সেলজুক সাম্রাজ্য

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সেলজুক সাম্রাজ্য

১০৩৭–১১৯৪
মালিক শাহর মৃত্যুর সময় (১০৯২ সাল) সেলযুক সাম্রাজ্য
মালিক শাহর মৃত্যুর সময় (১০৯২ সাল) সেলযুক সাম্রাজ্য
অবস্থাসাম্রাজ্য
রাজধানীনিশাপুর
(১০৩৭–১০৪৩)
রে (ইরাক)
(১০৪৩–১০৫১)
এসফাহন
(১০৫১–১১১৮)
হামাদান, পশ্চিম প্রান্তের রাজধানী (১১১৮–১১৯৪)
মার্ভ, পূর্ব প্রান্তের রাজধানী (১১১৮–১১৫৩)
প্রচলিত ভাষা
সরকাররাজতন্ত্র
সুলতান 
• ১০৩৭–১০৬৩
তুঘরিল বেগ (প্রথম)
• ১১৭৪–১১৯৪
তুঘরিল তৃতীয় (শেষ)[৫][৬]
ইতিহাস 
• তুঘরিল বেগ প্রতিষ্ঠা করেন
১০৩৭
১১৯৪
আয়তন
আনু. ১০৮০[৮][৯]৩৯,০০,০০০ বর্গকিলোমিটার (১৫,০০,০০০ বর্গমাইল)
পূর্বসূরী
উত্তরসূরী
ওঘুজ ইয়াবগু রাজ্য
গজনী সাম্রাজ্য
বুয়িদ রাজবংশ
বাইজেন্টাইন সাম্রাজ্য
কায়কুয়িদ
রুম সালতানাত
আনাতোলিয়ান বেলিক
ঘুরি রাজবংশ
খোয়ারেজমীয় সাম্রাজ্য
আইয়ুবীয় রাজবংশ
আজারবাইজানের আতাবেগ
বুরি রাজবংশ
জেনগি রাজবংশ
দানিশমন্দ
আর্তুকিদ রাজবংশ
সালতুক
বর্তমানে যার অংশ

সেলজুক (বা মহান সেলজুক সাম্রাজ্য[১০] অথবা সেল্ডজুক কখনো সেলজুক তুর্ক; তুর্কী ভাষায়: Selçuklular; ফার্সি ভাষায়: سلجوقيان সেলজুকাইন; আরবি ভাষায়: سلجوق সালজুক বা السلاجقة আল-সালাজিকা) সুন্নী মুসলমান সাম্রাজ্য যারা ১০ শতক থেকে ১৪ শতক পর্যন্ত মধ্য এশিয়া এবং মধ্য প্রাচ্য শাসন করেছেন। এই মহান সাম্রাজ্যের স্থপতি সুলতান তুঘরিল বেগ । তিনি জাতিতে অঘুজ তুর্কি ছিলেন।[১১] সুলতান মালিক বেগ এর শাসনকালে এই সাম্রাজ্য অর্ধ-পৃথিবী পর্যন্ত বিস্তৃত ছিলো। এর পরবর্তীতে এই সাম্রাজ্য ভেঙ্গে ছোট ছোট আমিরাতে পরিণত হয়। এবং পরবর্তীতে মোঘল সাম্রাজ্য এই সাম্রাজ্যের উত্তরসূরি।

সেলজুক সাম্রাজ্যের শাসকরা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Savory, R. M., সম্পাদক (১৯৭৬)। Introduction to Islamic Civilisation। Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 82আইএসবিএন 0-521-20777-0 
  2. Black, Edwin (২০০৪)। Banking on Baghdad: Inside Iraq's 7,000-year History of War, Profit and Conflict। John Wiley and Sons। পৃষ্ঠা 38আইএসবিএন 0-471-67186-X 
  3. C.E. Bosworth, "Turkish Expansion towards the west" in UNESCO History of Humanity, Volume IV, titled "From the Seventh to the Sixteenth Century", UNESCO Publishing / Routledge, p. 391: "While the Arabic language retained its primacy in such spheres as law, theology and science, the culture of the Seljuk court and secular literature within the sultanate became largely Persianized; this is seen in the early adoption of Persian epic names by the Seljuk rulers (Qubād, Kay Khusraw and so on) and in the use of Persian as a literary language (Turkish must have been essentially a vehicle for everyday speech at this time)."
  4. Concise Encyclopedia of Languages of the World, Ed. Keith Brown, Sarah Ogilvie, (Elsevier Ltd., 2009), 1110; "Oghuz Turkic is first represented by Old Anatolian Turkish which was a subordinate written medium until the end of the Seljuk rule."
  5. A New General Biographical Dictionary, Vol.2, Ed. Hugh James Rose, (London, 1853), 214.
  6. Grousset, Rene, The Empire of the Steppes, (New Brunswick: Rutgers University Press, 1988), 167.
  7. Grousset, Rene (১৯৮৮)। The Empire of the Steppes। New Brunswick: Rutgers University Press। পৃষ্ঠা 159, 161। আইএসবিএন 0-8135-0627-1In 1194, Togrul III would succumb to the onslaught of the Khwarizmian Turks, who were destined at last to succeed the Seljuks to the empire of the Middle East. 
  8. Turchin, Peter; Adams, Jonathan M.; Hall, Thomas D (ডিসেম্বর ২০০৬)। "East-West Orientation of Historical Empires"Journal of world-systems research12 (2): 223। আইএসএসএন 1076-156X। সংগ্রহের তারিখ ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  9. Rein Taagepera (সেপ্টেম্বর ১৯৯৭)। "Expansion and Contraction Patterns of Large Polities: Context for Russia"International Studies Quarterly41 (3): 496। ডিওআই:10.1111/0020-8833.00053। সংগ্রহের তারিখ ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
    • A. C. S. Peacock, Great Seljuk Empire, (Edinburgh University Press, 2015), 1–378
    • Christian Lange; Songül Mecit, eds., Seljuqs: Politics, Society and Culture (Edinburgh University Press, 2012), 1–328
    • P.M. Holt; Ann K.S. Lambton, Bernard Lewis, The Cambridge History of Islam (Volume IA): The Central Islamic Lands from Pre-Islamic Times to the First World War, (Cambridge University Press, 1977), 151, 231–234
  10. * Jackson, P. (২০০২)। "Review: The History of the Seljuq Turkmens: The History of the Seljuq Turkmens"। Journal of Islamic StudiesOxford Centre for Islamic Studies13 (1): 75–76। ডিওআই:10.1093/jis/13.1.75 
    • Bosworth, C. E. (2001). 0Notes on Some Turkish Names in Abu 'l-Fadl Bayhaqi's Tarikh-i Mas'udi". Oriens, Vol. 36, 2001 (2001), pp. 299–313.
    • Dani, A. H., Masson, V. M. (Eds), Asimova, M. S. (Eds), Litvinsky, B. A. (Eds), Boaworth, C. E. (Eds). (1999). History of Civilizations of Central Asia. Motilal Banarsidass Publishers (Pvt. Ltd).
    • Hancock, I. (2006). On Romani origins and identity. The Romani Archives and Documentation Center. The University of Texas at Austin.
    • Asimov, M. S., Bosworth, C. E. (eds.). (1998). History of Civilizations of Central Asia, Vol. IV: "The Age of Achievement: AD 750 to the End of the Fifteenth Century", Part One: "The Historical, Social and Economic Setting". Multiple History Series. Paris: UNESCO Publishing.
    • Dani, A. H., Masson, V. M. (Eds), Asimova, M. S. (Eds), Litvinsky, B. A. (Eds), Boaworth, C. E. (Eds). (1999). History of Civilizations of Central Asia. Motilal Banarsidass Publishers (Pvt. Ltd).