বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল
সাধারণ সম্পাদককমরেড খালেকুজ্জামান
প্রতিষ্ঠা৭ নভেম্বর ১৯৮০ (৪০ বছর আগে) (1980-11-07)
সদর দপ্তর২৩/২ তোপখানা সড়ক (৩য় তলা), ঢাকা, বাংলাদেশ ১০০০
সংবাদপত্রভ্যানগার্ড
ছাত্র শাখাসমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট
মহিলা শাখাসমাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরাম
কৃষক সংগঠনসমাজতান্ত্রিক ক্ষেতমজুর ও কৃষক ফ্রন্ট
শ্রমিক সংগঠনসমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট
মতাদর্শসাম্যবাদ,
মার্কসবাদ-লেনিনবাদ
রাজনৈতিক অবস্থানকমিউনিস্ট, বামপন্থী
জাতীয় অধিভুক্তিবাম গণতান্ত্রিক জোট
আন্তর্জাতিক অধিভুক্তিইন্টারন্যাশনাল এন্টি ইম্পেরিয়ালিস্ট কোঅর্ডিনেটিং কমিটি
আনুষ্ঠানিক রঙলাল
স্লোগানদুনিয়ার মজদুর এক হও!
সংগীতকমিউনিস্ট ইন্টারন্যাশনাল
নির্বাচনী প্রতীক
বাসদের নির্বাচনী প্রতীক
ওয়েবসাইট
spb.org.bd
বাংলাদেশের রাজনীতি
রাজনৈতিক দল
নির্বাচন

বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল, সংক্ষেপে বাসদ হচ্ছে বাংলাদেশের একটি কমিউনিস্ট দল। দলটি বাংলাদেশে বামপন্থীদের জোটবদ্ধ সংগঠন বাম গণতান্ত্রিক জোটের সাথে একত্রে কাজ করে থাকে।

কমরেড খালেকুজ্জামান হলেন বাসদের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক। এছাড়া কেন্দ্রীয় কমিটির অন্যান্য সদস্যরা হলেন কমরেড বজলুর রশিদ ফিরোজ,কমরেড জাহেদুল হক মিলু এবং কমরেড রাজেকুজ্জামান রতন।[১]। দলটির মাসিক মুখপত্রের নাম "ভ্যানগার্ড"[২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

বাসদ ১৯৮০ সালের ৭ নভেম্বর এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে আত্নপ্রকাশ করে। বাংলাদেশের শোষণমূলক পুঁজিবাদী আর্থ-সামাজিক ব্যবস্থার আমূল পরিবর্তন সাধন করে শোষণ-বৈষম্যহীন সমাজতান্ত্রিক বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা এই দলের উদ্দেশ্য। সাম্যবাদ এই দলের চূড়ান্ত লক্ষ্য।[৩]

২০১৩ সালে দলটিতে শিবদাস ঘোষকে আন্তর্জাতিক সাম্যবাদী আন্দোলনের অথরিটি না দেওয়ায়, কিছু নেতা দল থেকে বেরিয়ে এসে বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল (মার্কসবাদী) গঠন করেন।[৪] [৫] [৬]

বাসদের গণসংগঠনসমূহ[সম্পাদনা]

বাসদ সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষের সাথে সম্পৃক্ত, তাদের কিছু গণসংগঠন হলো[৭]:

  • সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট (এসএসএফ)
  • সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট (এসএলএফ)
  • সমাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরাম (এসডব্লিউএফ)
  • সমাজতান্ত্রিক ক্ষেতমজুর ও কৃষক ফ্রন্ট (এসপিএফ)
  • গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট (জিএফএফ)
  • রি-রোলিং স্টীল মিল শ্রমিক ফ্রন্ট (আরআরএসএমএলএফ)
  • প্রগতিশীল আইনজীবী ফোরাম (এসএলএফ)
  • প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরাম (এসটিএফ)
  • প্রগতিশীল চিকিৎসক ফোরাম (পিডিএফ)
  • প্রগতিশীল প্রকৌশলী ও স্থপতি ফোরাম (পিইএএফ)
  • প্রগতিশীল কৃষিবিদ কেন্দ্র (পিএএফ)
  • বাংলাদেশ চা শ্রমিক ফেডারেশন (বিটিডব্লিউএফ)
  • শিশু কিশোর মেলা (এসকেমেলা)
  • বিজ্ঞান আন্দোলন মঞ্চ (বিএএম)
  • চারণ সাংস্কৃতিক কেন্দ্র (সিসিসি)

বাসদ সংক্রান্ত পুস্তকসমূহ[সম্পাদনা]

বাসদ রাজনীতি বিষয়ে আলোচনা সমালোচনামূলক বেশ কিছু গ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে। সেগুলো হচ্ছে,

  • আ. ও. ম. শফিকউল্লা এবং অন্যান্য; জাসদ-বাসদের ভ্রান্ত, দোদুল্যমান ও বিভ্রান্তিকর রাজনীতি প্রসঙ্গে, লক্ষ্মীপুর গ্রুপ; ঢাকা; ১৬ জুলাই, ১৯৮১;
  • জয়নাল আবেদীন, শিবদাস ঘোষ জাসদ-বাসদ রাজনীতি ও ভাঙন প্রসঙ্গ, খড়িমাটি প্রকাশন, চট্টগ্রাম, মে, ২০১৪, আইএসবিএন ৯৭৮-৯৮৪-৯০১-২০৪-৭

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. EC dialogue with political parties from Sept 12 - South Asian News Agency, Accurate & Reliable[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  2. "Monthly Vanguard"। ১৫ এপ্রিল ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ এপ্রিল ২০১৪ 
  3. গঠনতন্ত্র
  4. বাসদ থেকে পৃথক হওয়া দায়িত্বহীনতার প্রকাশ: খালেকুজ্জামান
  5. খণ্ডিত বাসদ আবার ভাঙনের মুখে
  6. বাসদে ফের ভাঙন
  7. "SPB ::Party History"। ৩ নভেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ নভেম্বর ২০১৩ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]