মৌলভীবাজার জেলা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মৌলভীবাজার জেলা
প্রশাসনিক বিভাগ সিলেট
আয়তন (বর্গ কিমি) ২,৭৯৯
জনসংখ্যা মোট: ১৬,০৪,০২৮
পুরুষ: ৫০.১১%
মহিলা: ৪৯.৮৯%
শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা: বিশ্ববিদ্যালয়: ০
কলেজ : ২১
মাধ্যমিক বিদ্যালয়: ১২৩
মাদ্রাসা : ১০৮
শিক্ষার হার ৩০.৮ %
বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব সৈয়দ মুজতবা আলী
প্রধান শস্য ধান, কচু, তিল
রপ্তানী পণ্য চা, সাতকড়া, লেবু

মৌলভীবাজার জেলা বাংলাদেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের সিলেট বিভাগের একটি প্রশাসনিক অঞ্চল।

ভৌগোলিক সীমানা[সম্পাদনা]

উত্তরে সিলেট জেলার বালাগঞ্জ, ফেঞ্চুগঞ্জ, গোলাপগঞ্জ ও বিয়ানীবাজার উপজেলা; দক্ষিণে ত্রিপুরা রাজ্য (ভারত); পূর্বে কাছাড় (ভারত)এবং পশ্চিমে হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ ও বাহুবল উপজেলা। জেলার প্রধান নদ-নদী ৬ (ছয়)টি- মনু, বরাক, ধলাই, সোনাই, জুড়ী ও কুশিয়ারা।

প্রশাসনিক এলাকাসমূহ[সম্পাদনা]

ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের পার্শ্ববর্তী মৌলভীবাজার জেলার স্বাগত মিনার

এই জেলা ছয়টি উপজেলা নিয়ে গঠিত। এগুলো হল,

ইতিহাস[সম্পাদনা]

নামকরণ : হয়রত শাহ মোস্তফা (র:) এর বংশধর মৌলভী সৈয়দ কুদরতউল্লাহ অষ্টাদশ শতাব্দীর মাঝামাঝি মনু নদীর উত্তর তীরে কয়েকটি দোকানঘর স্থাপন করে ভোজ্যসামগ্রী ক্রয় বিক্রয়ের সুযোগ সৃষ্টি করেন। মৌলভী সৈয়দ কুদরতউল্লাহ প্রতিষ্ঠিত এ বাজারে নৌ ও স্থলপথে প্রতিদিন লোকসমাগম বৃদ্ধি পেতে থাকে। ক্রেতা-বিক্রেতার সমাগমের মাধ্যমে মুখে মুখে ছড়িয়ে পড়ে মৌলভীবাজারের খ্যাতি।

কীর্তিমান ব্যক্তিত্ব : হয়রত শাহ মোস্তফা (র:), মৌলভী সৈয়দ কুদরতউল্লাহ, মুক্তিযুদ্ধের বীর সেনানী হামিদুর রহমান,কবি মুজাফফর খান, সৈয়দ মুজতবা আলী, জাতীয় পরিষদ সিলেটের প্রথম মহিলা সদস্য বেগম সিরাজুন্নেসা চৌধুরী, সাবেক স্পীকার হুমায়ুন রশীদ চৌধুরী, অর্থমন্ত্রী এম সাইফুর রহমান, গবেষক ড. রঙ্গলাল সেন প্রমুখ।

মুক্তিযুদ্ধ : মুক্তিযুদ্ধে মৌলভীবাজার ছিল ৪ নং সেক্টরের অধীন। সেক্টর কমান্ডার ছিলেন সি.আর.দত্ত। রাজনগর পাঁচগাঁও এর গণহত্যা, বড়লেখা ও কুলাউড়ার বধ্যভূমিতে নারকীয় হত্যাযজ্ঞ আজও মানুষকে কাঁদায়। ৮ ডিসেম্বর মৌলভীবাজার শত্রুমুক্ত হয়।

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

চিত্তাকর্ষক স্থান[সম্পাদনা]

মৌলভীবাজার জেলায় অবস্থিত চা-কন্যা স্থাপত্য

হয়রত শাহজালাল (র:) এর অন্যতম অনুসঙ্গী হয়রত শাহ মোস্তফা (র:) এর স্মৃতি বিজড়িত মৌলভীবাজারের পুণ্যভূমি। মৌলভীবাজার শহরের কেন্দ্রস্থল বেড়ীরপাড়ের দক্ষিণ তীরে তাঁর মাজার অবস্থিত। সপ্তদশ শতকের বাংলার শেষ পাঠান বীর খাজা ওসমান মৌলভীবাজারের মাটিতে শায়িত আছেন। এ জেলার রাজনগর উপজেলার পাঁচগাঁও এর কর্মকারদের নির্মিত জাহাজে করে কালেক্টর রবার্ট লিন্ডসে ৩০০ মাইল দূরে মাদ্রাজের দূর্ভিক্ষ কবলিত এলাকায় ত্রাণ (চাউল) প্রেরণ করেছিলেন। মুক্তিযুদ্ধের বীর সেনানী হামিদুর রহমান এর রক্তস্মাত মৌলভীবাজারের মাটি। কমলগঞ্জ উপজেলার সীমান্তবর্তী গ্রাম আমবাসা-য় এ বীর শহীদ চিরনিদ্রায় শায়িত। চা শিল্পের ভান্ডার মৌলভীবাজার জেলার বিভিন্ন স্থানে রয়েছে ৯০টি চা বাগান। বড়লেখার মাধবকুন্ড জলপ্রপাত অন্যতম পর্যটন কেন্দ্র। এছাড়া দেশের সবচেয়ে বড় হাকালুকি হাওড়। ঐতিহাসিক স্থাপনা প্রাচীন খোজার মসজিদ।সিরাজনগর গাছপীর আব্রু মিয়ার মাজার,সাতগাও ইউনুছ পাগলার মাজার।শ্রীমংগলের হাইল হাওর। সাতগাও রুস্তুমপুর তমাল তলা।

আনুষঙ্গিক নিবন্ধ[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]