পূর্ব বাংলার কমিউনিস্ট পার্টি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পূর্ব বাংলার কমিউনিস্ট পার্টি
মতাদর্শসাম্যবাদ
মাওবাদ
রাজনৈতিক অবস্থানবামপন্থী
অবস্থাসক্রিয়, বিভিন্ন প্রতিদ্বন্দ্বী দলে বিভক্ত।

পূর্ব বাংলার কমিউনিস্ট পার্টি বা পিবিসিপি বাংলাদেশের একটি নিষিদ্ধ মাওবাদী জঙ্গি গোষ্ঠী। ১৯৬৮ সালে বাংলাদেশ কমিউনিস্ট পার্টির বিভক্তির পর পিবিসিপি গঠিত হয়। এটি প্রধানত ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের সীমান্তের কাছে বাংলাদেশের দক্ষিণ পশ্চিমে খুলনা এবং যশোরের এলাকায় সক্রিয় যেখানে সিপিআই-মাওবাদী নকশাল বিদ্রোহীরা ভারতীয় রাজ্যের বিরুদ্ধে চলমান গৃহযুদ্ধে সক্রিয় রয়েছে।[১] পিবিসিপি অভ্যন্তরীণ এবং বাহ্যিকভাবে বিভিন্ন দল–উপদল এবং প্রতিদ্বন্দ্বী স্প্লিন্টার গ্রুপের সাথে হিংসাত্মক প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। পূর্ব বাংলার সর্বহারা পার্টির (বাংলাদেশের প্রধান মাওবাদী সংগঠন) প্রতিষ্ঠাতা সিরাজ সিকদার পিবিসিপিকে একটি নব্য-সংশোধনবাদী এবং একটি দল হিসেবে "রূপে বামপন্থী কিন্তু সারমর্মে ডানপন্থী" বলে সমালোচনা করেছিলেন।[২]

মতাদর্শ[সম্পাদনা]

পিবিসিপি একটি মাওবাদী এবং কট্টর জাতীয়তাবাদী আদর্শ অনুসরণ করে যার লক্ষ্য বাংলাদেশের সরকারকে উৎখাত করা এবং মাওবাদী যুগের চীন দ্বারা অনুপ্রাণিত একটি কমিউনিস্ট রাষ্ট্রে রূপান্তর করা।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] পিবিসিপি কট্টর ভারত বিরোধী, এটি ভারতকে এই অঞ্চলে একটি আধিপত্য হিসাবে দেখে।

কার্যক্রম[সম্পাদনা]

পিবিসিপি তার শত্রুদের ভয় দেখানোর জন্য গুপ্তহত্যা এবং অন্যান্য হিংসাত্মক কর্মকাণ্ড চালায় এটি ইসলামিক চরমপন্থী গোষ্ঠীর সাথেও সংঘর্ষে লিপ্ত হয়েছে।[৩] পিবিসিপি জমির মালিক এবং ঠিকাদারদের কাছ থেকে অর্থ আদায় করে এবং তাদের প্রভাবাধীন এলাকায় কাজ করে এমন ঠিকাদারদের কাছ থেকেও "ট্যাক্স" আদায় করে।

  • ১৯৯৯ সালের ২৭ এপ্রিল পিবিসিপি ক্যাডাররা আওয়ামী লীগের ৭ নেতাকর্মীকে গুলি করে হত্যা করে।
  • ৯ সেপ্টেম্বর, ২০০২, পিবিসিপি জঙ্গিরা নওগাঁয় বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির স্থানীয় নেতাকে হত্যা করে।
  • ২৫ আগস্ট, ২০০৩, সন্দেহভাজন পিবিসিপি-এমএল (জনযুদ্ধ) জঙ্গিরা খুলনার আওয়ামী লীগ নেতাকে হত্যা করে।
  • ২০ মে, ২০০৩, জাগ্রত মুসলিম জনতা বাংলাদেশ পিবিসিপি ক্যাডার বলে অভিযুক্ত তিনজনকে হত্যা করে।
  • ১৬ ডিসেম্বর ২০০৪, মোফাখখার চৌধুরী, পূর্ব বাংলা কমিউনিস্ট পার্টি-মার্কসবাদী-লেনিনবাদী - এর শীর্ষ নেতা রাষ্ট্রীয় বাহিনীর সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন।[৪]
  • ২০০৭, মিজানুর রহমান টুটুল, পূর্ব বাংলা কমিউনিস্ট পার্টি-মার্কসবাদী-লেনিনবাদী (লাল পতাকা) এর সেক্রেটারি রাষ্ট্রীয় বাহিনীর সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন।
  • ২৮শে জানুয়ারি, ২০১৪, পুলিশ পিবিসিপি নেতা ইসলাম সবুজকে বন্দুকযুদ্ধে হত্যা করে।[৫]

স্প্লিন্টার গ্রুপ এবং প্রতিদ্বন্দ্বী[সম্পাদনা]

  • পূর্ব বাংলার কমিউনিস্ট পার্টি - মার্কসবাদী-লেনিনবাদী (পূর্ব বাংলার কমিউনিস্ট পার্টি-মার্কসবাদী-লেনিনবাদী)
  • পূর্ব বাংলার কমিউনিস্ট পার্টি - মার্কসবাদী-লেনিনবাদী (লাল পতাকা) ২০০২ সালে পিবিসিপি-এমএল থেকে বিভক্ত
  • পূর্ব বাংলার কমিউনিস্ট পার্টি - মার্কসবাদী-লেনিনবাদী (জনযুদ্ধ) ২০০৩ সালে পিবিসিপি-এমএল থেকে বিভক্ত

পিবিসিপি এবং এর বিভক্ত দলগুলি একে অপরের প্রতি বিদ্বেষী, পিবিসিপি প্রতিদ্বন্দ্বী গ্রুপগুলির সাথে একটি তুমুল যুদ্ধে ১৮ জনকে হত্যা করেছে।[৬]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Purba Banglar Communist Party (PBCP), South Asia Terrorism Portal"www.satp.org। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৪-০২ 
  2. Sikder, Siraj। "Exposure of the draft strategy and program of the so called East Bengal Communist party." (PDF)bannedthought.net। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০২-০৪ 
  3. "Terrorist Organization Profile - START - National Consortium for the Study of Terrorism and Responses to Terrorism"www.start.umd.edu। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৪-০২ 
  4. নিজস্ব প্রতিবেদক, 'শীর্ষ চরমপন্থি নেতা মোফাক্কর র‍্যাবের 'ক্রসফায়ারে' নিহত', দৈনিক প্রথম আলো, পৃষ্ঠা ১, ১৮ ডিসেম্বর ২০০৪
  5. "Two more killed in 'shootouts'"The Daily Star। জানুয়ারি ২৯, ২০১৪। 
  6. "Archived copy"। ২০১৫-০৪-০৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০২-০৮