ফেলিসিটি হাফম্যান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ফেলিসিটি হাফম্যান
Felicity Huffman
FelicityHuffmanHWoFMar2012.jpg
২০১২ সালের মার্চে হলিউড ওয়াক অব ফেমে হাফম্যান
জন্ম
ফেলিসিটি কেন্ডাল হাফম্যান

(1962-12-09) ৯ ডিসেম্বর ১৯৬২ (বয়স ৫৭)
যেখানের শিক্ষার্থীনিউ ইয়র্ক বিশ্ববিদ্যালয়
পেশাঅভিনেত্রী
কার্যকাল১৯৭৮-বর্তমান
দাম্পত্য সঙ্গীউইলিয়াম এইচ. ম্যাসি (বি. ১৯৯৭)
সন্তান
ওয়েবসাইটwhattheflicka.com

ফেলিসিটি কেন্ডাল হাফম্যান (ইংরেজি: Felicity Kendall Huffman; জন্ম: ৯ ডিসেম্বর ১৯৬২) হলেন একজন মার্কিন অভিনেত্রী। তিনি মঞ্চে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে তার কর্মজীবন শুরু করেন এবং ১৯৯০-এর দশকে চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন নাটকে পার্শ্ব চরিত্রে কাজ করেন। হাফম্যান এবিসির টিভি ধারাবাহিক ডেসপারেট হাউজওয়াইভস্‌-এ লিনেট স্ক্যাভো চরিত্রে অভিনয়ের জন্য সর্বাধিক পরিচিত, যার জন্য তিনি হাস্যরসাত্মক ধারাবাহিকে সেরা মুখ্য অভিনেত্রী বিভাগে প্রাইমটাইম এমি পুরস্কার অর্জন করেন এবং টানা তিনবার স্ক্রিন অ্যাক্টরস গিল্ড পুরস্কারগোল্ডেন গ্লোব পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন। তিনি এবিসির হাস্যরসাত্মক নাট্যধর্মী ক্রীড়াভিত্তিক নাইট ধারাবাহিকে ড্যানা হুইটেকার চরিত্রে অভিনয় করে গোল্ডেন গ্লোব পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন।

হাফম্যান ট্রান্সআমেরিকা (২০০৫) চলচ্চিত্রে ট্রান্সজেন্ডার নারী চরিত্রে অভিনয় করে সমাদৃত হন এবং এই কাজের জন্য সেরা অভিনেত্রী বিভাগে গোল্ডেন গ্লোব, ইন্ডিপেন্ডেন্ট স্পিরিট পুরস্কারন্যাশনাল বোর্ড অব রিভিউ পুরস্কার অর্জন করেন এবং শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী বিভাগে অস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন। হাফম্যান অভিনীত অন্যান্য উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্রসমূহ হল রিভার্সাল অব ফরচুন (১৯৯০), দ্য স্প্যানিশ প্রিজনার (১৯৯৭), ম্যাগনোলিয়া (১৯৯৯), পাথ টু ওয়ার (২০০২), জর্জিয়া রুল (২০০৭), ফিবি ইন ওয়ান্ডারল্যান্ড (২০০৮), রাডারলেস (২০১৪), এবং কেক (২০১৪)। ২০১৫ থেকে ২০১৭ সালে তিনি এবিসির অমনিবাস অপরাধমূলক নাট্যধর্মী আমেরিকান ক্রাইম ধারাবাহিকে অভিনয় করে সমাদৃত হন এবং তিনটি প্রাইমটাইম এমি, দুটি গোল্ডেন গ্লোব ও একটি স্ক্রিন অ্যাক্টরস গিল্ড পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন।

হাফম্যান ১৯৯৭ সালে অভিনেতা উইলিয়াম এইচ. ম্যাসির সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন।[১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. কার্টার, মারিয়া (১২ মার্চ ২০১৯)। "Felicity Huffman and William H. Macy Definitely Have the Sweetest Love Story In Hollywood"ইয়াহু! (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৩ মার্চ ২০১৯ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]