শিবগঞ্জ উপজেলা, বগুড়া

স্থানাঙ্ক: ২৫°১′১৫″ উত্তর ৮৯°১৯′৩″ পূর্ব / ২৫.০২০৮৩° উত্তর ৮৯.৩১৭৫০° পূর্ব / 25.02083; 89.31750
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
শিবগঞ্জ
উপজেলা
মানচিত্রে শিবগঞ্জ উপজেলা, বগুড়া
মানচিত্রে শিবগঞ্জ উপজেলা, বগুড়া
স্থানাঙ্ক: ২৫°১′১৫″ উত্তর ৮৯°১৯′৩″ পূর্ব / ২৫.০২০৮৩° উত্তর ৮৯.৩১৭৫০° পূর্ব / 25.02083; 89.31750 উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
দেশবাংলাদেশ
বিভাগরাজশাহী বিভাগ
জেলাবগুড়া জেলা
আয়তন
 • মোট৩১৫.৩৩ বর্গকিমি (১২১.৭৫ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)
 • মোট৪,২৭,৯১৩[১]
সাক্ষরতার হার
 • মোট৬৫%
সময় অঞ্চলবিএসটি (ইউটিসি+৬)
পোস্ট কোড৫৮১০ উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
প্রশাসনিক
বিভাগের কোড
৫০ ১০ ৯৪
ওয়েবসাইটদাপ্তরিক ওয়েবসাইট উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন

শিবগঞ্জ উপজেলা বাংলাদেশের বগুড়া জেলার অন্তর্গত একটি উপজেলা। প্রাচীন পুন্ড্র জনপদের রাজধানী ছিল পুন্ড্রনগর (বর্তমান নাম মহাস্থানগড়) এই উপজেলাতেই অবস্থিত।

অবস্থান ও আয়তন[সম্পাদনা]

এটি বগুড়া শহর থেকে উত্তর পশ্চিম দিকে অবস্থিত। এর মোট আয়তন প্রায় ৩১৫.৩৩ বর্গ কিলোমিটার। এ উপজেলার উত্তরে গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা, দক্ষিণে বগুড়া সদর উপজেলাকাহালু উপজেলাদুপচাঁচিয়া উপজেলা, পূর্বে সোনাতলা উপজেলাগাবতলী উপজেলা, পশ্চিমে জয়পুরহাট জেলার কালাই উপজেলাক্ষেতলাল উপজেলাবগুড়া জেলা শহর হতে ১৯ কিমিঃ উত্তরে করতোয়া, নাগর ও গাংনাই এই ৩ নদীর তীরে অবস্থিত।

প্রশাসনিক এলাকা[সম্পাদনা]

শিবগঞ্জ উপজেলায় একটি থানা ও একটি পৌরসভাসহ (শিবগঞ্জ পৌরসভা) মোট ১২ টি ইউনিয়ন পরিষদ ও ৪৩৬ টি গ্রামের সমন্বয়ে গঠিত। ইউনিয়ন পরিষদগুলো হলঃ

ইতিহাস[সম্পাদনা]

পুর্বে শিবগঞ্জ উপজেলা ছিল হিন্দু অধ্যুষিত এলাকা। সে সময় এ এলাকায় হিন্দুদের পুজাপার্বনের জন্য অসংখ্য শিবমন্দির ছিল। শিবমন্দিরকে কেন্দ্র করে বন্দর-গঞ্জ গড়ে উঠে। যার ফলশ্রূতিতে পরবর্তীতে এ উপজেলার নাম হয় শিবগঞ্জ। এ উপজেলা গঠিত হয় ১৯৮৩ সালের ২৪ মার্চ।

জনসংখ্যার উপাত্ত[সম্পাদনা]

২০১১ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী শিবগঞ্জ উপজেলার মোট জনসংখ্যা ৪,২৭,৯১৩ জন (প্রায়)। যার ২,০২,৩৮৬ জন (প্রায়) জন পুরুষ ও ২,২৫,৫২৭ জন (প্রায়) জন নারী। প্রতি কিলোমিটারে জনসংখ্যার ঘনত্ব ১,৮৪৮ জন। শিবগঞ্জ উপজেলার মোট ভোটার সংখ্যা ২,৪৫,৬৪৪ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১,১৭,৫৪০ জন ও মহিলা ভোটার ১,২৮,১০৪ জন।

শিক্ষা[সম্পাদনা]

শিক্ষার হার ৬৫% (পুরুষ ৬৮% মহিলা ৬২%)। এ উপজেলায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় আছে ১৫৭ টি, উচ্চ বিদ্যালয়ের সংখ্যা ৪৪ টি, আলিম, ফাজিল ও কামিল মাদ্রাসা আছে ২৭ টি এবং কলেজ আছে ১০ টি। সাদুরিয়া রাহমানিয়া আলিম মাদ্রাসা উপজেলার অন্যতম একটি পুরাতন মাদ্রাসা।

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

শিবগঞ্জের অর্থনীতি মূলত কৃষি নির্ভর। এখানে প্রচুর ধান ও আলু চাষ হয়। অন্যান্য ফসলের মধ্য রয়েছে ভুট্টা, গম, কলা,পাট ইত্যাদিসহ নানান দেশী-বিদেশি শাক সবজি। এছাড়া এখানে প্রচুর মাছ চাষ হয়।

একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ[সম্পাদনা]

১৯৭১ সালের ৪ এপ্রিল পাকবাহিনী ময়দানহাটার এক পরিবারের ১৬ জন সদস্যকে হত্যা করে। এছাড়া পাঁচপীর সরলপুর গ্রামে পাকবাহিনী ও মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে সম্মুখ লড়াইয়ে একজন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন।[২]

দর্শনীয় স্থান[সম্পাদনা]

মহাস্থানগড়

উল্লেখযোগ্য ব্যক্তি[সম্পাদনা]

  • প্রফুল্ল চাকী (১৮৮৮-১৯০৮), ব্রিটিশ বিরোধী আন্দলনের নেতা।
  • এম. আর. আখতার মুকুল (১৯২৯-২০০৪), লেখক এবং সাংবাদিক।
  • মোজাফফর হোসেন (১৯৪৩-২০১৮), প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য, প্রথম জাতীয় সংসদ সদস্য, তৃতীয় জাতীয় সংসদ সদস্য ও প্রতিমন্ত্রী।
  • মাহমুদুর রহমান মান্না, বাংলাদেশী রাজনীতিবিদ, সভাপতি-নাগরিক ঐক্য ৷
  • ডা রেজাউল আলম জুয়েল স্বনামধন্য চিকিৎসক ও রাজনীতিবিদ।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন (জুন ২০১৪)। "এক নজরে শিবগঞ্জ"। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। সংগ্রহের তারিখ ২৯ ডিসেম্বর ২০১৭ 
  2. "শিবগঞ্জ উপজেলা (বগুড়া)" 
  3. বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন (জুন ২০১৪)। "উপজেলার দর্শনীয় স্থান"। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। ৪ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জুলাই ২০১৪ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]