গণসংহতি আন্দোলন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
গণসংহতি আন্দোলন
সভাপতিজোনায়েদ সাকি
সাধারণ সম্পাদকআবুল হাসান রুবেল
প্রতিষ্ঠা২৯ আগস্ট ২০০২
সদর দপ্তর৩০৬-৩০৭ রোজ ভিউ প্লাজা, ১৮৫ বীরউত্তম সি আর দত্ত রোড, হাতিরপুল, ঢাকা-১২০৫
নারী শাখানারী সংহতি
শ্রমিক শাখাবাংলাদেশ গার্মেন্ট শ্রমিক সংহতি
কৃষক শাখাবাংলাদেশ কৃষক-মজুর সংহতি
মতাদর্শসাম্য
রাজনৈতিক অবস্থানপ্রগতিশীল
ওয়েবসাইট
ganosamhati.org
বাংলাদেশের রাজনীতি
রাজনৈতিক দল
নির্বাচন

গণসংহতি আন্দোলন বাংলাদেশের একটি রাজনৈতিক দল। দলটি ২৯ আগস্ট ২০০২ সাল ‘জনগণের নিজস্ব রাজনৈতিক শক্তি গড়ে তোলার আহ্বান’ দিয়ে যাত্রা শুরু করে।[১]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

২০০২ সালের ২৯ আগস্ট বাংলাদেশের বেশ কয়েকটি সংগঠন যেমন, বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন, বাংলাদেশ বহুমুখী শ্রমজীবী ও হকার সমিতি, নারী সংহতি, বাংলাদেশ গার্মেন্ট শ্রমিক সংহতি, প্রতিবেশ আন্দোলন ও বাংলাদেশ কৃষক-মজুর সংহতিকে নিয়ে একটি জাতীয় প্লাটফর্ম হিসেবে যাত্রা শুরু করে। এর পর প্রায় ৪ বছর পরে ২০১৬ সালের ২৭, ২৮ ও ২৯ নভেম্বর গণসংহতি আন্দোলন তার তৃতীয় জাতীয় প্রতিনিধি সম্মেলনে রাজনৈতিক দল হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে।[২]

নির্বাচনে অংশগ্রহণ[সম্পাদনা]

২০১৫ সালের ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে দলের পক্ষ থেকে মেয়র পদে প্রার্থীতা করেছিলেন দলটির প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি। নির্বাচনে তিনি পরাজিত হন।[৩] পরবর্তীতে তিনি ২০১৮ সালে একাদশ জাতীয় নির্বাচনে ঢাকা-১২ আসন থেকে অংশ নেন।

নীতি ও কৌশলসমূহ[সম্পাদনা]

  • মুক্তিযুদ্ধে জনগণের আকাঙ্ক্ষা বাস্তবায়ন
  • গণতান্ত্রিক, অসাম্প্রদায়িক ও সার্বভৌম বাংলাদেশ গড়া

উল্লেখযোগ্য সদস্যবৃন্দ[সম্পাদনা]

  • জোনায়েদ সাকি - প্রধান সমন্বয়কারী, গণসংহতি আন্দোলন
  • তাসলিমা আখতার - বাংলাদেশী কর্মী ও চিত্রগ্রাহক
  • আবুল হাসান রুবেল - নির্বাহী সমন্বয়কারী, গণসংহতি আন্দোলন
  • ফিরোজ আহমেদ - লেখক, রাজনীতিবিদ

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "আমাদের সম্পর্কে"গণসংহতি আন্দোলন। গণসংহতি আন্দোলন - মিডিয়া বিভাগ। ৩ নভেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ নভেম্বর ২০১৮ 
  2. "গণসংহতি আন্দোলনের কেন্দ্রীয় কমিটির পরিচিতি"banglanews24.com। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ৩, ২০১৮ 
  3. "রাজনৈতিক দল হিসেবে গণসংহতি আন্দোলনের আত্মপ্রকাশ"banglatribune.com। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ৩, ২০১৮