জেনিফার গার্নার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
জেনিফার গার্নার
Jennifer Garner 2013.jpg
২০১৩ সালে ক্যাপিটল হিলে গার্নার
স্থানীয় নাম
Jennifer Garner
জন্ম
জেনিফার অ্যান গার্নার

(1972-04-17) এপ্রিল ১৭, ১৯৭২ (বয়স ৪৭)
জাতীয়তামার্কিন
যেখানের শিক্ষার্থীডেনিসন বিশ্ববিদ্যালয়
পেশা
  • অভিনেত্রী
  • প্রযোজক
  • সমাজকর্মী
কার্যকাল১৯৯৫–বর্তমান
দাম্পত্য সঙ্গী
সন্তান

জেনিফার অ্যান গার্নার (ইংরেজি: Jennifer Anne Garner; জন্ম: ১৭ই এপ্রিল ১৯৭২)[১] হলেন একজন মার্কিন অভিনেত্রী। পার্ল হারবার (২০০১) ছবিতে পার্শ্ব ভূমিকায় অভিনয়ের পর তিনি এবিসি চ্যানেলে ২০০১ থেকে ২০০৬ সালে প্রচারিত গোয়েন্দা-মারপিঠধর্মী থ্রিলার ধারাবাহিক অ্যালায়েস-এ সিআইএ কর্মকরতা সিডনি ব্রিস্টো চরিত্রে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে পরিচিতি লাভ করেন। এই ধারাবাহিকে তার অভিনয়ের জন্য তিনি একটি গোল্ডেন গ্লোব পুরস্কার ও একটি স্ক্রিন অ্যাক্টরস গিল্ড পুরস্কার অর্জন করেন এবং চারটি প্রাইমটাইম এমি পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন।

অ্যালায়েস ধারাবাহিকে অভিনয়কালে তিনি ক্যাচ মি ইফ ইউ ক্যান (২০০২) ছবিতে ক্ষণিক চরিত্রে অভিনয় করেন এবং পরবর্তীতে প্রণয়ধর্মী হাস্যরসাত্মক চলচ্চিত্র থার্টিন গোয়িং অন থার্টি (২০০৪) ছবিতে কেন্দ্রীয় ভূমিকায় অভিনয় করে প্রশংসিত হন। তিনি সুপারহিরো চলচ্চিত্র ডেয়ারডেভিল (২০০৩) ও ইলেক্ট্রা (২০০৫), হাস্যরসাত্মক নাট্যধর্মী জুনো (২০০৭) এবং কাল্পনিক হাস্যরসাত্মক দি ইনভেনশন অব লায়িং (২০০৯) ছবিগুলোতে কেন্দ্রীয় ও পার্শ্ব চরিত্রে অভিনয় করেন। ২০১০-এর দশকে তিনি প্রণয়ধর্মী হাস্যরসাত্মক ভ্যালেন্টাইন্‌স ডে (২০১০), কাল্পনিক হাস্যরসাত্মক নাট্যধর্মী দি অড লাইফ অব টিমোথি গ্রিন (২০১২), জীবনীমূলক নাট্যধর্মী ডালাস বায়ার্স ক্লাব (২০১৩), হাস্যরসাত্মক আলেকজান্ডার অ্যান্ড দ্য টেরিবল, হরিবল, নো গুড, ভেরি ব্যাড ডে (২০১৪), নাট্যধর্মী মিরাকলস্‌ ফ্রম হেভেন (২০১৬) এবং প্রণয়ধর্মী হাস্যরসাত্মক নাট্যধর্মী লাভ, সিমন (২০১৮) ছবিতে অভিনয় করেন।

গার্নার বাল্যকাল থেকে একজন সমাজকর্মী হিসেবে কাজ করে আসছেন এবং তিনি সেভ দ্য চিলড্রেনের বোর্ড সদস্য।[২] তিনি তারকাদের সন্তানদের পাপারাজ্জি বিরোধী আন্দোলনের আইনজীবী। ১৯৯৮ থেকে ২০০৩ সাল পর্যন্ত পাঁচ বছর স্কট ফলির সাথে তার সম্পর্ক ছিল এবং তারা সে সময়ে বিয়েও করেছিলেন। ২০০৫ সালে তিনি বেন অ্যাফ্লেককে বিয়ে করেন, ২০১৫ সালে তারা আলাদা হয়ে যান এবং ২০১৮ সালে তাদের বিবাহবিচ্ছেদ হয়।[৩] গার্নার ও অ্যাফ্লেকের তিনি সন্তান রয়েছে।[৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Jennifer Garner Biography (1972–)" (ইংরেজি ভাষায়)। ফিল্ম রেফারেন্স। সংগ্রহের তারিখ ১৭ এপ্রিল ২০১৮ 
  2. আচার্য, আশিস (১৭ মার্চ ২০১৬)। "আরেক জেনিফার"দৈনিক প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ৭ অক্টোবর ২০১৮ 
  3. ফারজানা (৭ অক্টোবর ২০১৮)। "ছাড়াছাড়ির তিন বছর পর চূড়ান্ত বিচ্ছেদ"বাংলাদেশ প্রতিদিন। সংগ্রহের তারিখ ৭ অক্টোবর ২০১৮ 
  4. "শুধু ঘোষণার অপেক্ষা"দৈনিক প্রথম আলো। ৭ অক্টোবর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ৭ অক্টোবর ২০১৮ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]