তেহরান

স্থানাঙ্ক: ৩৫°৪১′২১″ উত্তর ৫১°২৩′২০″ পূর্ব / ৩৫.৬৮৯১৭° উত্তর ৫১.৩৮৮৮৯° পূর্ব / 35.68917; 51.38889
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
তেহরান
تهران
রাজধানী
Tehran sky.jpg
Azadi Tower (29358497718) (cropped).jpg
Bagh-e Ferdows Tajrish.jpg
City Theater, Tehran.jpg
نمایی از شمس العماره.jpg
National Garden, Tehran 07.jpg
Chitgar lake.jpg
پل طبیعت تهران.jpg
ঘড়ির কাঁটার দিকে উপর থেকে: তেহরানের আকাশরেখা, মিলাদ টাওয়ার, সিটি থিয়েটার, জাতীয় উদ্যান, তাবিয়াত সেতু, চিতগর হ্রদ, গোলেস্তান প্রাসাদ, ফেরদৌস উদ্যান এবং আজাদি মিনার
তেহরানের অফিসিয়াল সীলমোহর
সীলমোহর
তেহরান তেহরান-এ অবস্থিত
তেহরান
তেহরান
তেহরান ইরান-এ অবস্থিত
তেহরান
তেহরান
তেহরান এশিয়া-এ অবস্থিত
তেহরান
তেহরান
ইরান এবং এশিয়ায় শহরটির অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ৩৫°৪১′২১″ উত্তর ৫১°২৩′২০″ পূর্ব / ৩৫.৬৮৯১৭° উত্তর ৫১.৩৮৮৮৯° পূর্ব / 35.68917; 51.38889
দেশ ইরান
প্রদেশতেহরান
কাউন্টিতেহরান
রে
শেমিরানাত
জেলামধ্য
সরকার
 • মেয়রআলিরেজা জাকানি
 • সিটি কাউন্সিলের চেয়ারম্যানমেহদি চামরান
আয়তন[১]
 • পৌর এলাকা৬১৫ বর্গকিমি (২৩৭ বর্গমাইল)
 • মহানগর২,২৩৫ বর্গকিমি (৮৬৩ বর্গমাইল)
উচ্চতা[২]৯০০ থেকে ১,৮৩০ মিটার (২,৯৫২ থেকে ৬,০০৩ ফুট)
জনসংখ্যা [৫]
 • জনঘনত্ব১১,৮০০/বর্গকিমি (৩১,০০০/বর্গমাইল)
 • পৌর এলাকা৮৬,৯৩,৭০৬[৩]
 • মহানগর১,৬০,০০,৩৭৮[৪]
বিশেষণতেহরানি
সময় অঞ্চলআইআরএসটি (ইউটিসি+০৩:৩০)
 • গ্রীষ্মকালীন (দিসস)আইআরডিটি (ইউটিসি+০৪:৩০)
এলাকা কোড(+৯৮) ০২১
ওয়েবসাইটwww.tehran.ir

তেহরান (/tɛəˈræn, -ˈrɑːn, ˌtə-/; ফার্সি: تهران‎‎ Tehrān [tehˈɾɒːn] (এই শব্দ সম্পর্কেশুনুন)) ইরানতেহরান প্রদেশের রাজধানী। মূল তেহরান শহরে প্রায় ৮৭ লক্ষ এবং বৃহত্তর তেহরানের মহানগর অঞ্চলে ১.৫ কোটি জনসংখ্যার রয়েছে। ফলে তেহরান ইরান তথা পশ্চিম এশিয়ার সবচেয়ে জনবহুল শহর[৬] এবং কায়রোর পরে মধ্যপ্রাচ্যের দ্বিতীয় বৃহত্তম মেট্রোপলিটান এলাকা। মহানগর এলাকার জনসংখ্যার দিক এটি থেকে সারা বিশ্বে ২৪তম স্থানে রয়েছে। শরহটি এর বহুমুখী উন্নয়ন ও অত্যাধুনিক স্থাপত্যের জন্যও পরিচিত। শহরটিতে মিলাদ টাওয়ার এবং ফেরেশতা পাসারগড় হোটেলের মতো বিখ্যাত স্থাপত্যকর্ম রয়েছে।[৭]

ধ্রুপদী যুগে, বর্তমান তেহরানের ভূখণ্ডের কিছু অংশ মিডিয়ান সাম্রাজ্যের বিশিষ্ট রেই শহরেরর দখলে ছিল। পরবর্তীতে আরব, তুর্কি ও মঙ্গোল আক্রমণে শহরটি ধ্বংস হয়ে যায়।[৮] আধুনিক রেই একটি শহুরে এলাকা যা বৃহত্তর তেহরানের মেট্রোপলিটান এলাকার অংশ।

১৭৮৬ সালে কাজার রাজবংশের আগা মোহাম্মদ খান তেহরানকে প্রথম ইরানের রাজধানী হিসাবে বেছে নিয়েছিলেন। ককেশাসের ইরানি অঞ্চলগুলোর সাথে নৈকট্যের কারণে এবং ইরানের পূর্ববর্তী ক্ষমতাসীন রাজবংশের প্রতিদ্বন্দ্বী গোষ্ঠীগুলোর সাথে দ্বন্দ্ব এড়াতে তেহরানে রাজধানী স্থানান্তর করা হয়েছিল। যদিও রুশ-ইরান যুদ্ধগুলোর কারণে ককেশাসের সেই অঞ্চলগুলো রাশিয়ার দখলে চলে গিয়েছিল। ইতিহাস জুড়ে বেশ কয়েকবার ইরান তথা পারস্যের রাজধানী পরিবর্তন করা হয়েছে। তেহরান পারস্যের ৩২তম জাতীয় রাজধানী। ১৯২০-এর দশকে তেহরানজুড়ে ব্যাপক পরিসরে ধ্বংস ও পুনর্নির্মাণ শুরু হয় এবং এর ফলে তেহরান বিংশ শতাব্দীতে পুরো ইরান থেকে ব্যাপক অভিবাসন-গন্তব্য হয়ে উঠেছে।[৯]

তেহরান রয়েছে গোলেস্তান, সা'দাবাদ এবং নিয়াভারানের রাজকীয় কমপ্লেক্সের মতো ঐতিহাসিক স্থান। এই কমপ্লেক্স থেকেই প্রাক্তন ইম্পেরিয়াল স্টেট অফ ইরানের শেষ দুটি রাজবংশ দেশ শাসন করত। তেহরানের সবচেয়ে বিখ্যাত ল্যান্ডমার্কগুলোর মধ্যে রয়েছে আজাদি মিনারমিলাদ টাওয়ার। ১৯৭১ সালে ইরানের ইম্পেরিয়াল স্টেটের প্রতিষ্ঠার ২,৫০০ তম বার্ষিকী উপলক্ষে পাহলভি রাজবংশের মোহাম্মদ রেজা শাহের শাসনামলে একটি স্মৃতিসৌধ হিসেবে আজাদি মিনার নির্মিত হয়। অন্যদিকে মিলাদ টাওয়ার হচ্ছে বিশ্বের ষষ্ঠ-উচ্চতম স্বাবলম্বী টাওয়ার। রেজা শাহ এর পরিকল্পনা করলেও ২০০৭ সালে এর নির্মানকাজ সম্পন্ন হয়। এছাড়াও ২০১৪ সালে নির্মানকাজ সমাপ্ত হওয়া তাবিয়াত সেতুও বেশ বিখ্যাত।[১০]

তেহরানের জনসংখ্যার অধিকাংশই পারসিক[১১][১২] এবং তাদের প্রায় ৯৯% ফারসি ভাষা বোঝে ও বলে, তবে অন্যান্য জাতি ও ভাষাগত গোষ্ঠীর বিশাল জনগোষ্ঠী তেহরানে বাস করে এবং তারা ফার্সিকে দ্বিতীয় ভাষা হিসেবে ব্যবহার করে।[১৩]

তেহরানের একটি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর (ইমাম খোমেনি বিমানবন্দর), একটি অভ্যন্তরীণ বিমানবন্দর (মেহরাবাদ বিমানবন্দর), একটি কেন্দ্রীয় রেলওয়ে স্টেশন, একটি দ্রুত ট্রানজিট সিস্টেম, তেহরান মেট্রো, একটি বাস দ্রুত পরিবহন ব্যবস্থা, ট্রলিবাস এবং মহাসড়কের একটি বড় নেটওয়ার্ক রয়েছে।

বায়ু দূষণ এবং ভূমিকম্পের কারণে ইরানের রাজধানী তেহরান থেকে অন্য এলাকায় স্থানান্তরের পরিকল্পনা এখনও পর্যন্ত অনুমোদন পায়নি। কনসালট্যান্ট মার্সারের ২৩০টি শহরের একটি ২০১৬ জরিপ তেহরানকে জীবনের মানের জন্য ২০৩তম স্থান দিয়েছে।[১৪] ২০১৬ সালের গ্লোবাল ডেস্টিনেশনস সিটি ইনডেক্স অনুসারে, তেহরান শীর্ষ দশটি দ্রুত বর্ধনশীল গন্তব্যের মধ্যে রয়েছে।[১৫]

সিটি কাউন্সিল ২০১৬ সালে ৬ অক্টোবর তেহরান দিবস ঘোষণা করে। ১৯০৭ সালে যেদিন শহরটি আনুষ্ঠানিকভাবে ইরানের রাজধানী হয় সেই দিন উপলক্ষ্যে এটি উদ্‌যাপিত হয়।[১৬]

ব্যুৎপত্তি[সম্পাদনা]

তেহরান নামের উৎপত্তি সম্পর্কে বিভিন্ন তত্ত্ব সামনে রাখা হয়েছে।

ইরানি ভাষাবিদ আহমদ কাসরাভি, "শেমিরান-তেহরান" নামক একটি নিবন্ধে উল্লেখ করেছেন, তেহরান ও কেহরানের অর্থ "উষ্ণ স্থান" এবং "শেমিরান" অর্থ "ঠান্ডা স্থান"। তিনি একই শব্দমূল এবং প্রত্যয়যুক্ত শহরগুলোর তালিকাবদ্ধ করেছিলেন এবং প্রাচীন ইরানি ভাষায় শব্দটির উপাদানগুলো অধ্যয়ন করেছিলেন এবং এই উপসংহারে এসেছিলেন যে তেহরান এবং কেহরান বিভিন্ন ইরানি ভাষা পরিবারে একই জিনিস বোঝায়, কারণ "ত" এবং "ক" এই ধরনের ভাষায় একে অপরের কাছাকাছি। তিনি আরও প্রমাণ দিয়েছিলেন যে "শেমিরান" নামে পরিচিত শহরগুলো শীতল ছিল এবং "তেহরান" বা "কেহরান" নামে পরিচিত শহরগুলো খুব গরম ছিল। তিনি ইরানি ভাষাগুলোর প্রাচীন ইতিহাস যেমন "তিরগান" তত্ত্ব এবং "তাহরান" তত্ত্ব লোক ব্যুৎপত্তি বিবেচনা না করে অন্যান্য তত্ত্বগুলো বিবেচনা করেন।[১৭]

আরেকটি তত্ত্ব হল যে "তেহরান" এসেছে তিরান/তিরগান থেকে ("তিরের আবাস", জরাথুস্ট্রবাদে হার্মিসের সমতুল্য)। প্রাচীন পার্থিয়ান শহর তিরানের একটি প্রতিবেশী ছিল, মেহরান ("মেহর/মিত্রার আবাস", যা জরথুষ্ট্রীয় সূর্যদেবতা)। এই দুটিই ছিল বৃহৎ শহর রেই/রেজেসের শহরতলির নিছক গ্রাম। মেহরান এখনও বৃহত্তর তেহরানের একটি আবাসিক জেলা হিসাবে বিদ্যমান। সেইসাথে রেই হচ্ছে তেহরানের দক্ষিণের শহরতলি।

তেহরান শহরের দাপ্তরিক ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে যে "তেহরান" এসেছে ফার্সি শব্দ "তাহ" থেকে, যার অর্থ "শেষ বা নীচে" এবং "রান" অর্থ "[পর্বতের] ঢাল"। তাই "তেহরান"-এর আক্ষরিক অর্থ পাহাড়ের পাদদেশ। আলবুর্‌জ পর্বতমালার পাদদেশে তেহরানের অবস্থানের পরিপ্রেক্ষিতে এটিই সবচেয়ে বিশ্বাসযোগ্য অভিমত।[১৮]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

প্রাচীন রেই শহরের প্রত্নতাত্ত্বিক অবশেষ থেকে জানা যায় যে তেহরানে বসতি ৮,০০০ বছরেরও বেশি সময় আগের।[১৯]

তেহরান উত্তর-পশ্চিম ইরানের ঐতিহাসিক মিডিয়া (প্রাচীন ফার্সি: 𐎶𐎠𐎭 Māda) অঞ্চলে অবস্থিত। মিডিয়ান সাম্রাজ্যের সময় বর্তমান তেহরানের একটি অংশ ছিল বিশিষ্ট মিডিয়ান শহর রেইগসের (প্রাচীন ফার্সি: 𐎼𐎥𐎠 Ragā) একটি উপশহর। আবেস্তার ভিদেভদাতে (ই, ১৫) রেইগসকে অহুর মাজদা কর্তৃক নির্মিত ১২তম পবিত্র স্থান হিসাবে উল্লেখ করা হয়েছে।[২০] প্রাচীন ফার্সি শিলালিপিতে, রেইগস একটি প্রদেশ (বিস্তুন ২, ১০-১৮) হিসাবে আবির্ভূত হয়। রেইগস থেকে, দারিয়াস তার পিতা হাইস্টাসপসের কাছে শক্তিবৃদ্ধি প্রেরণ করেছিলেন, যিনি পার্থিয়ায় একটি বিদ্রোহ করেছিলেন (বিস্তুন ৩, ১-১০)।[২০] কিছু মধ্য ফার্সি গ্রন্থে রেইগসকে জরথুস্ত্রের জন্মস্থান হিসাবে উল্লেখ করা হয়, যদিও আধুনিক ঐতিহাসিকরা সাধারণত খোরাসান প্রদেশে জরথুস্ত্রের জন্মস্থান নির্ধারণ করেছেন।

ইরানের সর্বোচ্চ শৃঙ্গ দামাভান্দ পর্বত তেহরানের কাছে অবস্থিত। এটি ইরানের প্রাচীন কিংবদন্তির উপর ভিত্তি করে ফেরদৌসির রচিত ইরানি মহাকাব্য শাহনামা-র একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থান।[২১] মহাকাব্যটিতে এই পর্বতকে ইরানের প্রাচীন কিংবদন্তির প্রথম মানব বংশ বা রাজবংশ কায়ুমারদের মাতৃভূমি হিসাবে প্রদর্শিত হয়। এছাড়াও এটি রাজা মানুচেহরের জন্মস্থান। আবার এই স্থানেই রাজা ফেরেদুন ড্রাগন ফিন্ড আজদাহক (বিভারসপ)-কে বন্দী করেছিলেন। এই জায়গাতেই আরাশ সেই বিখ্যাত তীর ছুঁড়েছিল।[২১]

মধ্যযুগ[সম্পাদনা]

৬৪১ সালে, সাসানিয়ান সাম্রাজ্যের শাসনামলে, ইয়াজজার্ড তৃতীয় খোরাসানে পালিয়ে যাওয়ার আগে রেইগস থেকে জাতির কাছে তার শেষ আবেদন জারি করেছিলেন।[২০] রেইগস পারস্যের মিহরান পরিবারের বাহরাম চোবিনের পৌত্র ও মেহরানের পুত্র সিয়াবখশের দখলে ছিল। সিয়াবখশ সপ্তম শতাব্দীর পারস্যে মুসলিম আক্রমণ প্রতিহত করেছিলেন।[২০] এই প্রতিরোধের কারণে আরবরা রেইগস দখলের পর পারস্যের পক্ষত্যাগকারী অভিজাত ফারুখজাদ দ্বারা শহরটি ধ্বংস ও পুনর্নির্মাণের আদেশ দেয়।[২০]

নবম শতাব্দীতে, তেহরান একটি সুপরিচিত গ্রাম ছিল, কিন্তু রেইগস শহরের চেয়ে কম বা কাছাকাছি বিকশিত হয়েছিল। ১০ম শতাব্দীর মুসলিম ভূগোলবিদরা রেইগসকে বিস্তারিতভাবে বর্ণনা করেছেন।[২০] আরব আরবীয় বাগদাদ রেইগসে আগ্রহ দেখালেও শহরে আরবদের সংখ্যা নগণ্য ছিল এবং জনসংখ্যা প্রধানত সমস্ত শ্রেণীর ইরানীদের নিয়ে গঠিত ছিল।[২০][২২]

ওঘুজ তুর্কিরা ১০৩৫ এবং ১০৪২ সালে রাগেস আক্রমণ করে, তবে শহরটি সেলজুক এবং খোয়ারেজমিদের অধীনে পুনরুদ্ধার করা হয়েছিল। মধ্যযুগীয় লেখক নাজমউদ্দিন রাজি মঙ্গোল আক্রমণের আগে প্রায় ৫০০,০০০ রেইগসের জনসংখ্যা ঘোষণা করেছিলেন। ত্রয়োদশ শতাব্দীতে, মঙ্গোলরা রেইগস আক্রমণ করে, শহরটিকে ধ্বংসস্তূপে পরিণত করে এবং এর অনেক বাসিন্দাকে হত্যা করে।[২০] অন্যরা তেহরানে পালিয়ে যায়।

১৪০৪ সালের জুলাই মাসে, কাস্তিলিয়ার (বর্তমান স্পেনের অংশ) রাষ্ট্রদূত রুই গঞ্জালেজ ডি ক্লাভিজো তুর্কো‌-মঙ্গোল বিজয়ী তৈমুরের রাজধানী সমরকন্দে যাত্রাকালে তেহরান সফর করেন। তিনি তার ডায়েরিতে এটিকে একটি নির্জন অঞ্চল হিসাবে বর্ণনা করেছেন।

প্রাক-আধুনিক যুগ[সম্পাদনা]

ইতালীয় ভ্রমণকারী পিয়েত্রো ডেলা ভ্যালে ১৬১৮ সালে রাতারাতি তেহরানের মধ্য দিয়ে যান এবং তার স্মৃতিকথায় এটি তাহেরান শহর নামে পরিচিত। ইংরেজ ভ্রমণকারী টমাস হার্বার্ট ১৬২৭ সালে তেহরানে প্রবেশ করেন এবং এটিকে তাইরোয়ান হিসেবে উল্লেখ করেন। হার্বার্ট বলেছিলেন যে শহরটিতে প্রায় ৩,০০০ বাড়ি রয়েছে।[২৩]

লন্ডনের ভিএন্ডএ মিউজিয়ামে কাজার শাসক আগা মোহাম্মদ খানের প্রতিকৃতি

অষ্টাদশ শতাব্দীর গোড়ার দিকে, জান্দ রাজবংশের করিম খান তেহরানে একটি প্রাসাদ এবং একটি সরকারি দপ্তর নির্মানের আদেশ করেছিলেন। তিনি সম্ভবত শহরটিকে তার রাজধানী ঘোষণা করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু পরে তিনি শিরাজে তার সরকার স্থানান্তরিত করেন। অবশেষে, কাজার রাজা আগা মোহাম্মদ খান ১৭৮৬ সালে তেহরানকে ইরানের রাজধানী হিসেবে বেছে নেন।[২৪]

আগা মোহাম্মদ খান একই উদ্বেগের ভিত্তিতে উত্তর ও দক্ষিণ ইরান উভয়ের নিয়ন্ত্রণের জন্য তার রাজধানী বেছে নিয়েছিলেন।[২৪] তিনি যথাক্রমে সাফাভিদ এবং জান্দ রাজবংশের প্রতি প্রাক্তন রাজধানী ইসফাহান এবং শিরাজের বাসিন্দাদের আনুগত্য সম্পর্কে সচেতন ছিলেন এবং এই শহরগুলোর স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের ক্ষমতা সম্পর্কে সতর্ক ছিলেন।[২৪] এইভাবে, তিনি সম্ভবত তেহরানের যথেষ্ট নগর কাঠামোর অভাবকে একটি আশীর্বাদ হিসাবে দেখেছিলেন, কারণ এটি বিশিষ্ট ব্যক্তিদের দ্বারা এবং সাধারণ জনগণের দ্বারা তার শাসনের বিরুদ্ধে প্রতিরোধের সম্ভাবনাকে হ্রাস করেছিল।[২৪] অধিকন্তু, তাকে আজারবাইজান এবং ইরানের অবিচ্ছেদ্য উত্তর ও দক্ষিণ ককেশীয় অঞ্চলগুলোর কাছাকাছি থাকতে হয়েছিল[২৪] সেই সময়ে পারস্য তার প্রতিবেশী রাশিয়ান সাম্রাজ্যের তখনও এই অঞ্চলগুলো হারায়নি। তবে ১৯ শতকের গোলেস্তান এবং তুর্কমেনচায়ের চুক্তি অনুসারে রাশিয়ার কাছে চিরতরে অঞ্চলগুলো হারায়।[২৫]

১৮৫৭ সালে তেহরানের মানচিত্র

কাজার শাসনের ৫০ বছর পর, শহরটিতে তখনও সবেমাত্র ৮০,০০০ এর বেশি বাসিন্দা ছিল।[২৪] ১৮৭০ এর দশক পর্যন্ত, তেহরানে একটি প্রাচীর ঘেরা দুর্গ, একটি ছাদযুক্ত বাজার এবং তিনটি প্রধান আশেপাশের উদলাজান, চালে-মেদান এবং সাঙ্গেলেজ ছিল, যেখানে বেশিরভাগ মানুষ বসবাস করত।

১৮৫৫ সালে তেহরানের প্রথম উন্নয়ন পরিকল্পনা ঐতিহ্যগত স্থানিক কাঠামোর উপর জোর দেয়। দ্বিতীয়টি, ১৮৭৮ সালে দার ওল ফোনুনের তত্ত্বাবধানে ইউরোপের রেনেসাঁ শহরগুলোর অনুকরণে ১৯ বর্গ কিলোমিটার এলাকা সহ একটি নিখুঁত অষ্টভুজ আকারে নতুন শহরের দেয়াল অন্তর্ভুক্ত করে।[২৬] এর তেহরান ছিল ১৯.৭৯ বর্গ কিলোমিটার এবং সেই সংস্কারের দলে শহরের সীমানা চারগুণেরও বেশি প্রসারিত হয়েছিল।[২৭]

আধুনিক যুগ[সম্পাদনা]

তেহরানের বিজয়: ১৯০৯ সালের জুলাই মাসে দ্বিতীয় সরদার আসাদ বং সিপাহসালার-এ টোনেকাবোনি তেহরান জয় করেন

নাগরিক অধিকার সম্পর্কে ক্রমবর্ধমান সচেতনতার ফলে সাংবিধানিক বিপ্লব এবং ১৯০৬ সালে ইরানের প্রথম সংবিধান তৈরি হয়। ১৯০৭ সালের ২রা জুন, সংসদ বালাডি (পৌর আইন) নামে পরিচিত স্থানীয় শাসনের উপর একটি আইন পাস করে, যা শহরের মধ্যে কাউন্সিলের ভূমিকা, সদস্যদের যোগ্যতা, নির্বাচন প্রক্রিয়া এবং ভোট দেওয়ার জন্য প্রয়োজনীয়তার মতো বিষয়গুলোর উপর একটি বিস্তারিত রূপরেখা সরবরাহ করে। ১৯০৮ সালের ২৩ শে জুন তৎকালীন কাজার সম্রাট মোহাম্মদ আলী শাহ সংবিধানটি বিলুপ্ত করেন এবং রাশিয়া-নিয়ন্ত্রিত কসাক ব্রিগেডের সহায়তায় সংসদে বোমা বর্ষণ করেন। এর পরে ১৯০৯ সালের ১৩ ই জুলাই আলি-কোলি খান (দ্বিতীয় সর্দার আসাদ) এবং মোহাম্মদ ভালি খান (সেপাহসালার ই টোনাকাবোনি) এর বিপ্লবী বাহিনী শহরটি দখল করে নেয়। ফলস্বরূপ, রাজা নির্বাসিত হন এবং তার পুত্র আহমদের সাথে প্রতিস্থাপিত হন এবং সংসদ পুনরায় প্রতিষ্ঠিত হয়।

১৯২৫ সালে তেহরানের অন্তরীক্ষ-দৃশ্য

প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর, গণপরিষদ পাহলভি রাজবংশের রেজা শাহকে নতুন রাজা নির্বাচিত করে, যিনি অবিলম্বে ১৯০৭ সালের বালাদি আইন স্থগিত করেছিলেন, বিকেন্দ্রীভূত এবং স্বায়ত্তশাসিত সিটি কাউন্সিলগুলোকে শাসন ও পরিকল্পনার কেন্দ্রীক দৃষ্টিভঙ্গি দিয়ে প্রতিস্থাপন করেছিলেন।[২৬]

১৯২০ থেকে ১৯৩০ এর দশক পর্যন্ত, রেজা শাহের শাসনামলে, শহরটি মূলত স্ক্র্যাচ থেকে পুনর্নির্মাণ করা হয়েছিল। গোলেস্তান প্রাসাদ, টেকিয়ে দৌলত, এবং টুপখানে স্কোয়ারের কিছু অংশ সহ বেশ কিছু পুরানো ভবন, শাস্ত্রীয় ইরানি স্থাপত্য দ্বারা প্রভাবিত আধুনিক বিল্ডিং দিয়ে প্রতিস্থাপিত হয়েছে, বিশেষ করে ন্যাশনাল ব্যাংকের ভবন, পুলিশ সদর দপ্তর, টেলিগ্রাফ অফিস এবং সামরিক একাডেমি।

শহুরে ফ্যাব্রিকের পরিবর্তনগুলো ১৯৩৩ সালের রাস্তা-প্রশস্তকরণ আইনের মাধ্যমে শুরু হয়েছিল, যা অন্যান্য সমস্ত শহরে পরিবর্তনের জন্য একটি কাঠামো হিসাবে কাজ করেছিল। গ্র্যান্ড বাজারকে অর্ধেক ভাগ করা হয়েছিল এবং অনেক ঐতিহাসিক ভবন ভেঙে ফেলা হয়েছিল এবং প্রশস্ত সরল পথ দিয়ে প্রতিস্থাপিত হয়েছিল,[২৮] এবং শহরের ঐতিহ্যবাহী টেক্সচারটি ছেদকারী ক্রুসিফর্ম রাস্তার সাথে প্রতিস্থাপিত হয়েছিল যা বাজারের মতো প্রধান পাবলিক স্পেসে বড় গোলচত্বর তৈরি করেছিল।

শহরের মধ্যে সহজ পরিবহনের জন্য একটি নেটওয়ার্ক তৈরি করার প্রচেষ্টা হিসাবে, ১৯৩৭ সালে পুরানো দুর্গ এবং শহরের প্রাচীরগুলো ভেঙে ফেলা হয়েছিল, এর পরিবর্তে শহুরে ফ্যাব্রিক দিয়ে প্রশস্ত রাস্তাগুলো কেটে ফেলা হয়েছিল। ১৯৩৭ সালে তেহরানের নতুন শহরের মানচিত্র জোনিং এবং গ্রিডিরন নেটওয়ার্কের আধুনিকতাবাদী পরিকল্পনার ধরন দ্বারা ব্যাপকভাবে প্রভাবিত হয়েছিল।[২৬]

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়, সোভিয়েত এবং ব্রিটিশ সৈন্যরা শহরে প্রবেশ করে। ১৯৪৩ সালে, তেহরান ছিল ঐতিহাসিক তেহরান সম্মেলনের আয়োজনস্থল, যেখানে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ফ্রাঙ্কলিন ডি রুজভেল্ট, সোভিয়েত প্রিমিয়ার জোসেফ স্ট্যালিন এবং ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী উইনস্টন চার্চিল উপস্থিত ছিলেন

তেহরানে এক্সপ্রেসওয়ে

১৯৪৮ সালে ইরানের পরিকল্পনা সংস্থা প্রতিষ্ঠার ফলে ১৯৪৯ থেকে ১৯৫৫ সাল পর্যন্ত প্রথম আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন পরিকল্পনা করা হয়। এই পরিকল্পনাগুলো কেবল তেহরানের ভারসাম্যহীন বৃদ্ধিকে ধীর করতেই ব্যর্থ হয়নি, বরং ১৯৬২ সালের ভূমি সংস্কারের সাথে সাথে রেজা শাহের পুত্র এবং উত্তরাধিকারী মোহাম্মদ রেজা শাহ পাহলভি শ্বেত বিপ্লবের নামকরণ করেছিলেন, যার ফলে তেহরানের অনিয়ন্ত্রিত বর্ধন আরও বৃদ্ধি পেয়েছিল।

১৯৬০ ও ১৯৭০-এর দশকে তেহরান মোহাম্মদ রেজা শাহের অধীনে দ্রুত বিকশিত হয়। আধুনিক ভবনগুলো তেহরানের চেহারা পরিবর্তন করে এবং পরবর্তী দশকগুলোর জন্য উচ্চাভিলাষী প্রকল্পগুলো পরিকল্পনা করা হয়েছিল। সামাজিক বর্জনের সমস্যা সমাধানের জন্য, ১৯৬৮ সালে একটি প্রথম ব্যাপক পরিকল্পনা অনুমোদিত হয়েছিল। ইরানি স্থপতি আব্দুল আজিজ ফরমানফারমিয়ান এবং ভিক্টর গ্রুয়েন অ্যাসোসিয়েটসের আমেরিকান ফার্মের কনসোর্টিয়াম শহরটিকে উচ্চ ঘনত্বের শহরতলি, বায়ু ও পানি দূষণ, অকার্যকর অবকাঠামো, বেকারত্ব এবং গ্রামীণ-শহুরে অভিবাসন হিসাবে শহরটির প্রধান সমস্যাগুলো চিহ্নিত করে। অবশেষে, পুরো পরিকল্পনাটি ১৯৭৯ সালের বিপ্লব এবং পরবর্তী ইরান-ইরাক যুদ্ধের দ্বারা প্রান্তিক হয়ে যায়।[২৬]

তেহরানের সবচেয়ে বিখ্যাত ল্যান্ডমার্ক, আজাদি টাওয়ার, ১৯৭১ সালে শাহের আদেশে নির্মিত হয়েছিল। এটি নকশা একটি প্রতিযোগিতা বিজয়ী স্থপতি হোসেইন আমানত দ্বারা ডিজাইন করা হয়েছিল। তিনি পোস্ট-ক্লাসিক্যাল ইরানি স্থাপত্যের সাথে ধ্রুপদী সাসানীয় স্থাপত্যের উপাদানগুলোকে একত্রিত করে এর নকশা করেন। পূর্বে শাহাইদ টাওয়ার নামে পরিচিত মিনারটি ইরানের ইম্পেরিয়াল স্টেটের ২,৫০০ তম বার্ষিকী উদযাপনের জন্য নির্মিত হয়েছিল।

১৯৮০ থেকে ১৯৮৮ সাল পর্যন্ত ইরাক–ইরান যুদ্ধের সময়, তেহরান বারবার বিমান হামলা এবং স্কাড ক্ষেপণাস্ত্র হামলার লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হয়েছিল।

৪৩৫ মিটার উঁচু মিলাদ টাওয়ার হচ্ছে প্রাক-বিপ্লবী ইরানের প্রস্তাবিত উন্নয়ন প্রকল্পগুলোর মধ্যে একটি।[২৯] এটি ২০০৭ সালে সম্পন্ন হয়েছিল এবং তেহরানের একটি বিখ্যাত ল্যান্ডমার্ক হয়ে উঠেছে। তাবিয়াত ব্রিজ একটি ২৭০ মিটার পথচারী ওভারপাস,[১০] যা পুরস্কার বিজয়ী স্থপতি লেইলা আরাঘিয়ান দ্বারা ডিজাইন করা হয়েছিল। ২০১৪ সালে এর নির্মানকাজ সম্পন্ন হয়েছিল।

ভূগোল[সম্পাদনা]

অবস্থান এবং উপবিভাগ[সম্পাদনা]

তেহরানের জেলাসমূহ

তেহরানের মহানগরী ২২টি পৌর জেলায় বিভক্ত, যার প্রতিটির নিজস্ব প্রশাসনিক কেন্দ্র রয়েছে। ২২টি পৌর জেলার মধ্যে, ২০টি তেহরান কাউন্টির কেন্দ্রীয় জেলায় অবস্থিত, এবং ১ এবং ২০ নং জেলা যথাক্রমে শেমিরানাত এবং রেই কাউন্টিতে অবস্থিত। প্রশাসনিকভাবে পৃথক হওয়া সত্ত্বেও রেই ও শেমিরান শহরদুটি প্রায়ই বৃহত্তর তেহরানের অংশ হিসাবে বিবেচিত হয়।

উত্তর তেহরান শহরটির সবচেয়ে অভিজাত অংশ,[৩০] যা জাফারানি, জর্ডান, এলাহি, পাসদারান, কামরানি, আজোদানি, ফারমানি, দারুস, কিয়েতারি এবং কারব টাউনের মতো বিভিন্ন জেলা নিয়ে গঠিত।[৩১][৩২] যদিও শহরের কেন্দ্রে সরকারী মন্ত্রণালয় এবং সদর দপ্তর রয়েছে, বাণিজ্যিক কেন্দ্রগুলো আরও উত্তরে অবস্থিত।

জলবায়ু[সম্পাদনা]

জাতিসংঘের গ্লোবাল কমপ্যাক্ট সিটিস প্রোগ্রামের 'সাসটেইনেবিলিটির সার্কেল' পদ্ধতি ব্যবহার করে তেহরানের মেট্রোপলিটন এলাকার শহুরে স্থায়িত্ব বিশ্লেষণ।

তেহরানের ঠান্ডা আধা-শুষ্ক জলবায়ু (কোপেন জলবায়ু শ্রেণীবিন্যাস: বিএসকে) মহাদেশীয় জলবায়ু বৈশিষ্ট্য এবং একটি ভূমধ্যসাগরীয় জলবায়ু বৃষ্টিপাতের প্যাটার্ন রয়েছে। তেহরানের জলবায়ু মূলত তার ভৌগোলিক অবস্থান দ্বারা সংজ্ঞায়িত করা হয়, এর উত্তরে বিশাল আলবোর্জ পর্বতমালা এবং দক্ষিণে দেশটির কেন্দ্রীয় মরুভূমি। এটি সাধারণত বসন্ত এবং শরত্কালে হালকা, গ্রীষ্মে গরম এবং শুষ্ক এবং শীতকালে ঠান্ডা এবং আর্দ্র হিসাবে বর্ণনা করা যেতে পারে।

শরৎকালে মেলাত পার্ক।

যেহেতু শহরের একটি বিশাল এলাকা রয়েছে, বিভিন্ন জেলার মধ্যে উচ্চতায় উল্লেখযোগ্য পার্থক্য রয়েছে, তাই তেহরানের সমতল দক্ষিণ অংশের তুলনায় পাহাড়ি উত্তরে আবহাওয়া প্রায়ই শীতল হয়। উদাহরণস্বরূপ, ১৭.৩ কিমি (১০.৭ মা) ভ্যালিয়াসর স্ট্রিট তেহরানের রেলওয়ে স্টেশন থেকে ১,১১৭ মি (৩,৬৬৫ ফু) সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে শহরের দক্ষিণে তাজরিশ স্কোয়ার পর্যন্ত উচ্চতা ১৭১২.৬ মি (৫৬১২.৩ ফুট) উত্তরে সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে উচ্চতা।[৩৩] তবে, উচ্চতা এমনকি ২,০০০ মি (৬,৬০০ ফু) উত্তর তেহরানের ভেলেনজাকের শেষে।

গ্রীষ্মকাল দীর্ঘ, গরম এবং অল্প বৃষ্টির সাথে শুষ্ক, তবে আপেক্ষিক আর্দ্রতা সাধারণত কম থাকে, যা তাপকে সহনীয় করে তোলে। গড় উচ্চ তাপমাত্রা ৩২ এবং ৩৭ °সে (৯০ এবং ৯৯ °ফা), এবং এটি মাঝে মাঝে রাতে শহরের উত্তরে পাহাড়ী এলাকায় ১৪ °সে (৫৭ °ফা)  হয়। বেশিরভাগ হালকা বার্ষিক বৃষ্টিপাত হয় শরতের শেষ থেকে বসন্তের মাঝামাঝি পর্যন্ত, তবে কোন এক মাসই বিশেষভাবে ভেজা থাকে না। উষ্ণতম মাস হল জুলাই, যার গড় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২৬ °সে (৭৯ °ফা) এবং গড় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৪ °সে (৯৩ °ফা), এবং সবচেয়ে ঠান্ডা জানুয়ারি, যার গড় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা −৫ °সে (২৩ °ফা) এবং গড় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ১ °সে (৩৪ °ফা)।[৩৪]

তেহরানের আবহাওয়া কখনও কখনও অপ্রত্যাশিতভাবে কঠোর হতে পারে। রেকর্ড সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪৩ °সে (১০৯ °ফা) এবং রেকর্ড লো −২০ °সে (−৪ °ফা)। ৫ এবং ৬ জানুয়ারী, ২০০৮-এ, ভারী তুষার এবং নিম্ন তাপমাত্রার একটি ঢেউ শহরটিকে তুষার এবং বরফের পুরু স্তরে ঢেকে দেয়, যা মন্ত্রিপরিষদকে আনুষ্ঠানিকভাবে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করতে এবং ৬ জানুয়ারি থেকে ৭ জানুয়ারি পর্যন্ত রাজধানী বন্ধ করতে বাধ্য করে।[৩৫]

তেহরান একবিংশ শতাব্দীর শুরু থেকে আপেক্ষিক আর্দ্রতা এবং বার্ষিক বৃষ্টিপাতের বৃদ্ধি দেখেছে। এগুলো সম্ভবত বনায়ন প্রকল্প, যার মধ্যে পার্ক এবং হ্রদগুলো প্রসারিত করা অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। তেহরানের উত্তরাঞ্চলের অংশগুলো এখনো দক্ষিণাংশের চেয়ে লুশার।

২০০৫ সালের ফেব্রুয়ারিতে ভারী তুষার শহরের সমস্ত অংশ ঢেকে দেয়। ১৫ সেমি (৬ ইঞ্চি) হিসাবে রেকর্ড করা হয়েছিল শহরের দক্ষিণ অংশে এবং ১০০ সেমি (৩৯ ইঞ্চি) শহরের উত্তর অংশে। একটি সংবাদপত্র জানিয়েছে যে এটি ৩৪ বছরের মধ্যে সবচেয়ে খারাপ আবহাওয়া ছিল। প্রধান সড়ক খোলা রাখার জন্য ১০,০০০ বুলডোজার এবং ১৩,০০০ পৌর কর্মী মোতায়েন করা হয়েছিল।[৩৬][৩৭]

৩ ফেব্রুয়ারী, ২০১৪-এ, তেহরানে একটি ভারী তুষারপাত হয়েছে, বিশেষ করে শহরের উত্তর অংশে, যার গভীরতা ২ মিটার (৬.৬ ফু)। একটানা তুষারপাতের এক সপ্তাহে, কিছু এলাকায় রাস্তা চলাচলের অনুপযোগী হয়ে উঠে। তাপমাত্রা ছিল −৮ °সে (১৮ °ফা) প্রতি −১৬ °সে (৩ °ফা)।[৩৮]

৩ জুন, ২০১৪-এ, শক্তিশালী মাইক্রোবার্স্ট সহ একটি প্রচণ্ড বজ্রঝড় একটি হাবুব তৈরি করেছিল, যা শহরকে বালি এবং ধুলোয় আচ্ছন্ন করে এবং পাঁচজনের মৃত্যু ঘটায়, ৫৭ জনেরও বেশি আহত হয়। এই ঘটনাটি অসংখ্য গাছ এবং বিদ্যুতের লাইনকেও ছিটকে দেয়। এটি ৫:০০ থেকে ৬:০০ টার মধ্যে আঘাত হানে, তাপমাত্রা ৩৩ °সে (৯১ °ফা) ১৯ °সে (৬৬ °ফা) এক ঘন্টার মধ্যে নাটকীয় তাপমাত্রা হ্রাসের সাথে বাতাসের ঝোড়ো হাওয়া প্রায় ১১৮ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা (৭৩ মা/ঘ) .[৩৯]

তেহরান-সোমাল (তেহরানের উত্তরে), উচ্চতা: ১৫৪৮.২ এম থেকে: ১৯৮৮-২০০৫-এর আবহাওয়া সংক্রান্ত তথ্য
মাস জানু ফেব্রু মার্চ এপ্রিল মে জুন জুলাই আগস্ট সেপ্টে অক্টো নভে ডিসে বছর
সর্বোচ্চ রেকর্ড °সে (°ফা) ১৬.৪
(৬১.৫)
১৯.০
(৬৬.২)
২৩.৮
(৭৪.৮)
৩৩.৬
(৯২.৫)
৩৩.৬
(৯২.৫)
৩৭.৮
(১০০.০)
৩৯.৮
(১০৩.৬)
৩৯.৪
(১০২.৯)
৩৫.৬
(৯৬.১)
৩১.২
(৮৮.২)
২৩.০
(৭৩.৪)
১৯.০
(৬৬.২)
৩৯.৮
(১০৩.৬)
সর্বোচ্চ গড় °সে (°ফা) ৬.১
(৪৩.০)
৮.১
(৪৬.৬)
১২.৯
(৫৫.২)
১৯.৮
(৬৭.৬)
২৫.০
(৭৭.০)
৩১.২
(৮৮.২)
৩৩.৯
(৯৩.০)
৩৩.৫
(৯২.৩)
২৯.৩
(৮৪.৭)
২২.৪
(৭২.৩)
১৪.৩
(৫৭.৭)
৮.৬
(৪৭.৫)
২০.৪
(৬৮.৮)
সর্বনিম্ন গড় °সে (°ফা) −১.৫
(২৯.৩)
−০.২
(৩১.৬)
৪.০
(৩৯.২)
৯.৮
(৪৯.৬)
১৪
(৫৭)
১৯.৬
(৬৭.৩)
২২.৬
(৭২.৭)
২১.৯
(৭১.৪)
১৭.৫
(৬৩.৫)
১১.৬
(৫২.৯)
৫.৪
(৪১.৭)
১.০
(৩৩.৮)
১০.৫
(৫০.৮)
সর্বনিম্ন রেকর্ড °সে (°ফা) −১১.৪
(১১.৫)
−১১.০
(১২.২)
−৮.০
(১৭.৬)
−১.৬
(২৯.১)
৩.০
(৩৭.৪)
১২.০
(৫৩.৬)
১৫.৪
(৫৯.৭)
১৩.৫
(৫৬.৩)
৮.৮
(৪৭.৮)
২.৬
(৩৬.৭)
−৫.২
(২২.৬)
−৯.৬
(১৪.৭)
−১১.৪
(১১.৫)
অধঃক্ষেপণের গড় মিমি (ইঞ্চি) ৬৩.১
(২.৪৮)
৬৬.৫
(২.৬২)
৮৩.৩
(৩.২৮)
৫০.১
(১.৯৭)
২৭.১
(১.০৭)
৪.০
(০.১৬)
৪.২
(০.১৭)
৩.২
(০.১৩)
৩.৪
(০.১৩)
১৬.৫
(০.৬৫)
৪১.৩
(১.৬৩)
৬৬.৩
(২.৬১)
৪২৯
(১৬.৯)
বৃষ্টিবহুল দিনগুলির গড় ১২.৩ ১০.৯ ১২.৩ ১০.০ ৮.৯ ৩.৩ ৩.৪ ১.৬ ১.৩ ৫.৮ ৮.৬ ১০.৭ ৮৯.১
তুষারময় দিনগুলির গড় ৮.৯ ৬.৬ ২.৫ ০.১ ০.১ ০.৬ ৪.৯ ২৩.৭
আপেক্ষিক আদ্রতার গড় (%) ৬৭ ৫৯ ৫৩ ৪৪ ৩৯ ৩০ ৩১ ৩১ ৩৩ ৪৪ ৫৭ ৬৬ ৪৬
মাসিক সূর্যালোক ঘণ্টার গড় ১৩৭.২ ১৫১.১ ১৮৬.০ ২১৯.১ ২৭৯.৮ ৩২৮.৭ ৩৩৬.৬ ৩৩৬.৮ ৩০০.৫ ২৪৬.৮ ১৬৯.৪ ১৩৪.১ ২,৮২৬.১
উৎস: [৪০]

পরিবেশগত বিষয়[সম্পাদনা]

তেহরানে ভারী বায়ু দূষণ

প্রধানত অঞ্চলের পরিবেশগত সমস্যার কারণে রাজধানী স্থানান্তরের পরিকল্পনা পূর্ববর্তী বছরগুলোতে বহুবার আলোচনা করা হয়েছে। তেহরান বিশ্বের অন্যতম দূষিত শহর, এবং এটি দুটি প্রধান ফল্ট লাইনের কাছেও অবস্থিত।

শহরটি মারাত্মক বায়ু দূষণের শিকার। বায়ু দূষণের ৮০% গাড়ির কারণে[৪১] ও বাকি ২০% শিল্প দূষণের কারণে হয়ে থাকে। অন্যান্য অনুমানগুলো হচ্ছে তেহরানের ৩০% বায়ু এবং ৫০% শব্দ দূষণের জন্য শুধুই মোটরসাইকেল দায়ী।[৪২] তেহরানকে মধ্যপ্রাচ্যে গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমনের অন্যতম শক্তিশালী উৎস হিসেবেও বিবেচনা করা হয়। শহরের উপর কার্বন ডাই অক্সাইডের বর্ধিত ঘনত্ব (যা সম্ভবত শহরের নৃতাত্ত্বিক শহুরে উৎস থেকে উদ্ভূত) সারা বছর ধরে স্যাটেলাইট পর্যবেক্ষণ থেকে সহজেই সনাক্ত করা যায়।[৪৩]

২০১০ সালে সরকার ঘোষণা করেছিল যে "নিরাপত্তা এবং প্রশাসনিক কারণে, তেহরান থেকে রাজধানী সরিয়ে নেওয়ার পরিকল্পনা চূড়ান্ত করা হয়েছে।"[৪৪] সম্ভাব্য ভূমিকম্প থেকে ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে তেহরান থেকে ১৬৩টি রাষ্ট্রীয় সংস্থা এবং বেশ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয় স্থানান্তরের পরিকল্পনা রয়েছে।[৪৪][৪৫]

শহরের কর্মকর্তারা বায়ু দূষণ কমানোর লড়াইয়ে ব্যস্ত। উদাহরণস্বরূপ, এটি ট্যাক্সি এবং বাসকে পেট্রোল ইঞ্জিন থেকে সংকুচিত প্রাকৃতিক গ্যাস (সিএনজি) ইঞ্জিনে রূপান্তর করতে উত্সাহিত করেছে। অধিকন্তু, সরকার একটি "ট্রাফিক জোন" স্থাপন করেছে যা পিক ট্রাফিক সময়ে শহরের কেন্দ্রস্থলকে ঢেকে রেখেছে। এই অঞ্চলে প্রবেশ এবং গাড়ি চালানো শুধুমাত্র একটি বিশেষ পারমিটের মাধ্যমে অনুমোদিত।

দূষণের ঝুঁকি সম্পর্কে মানুষের সচেতনতা বাড়ানোর পরিকল্পনাও করা হয়েছে। দূষণের বিপদ সম্পর্কে মানুষের সচেতনতা বাড়ানোর পরিকল্পনাও নেওয়া হয়েছে। এটি একটি পদ্ধতি যা ব্যবহার করা হচ্ছে তা হল পার্টিকুলেট ম্যাটার (PM১০), নাইট্রোজেন ডাইঅক্সাইড (CO2), ওজোন (O3), সালফার ডাইঅক্সাইড (SO2), এবং কার্বন মনোক্সাইড (CO) এর মাত্রা নিরীক্ষণের জন্য শহরের চারপাশে দূষণ নির্দেশক বোর্ড স্থাপন করা হবে।

জনসংখ্যা[সম্পাদনা]

তেহরানের জনসংখ্যা
১৯৮৫ এবং ২০০৯ সালে তেহরান
ঐতিহাসিক জনসংখ্যা
বছরজন.±%
১৫৫৪১,০০০—    
১৬২৬৩,০০০+২০০%
১৭৯৭১৫,০০০+৪০০%
১৮০৭৫০,০০০+২৩৩.৩%
১৮১২৬০,০০০+২০%
১৮৩৪৮০,০০০+৩৩.৩%
১৮৬৭১,৪৭,২৫৬+৮৪.১%
১৯৩০২,৫০,০০০+৬৯.৮%
১৯৪০৫,৪০,০৮৭+১১৬%
১৯৫৬১৫,৬০,৯৩৪+১৮৯%
১৯৬৬২৭,১৯,৭৩০+৭৪.২%
১৯৭৬৪৫,৩০,২২৩+৬৬.৬%
১৯৮৬৬০,৫৮,২০৭+৩৩.৭%
১৯৯১৬৪,৯৭,২৩৮+৭.২%
১৯৯৬৬৭,৫৮,৮৪৫+৪%
২০০৬৭৭,১১,২৩০+১৪.১%
২০১১৮২,৪৪,৭৫৯+৬.৯%
২০১৬৮৭,৩৭,৫১০+৬%

২০১৬ সালে তেহরান শহরের জনসংখ্যা ছিল প্রায় ১০ মিলিয়ন।[৪৬] এর বিশ্বজনীন পরিবেশের সাথে, তেহরান সারা দেশ থেকে বিভিন্ন জাতিগত এবং ভাষাগত গোষ্ঠীর আবাসস্থল। তেহরানের বর্তমান প্রভাবশালী ভাষা হল ফার্সি ভাষার তেহরানি রূপ, এবং তেহরানের বেশিরভাগ মানুষ নিজেদেরকে পারসিক হিসাবে পরিচয় দেয়।[১২] অতীতে তেহরান-রেই অঞ্চলের স্থানীয় ভাষা ফার্সি ছিল না। ফার্সি ভাষাগতভাবে দক্ষিণ-পশ্চিম ইরানি এবং এটি ফর্সে উৎপন্ন হয়। অন্যদিকে তেহরান-রেই অঞ্চলের প্রাচীন ভাষা হচ্ছে বর্তমানে বিলুপ্ত হয়ে যাওয়া উত্তর-পশ্চিম ইরানি ভাষা।[৪৭]

ইরানি আজেরিরা শহরের দ্বিতীয় বৃহত্তম জাতিগোষ্ঠী গঠন করে, যা মোট জনসংখ্যার প্রায় ১/৪ জন নিয়ে গঠিত।[৪৮][৪৯] জাতিগত মাজান্দারানিরা তৃতীয় বৃহত্তম, যা মোট জনসংখ্যার প্রায় ১৭% নিয়ে গঠিত।[৫০] তেহরানের অন্যান্য জাতিগত সম্প্রদায়ের মধ্যে রয়েছে কুর্দি, আর্মেনীয়, জর্জিয়ান, বখতিয়ারি, তালিশ, বালুচ, আসিরীয়, আরব, ইহুদি এবং সিরকাশিয়ানরা।

তেহরান বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগ দ্বারা পরিচালিত ২০১০ সালের আদমশুমারি অনুসারে, তেহরানের অনেক জেলায় প্রতিটি জেলার জনসংখ্যার আকার এবং আর্থ-সামাজিক শ্রেণীর অনুপাতে বিভিন্ন আর্থ-সামাজিক শ্রেণি জুড়ে, ৬৩% মানুষ তেহরানে জন্মগ্রহণ করেছিল। অন্যদিকে শহরের জনসংখ্যার ৯৮% ফারসি জানত, ৭৫% নিজেদেরকে জাতিগত ফার্সি হিসাবে চিহ্নিত করেছিল, এবং ১৩% ইউরোপীয় ভাষায় কিছুটা দক্ষতা ছিল।[১১]

১৯৮০ এর দশকের গোড়ার দিকে তেহরান তার জাতিগত-সামাজিক গঠনে ব্যাপক পরিবর্তন দেখেছিল। ১৯৭৯ সালের বিপ্লবের রাজনৈতিক, সামাজিক এবং অর্থনৈতিক পরিণতির পরে এবং পরবর্তী বছরগুলোতে, বেশ কিছু ইরানি নাগরিক, বেশিরভাগই তেহরানি, ইরান ত্যাগ করে। ইরানি অভিবাসনের অধিকাংশই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, জার্মানি, সুইডেন এবং কানাডায় চলে গেছে।

ইরান-ইরাক যুদ্ধ (১৯৮০-১৯৮৮) শুরু হওয়ার সাথে সাথে বিশেষ করে রাজধানীতে ইরাকি বিমান আক্রমণের সময় বাসিন্দাদের দ্বিতীয় দফায় শহর ছেড়ে পালিয়ে যায়। সেই সময়ে বেশিরভাগ প্রধান শক্তি ইরাককে সমর্থন করার সাথে সাথে, অর্থনৈতিক বিচ্ছিন্নতা অনেক অধিবাসীদের শহর (এবং দেশ) ছেড়ে চলে যাওয়ার আরও বেশি কারণ দিয়েছিল। তাদের যা কিছু ছিল তা ছেড়ে দিয়ে এবং একটি নতুন দেশের সাথে খাপ খাইয়ে নিতে এবং একটি জীবন গড়ে তোলার জন্য সংগ্রাম করার পরে, তাদের বেশিরভাগই যুদ্ধ শেষ হওয়ার পরে আর ফিরে আসেনি। যুদ্ধের সময়, তেহরানে দেশের ইরাকের সীমান্তবর্তী পশ্চিম ও দক্ষিণ-পশ্চিম থেকে প্রচুর সংখ্যক অভিবাসী এসেছিল।

প্রতিবেশী আফগানিস্তান ও ইরাকের অস্থিতিশীল পরিস্থিতি এবং যুদ্ধের কারণে দেশটিতে শরণার্থীদের ভিড়ের প্ররোচনা হয়েছিল যারা তাদের লক্ষাধিক সংখ্যায় এসেছিলেন। তেহরান অনেক কাজের জন্য একটি আকর্ষণস্থল হয়ে ওঠে। শরণার্থীরা পরবর্তীতে স্থানীয় নির্মাণ শ্রমিকদের তুলনায় অনেক অল্প পারিশ্রমিকে কাজ করে শহরটিকে যুদ্ধের ক্ষত থেকে পুনরুদ্ধার করতে সাহায্য করেছে। ইউএনএইচসিআর-এর সহায়তায় এই শরণার্থীদের অনেককে প্রত্যাবাসন করা হচ্ছে, কিন্তু তেহরানে আফগান ও ইরাকি শরণার্থীদের একটি বড় অংশ এখনও রয়েছে যারা তাদের নিজ দেশের পরিস্থিতি সম্পর্কে হতাশাবাদী হয়ে দেশত্যাগে অনিচ্ছুক। আফগান উদ্বাস্তুরা বেশিরভাগই দারি-ভাষী তাজিক এবং হাজারা, বিভিন্ন ধরণের ফার্সি ভাষায় কথা বলে এবং ইরাকি শরণার্থীরা প্রধানত ইরানি ঐতিহ্যের মেসোপটেমীয় আরবি-ভাষী।

ধর্ম[সম্পাদনা]

তেহরানিদের সংখ্যাগরিষ্ঠরা আনুষ্ঠানিকভাবে দ্বাদশী শিয়া মুসলিম। ষোড়শ শতাব্দীর সাফাভিদ ধর্মান্তরের পর থেকে এটি রাষ্ট্রীয় ধর্মও হয়ে উঠেছে। শহরের অন্যান্য ধর্মীয় সম্প্রদায়ের মধ্যে রয়েছে ইসলামের সুন্নি এবং সুফিবাদী শাখা, বিভিন্ন খ্রিস্টান সম্প্রদায়, ইহুদি ধর্ম, জরথুস্ট্রিয়ান ধর্ম এবং বাহাই বিশ্বাসের অনুসারী।

শহরের চারপাশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা অনেক ধর্মীয় কেন্দ্র রয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে মসজিদ, গীর্জা, সিনাগগ এবং জরথুস্ট্রিয়ান অগ্নি মন্দির। এই শহরে একটি খুব ছোট তৃতীয় প্রজন্মের ভারতীয় শিখ সম্প্রদায় রয়েছে যেখানে একটি স্থানীয় গুরুদ্বার রয়েছে যা ২০১২ সালে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী পরিদর্শন করেছিলেন।[৫১]

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

তেহরান ইরানের অর্থনৈতিক কেন্দ্র।[৯] ইরানের পাবলিক সেক্টরের কর্মীবাহিনীর প্রায় ৩০% এবং এর ৪৫% বড় শিল্প সংস্থাগুলো শহরে অবস্থিত এবং এই শ্রমিকদের প্রায় অর্ধেকই সরকার দ্বারা নিযুক্ত।[৫২] বাকি শ্রমিকদের অধিকাংশই কারখানার শ্রমিক, দোকানদার, শ্রমিক এবং পরিবহন শ্রমিক।

সরকারের জটিল আন্তর্জাতিক সম্পর্কের কারণে তেহরানে অল্পকিছু বিদেশী কোম্পানি কাজ করে। কিন্তু ১৯৭৯ সালের বিপ্লবের আগে ইরানে অনেক বিদেশী কোম্পানি সক্রিয় ছিল।[৫৩] তেহরানের বর্তমান আধুনিক শিল্পের মধ্যে রয়েছে অটোমোবাইল, ইলেকট্রনিক্স এবং বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম, অস্ত্র, টেক্সটাইল, চিনি, সিমেন্ট এবং রাসায়নিক পণ্য তৈরি। এটি কার্পেট এবং আসবাবপত্র বিক্রয়ের জন্য একটি নেতৃস্থানীয় কেন্দ্র। পার্স অয়েল, স্পিডি এবং বেহরানের তেল পরিশোধনকারী কোম্পানিগুলো তেহরানে অবস্থিত।

তেহরান প্রাইভেট কার, বাস, মোটরসাইকেল এবং ট্যাক্সির উপর অনেক বেশি নির্ভর করে এবং এটি বিশ্বের অন্যতম গাড়ি-নির্ভর শহর। তেহরান স্টক এক্সচেঞ্জ ওয়ার্ল্ড ফেডারেশন অফ এক্সচেঞ্জের (WFE) পূর্ণ সদস্য এবং ফেডারেশন অফ ইউরো-এশিয়ান স্টক এক্সচেঞ্জের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য। এটি সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বিশ্বের সেরা পারফরম্যান্সকারী স্টক এক্সচেঞ্জগুলোর মধ্যে একটি।[৫৪]

কেনাকাটা[সম্পাদনা]

তেহরানে বিস্তৃত শপিং সেন্টার রয়েছে এবং ৬০টিরও বেশি আধুনিক শপিং মল রয়েছে।[৫৫] শহরটিতে বেশ কয়েকটি বাণিজ্যিক জেলা রয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে ওয়ালিয়াসর, দাভুডি এবং জাফারানিতে অবস্থিত। তেহরানের বৃহত্তম পুরানো বাজারগুলো হল গ্র্যান্ড বাজার এবং তাজরিশের বাজার এবং ইরান মল। এই ইরান মল হচ্ছে ইরান তথা বিশ্বের বৃহত্তম শপিংমল।

বেশিরভাগ আন্তর্জাতিক ব্র্যান্ডেড স্টোর এবং উচ্চ শ্রেণীর দোকানগুলো শহরের উত্তর এবং পশ্চিম অংশে অবস্থিত। বেশ কয়েকটি নতুন নির্মিত মল এবং শপিং সেন্টারের সাথে তেহরানের খুচরা ব্যবসা ক্রমবর্ধমান হচ্ছে।[৫৫]

তেহরান প্রদেশের আধুনিক এবং সর্বাধিক দেখা শপিং মলগুলির তালিকা:[৫৬]

  • রয়েল অ্যাড্রেস কমপ্লেক্স
  • প্ল্যাটিন শপিং সেন্টার
  • সানা শপিং সেন্টার
  • মেগা মল
  • বামল্যান্ড শপিং সেন্টার
  • প্যালাডিয়াম শপিং সেন্টার
  • স্যাম সেন্টার
  • ইরান মল
  • কৌরোশ মল

পর্যটন[সম্পাদনা]

তেহরান, ইরানের অন্যতম প্রধান পর্যটন কেন্দ্র হিসাবে, সাংস্কৃতিক আকর্ষণের একটি সম্পদ রয়েছে। এটি গোলেস্তান, সাদাবাদ এবং নিয়াভারনের রাজকীয় কমপ্লেক্সগুলোর আবাসস্থল, যা দেশের শেষ দুটি রাজতন্ত্রের রাজত্বকালে নির্মিত হয়েছিল।

তেহরানে বেশ কয়েকটি ঐতিহাসিক, শৈল্পিক এবং বৈজ্ঞানিক জাদুঘর রয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে

  • জাতীয় জাদুঘর
  • মালেক জাদুঘর
  • ফেরদৌস গার্ডেনে সিনেমা জাদুঘর
  • আবগিনেহ জাদুঘর
  • কাসর কারাগারের জাদুঘর
  • কার্পেট জাদুঘর
  • রিভার্স গ্লাস পেইন্টিং মিউজিয়াম (ভিট্রে আর্ট)
  • সাফির অফিস মেশিন মিউজিয়াম

এছাড়াও সমসাময়িক শিল্পের জাদুঘর, যেখানে ভ্যান গগ, পাবলো পিকাসো এবং অ্যান্ডি ওয়ারহোলের মতো বিখ্যাত শিল্পীদের কাজ রয়েছে। ইরানের ইম্পেরিয়াল ক্রাউন জুয়েলস, বিশ্বের বৃহত্তম রত্ন সংগ্রহগুলোর মধ্যে একটি, এছাড়াও তেহরানের জাতীয় গহনা জাদুঘরে প্রদর্শন করা হয়।

তেহরানে বেশ কিছু সাংস্কৃতিক ও বাণিজ্য প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়, যেগুলো মূলত দেশটির আন্তর্জাতিক প্রদর্শনী কোম্পানি দ্বারা পরিচালিত হয়। তেহরানের বার্ষিক আন্তর্জাতিক বইমেলা আন্তর্জাতিক প্রকাশনা জগতের কাছে এশিয়ার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ প্রকাশনা ইভেন্ট হিসেবে পরিচিত।[৫৭]

অবকাঠামো[সম্পাদনা]

পরিবহন[সম্পাদনা]

তেহরানের জাতীয় সড়ক এবং বিমান রুটের ক্ষেত্রে ইরানের শহরগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি মধ্যবর্তীতা এবং ঘনিষ্ঠতার কেন্দ্রবিন্দু রয়েছে।[৫৮]

সড়ক পরিবহন[সম্পাদনা]

১৯৭৮ সালে ইসলামী বিপ্লবের পর, রাজনৈতিক ব্যবস্থা সাংবিধানিক রাজতন্ত্র থেকে ইসলামী প্রজাতন্ত্রে পরিবর্তিত হয়। তারপর দেশে রাজনৈতিক ক্ষমতা নির্মাণের পরিবর্তন প্রয়োজন ছিল যাতে ইরানে রাজনৈতিক ক্ষমতার সিদ্ধান্ত গ্রহণকারী কেন্দ্রগুলোর নতুন বর্ণালী আবির্ভূত হয়। ইরানে এই নতুন রাজনৈতিক ক্ষমতা সিদ্ধান্ত গ্রহণকারী কেন্দ্রগুলোর উদ্দেশ্য, আকাঙ্ক্ষা এবং ক্রিয়াকলাপ, তাদের বিশেষ করে তেহরানের মাধ্যমে রাস্তা এবং জনসাধারণের স্থানগুলোর নাম পরিবর্তন করতে বাধ্য করেছিল। উদাহরণস্বরূপ, শাহাদ স্কোয়ার আজাদি স্কোয়ারে পরিবর্তিত হয় এবং পাহলভি রাস্তাটি ভ্যালিয়াসার রাস্তায় পরিবর্তিত হয়।[৫৯]

বামের চিত্রটি নওরোজের ছুটির দিনে তেহরানের দৃশ্য এবং ডানেরটি একটি কার্যদিবসের দৃশ্য।

তেহরানের বেশ কয়েকটি রাস্তার নাম আন্তর্জাতিক ব্যক্তিত্বের নামে রাখা হয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে:

  • হেনরি করবিন স্ট্রিট, মধ্য তেহরান
  • সাইমন বলিভার বুলেভার্ড, উত্তর-পশ্চিম তেহরান
  • এডওয়ার্ড ব্রাউন স্ট্রিট, তেহরান বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছে
  • গান্ধী স্ট্রিট, উত্তর তেহরান
  • মোহাম্মদ আলী জেনাহ এক্সপ্রেসওয়ে, পশ্চিম তেহরান
  • ইকবাল লাহোরি স্ট্রিট, পূর্ব তেহরান
  • প্যাট্রিস লুমুম্বা স্ট্রিট, পশ্চিম তেহরান
  • নেলসন ম্যান্ডেলা বুলেভার্ড, উত্তর তেহরান
  • ববি স্যান্ডস স্ট্রিট , ব্রিটিশ দূতাবাসের পশ্চিম দিকে

গাড়ি[সম্পাদনা]

তেহরানের হাইব্রিড ট্যাক্সি (২০১৬)

তেহরান মিউনিসিপ্যালিটির এনভায়রনমেন্ট অ্যান্ড সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট অফিসের প্রধানের মতে, তেহরানকে প্রায় ৩০০,০০০ গাড়ি ধারণক্ষমতার জন্য ডিজাইন করা হয়েছিল, কিন্তু পাঁচ মিলিয়নেরও বেশি গাড়ি রাস্তায় রয়েছে।[৬০] স্বয়ংচালিত শিল্প সম্প্রতি বিকশিত হয়েছে, তবে আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞাগুলো পর্যায়ক্রমে উৎপাদন প্রক্রিয়াগুলোকে প্রভাবিত করে।[৬১]

স্থানীয় গণমাধ্যমের মতে, তেহরানে প্রতিদিন ২,০০,০০০ এরও বেশি ট্যাক্সি রাস্তায় চলাচল করে,[৬২] শহরটিতে বিভিন্ন ধরণের ট্যাক্সি পাওয়া যায়। শহরের নিয়মিত সবুজ এবং হলুদ ট্যাক্সির বিপরীতে বিমানবন্দর ট্যাক্সিগুলোর প্রতি কিলোমিটারে বেশি খরচ হয়।

বাস[সম্পাদনা]

তেহরানের বাস দ্রুত পরিবহন

১৯২০-এর দশক থেকে বাসগুলো শহরটিকে সেবা করে আসছে। তেহরানের পরিবহন ব্যবস্থায় প্রচলিত বাস, ট্রলিবাস এবং বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট (বিআরটি) অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। শহরের চারটি প্রধান বাস স্টেশনগুলোর মধ্যে রয়েছে দক্ষিণ টার্মিনাল, পূর্ব টার্মিনাল, পশ্চিম টার্মিনাল এবং উত্তর-মধ্য বেহাঘি টার্মিনাল।

চেকিয়ার স্কোডা দ্বারা নির্মিত ৬৫টি আর্টিকুলেটেড ট্রলিবাসের একটি বহর ব্যবহার করে ১৯৯২ সালে ট্রলিবাস সিস্টেমটি খোলা হয়েছিল।[৬৩] এটি ছিল ইরানের প্রথম ট্রলিবাস ব্যবস্থা।[৬৩] ২০০৫ সালে, ট্রলিবাসগুলো ইমাম হোসেন স্কয়ার থেকে শুরু করে পাঁচটি রুটে চলছিল।[৬৪] উত্তর-পূর্ব দিকে চলমান দুটি রুট দামাভান্দ স্ট্রিটের প্রশস্ত ক্যারেজওয়ের মাঝখানে অবস্থিত একটি বিচ্ছিন্ন বাসওয়েতে প্রায় সম্পূর্ণভাবে কাজ করে, রুটগুলোর প্রায় প্রতি ৫০০ মিটারে অবস্থিত উদ্দেশ্য-নির্মিত স্টপে থামে, কার্যকরভাবে এই রুটগুলোকে ট্রলিবাস-বিআরটি তৈরি করে (কিন্তু তারা যেমন বলা হয় না)। অন্য তিনটি ট্রলিবাস রুট দক্ষিণে চলে এবং মিশ্র যানবাহনে চলাচল করে। উভয় রুট বিভাগ সীমিত-স্টপ পরিষেবা এবং স্থানীয় (সমস্ত স্টপ তৈরি করে) পরিষেবা দ্বারা পরিবেশিত হয়।[৬৪] শুশ স্কয়ার থেকে রাহ আহান স্কোয়ার পর্যন্ত একটি ৩.২ কিলোমিটার সম্প্রসারণ ২০১০ সালের মার্চ মাসে খোলা হয়েছিল।[৬৫]

২০০৮ সালে তেহরানের বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট (বিআরটি) আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করা হয়। শহরের বিভিন্ন অঞ্চলে প্রায় ২১৫ টি স্টেশন সহ এটিতে ১০ টি লাইন রয়েছে। ২০১১ সালের হিসাবে, বিআরটি সিস্টেমের ১০০ কিলোমিটার (৬২ মাইল) নেটওয়ার্ক ছিল, যা দৈনিক ভিত্তিতে ১.৮ মিলিয়ন যাত্রী পরিবহন করে।

সাইকেল[সম্পাদনা]

তেহরানের একটি BDOOD স্টেশন

বিডোড হচ্ছে ইরানের একটি ডকলেস বাইক-শেয়ারিং কোম্পানি। ২০১৭ সালে প্রতিষ্ঠিত এও কোম্পানিটি রাজধানী তেহরানের মধ্য ও উত্তর-পশ্চিম অঞ্চলে উপলব্ধ। সংস্থাটি ভবিষ্যতে শহর জুড়ে প্রসারিত করার পরিকল্পনা করেছে

প্রথম পর্যায়ে, অ্যাপ্লিকেশনটি তেহরানের সমতল এলাকাগুলোকে আচ্ছাদিত করে এবং তারা খারাপ আবহাওয়ায় ব্যবহারের বাইরে থাকবে।

রাইডাররা এনকেল্যাব এভিনিউ, কেশবরজ বুলেভার্ড, বেহেস্তি স্ট্রিট এবং মোতাহারী অ্যাভিনিউ জুড়ে বাইকগুলোর জন্য ২৯ টি পার্কিং লট ব্যবহার করতে পারে যেখানে বাইকগুলো আরোহীদের জন্য ২৪/৭ উপলব্ধ।

রেলওয়ে[সম্পাদনা]

তেহরানের রেলওয়ে স্টেশন
মায়দান-ই সানআত মেট্রো স্টেশন

তেহরানের একটি কেন্দ্রীয় রেলওয়ে স্টেশন রয়েছে যা দেশের বিভিন্ন শহরের সাথে চব্বিশ ঘন্টা পরিষেবাগুলোকে সংযুক্ত করে, পাশাপাশি একটি তেহরান-ইউরোপ রেল লাইনও চলছে।

১৯৭০-এর দশকে তেহরানের সাবওয়ে সিস্টেম নির্মাণের সম্ভাব্যতা অধ্যয়ন এবং ধারণাগত পরিকল্পনা শুরু হয়েছিল। আটটি প্রস্তাবিত মেট্রো লাইনের মধ্যে প্রথম দুটি ২০০১ সালে খোলা হয়েছিল।

তেহরান মেট্রো লাইনের তালিকা
লাইন চালু[৬৬] দৈর্ঘ্য স্টেশন[৬৭] টাইপ
২০০১ ৭০ কিমি (৪৩ মা)[৬৮] ৩২[৬৮][৬৯] মেট্রো
২০০০ ২৬ কিমি (১৬ মা)[৭০] ২২[৬৯][৭০] মেট্রো
২০১২ ৩৭ কিমি (২৩ মা)[৭১] ২৪[৬৯][৭১] মেট্রো
২০০৮ ২২ কিমি (১৪ মা)[৭২] ২২[৭২] মেট্রো
১৯৯৯ ৪৩ কিমি (২৭ মা)[৭৩] ১১[৭৩][৭৪] কমিউটার রেল
২০১৯ ৯ কিমি (৫.৬ মা)[৭৫] মেট্রো
২০১৭ ১৩.৫ কিমি (৮.৪ মা)[৭৬] মেট্রো
মেট্রো সাবটোটাল: ১৭৭.৫ কিমি (১১০ মা) ১১১
মোট: ২২০.৫ কিমি (১৩৭ মা) ১২২

বিমানবন্দর[সম্পাদনা]

২০০৮ সালে খোমেনি বিমানবন্দরের প্রবেশপথ।

তেহরান শহরের বিমান পরিষেবা মেহরাবাদ এবং খোমেনির আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর দ্বারা পরিবেশিত হয়। মেহরাবাদ বিমানবন্দর, পশ্চিম তেহরানের একটি পুরানো বিমানবন্দর যা একটি সামরিক ঘাঁটি হিসাবে ব্যবহৃত হওয়ার পাশাপাশি মূলত অভ্যন্তরীণ এবং চার্টার ফ্লাইটের জন্য ব্যবহৃত হয়। খোমেনি বিমানবন্দর শহর থেকে ৫০ কিলোমিটার (৩১ মাইল) দক্ষিণে অবস্থিত। এটি প্রধান আন্তর্জাতিক ফ্লাইট পরিচালনা করে।

পার্ক এবং সবুজ স্থান[সম্পাদনা]

সিটি পার্ক, মার্চ ২০০৮
রাতে জল এবং ফায়ার পার্ক, ফেব্রুয়ারি ২০১০

তেহরানের মেট্রোপলিসের মধ্যে ২,১০০ টিরও বেশি পার্ক রয়েছে,[৭৭] যার মধ্যে একটি প্রাচীনতম জামশিদি পার্ক, যা প্রথমে কাজার রাজপুত্র জামশিদ দাভাল্লুর জন্য একটি ব্যক্তিগত বাগান হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল এবং তারপরে ইরানের শেষ সম্রাজ্ঞী ফারাহ পাহলভিকে উৎসর্গ করা হয়েছিল। তেহরানের মধ্যে মোট সবুজ স্থানটি ১২,৬০০ হেক্টরের বেশি বিস্তৃত, যা শহরের ২০ শতাংশের বেশি এলাকা জুড়ে রয়েছে। তেহরানের পার্কস অ্যান্ড গ্রিন স্পেস অর্গানাইজেশন ১৯৬০ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল এবং এটি শহরে উপস্থিত শহুরে প্রকৃতির সুরক্ষার জন্য দায়ী।[৭৮]

তেহরানের বার্ডস গার্ডেন হচ্ছে ইরানের সবচেয়ে বড় বার্ড পার্ক। তেহরান-কারাজ এক্সপ্রেসওয়েতে অবস্থিত একটি চিড়িয়াখানাও রয়েছে, যেখানে প্রায় পাঁচ হেক্টর এলাকার মধ্যে ২৯০ টিরও বেশি প্রজাতি বাস করে।[৭৯]

২০০৯ সালে, আব-ও-আতশ পার্ক ("পানি ও আগুন পার্ক") প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। এর প্রধান বৈশিষ্ট্যগুলো হল গরম জলবায়ুতে শীতল করার জন্য একটি খোলা জলের ফোয়ারা এলাকা, ফায়ার টাওয়ার এবং একটি অ্যাম্ফিথিয়েটার।[৮০]

শক্তি[সম্পাদনা]

পানি[সম্পাদনা]

২০১৭ সালে তেহরান প্রদেশে বিশুদ্ধ পানির উৎস

১৩ মিলিয়নেরও বেশি জনসংখ্যার বৃহত্তর তেহরান শহরের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের লার নদীর উপর লার বাঁধ, উত্তরে জাজরুদ নদীর উপর লাতিয়ান বাঁধ, উত্তর-পশ্চিমের কারাজ নদী এবং সেইসাথে শহরের আশেপাশের ভূগর্ভস্থ জল দ্বারা সরবরাহ করা হয়।

সৌরশক্তি[সম্পাদনা]

তেহরানের পারডিসান পার্কে সবুজ বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য সোলার প্যানেল স্থাপন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন পরিবেশ বিভাগের প্রধান মাসুমেহ এবতেকার।

জাতীয় শক্তি রোডম্যাপ অনুসারে, সরকার ২০২৫ সালের শেষের দিকে বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলোর নামমাত্র ক্ষমতা ৭৪ গিগাওয়াট থেকে বাড়িয়ে ১২০ গিগাওয়াটেরও বেশি করার জন্য সবুজ প্রযুক্তির প্রচার করার পরিকল্পনা করেছে।[৮১]

শিক্ষা[সম্পাদনা]

তেহরান ইরানের বৃহত্তম এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ শিক্ষা কেন্দ্র। বৃহত্তর তেহরানে প্রায় ৫০টি প্রধান কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে।

তেহরান বিশ্ববিদ্যালয় ইরানের প্রাচীনতম আধুনিক বিশ্ববিদ্যালয়।

ঊনবিংশ শতাব্দীর মাঝামাঝি সময়ে আমির কবিরের আদেশে দার ওল ফোনুন প্রতিষ্ঠার পর থেকে তেহরান বিপুল সংখ্যক উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছে। এর মধ্যে কয়েকটি প্রতিষ্ঠান ইরানি রাজনৈতিক ঘটনা উন্মোচনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। স্যামুয়েল এম জর্ডান, যার নামে তেহরানের জর্ডান এভিনিউ নামকরণ করা হয়েছিল, তিনি তেহরানের আমেরিকান কলেজের প্রতিষ্ঠাতা পথিকৃৎদের মধ্যে একজন ছিলেন, যা মধ্য প্রাচ্যের প্রথম আধুনিক উচ্চ বিদ্যালয়গুলোর মধ্যে একটি ছিল।

তেহরানে অবস্থিত প্রধান শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে আমিরকাবির ইউনিভার্সিটি অফ টেকনোলজি (তেহরান পলিটেকনিক), তেহরান বিশ্ববিদ্যালয়, শরিফ ইউনিভার্সিটি অফ টেকনোলজি এবং তেহরান ইউনিভার্সিটি অফ মেডিকেল সায়েন্সেস সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ। তেহরানে অবস্থিত অন্যান্য প্রধান বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে রয়েছে তেহরান ইউনিভার্সিটি অফ আর্ট, আল্লামেহ তাবাতাবেই বিশ্ববিদ্যালয়, কে. এন. টুসি ইউনিভার্সিটি অফ টেকনোলজি, শহীদ বেহেস্তি বিশ্ববিদ্যালয় (মেলি বিশ্ববিদ্যালয়), খারাজমি বিশ্ববিদ্যালয়, ইরান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, ইরান ইউনিভার্সিটি অফ মেডিকেল সায়েন্সেস, ইসলামিক আজাদ বিশ্ববিদ্যালয়, ইন্টারন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ ভূমিকম্প প্রকৌশল ও সিসমোলজি, ইরানের পলিমার এবং পেট্রোকেমিক্যাল ইনস্টিটিউট, শাহেদ বিশ্ববিদ্যালয় এবং তারবিয়াত মোদারেস বিশ্ববিদ্যালয়।

তেহরানে ইরানের বৃহত্তম সামরিক একাডেমি এবং বেশ কয়েকটি ধর্মীয় স্কুল ও সেমিনারিও রয়েছে।

সংস্কৃতি[সম্পাদনা]

স্থাপত্য[সম্পাদনা]

তেহরানের প্রাচীনতম স্থাপত্য নিদর্শনগুলো কাজার এবং পাহলভি যুগের। বৃহত্তর তেহরানে সেলজুক যুগের স্মৃতিস্তম্ভগুলোও রয়ে গেছে; বিশেষ করে রেই-তে টকরোল টাওয়ার। প্রাচীন পার্থিয়ান সাম্রাজ্যের সময়কার রাশকান দুর্গ, যার মধ্যে কিছু নিদর্শন জাতীয় জাদুঘরে রাখা হয়েছে;[৮২] এবং সাসানীয় সাম্রাজ্য থেকে রয়ে যাওয়া বাহরাম অগ্নি মন্দির প্রসিদ্ধ।

অষ্টাদশ শতাব্দীর শেষের দিকে তেহরানের জনসংখ্যা খুব কম ছিল, তবে রাজধানী শহর হিসাবে নির্বাচিত হওয়ার পরে ইরানি সমাজে আরও উল্লেখযোগ্য ভূমিকা নিতে শুরু করে। কাজার যুগে এবং তার পরে ভূমিকম্পের নিয়মিত ঘটনা সত্ত্বেও, কিছু ঐতিহাসিক ভবন সেই যুগের রয়ে গেছে।[৮৩]

তেহরান হল ইরানের সর্বপ্রধান নগরী, এবং এটিকে দেশের সবচেয়ে আধুনিক অবকাঠামো বলে মনে করা হয়। যাইহোক, পুরানো পাড়াগুলোর মৃদুকরণ এবং সাংস্কৃতিক তাত্পর্যের ভবনগুলো ভেঙে ফেলা উদ্বেগ সৃষ্টি করেছে।[৮৪]

২০১০ সালের ফেব্রুয়ারিতে কাইটারি স্কাইলাইন

পূর্বে এই অঞ্চলে ভূমিকম্পের ক্রিয়াকলাপের কারণে একটি নিম্ন-বৃদ্ধি শহর, তেহরানের আধুনিক উচ্চ বৃদ্ধি উন্নয়নগুলো সাম্প্রতিক দশকগুলোতে তার ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার সেবা করার জন্য নির্মিত হয়েছে। ১৮৩০ সালের পর থেকে তেহরানে বড় ধরনের কোনো ভূমিকম্প হয়নি।[৮৫]

তেহরান ইন্টারন্যাশনাল টাওয়ার হচ্ছে ইরানের সবচেয়ে উঁচু আকাশচুম্বী ভবন। এটি ৫৪ তলা লম্বা এবং উত্তরের ইউসেফ আবাদ জেলায় অবস্থিত।

পাহলভি রাজবংশের শাসনামলে নির্মিত একটি স্মৃতিসৌধ আজাদি মিনার দীর্ঘদিন ধরে তেহরানের সবচেয়ে বিখ্যাত প্রতীক। মূলত ইরানের ইম্পেরিয়াল স্টেট প্রতিষ্ঠার ২,৫০০ তম বছরের স্মরণে নির্মিত, এটি হাখমানেশি এবং সাসানীয় যুগের স্থাপত্যের উপাদানগুলোকে পোস্ট-ক্লাসিক্যাল ইরানি স্থাপত্যের সাথে একত্রিত করে। মিলাদ টাওয়ার, যা বিশ্বের ষষ্ঠ উচ্চতম টাওয়ার[৮৬] এবং ২৪ তম-উচ্চতম ফ্রিস্ট্যান্ডিং কাঠামো, মিলাদ টাওয়ার এটি শহরের অন্যান্য বিখ্যাত ল্যান্ডমার্ক টাওয়ার। লেইলা আরাঘিয়ানের তাবিয়াত সেতু, তেহরানের বৃহত্তম পথচারী ওভারপাস, ২০১৪ সালে সম্পন্ন হয়েছিল এবং এটি একটি ল্যান্ডমার্ক হিসাবেও বিবেচিত হয়।[১০]

থিয়েটার[সম্পাদনা]

রৌদাকি হল, তেহরান

কাজারদের শাসনামলে, তেহরান টেলিস্তান প্রাসাদের দক্ষিণ-পূর্বে অবস্থিত টেকি ডোলাটের রাজকীয় থিয়েটারের আবাসস্থল ছিল, যেখানে ঐতিহ্যগত এবং ধর্মীয় অনুষ্ঠান পালন করা হয়েছিল। রেজা শাহের শাসনামলে সংস্কারের পর ১৯৪৭ সালে এটি ভেঙে ফেলা হয় এবং একটি ব্যাংক ভবন দিয়ে প্রতিস্থাপিত করা হয়।

১৯৭৯ সালের বিপ্লবের আগে, ইরানি জাতীয় মঞ্চটি মধ্য প্রাচ্যের পরিচিত আন্তর্জাতিক শিল্পী[৮৭] এবং দলগুলোর জন্য সবচেয়ে বিখ্যাত পারফর্মিং দৃশ্যে পরিণত হয়েছিল, তেহরানের রুদাকি হলটি অপেরা এবং ব্যালে জাতীয় মঞ্চ হিসাবে কাজ করার জন্য নির্মিত হয়েছিল। ১৯৬৭ সালের অক্টোবরে বিশিষ্ট ফার্সি কবি রুদাকির নামানুসারে হলটি উদ্বোধন করা হয়। এটি তেহরান সিম্ফনি অর্কেস্ট্রা, তেহরান অপেরা অর্কেস্ট্রা এবং ইরানি ন্যাশনাল ব্যালে কোম্পানির আবাসস্থল।

তেহরানের সিটি থিয়েটার, ইরানের বৃহত্তম থিয়েটার কমপ্লেক্সগুলোর মধ্যে একটি, যেখানে বেশ কয়েকটি পারফরম্যান্স হল রয়েছে, ১৯৭২ সালে খোলা হয়েছিল। এটি সম্রাজ্ঞী ফারাহ পাহলভির উদ্যোগ ও প্রেসিডেন্সিতে নির্মিত হয়েছিল এবং স্থপতি আলি সর্দার আফখামি দ্বারা ডিজাইন করা হয়েছিল, যা পাঁচ বছরের মধ্যে নির্মিত হয়েছিল।

ফজর থিয়েটার ফেস্টিভ্যাল এবং তেহরান পাপেট থিয়েটার ফেস্টিভ্যালের বার্ষিক ইভেন্ট তেহরানে অনুষ্ঠিত হয়।

সিনেমা[সম্পাদনা]

ফেরদৌস গার্ডেনে রয়েছে ইরানের সিনেমা জাদুঘর।

১৯০৪ সালে মির্জা ইব্রাহিম খান[৮৮] তেহরানের প্রথম চলচ্চিত্র থিয়েটার প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৩০-এর দশকের গোড়ার দিকে, তেহরান প্রদেশে ১৫ টি এবং অন্যান্য প্রদেশে ১১ টি থিয়েটার ছিল।[৮৯]

বর্তমান তেহরানে, বেশিরভাগ সিনেমা হলগুলো শহরের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত। কৌরোশ সিনেমা, মেল্লট গ্যালারি এবং সিনেপ্লেক্স, আজাদি সিনেমা এবং সিনেমা ফারহানগের কমপ্লেক্সগুলো তেহরানের সবচেয়ে জনপ্রিয় সিনেমা কমপ্লেক্সগুলোর মধ্যে অন্যতম।

তেহরানে বেশ কয়েকটি চলচ্চিত্র উৎসব অনুষ্ঠিত হয়, যার মধ্যে রয়েছে ফজর চলচ্চিত্র উৎসব, শিশু ও যুব চলচ্চিত্র উৎসব, হাউস অফ সিনেমা ফেস্টিভাল, মোবাইল ফিল্ম অ্যান্ড ফটো ফেস্টিভ্যাল, নাহাল ফেস্টিভ্যাল, রোশদ চলচ্চিত্র উৎসব, তেহরান অ্যানিমেশন ফেস্টিভ্যাল, তেহরান শর্ট ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল এবং আরবান ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল।

কনসার্ট[সম্পাদনা]

তেহরানে বিভিন্ন ধরনের কনসার্ট হল রয়েছে। রুদাকি কালচার অ্যান্ড আর্ট ফাউন্ডেশনের মতো একটি সংস্থার পাঁচটি ভিন্ন স্থান রয়েছে যেখানে বছরে ৫০০টিরও বেশি কনসার্ট অনুষ্ঠিত হয়। ভাহদাত হল, রুদাকি হল, ফেরদৌসি হল, হাফেজ হল এবং আজাদি থিয়েটার তেহরানের শীর্ষ পাঁচটি স্থান, যেখানে ধ্রুপদী, পপ, ঐতিহ্যবাহী, রক বা একক কনসার্ট অনুষ্ঠিত হয়।[৯০]

খেলাধুলা[সম্পাদনা]

ইরানের বৃহত্তম স্কি রিসোর্ট দিজিন তেহরানের কাছে অবস্থিত।

ফুটবল এবং ভলিবল হল শহরের সবচেয়ে জনপ্রিয় খেলা, অন্যদিকে কুস্তি, বাস্কেটবল এবং ফুটসালও শহরের ক্রীড়া সংস্কৃতির প্রধান অংশ।

ইরানে ১২টি স্কি রিসোর্ট চালু রয়েছে, যার মধ্যে সবচেয়ে বিখ্যাত হচ্ছে তোচল, দিজিন এবং শেমশাক, সবগুলোই তেহরান শহর থেকে এক থেকে তিন ঘণ্টার মধ্যে।

তোচলের রিসোর্টটি সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৩,৭৩০ মিটার (১২,২৪০ ফুট) উপরে অবস্থিত বিশ্বের পঞ্চম সর্বোচ্চ স্কি রিসোর্ট। এটি একটি রাজধানী শহরের নিকটতম স্কি রিসোর্ট। রিসোর্টটি ১৯৭৯ সালের বিপ্লবের কিছুদিন আগে ১৯৭৬ সালে খোলা হয়েছিল। এটি একটি ৮-কিলোমিটার (৫ মা) দীর্ঘ গন্ডোলা লিফট দিয়ে সজ্জিত যা একটি বিশাল উল্লম্ব দূরত্ব অতিক্রম করে।[৯১] তোচালে দুটি সমান্তরাল চেয়ার স্কি লিফট রয়েছে যা তোচালের শিখরের কাছে ৩,৯০০ মিটার (১২,৮০০ ফুট) উচ্চতায় পৌঁছায় (৪,০০০ মি/১৩,০০০ ফু), গন্ডোলার ৭ম স্টেশনের চেয়ে বেশি, যা ইউরোপীয় স্কি রিসর্টগুলোর চেয়ে বেশি। তোচল শৃঙ্গ থেকে, আলবোর্জ পর্বতমালার দৃশ্য রয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে ৫,৬১০-মিটার (১৮,৪০৬ ফু) উঁচু দামাভান্দ পর্বত। এটি একটি সুপ্ত আগ্নেয়গিরি।

আজাদি স্টেডিয়াম পশ্চিম এশিয়ার সবচেয়ে বড় ফুটবল স্টেডিয়াম।

তেহরান হল আজাদির জাতীয় স্টেডিয়ামের স্থান, যা ধারণক্ষমতার দিক থেকে পশ্চিম এশিয়ার সবচেয়ে বড় স্টেডিয়াম, যেখানে ইরানের প্রিমিয়ার লিগের শীর্ষ স্থানীয় অনেক ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়। স্টেডিয়ামটি আজাদী স্পোর্টস কমপ্লেক্সের একটি অংশ, যা মূলত ১৯৭৪ সালের সেপ্টেম্বরে ৭ম এশিয়ান গেমস আয়োজনের জন্য নির্মিত হয়েছিল। এই প্রথম পশ্চিম এশিয়ায় এশিয়ান গেমসের আয়োজন করা হল। তেহরান ২৫টি দেশ/এনওসি থেকে ৩,০১০ জন ক্রীড়াবিদকে হোস্ট করেছে, যা সেই সময় গেমস শুরু হওয়ার পর থেকে সর্বোচ্চ সংখ্যক অংশগ্রহণকারী ছিল।[৯২] এরপর ১৯৭৬ সালের জুনে ৬ষ্ঠ এএফসি এশিয়ান কাপ এবং ১৯৯৭ সালের নভেম্বরে প্রথম ওয়েস্ট এশিয়ান গেমস অনুষ্ঠিত হয়। গেমসের সাফল্যের ফলে ওয়েস্ট এশিয়ান গেমস ফেডারেশন (WAGF) তৈরি হয় এবং প্রতি দুই বছর অন্তর গেমস আয়োজনের ইচ্ছা তৈরি হয়।[৯৩] শহরটি ১৯৬৮ এএফসি এশিয়ান কাপের ফাইনালও আয়োজন করেছিল। তেহরানে এফআইভিবি ভলিবল ওয়ার্ল্ড লিগের বেশ কয়েকটি কোর্সও আয়োজন করা হয়েছে।

ফুটবল ক্লাব[সম্পাদনা]

তেহরানের প্রথম ফুটবল ক্লাব ইরান ক্লাব ১৯২০ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল এবং ১৯২৩ সালে দুই বছরের মধ্যে ভেঙে দেওয়া হয়েছিল। বর্তমানে তেহরানের প্রাচীনতম ফুটবল ক্লাব হচ্ছে রাহ আহান, যা ১৯৩৭ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। পারসেপোলিস এবং এস্তেঘলাল, যা শহরের বৃহত্তম ক্লাব এবং এশিয়ার দুটি বৃহত্তম ক্লাব, তেহরান ডার্বিতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে। তেহরান এফ.সি আরারাত তেহরানের আবাসস্থল, আরারাত স্টেডিয়াম ভিত্তিক একটি জনপ্রিয় আর্মেনিয়ান ফুটবল দল।

নিচের সারণীতে তেহরানের ছয়টি প্রধান ফুটবল ক্লাবের তালিকা রয়েছে।

ক্লাব খেলা প্রতিষ্ঠিত লীগ
আরারাত এফসি ফুটবল ১৯৪৪ তেহরান প্রদেশ লীগ
এস্তেঘলাল এফসি[৯৪] ফুটবল ১৯৪৫ ইরান প্রো লিগ (আইপিএল)
স্টিল আজিন এফসি ফুটবল ২০০৭ ইরান ফুটবলের ৩য় বিভাগ
পার্সেপোলিস এফসি[৯৫] ফুটবল ১৯৬৭ ইরান প্রো লিগ (আইপিএল)
পেকান এফসি ফুটবল ১৯৬৭ ইরান প্রো লিগ (আইপিএল)

তেহরানে অবস্থিত ছোট ক্লাবগুলো নীচে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে।

ক্লাব খেলা লীগ
বাদরান এফসি ফুটবল আজাদেগান লীগ
পারসেহ এফসি ফুটবল আজাদেগান লীগ
নিরু জমিনী এফসি ফুটবল ২য় বিভাগ
কাভেহ এফসি ফুটবল ২য় বিভাগ
মোঘাভেমত এফসি ফুটবল ২য় বিভাগ
ওঘব এফসি ফুটবল ৩য় বিভাগ
এনতেজাম এফসি ফুটবল ৩য় বিভাগ
নাফটুন এফসি ফুটবল ৩য় বিভাগ

খাদ্য[সম্পাদনা]

তেহরানে অনেক রেস্তোঁরা এবং ক্যাফে রয়েছে, উভয় আধুনিক এবং ক্লাসিক, উভয় ইরানি এবং বিশ্বজনীন রন্ধনপ্রণালী পরিবেশন করে। পিজেরিয়াস, স্যান্ডউইচ বার এবং কাবাবের দোকানগুলি তেহরানের বেশিরভাগ খাবারের দোকান তৈরি করে।[৯৬]

গ্রাফিতি[সম্পাদনা]

২০১৬ সালের ডকুমেন্টারি ফিল্ম রাইটিং অন দ্য সিটি থেকে একটি দৃশ্য, তেহরানের সা'আদত আবাদে গ্রাফিতি দেখাচ্ছে

তেহরানে গ্রাফিতির অনেক শৈলী দেখা যায়। এর মধ্যে কিছু হচ্ছে সরকারি সংগঠন দ্বারা আঁকা রাজনৈতিক ও বৈপ্লবিক শ্লোগান,[৯৭] এবং কিছু হচ্ছে সাধারণ নাগরিকদের শিল্পকর্ম, যা সামাজিক ও রাজনৈতিক উভয় বিষয়েই তাদের মতামতের প্রতিনিধিত্ব করে। যাইহোক, অনুমোদনহীন স্ট্রিট আর্ট নিষিদ্ধ,[৯৭] এবং এই ধরনের কাজ সাধারণত স্বল্পকালীন হয়।

২০০৯ সালের ইরানি রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের বিক্ষোভের সময়, সবুজ আন্দোলনের সমর্থকেরা অনেক গ্রাফিতি অঙ্কন করেছিল। আধাসামরিক বাসিজ বাহিনী তাদের দেয়াল থেকে সরিয়ে দেয়।[৯৮]

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে তেহরান মিউনিসিপ্যালিটি শহরটিকে সুন্দর করার জন্য গ্রাফিতি ব্যবহার করছে। তেহরানে বেশ কয়েকটি গ্রাফিতি উৎসবও অনুষ্ঠিত হয়েছে, যার মধ্যে ২০১৪ সালের অক্টোবরে তেহরান ইউনিভার্সিটি অফ আর্ট দ্বারা আয়োজিত একটি উৎসবও রয়েছে।[৯৯]

যমজ শহর – বোন শহর[সম্পাদনা]

নিম্নোক্ত শহরগুলো তেহরানের যমজ শহর বা বোন শহর হিসেবে পরিচিত:[১০০]

সহযোগিতা চুক্তি[সম্পাদনা]

তেহরানের সাথে নিম্নোক্ত শহরগুলোর সাথে সহযোগিতা চুক্তি রয়েছে:

বিস্তৃত দৃশ্য[সম্পাদনা]

রাতের তেহরানের একটি প্যানোরামিক দৃশ্য
দিনের বেলায় তেহরানের একটি প্যানোরামিক দৃশ্য
বসন্তের এক দিনে তেহরানের একটি প্যানোরামিক দৃশ্য
দিনের বেলায় তেহরানের একটি প্যানোরামিক দৃশ্য
একটি পরিষ্কার দিনে তেহরানের একটি প্যানোরামিক দৃশ্য

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "City of Tehran Statisticalyearbook" (PDF)। ২০২১-০৪-১৩ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৪-১৩ 
  2. Tehran, Environment & Geography ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০১৫-১১-১৭ তারিখে. Tehran.ir.
  3. "Statistical Center of Iran > Home" (PDF)। ২০২১-০৪-১৩ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৪-১৩ 
  4. "Major Agglomerations of the World - Population Statistics and Maps"citypopulation.de। ২০১৮-০৯-১৩। ২০১৮-০৯-১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  5. Urban population: Data for Tehran County. ~97.5% of county population live in Tehran city
    Metro population: Estimate on base of census data, includes central part of Tehran province and Karaj County and Fardis from Alborz province
  6. SI ee List of metropolitan areas in Asia.
  7. "The world's largest cities and urban areas in 2006"City Mayors। ২০২০-০৬-০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৯-২৫ 
  8. Erdösy, George. (১৯৯৫)। The Indo-Aryans of ancient South Asia: Language, material culture and ethnicity। Walter de Gruyter। পৃষ্ঠা 165। 
  9. Encyclopædia Britannica 
  10. "Tabiat Pedestrian Bridge / Diba Tensile Architecture"ArchDaily। নভেম্বর ১৭, ২০১৪। সেপ্টেম্বর ২৩, ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ অক্টোবর ১২, ২০১৫ 
  11. "چنددرصد تهرانی‌ها در تهران به دنیا آمده‌اند؟"tabnak.ir (ফার্সি ভাষায়)। নভেম্বর ৩, ২০১০। ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ১৮, ২০১০ 
  12. Abbasi-Shavazi, Mohammad Jalal; McDonald, Peter; Hosseini-Chavoshi, Meimanat. (সেপ্টেম্বর ৩০, ২০০৯)। "Region of Residence"। The Fertility Transition in Iran: Revolution and Reproduction। Springer। পৃষ্ঠা 100–101। 
  13. Schuppe, Mareike. (২০০৮)। Coping with Growth in Tehran: Strategies of Development Regulation। GRIN Verlag। পৃষ্ঠা 13। 
  14. Barbaglia, Pamela. (মার্চ ২৯, ২০১৬)। "Iranian expats hard to woo as Western firms seek a foothold in Iran"Reuters। এপ্রিল ১, ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ২, ২০১৭ 
  15. Erenhouse, Ryan. (সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৬)। "Bangkok Takes Title in 2016 Mastercard Global Destinations Cities Index"MasterCard's newsroom। এপ্রিল ২৮, ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুন ১২, ২০১৭ 
  16. "Citizens of Capital Mark Tehran Day on October 6"। ২০১৮-১০-০৬। ২০১৯-০৭-০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১০-০৭ 
  17. Yahya, Zoka (১৯৭৮)। Karvand of Kasravi। Franklin। পৃষ্ঠা 273–283। 
  18. Behrooz, Samira; Karampour, Katayoun. (নভেম্বর ১৫, ২০০৮)। "A Research on Adaptation of Historic Urban Landscapes"। জুলাই ২৪, ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুন ১৮, ২০০৯ 
  19. "Tehrān - History" 
  20. Encyclopaedia of Islam: New Edition 
  21. A. Tafazolli, "In Iranian Mythology" in Encyclopædia Iranica
  22. (Bulddan, Yackubl, 276)
  23. চিসাম, হিউ, সম্পাদক (১৯১১)। "Teheran (city)"। ব্রিটিশ বিশ্বকোষ (১১তম সংস্করণ)। কেমব্রিজ ইউনিভার্সিটি প্রেস। 
  24. Amanat, Abbas (১৯৯৭)। Pivot of the Universe: Nasir Al-Din Shah Qajar and the Iranian Monarchy, 1831–1896University of California Pressআইএসবিএন 9780520083219। জানুয়ারি ১, ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ২৬, ২০১৪ 
  25. Dowling, Timothy C. (ডিসেম্বর ২, ২০১৪)। Russia at War: From the Mongol Conquest to Afghanistan, Chechnya, and BeyondABC-CLIO। পৃষ্ঠা 728–730। আইএসবিএন 978-1-59884-948-6। অক্টোবর ১২, ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ মার্চ ১৮, ২০১৬ 
  26. Vahdat Za, Vahid. (২০১১)। "Spatial Discrimination in Tehran's Modern Urban Planning 1906–1979"Journal of Planning History vol. 12 no. 1 49–62। ২০১৫-১০-১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০৪-১১ 
  27. Shirazian, Reza, Atlas-i Tehran-i Qadim, Dastan Publishing House: Tehran, 2015, P. 11
  28. Chaichian, Mohammad (২০০৯)। Town and Country in the Middle East: Iran and Egypt in the Transition to Globalization। Lexington Books। পৃষ্ঠা 95–116। আইএসবিএন 978-0-7391-2677-6 
  29. Vanstiphout, Wouter। "The Saddest City in the World"The New Town। ১৯ ডিসেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ জুন ২০১৩ 
  30. "Iran Lightens Up On Western Ways"Chicago Tribune। মে ৯, ১৯৯৩। ২০১৭-০৮-০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৮-০৬ 
  31. Buzbee, Sally.
  32. Hundley, Tom.
  33. Tools, Free Map। "Elevation Finder"www.freemaptools.com (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২০-০৫-১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০২-০২ 
  34. "Climate of Tehran"। Irantour.org। ২০০৩-০৬-১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-১১-১২ 
  35. Heavy Snowfall in Tehran (in Persian). irna.com
  36. Harrison, Frances (ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০০৫)। "Iran gripped by wintry weather"। BBC News। অক্টোবর ১১, ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ২০, ২০১২ 
  37. "Heavy Snowfall in Tehran" (ফার্সি ভাষায়)। ২০১৩-০৪-২৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৩-৩০ 
  38. "Rare snow blankets Iran's capital Tehran"। BBC News। ২০১৪-০৫-২২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০৬-০৩ 
  39. "Deadly Dust Storm Engulfs Iran's Capital"। AccuWeather। জুন ৩, ২০১৪। জুন ৩, ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুন ৩, ২০১৪ 
  40. I.R. OF IRAN SHAHREKORD METEOROLOGICAL ORGANIZATION (IN PERSIAN) ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০১৭-০৮-২৯ তারিখে. 1988–2010
  41. "Car exhaust fumes blamed for over 80% of air pollution in Tehran"। Payvand.com। ২০০৬-১১-২২। ২০১১-০৬-২৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৯-২৫ 
  42. "Motorcycles Account for 30% of Air Pollution in Tehran"। Payvand.com। ২০০৬-১১-২২। ২০১১-০১-০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-১১-১২ 
  43. Labzovskii, Lev (২ আগস্ট ২০১৯)। "Working towards confident spaceborne monitoring of carbon emissions from cities using Orbiting Carbon Observatory-2"। ২৭ জানুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জানুয়ারি ২০২০https://www.sciencedirect.com-এর মাধ্যমে। 
  44. "For Security and Administrative [sic] Reasons: Plan to Move Capital From Tehran Finalized"। Payvand.com। ২০১০-০৬-০৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৯-২৫ 
  45. "Iran Moots Shifting Capital from Tehran"। Payvand.com। ২০০৬-১১-২২। ২০১০-০৭-১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৯-২৫ 
  46. Its wider metropolitan has a population of 16 million.
  47. Encyclopædia Iranica 
  48. "Iran-Azeris"Library of Congress Country Studies। ডিসেম্বর ১৯৮৭। ২৫ জানুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৩ 
  49. "Country Study Guide-Azerbaijanis"। STRATEGIC INFORMATION AND DEVELOPMENTS-USA। ২০০৫। আইএসবিএন 9780739714768। ৪ সেপ্টেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৩ 
  50. "یک و نیم میلیون مازندرانی پایتخت نشین شدند" (ফার্সি ভাষায়)। IRNA। এপ্রিল ৩, ২০১৬। আগস্ট ২০, ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ এপ্রিল ৩০, ২০১৭ 
  51. Lakshman, Nikhil। "Indian Prime Minister in Tehran"Rediff.com। ৩ সেপ্টেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ সেপ্টেম্বর ২০১২ 
  52. Cordesman, Anthony H. (সেপ্টেম্বর ২৩, ২০০৮)। "The US, Israel, the Arab States and a Nuclear Iran. Part One: Iranian Nuclear Programs" (PDF)Center for Strategic and International Studies। ২০১০-০৮-০৬ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৯-২৫ 
  53. Chaichian, Mohammad (২০০৯)। Town and Country in the Middle East: Iran and Egypt in the Transition to Globalization। Lexington Books। পৃষ্ঠা 98–103। আইএসবিএন 978-0-7391-2677-6 
  54. "Iran blocks share price gains"BBC News। ২০০৩-০৮-০৬। ২০০৯-০১-১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০৫-২১ 
  55. Gulf News (জুন ৯, ২০১৭)। "Hopes for shopping revolution as malls sprout in Iran"। অক্টোবর ১৮, ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুন ১২, ২০১৭ 
  56. "THE 10 BEST Tehran Shopping Malls (with Photos) - TripAdvisor"www.tripadvisor.com (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২০-০৮-০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১১-৩০ 
  57. "Tehran International Book Fair"। Tibf.ir। ২০১২-০৫-১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৬-১৫ 
  58. Annamoradnejad, Rahimberdi; Annamoradnejad, Issa (২০১৯)। "Using Web Mining in the Analysis of Housing Prices: A Case study of Tehran"। IEEE: 55–60। আইএসবিএন 9781728114316ডিওআই:10.1109/icwr.2019.8765250 
  59. M, Badiei Azandehi (২০০৯-০১-০১)। "THE DISCOURSE OF STREETS' NAMING IN TEHRAN AFTER ISLAMIC REVOLUTION" (ইংরেজি ভাষায়): 72–101। 
  60. "Smogglarm i många världsstäder"Göteborgs-Posten। ২০১৫-১২-১৯। ২০১৬-০১-০২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-১২-১৯ 
  61. "'Tehran's overpopulation will cause ecological ruin'"। Payvand.com। ২০০৬-১১-২২। ২০১০-১০-২৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৩-০৪ 
  62. "Getting a cab in Tehran: Airport Taxis"Living in Tehran। ১৯ ডিসেম্বর ২০১৭। ১ জানুয়ারি ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ ডিসেম্বর ২০১৭ 
  63. Murray, Alan (2000).
  64. Trolleybus Magazine No. 265 (January–February 2006), pp. 16–17.
  65. Trolleybus Magazine No. 298 (July–August 2011), pp. 89–90.
  66. "About Metro - Metro History"। Tehran Urban & Suburban Railway Operating Company। ২০১৪-০৪-২৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০৪-২৩ 
  67. "Development of stations operating" (PDF)। Tehran Urban & Suburban Railway Operating Company। ২০ জুন ২০১১। ২৪ এপ্রিল ২০১৪ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০৪-২৩ 
  68. "خط ۱ مترو تهران و توسعه شمالي و جنوبي خط تا كهريزك"tehranmetrogroup.com (ফার্সি ভাষায়)। ২০১৫-১২-০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-১১-০৮ 
  69. "Stations"tehran.ir। ২০১৫-০৮-২৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৯-২৩ 
  70. "خط 2 متروي تهران و توسعه شرقي خط تا پايانه شرق"tehranmetrogroup.com (ফার্সি ভাষায়)। ২০১৫-১২-০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-১১-০৮ 
  71. "خط 3 مترو تهران"tehranmetrogroup.com (ফার্সি ভাষায়)। ২০১৫-১০-২৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-১১-০৮ 
  72. "خط 4 مترو تهران"tehranmetrogroup.com (ফার্সি ভাষায়)। ২০১৬-০৩-০৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-১১-০৮ 
  73. "خط 5 مترو"tehranmetrogroup.com (ফার্সি ভাষায়)। ২০১৫-১২-০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-১১-০৮ 
  74. "Final profile Tehran Metro Station Line 5" (PDF)। Tehran Urban & Suburban Railway Operating Company। ২০১৬-০৩-০৪ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৯-০৫ 
  75. "Tehran Metro Line 6 Opens"Financial Tribune (ইংরেজি ভাষায়)। ৭ এপ্রিল ২০১৯। ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জুন ২০১৯ 
  76. Barrow, Keith। "Tehran metro Line 7 inaugurated" (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-০৬-১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৬-১৫ 
  77. "Mokhtari: There are over 2,100 parks in Tehran"IRNA। ফেব্রুয়ারি ১৫, ২০১৫। জানুয়ারি ২, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ৯, ২০১৫ 
  78. "About Tehran Parks & Green Space Organization"। Municipality of Tehran। ২০১৫-১০-২৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-১১-০৯ 
  79. "The Tehran Zoological Garden"। ITTO। ২০১৬-০১-০২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-১১-০৯ 
  80. Tishineh: Iran / Tehran / Shemiran / Ab-o Atash Park
  81. "Tehran Park Gets Solar Panels"Financial Tribune (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৬-১০-১৬। ২০২০-০৮-০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১১-৩০ 
  82. Karimian, Hossein। "Anjomane Asare Melli"। Ancien Rey 
  83. "A guide to Iran – etiquette, customs, clothing and more…"Kwintessential.co.uk। ২০০৭-১০-১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-১২-১৬ 
  84. Urschel, Donna। "The Style of Tehran – Library of Congress"। Loc.gov। ২০১২-০৮-১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০৫-২১ 
  85. "Women to blame for earthquakes, says Iran cleric"The Guardian। ২০১০-০৪-১৯। ২০১৭-০২-২৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১২-১৭ 
  86. "Milad Tower, a perfect product for a perfect project"। NBN (Nasl Bartar Novin)। n.d.। নভেম্বর ১৭, ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৯-১০ 
  87. Kiann, Nima (২০১৫)। The History of Ballet in Iran। Reichert Verlag। 
  88. Mehrabi, Massoud.। "The history of Iranian cinema"। ২০১৮-০৬-২৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৬-০৯ 
  89. "Iranian Cinema: Before the Revolution"offscreen.com। নভেম্বর ১৯৯৯। ২০১৪-০২-২৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-১১-০৯ 
  90. "Tehran Day Tour | Concert in Tehran - HiPersia"hipersia.com। ২০২০-০৮-০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১১-৩০ 
  91. "Lines of Telecabin"tochal.org। ২০০৮-১১-২১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  92. "TEHRAN 1974"Olympic Council of Asia। ২০০৬-০৭-১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  93. Stokkermans, Karel (জানুয়ারি ২২, ২০১৫)। "West Asian Games"RSSSF। জুন ৪, ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ১৬, ২০০৭ 
  94. Esteqlal F.C. Official Website ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০০৭-১২-২৯ তারিখে.
  95. "Persepolis F.C. Official Website"Persepolis F.C. (ফার্সি ভাষায়)। ২০ জানুয়ারি ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  96. "Tehran Food Guide"। The City Lane। জুলাই ২৭, ২০১৫। জুলাই ২৮, ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ২৬, ২০১৫ 
  97. Cheragh Abadi, Mehrnoush. (ফেব্রুয়ারি ১০, ২০১৭)। "The fleeting freedom of street art in Tehran"। Equal Times। জুলাই ৬, ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুন ১৪, ২০১৭ 
  98. "Tehran's graffiti war"France 24। মার্চ ২, ২০১০। মার্চ ২১, ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ১৯, ২০১৪ 
  99. "دانشگاه هنر میزبان فستیوال گرافیتی" (ফার্সি ভাষায়)। Deutsche Welle। অক্টোবর ২৪, ২০১২। সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  100. "گذری بر خواهرخوانده تهران در شرق اروپا"isna.ir (ফার্সি ভাষায়)। Iranian Students' News Agency। ২০১৮-০৩-২১। ২০২১-০৫-২৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৮  উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "twins" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  101. "The Twin Cities of Oxford, Cambridge and London"oxford-royale.com। Oxford Royale Academy। ২০১৭-০২-১৬। ২০২০-০৬-১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৮ 
  102. "Gradovi pobratimi: Spisak"sarajevo.ba (বসনীয়ান ভাষায়)। Sarajevo। ২০১৯-১২-১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৮ 
  103. "Sister and Friendship Cities"seoul.go.kr। Seoul। ২০১৭-০৭-০৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৮