কেরমানশাহ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

কেরমানশাহ (ফার্সি: এই শব্দ সম্পর্কেکرمانشاه‎‎; টেমপ্লেট:Lang-sdh), এছাড়াও বাখতারান বা কারমানশাহান নামে পরিচিত, কেরমানশাহ প্রদেশ রাজশাধানী ও শহর। এটি ইরানের রাজধানী তেহরান থেকে ৫২৫ কিলোমিটার (৩২৬ মাইল) দুরে ইরানের পশ্চিম অংশে অবস্থিত। ২০১৬ সালের আদমশুমারি অনুসারে এর জনসংখ্যা ৯৪৬,৬৮১ জন (২০১৯ সালের অনুমান ১,০১৬,০০০ জন)। জনসংখ্যার বেশিরভাগ লোক দক্ষিণ কুর্দিশ ভাষায় কথা বলে। কেরমানশাহের একটি মাঝারি ও পাহাড়ী জলবায়ু রয়েছে। [১][২][৩][৪] কেরমানশাহ ইরানের বৃহত্তম কুর্দি ভাষী শহর। [৫][৬][৭] কেরমানশাহের বেশিরভাগ বাসিন্দা শিয়া মুসলিম হলেও এখানে সুন্নি মুসলিম, ইয়ারসানিজম ইত্যাদি সংখ্যালঘু রয়েছে। [৮][৯]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

৬৪০ খ্রিস্টাব্দে কেরমানশাহ আরবরা দখল করে নিয়েছিল। একাদশ শতাব্দীতে সেলজুক শাসনের অধীনে ছিল, সেসময় এটি পশ্চিম ইরান এবং সমগ্র দক্ষিণাঞ্চলীয় কুর্দিশ-জনবহুল অঞ্চলের প্রধান সাংস্কৃতিক ও বাণিজ্যিক কেন্দ্র হয়ে উঠেছে। সাফাভিডরা এই শহরটিকে সুরক্ষিত করেছিল এবং কাজাররা ফাত আলি শাহের শাসনকালে (১৭৯৭-১১৮৩৪) অটোমানদের আক্রমণ প্রতিহত করে। ১৭২৩ – ১৭২৯ এবং ১৯৩১ - ১৭৩২ এর মধ্যে কেরমানশাহ অটোমানদের দখলে ছিল।

১৯১৪ সালে ইম্পেরিয়াল রাশিয়ান সেনাবাহিনী এ এলাকাটি দখল করে এবং এরপরে ১৯১৫ সালে অটোমান সেনাবাহিনী এটি দখল করেছিল। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় ব্রিটিশ বাহিনী উসমানীয়দের বিতাড়নের জন্য সেখানে পৌঁছালে তা সরিয়ে নেওয়া হয়। ইরানী সাংবিধানিক বিপ্লবের সময়, কাজার রাজবংশের এবং সময়ের প্রজাতন্ত্র আন্দোলনে পাহ্লাভি রাজবংশ সময়কালে কেরমানশাহের একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল। ইরান-ইরাক যুদ্ধের সময় শহরটি কঠোরভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছিল এবং পুনর্নির্মাণ করা হলেও এটি এখনও পুরোপুরি পুনরুদ্ধারিত হয়নি।

কেরমানশাহে এমন একটি জলবায়ু রয়েছে যা জাগ্রোস পর্বতমালার সান্নিধ্য দ্বারা প্রচুর পরিমাণে প্রভাবিত হয়, এটিকে একটি গরম-গ্রীষ্মের ভূমধ্যসাগরীয় জলবায়ু ( সিএসএ ) হিসাবে শ্রেণীবদ্ধ করা হয়েছে। পশ্চিমের বাতাসের তুলনায় শহরের উচ্চতা এবং উন্মুক্ত অবস্থান বৃষ্টিপাতকে কিছুটা উঁচু করে তোলে ( তেহরানের দ্বিগুণেরও বেশি) তবে একই সাথে বৃষ্টিহীন গ্রীষ্মে প্রচুর দৈর্ঘ্যের তাপমাত্রার দোল তৈরি হয় যা দিনের বেলা প্রচণ্ড গরম থাকে। কেরমানশাহ বরং শীতকালীন শীত অনুভব করে এবং শরত্কালে এবং বসন্তে সাধারণত বৃষ্টিপাত হয়। শীতে কমপক্ষে কয়েক সপ্তাহ ধরে বরফ পড়তে দেখা যায়।

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

কেরমানশাহ ইরানের অন্যতম পশ্চিমা কৃষিক্ষেত্র যা শস্য, চাল, শাকসব্জী, ফলমূল এবং তেলবীজ উত্পাদন করে, তবে বর্তমানে কেরমানশাহ একটি মোটামুটি গুরুত্বপূর্ণ শিল্প নগরী হিসাবে আত্মপ্রকাশ করছে; শহরতলিতে ২৫৬ টিরও বেশি উত্পাদন ইউনিট সহ দুটি শিল্প কেন্দ্র রয়েছে। এই শিল্পগুলির মধ্যে রয়েছে পেট্রোকেমিক্যাল শোধনাগার, টেক্সটাইল উত্পাদন, খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ, গালিচা তৈরি, চিনি পরিশোধন এবং বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম ও সরঞ্জাম উত্পাদন। ১৯৩৩ সালে ব্রিটিশ সংস্থার প্রতিষ্ঠিত কেরমানশাহ তেল শোধনাগার সংস্থা (কেওআরসি) এই শহরের অন্যতম প্রধান শিল্প প্রতিষ্ঠান। সাম্প্রতিক পরিবর্তনগুলি পর ইরাক, কেরমানশাহ ইরানের প্রধান আমদানি এবং রপ্তানির দরজা হয়ে উঠেছে।

পাদটিকা[সম্পাদনা]


তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Arrest of the Assyrian leader of the Kermanshah Church in iran"। Assistnews.net। ২০১১-০৯-২৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১২-০২ 
  2. Iran Chamber society: accessed: September 2010.
  3. روزنامه سلام کرمانشاه ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২১ জুন ২০১০ তারিখে Persian (Kurdish)
  4. آشنایی با فرهنگ و نژاد استان کرمانشاه(Persian)
  5. "معاون امور عمرانی استانداری: کرمانشاه بزرگترین شهر کردنشین جهان است - ایرنا"شهرخبر। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৫-২৯ 
  6. "کرمانشاه؛ پرجمعیت ترین شهر کردنشین ایران"خبرگزاری مهر | اخبار ایران و جهان | Mehr News Agency (ফার্সি ভাষায়)। ২০১২-০৩-২৩। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৫-২৯ 
  7. "Archived copy"। ২০১৬-০৩-২৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৩-১৮ 
  8. www.justice.gov
  9. "آشنایی با فرهنگ و نژاد استان کرمانشاه"www.artkermanshah.ir। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৫-২৯