৮) হলেন একজন ব্রিটিশ অভিনেত্রী ও চলচ্চিত্র প্রযোজক।[১] তিনি অস্ট্রেলীয় নাট্যধর্মী চলচ্চিত্র ফর লাভ অ্যালোন (১৯৮৬) দিয়ে চলচ্চিত্রে আগমন করেন এবং পরবর্তীকালে অস্ট্রেলীয় টেলিভিশন ধারাবাহিক হেই ড্যাড..! (১৯৯০), ব্রাইডস অব ক্রাইস্ট (১৯৯১), হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে (১৯৯১), ও চলচ্চিত্র ফ্লার্টিং (১৯৯১)-এ অভিনয় করেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি দেওয়ার পর ওয়াটস বছর খানেক অভিনেত্রী হিসেবে কাজ পেতে কষ্ট করেন, এবং ট্যাঙ্ক গার্ল (১৯৯৫), চিলড্রেন অব দ্য কর্ন চোর: দ্য গ্যাদারিং (১৯৯৬), ও ডেঞ্জারাস বিউটি (১৯৯৮) চলচ্চিত্র এবং স্লিপওয়াকার্স (১৯৯৭-১৯৯৮) টেলিভিশন ধারাবাহিকে কাজের সুযোগ পান।

ওয়াটস ডেভিড লিঞ্চে মনস্তাত্ত্বিক থ্রিলার মুলহল্যান্ড ড্রাইভ (২০০১) চলচ্চিত্রে উচ্চাক্ষাঙ্খী অভিনেত্রী চরিত্রে এবং ভীতিপ্রদ দ্য রিং (২০০২) চলচ্চিত্রে সাংবাদিক চরিত্রে অভিনয় করে আন্তর্জাতিক খ্যাতি অর্জন করেন। তিনি এরপর আলেহান্দ্রো গোন্সালেস ইনারিতুর নব্য-নোয়া চলচ্চিত্র ২১ গ্রাম্‌স (২০০৩) চলচ্চিত্রে দুঃখ ভারাক্রান্ত মায়ের চরিত্রে অভিনয়ের জন্য শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী বিভাগে একাডেমি পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন। ২০০০-এর দশকের তার পরবর্তী চলচ্চিত্রসমূহ ছিল আই হার্ট হাকাবিস (২০০৪), কিং কং (২০০৫), ইস্টার্ন প্রমিসেস (২০০৭), ও দি ইন্টারন্যাশনাল (২০০৯)।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

নেওমি এলেন ওয়াটস ১৯৬৮ সালের ২৮শে সেপ্টেম্বর কেন্টের শোরহামে জন্মগ্রহণ করেন।[২][৩] তার মাতা মিফানি "মিভ" এডওয়ার্ডস (বিবাহপূর্ব রবার্টস) ছিলেন একজন প্রাচীন সামগ্রী বিক্রেতা ও পোশাক ও সেট নকশাকার,[২] এবং পিতা পিটার ওয়াটস (১৯৪৬-১৯৭৬) ছিলেন শো ব্যবস্থাপক ও শব্দ প্রকৌশলী, যিনি সঙ্গীতদল পিংক ফ্লয়েডের সাথে কাজ করতেন।[৪][৫] মিভ ইংল্যান্ডে জন্মগ্রহণ করলেও এক থেকে সাত বছর পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়া বসবাস করতেন। ওয়াটসের মাতামহ ওয়েলশ বংশোদ্ভূত এবং মাতামহী অস্ট্রেলীয় বংশোদ্ভূত ছিলেন।[৬][৭]

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

২০১২ সালে ওয়াটস তার তৎকালীন সঙ্গী লিভ শ্রাইবারের সাথে।

ওয়াটস দ্য পেইন্টেড ভেইল (২০০৬) চলচ্চিত্রের দৃশ্যায়নের সময় বৌদ্ধধর্মের প্রতি আকৃষ্ট হন এবং এই ধর্মে ধর্মান্তরিত হন।[৮][৯]

২০০২ সালের আগস্ট থেকে ২০০৪ সালের মে পর্যন্ত অস্ট্রেলীয় অভিনেতা হিথ লেজারের সাথে ওয়াটসের সম্পর্ক ছিল।[১০] ২০০৫ সালে মার্কিন অভিনেতা লিভ শ্রাইবারের সাথে ওয়াটসের সম্পর্কের সূত্রপাত ঘটে। তাদের প্রথম সন্তান আলেকজান্ডার ২০০৭ সালে জন্মগ্রহণ করে এবং দ্বিতীয় সন্তান স্যামুয়েল ২০০৮ সালে জন্মগ্রহণ করে।[১১] ২০১৬ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর ওয়াটস ও শ্রাইবার তাদের ১১ বছরের সম্পর্কের ইতি টানার ঘোষণা দেন।[১২] ২০১৭ সালে নেটফ্লিক্সের নাট্যধর্মী জিপসি ধারাবাহিকের সেটে মার্কিন অভিনেতা বিলি ক্রুড্রুপের সাথে ওয়াটসের পরিচয় হয় এবং এরপর থেকে তারা ডেটিং করছেন।[১৩]

২০১৬ সালে ওয়াটস ওয়েলসের অ্যাঙেলসির মলট্রেটের একটি ছোট ফুটবল ক্লাব গ্ল্যানট্রেট এফসির সম্মানসূচক সভাপতি হন।[১৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. প্রিঙ্গল, গিল (৩০ মার্চ ২০১৫)। "Naomi Watts on 'While We're Young', her roots and being a mum"দি ইন্ডিপেন্ডেন্ট (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জুলাই ২০২০ 
  2. Contemporary Theatre, Film and Television: A Biographical Guide Featuring Performers, Directors, Writers, Producers, Designers, Managers, Choreographers, Technicians, Composers, Executives, Dancers। গেল/সেনগেজ লার্নিং। ২০০৫। পৃষ্ঠা ৩৪০। আইএসবিএন 978-0-7876-9037-3 
  3. জনসন, শিলা (১৫ মার্চ ২০০৮)। "Naomi Watts on Funny Games"দ্য ডেইলি টেলিগ্রাফ (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জুলাই ২০২০ 
  4. স্যামস, ক্রিস্টিন (২৩ ফেব্রুয়ারি ২০০৪)। "How Naomi told her mum about Oscar"দ্য সান-হেরাল্ড (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জুলাই ২০২০ 
  5. ইনসাইড দি অ্যাক্টরস স্টুডিও অনুষ্ঠানে বলেছিলেন, ২০০৩
  6. "How Naomi told her mum about Oscar – SpecialsEntFilmOscars2004 – smh.com.au"দ্য সিডনি মর্নিং হেরাল্ড (ইংরেজি ভাষায়)। ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০০৪। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জুলাই ২০২০ 
  7. "Naomi Watts on 'While We're Young', her roots and being a mum | Rockhampton Morning Bulletin" (ইংরেজি ভাষায়)। দ্য মর্নিং বুলেটিন। ৩০ মে ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জুলাই ২০২০ 
  8. "Watts trying out Buddhism"দ্য হিমালয়ান টাইমস। ৪ ফেব্রুয়ারি ২০০৬। সংগ্রহের তারিখ ১ মে ২০২২ 
  9. প্রিঙ্গল, গিল (৩০ মার্চ ২০১৫)। "Naomi Watts on 'While We're Young', her roots and being a mum"দি ইন্ডিপেন্ডেন্ট। সংগ্রহের তারিখ ১ মে ২০২২ 
  10. "Scoop: Watts opens up about loss of Ledger"। টুডে.কম। ২৯ জানুয়ারি ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ১ মে ২০২২ 
  11. সিলভারম্যান, স্টিফেন (২৭ ফেব্রুয়ারি ২০০৭)। "Liev Schreiber: 'I'm going to be a dad'"পিপল। ২ অক্টোবর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ মে ২০২২ 
  12. নেসিফ, ব্রুনো (২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৬)। "Liev Schreiber and Naomi Watts Split After 11 Years Together"ই! নিউজ। সংগ্রহের তারিখ ১ মে ২০২২ 
  13. ম্যাকি, রিস (১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০)। "What Was Naomi Watts' Relationship Like With Liev Schreiber?"হু। সংগ্রহের তারিখ ১ মে ২০২২ 
  14. "A-lister Naomi Watts links up with Anglesey football club"বিবিসি নিউজ। ২ ফেব্রুয়ারি ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ১ মে ২০২২ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]