ফরিদপুর জেলা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ফরিদপুর জেলা
Faridpur
জেলা
বাংলাদেশে Faridpur অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৩°৩০′ উত্তর ৮৯°৫০′ পূর্ব / ২৩.৫০° উত্তর ৮৯.৮৩° পূর্ব / 23.50; 89.83স্থানাঙ্ক: ২৩°৩০′ উত্তর ৮৯°৫০′ পূর্ব / ২৩.৫০° উত্তর ৮৯.৮৩° পূর্ব / 23.50; 89.83
দেশ  বাংলাদেশ
বিভাগ ঢাকা বিভাগ
আয়তন
 • মোট ২,০৭২.৭২
জনসংখ্যা (2001)
 • মোট ১৭,৪২,৭২০[১]
স্বাক্ষরতার হার
 • মোট ৪৩.৯৫%
সময় অঞ্চল বিএসটি (ইউটিসি+৬)
ওয়েবসাইট জেলা তথ্য বাতায়ন

ফরিদপুর জেলা বাংলাদেশের মধ্যাঞ্চলের ঢাকা বিভাগের একটি প্রশাসনিক অঞ্চল।

ভৌগোলিক সীমানা[সম্পাদনা]

আয়তন ২০৭২.৭২ বর্গ কিলোমিটার, ফরিদপুর জেলা ৮৯.২৯০পূর্ব হতে ৯০.১১০পূর্ব দ্রাঘিমাংশ এবং ২৩.১৭০উত্তর হতে২৩.৪০০উত্তর অক্ষাংশে অবস্থিত, উত্তরেরাজবাড়ী ও মানিকগঞ্জ জেলা, দক্ষিণেগোপালগঞ্জ জেলা, পশ্চিমে মাগুরা ওনড়াইল জেলা এবং পূর্বে মাদারীপুর ও মুন্সীগঞ্জ জেলা অবস্থিত

প্রশাসনিক এলাকাসমূহ[সম্পাদনা]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৮১৫ খ্রিস্টাব্দে ফরিদপুর জেলা গঠন করা হয়। ফরিদপুরের নামকরণ করা হয়েছে এখানকার প্রখ্যাত সুফি সাধক শাহ শেখ ফরিদুদ্দিনের নামানুসারে। এই এলাকার প্রাচীন মসজিদগুলোর মধ্যে রয়েছে গারোদা মসজিদ (১০১৩ হিজরি), পাথরাইল মসজিদ ও দিঘী *১৪৯৩-১৫১৯ খ্রিস্টাব্দ), সাতৈর মসজিদ (১৫১৯ খ্রিস্টাব্দ)। এলাকার অন্য উল্লেখযোগ্য স্থাপনা হলো ফতেহাবাদ টাঁকশাল (১৫১৯-৩২ খ্রিস্টাব্দ), মথুরাপুরের দেয়াল, জেলা জজ কোর্ট ভবন (১৮৯৯ খ্রিস্টাব্দ), এবং ভাঙ্গা মুন্সেফ কোর্ট ভবন (১৮৮৯ খ্রিস্টাব্দ), বসুদেব মন্দির ও জগবন্ধু আঙিনা।[২]

ফরিদপুর থেকে হাজি শরীয়তুল্লাহ ফরায়েজী আন্দোলন শুরু করেন। শরীয়তুল্লাহের পুত্র দুদু মিয়ার নেতৃত্বে এখানে নীল কর বিরোধী আন্দোলন হয়। জেলার প্রধান নীল কুঠিটি ছিলো আলফাডাঙা উপজেলার মীরগঞ্জে, যার ম্যানেজার ছিলেন এসি ডানলপ। গড়াই, মধুমতি ও বরশিয়া নদীর তীরে নীল চাষ হতো।

ফরিদপুরের ইতিহাস ও ঐতিহ্য: --Faridpureshop (আলাপ) ২১:৩৪, ৩০ অক্টোবর ২০১৪ (ইউটিসি)partha das, Digital center director, Sadar faridpur. সুপ্রাচীন কাল থেকেই ফরিদপুরের রয়েছে অনেক কীর্তিময় গৌরব-গাঁথা। ফরিদপুর জেলার প্রতিষ্ঠা ১৭৮৬ সালে। মতান্তরে এ জেলা প্রতিষ্ঠিত হয় ১৮১৫ (বাংলা পিডিয়া)। এর আয়াতন ২০৭২.৭২ বর্গ কিলেমিটার। উত্তরে রাজবাড়ী এবং মানিকগঞ্জ জেলা, পশ্চিমে নড়াইল, মাগুরা. দক্ষিণে গোপালগঞ্জ জেলা পূর্বে ঢাকা, মুন্সীগঞ্জ এবং মাদারীপুর জেলা। ফরিদপুর জেলায় মোট পৌরসভা ৪টি, ওয়ার্ড ৩৬টি, মহল্লা ৯২টি, ইউনিয়ন ৭৯টি, গ্রাম ১৮৫৯টি। মোট উপজেলা ৯টি। সেগুলো হচ্ছেঃ ফরিদপুর সদর, মধুখালী, বোয়ালমারী,আলফাডাঙ্গা, সালথা, নগরকান্দা, ভাঙ্গা, সদরপুর, চরভদ্রাসন। ব্রিটিশ শাসন আমলে সৃষ্ট একটি অন্যতম প্রাচীন জেলার নাম ফরিদপুর। অনেক আউলিয়া-দরবেশ, রাজনীতিক, পূণ্যাত্মার আবাসভূমি হিসেবে এ অঞ্চল অত্যন্ত সুপ্রসিদ্ধ। এ জেলার পূর্বনাম ছিল ‘‘ফতেহাবাদ’’। প্রখ্যাত সাধক এবং দরবেশ খাজা মাইনউদ্দিন চিশতী (রহঃ) এর শিষ্য শাহ ফরিদ (রহঃ) এর নামানুসারে এ জেলার নামকরণ করা হয় ফরিদপুর। ফরিদপুর জেলার প্রতিষ্ঠা সন ১৭৮৬ হলেও তখন এটির নাম ছিল জালালপুর এবং প্রধান কার্যালয় ছিল ঢাকা। ১৮০৭ খ্রিঃ ঢাকা জালালপুর হতে বিভক্ত হয়ে এটি ফরিদপুর জেলা নামে অভিহিত হয় এবং হেড কোয়ার্টার স্থাপন করা হয় ফরিদপুর শহরে। গোয়ালন্দ, ফরিদপুর সদর, মাদারীপুর ও গোপালগঞ্জ এই চারটি মহকুমা সমন্বয়ে ফরিদপুর জেলা পূর্ণাঙ্গতা পায়। বৃহত্তর ফরিদপুর জেলা পাঁচটি জেলায় রূপান্তরিত হয়েছে। জেলাগুলো হচ্ছেঃ ফরিদপুর, রাজবাড়ী, গোপালগঞ্জ, মাদারীপুর ও শরীয়তপুর। এ জেলায় হাজী শরীয়তুল্লাহর নেতৃত্বে ফরায়েজী আন্দোলন ব্যাপক প্রসার লাভ করে। এক সময় গড়াই, মধুমতি, বারাসিয়া, চন্দনা, কুমার প্রভৃতি নদীর তীরবর্তী জমিতে নীল চাষ করা হতো। আলফাডাঙ্গা ও মীরগঞ্জে প্রধান কুঠি স্থাপন করা হয়েছিল। এ জেলার ৫২টি নীল কুঠি এর অন্তর্ভূক্ত ছিল। প্রধান ম্যানেজার ছিলেন ডানলফ। অন্যান্য জেলার ন্যায় নীল বিদ্রোহ হয়েছে। এতে নেতৃত্ব দেন দুদু মিয়া। এক সময় এ জেলা বিল প্রধান জলা ভূমি এলাকা ছিল এবং পদ্মার প্লাবনে পলি মাটিতে উর্বর হতো। জেলা শহর বর্তমানে কুমার নদীর তীরে অবস্থিত। ফরিদপুর পৌরসভা সৃষ্টি হয় ১৮৬৯ সালে। ৯টি ওয়ার্ড ৩৫টি মহল্লা নিয়ে জেলা শহর গঠিত। এর আয়াতন ২০.২৩ বর্গ কিলোমিটার। প্রাচীন নিদর্শন ও প্রত্ন সম্পদের মধ্যে - গেরদা মসজিদ (হিঃ ১০১৩), পাতরাইল মসজিদ ( ১৪৯৩ -১৫১৯ খ্রিঃ), সাতৈর মসজিদ ( ১৫১৯ খ্রিঃ), বাসুদেব মন্দির, জগদবন্ধুর আঙ্গিনা, ফতেহাবাদ টাকশাল (১৫১৯-১৫৩২ খ্রিঃ), মথুরাপুর দেউল, বাইশরশি জমিদারবাড়ী, জেলা জজ কোর্ট ভবন (১৮৮৯ খ্রিঃ), ভাঙ্গা মুন্সেফ কোর্ট ভবন (১৮৮৯ খ্রিঃ) উল্লেখযোগ্য।

সুত্র : http://www.dcfaridpur.gov.bd/

প্রত্নসম্পদ[সম্পাদনা]

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

এই এলাকার অর্থনীতি মুলত পাট কেন্দ্রিক । ফরিদপুর পাট এর জন্য বিখ্যাত । ফরিদপুর বাংলাদেশ এর অন্যতম বড় নদী বন্দর। এখান থেকে পাট নদী পথে সারা দেশে চলে যেত।

চিত্তাকর্ষক স্থান[সম্পাদনা]

ফরিদপুর জেলার চিত্তাকর্ষক স্থানগুলার মদ্ধে উল্ল্যেখযোগ্য হচ্ছে,

পদ্বার চরে সূযা‌স্ত
  • নদী গবেষণা ইন্সটিটিউট
  • সুইচ গেট
  • ধলার মোড় (পদ্মার পাড়)
  • রাজেন্দ্র কলেজ (রাজেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ)
  • পদ্মা বাধ
  • পল্লী কবি জসীম উদ্দিন এর বাসভবন।
  • পদ্মা নদীর বালুচর,সি এন্ড বি ঘাট

জনসংখ্যা[সম্পাদনা]

১৭,৪২,৭২০ জন (২০০১ সালের আদম শুমারী অনুযায়ী)[১]

  • পুরুষ- ৮,৯৩,২৮০ জন
  • মহিলা- ৮,৪৯,৪৪০ জন

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান[সম্পাদনা]

মোট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা: ৪২৪, এই জেলায় শিক্ষার হার ৩৭.৪৪ %

  • বিশ্ববিদ্যালয়: ১
  • কলেজ: ৪৮
  • মাধ্যমিক বিদ্যালয়: ২৩৪
  • মেডিকাল কলেজ : ১
  • মাদ্রাসা: ১৪১
  • তারার মেলা ঈশাণ মেমরিয়াল আধুনিক শিশু বিদ্যালয়
তারার মেলা ঈশাণ মেমরিয়াল আধুনিক শিশু বিদ্যালয়(১৯৭৬)
  • ফরিদপুর জিলা স্কুল
ফরিদপুর জিলা স্কুল(১৮৪০)

প্রধান শস্য[সম্পাদনা]

ফরিদপুর জেলায় প্রধান শস্যর তালিকায় রয়েছে, ধান, পাট, গমডাল। এর মধ্যে রপ্তানী যোগ্য পণ্য পাট, পিয়াজ, ডাল, খেজুরের গুড় ইত্যাদি।

কৃতী ব্যক্তিত্ব[সম্পাদনা]

চিত্রাবলী[সম্পাদনা]

আনুষঙ্গিক নিবন্ধ[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ১.০ ১.১ বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন (জুন, ২০১৪)। "এক নজরে ফরিদপুর"। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। সংগৃহীত ২৬ জুন, ২০১৪ 
  2. ফরিদপুর জেলা, বাংলাপিডিয়া