পাঁচবিবি উপজেলা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
পাঁচবিবি
উপজেলা
পাঁচবিবি বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
পাঁচবিবি
পাঁচবিবি
বাংলাদেশে পাঁচবিবি উপজেলার অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৫°১৩′ উত্তর ৮৯°৩′ পূর্ব / ২৫.২১৭° উত্তর ৮৯.০৫০° পূর্ব / 25.217; 89.050স্থানাঙ্ক: ২৫°১৩′ উত্তর ৮৯°৩′ পূর্ব / ২৫.২১৭° উত্তর ৮৯.০৫০° পূর্ব / 25.217; 89.050 উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
দেশ  বাংলাদেশ
বিভাগ রাজশাহী বিভাগ
জেলা জয়পুরহাট জেলা
আয়তন
 • মোট ২৭৮.৫৩ কিমি (১০৭.৫৪ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)
 • মোট ২,৪০,৭৯৭[১]
সময় অঞ্চল বিএসটি (ইউটিসি+৬)
ওয়েবসাইট প্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট Edit this at Wikidata

পাঁচবিবি উপজেলা বাংলাদেশের জয়পুরহাট জেলার একটি প্রশাসনিক এলাকা।

অবস্থান ও আয়তন[সম্পাদনা]

এই উপজেলার আয়তন ২৭৮.৫৩ বর্গ কিমি। উত্তরে দিনাজপুর জেলার হাকিমপুর উপজেলাঘোড়াঘাট উপজেলা এবং ভারতের পশ্চিমবঙ্গ, দক্ষিণে জয়পুরহাট সদর উপজেলা , পূর্বে গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলাকালাই উপজেলা, পশ্চিমে জয়পুরহাট সদর উপজেলাভারতের পশ্চিমবঙ্গ। প্রধান নদী : ছোট যমুনা, তুলসীগঙ্গা ও হরবতী ।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

পাঁচবিবি উপজেলা একটি প্রাচীন স্থান। এখানে খ্রিষ্ট পূর্ব সময়কাল থেকে বিভিন্ন সময় জনপদ তৈরী হয়েছে। নামকরণের বিভিন্ন মত রয়েছে। পূর্বে এই উপজেলার নাম ছিল লালবাজার থানা। পারস্যের বণিকেরা লালবাজার এলাকার সমৃদ্ধি দেখে পানসিভার শব্দ থেকেও পাঁচবিবি নাম করণ হতে পারে বলেও কিংবদন্তি রয়েছে। কেউ বলেছেন প্রাচীন জনপদ পঞ্চগৌড় এর রাজধানী ছিল পাঁচবিবি। পঞ্চগৌড় বিকৃত হয়ে পঞ্চগৌরীতে এবং পঞ্চগৌরী রূপান্তরিত হয়ে পঞ্চ হতে পাঁচ এবং গৌরী হতে বিবি অর্থাৎ পাঁচবিবি হয়েছে। একজন ঐতিহাসিক বলেছেন[কে?] পাঞ্চাবিবি নামের একজন বৃদ্ধার জমিতে পাঁচবিবি রেলষ্ট্রেশন স্থাপিত হয়। ফলে রেলষ্ট্রেশনের নাম রাখা হয় পাঁচবিবি এবং সেখান থেকে পাঁচবিবি হয়েছে। নাম করণের ক্ষেত্রে বিতর্ক থাকলেও ইতিহাস পর্যালোচনা করলে দেখা যায় আনুমানিক বাংলা ১১০০ সালে (১৭০০খ্রীঃ) বাগুড়ী (বর্তমান খাসবাগুড়ী) এলাকায় এক মুসলিম দরবেশ এর পর্যায়ক্রমে পাঁচ জন বিবি ছিলেন। তাঁরা প্রত্যেকে ধর্মপরায়ন, কামেল, ও শ্রদ্ধেয়া ছিলেন। পাঁচজন স্ত্রী মৃত্যুবরণ করলে খাসবাগুড়ী ছোট যমুনা এর তীরবর্তী স্থানে তাঁদের পাঁচটি মাজার স্থাপিত হয়। তাঁদের স্মৃতি ও সম্মানার্থে তখনএলাকাবাসী সে স্থানকে ‘পাঁচবিবি দরগাহ’ পরর্বতীতে ‘পাঁচবিবি’ নামে ডাকত। খাসবাগুড়ী স্থানটি এখনও পুরানো পাঁচবিবি নামে সমাধিক পরিচিত। নদীভাঙ্গনের কারণে ১৮৬৮ সালে ১৬ই মার্চ লালবাজার থানা সদর বেল-আমলার লালবাজার স্থান হতে পাঁচবিবি দরগায় তথা পাঁচবিবিতে স্থানান্তর করা হয়। তথন থেকে এর নাম হয় পাঁচবিবি।[২]

ভৌগোলিক উপাত্ত[সম্পাদনা]

ভাষা ও সংষ্কৃতি[সম্পাদনা]

প্রশাসনিক এলাকা[সম্পাদনা]

উপজেলা শহর ৯টি ওয়ার্ড ও ১৩টি মহলা নিয়ে গঠিত । আয়তন ৫.৮৩ বর্গ কিমি। জনসংখ্যা ২০১০২; পুরুষ ৫২.৩০%,মহিলা ৪৭.৭০%। জনসংখ্যার ঘনত্ব প্রতি বর্গ কিমি ৩৪৪৮জন। শিক্ষার হার ৫২.২%। প্রশাসন পাঁচবিবি থানা সৃষ্টি ১৮৬৮সালে । বর্তমানে এটি উপজেলা । ইউনিয়ন ৮, গ্রাম ২৫৭, মৌজা ২২২, পৌরসভা ১।

জনসংখ্যার উপাত্ত[সম্পাদনা]

জনসংখ্যা ২,৪০,৭৯৭ জন; পুরষ ১,২৩,৯০৯ জন ও মহিলা ১,১৬,৮৮৮ জন।

স্বাস্থ্য[সম্পাদনা]

শিক্ষা[সম্পাদনা]

শিক্ষার গড় হার ৩০.৬%; পুরুষ ৩৮.১%, মহিলা ২২.৭%।

  • কলেজ - ৫টি (বেসরকারিঃ ৪, সরকারিঃ ১),
  • মাধ্যমিক বিদ্যালয় - ২৪টি (বেসরকারিঃ ২২, সরকারিঃ ২),
  • নিম্ন-মাধ্যমিক বিদ্যালয় - ১০টি,
  • মাদ্রাসা - ২৮টি,
  • প্রাথমিক বিদালয় - ৮৬টি (সরকারিঃ ৫৮, বেসরকারিঃ ২৮),
  • কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান - ১টি।

হাইস্কুল পর্যায়ে পাঁচবিবি উপজেলায় প্রথম সারিতে আছে পাঁচবিবি এল, বি পাইলট সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় ও পাঁচবিবি এন, এম সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়। পাঁচবিবি উপজেলাতেই নয় বরং জয়পুরহাট জেলার মধ্যে এ দুটি প্রতিষ্ঠান শীর্ষে অবস্থান করছে ৷

কৃষি[সম্পাদনা]

  • উৎপন্ন দ্রব্য - ধান, ইক্ষু, পাট, কচু, গম, কচুর লতি, আলু, পটল, সবুজ শাকসবজি।

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

অধিকাংশ মানুষ কৃষির উপর নির্ভরশীল। বর্তমানে কচু এবং কচুর লতি বিদেশে রপ্তানী হয়|[১]

যোগাযোগ ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

কৃতী ব্যক্তিত্ব[সম্পাদনা]

  • আব্দুল হামিদ খান ভাসানী
  • শামসুদ্দিন আহম্মদ চৌধুরী
  • আল্লামা হযরত মাওলানা এবরাহিম মহব্বতপুরী(রহঃ)
  • মীর আকবর আলী
  • ভাষাসৈনিক মীর শহিদ মন্ডল:

জয়পুরহাটের পাঁচবিবির কৃতি সন্তান, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, ভাষা সৈনিক মীর শহীদ মন্ডলের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী আগামী ১০ ই জুলাই। তিনি ১৯৩২ সালের ২২ শে সেপ্টেম্বর তৎকালীন বগুড়া জেলা বর্তমান জয়পুরহাট জেলার পাঁচবিবি উপজেলার বালিঘাটা ইউনিয়নের খাসবাগুরী গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম মৃত: হাতেম আলী মন্ডল ও মাতার নাম নূরন্নাহার। । মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত তিনি বাংলাদেশ কৃষকলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ছিলেন। ইতোপূর্বে তিনি জয়পুরহাট জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতিরও দায়িত্ব পালন করেছেন। মির শহীদ মন্ডল শুধু জয়পুরহাট নয়, তিনি মৃত্যুর আগে পর্যন্ত উত্তরবঙ্গের কৃষক মেহনতি মানুষের ন্যায় অধিকার প্রতিষ্ঠার লক্ষে আজীবন সংগ্রম, আন্দোলন করে গেছেন।মিরশহীদ মন্ডল ছিলেন নিপীড়িত কৃষক মজুর মধ্যবিত্তসহ সাধারন মানুষের বিশ্বস্থ বন্ধু।ভাষা আন্দোলন ৬ দফা আন্দোলন সহ মুক্তিযুদ্ধে তার ভুমিকা ছিল উজ্জল। উল্লেখ্য ২০১৬ সালের ১০ জুলাই বিকাল ০৪.৩০ ঘটিকায় বার্ধক্য জনিত কারণে ঢাকার সিএমএইচ-এ চিকিৎসাধীন অবস্থায় ভাষা সৈনিক বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর শহীদ মন্ডল ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে তিনি তিনি ০২ ছেলে ও ০৩ মেয়ে ও অসংখ্য গুনগ্রাহী রেখে গেছেন।

  • আলহাজ্জ আব্দুল হাফিজ সরকার
  অবসর প্রাপ্ত ভাইস প্রিন্সিপাল
  মহীপুর সরকারী কলেজ

দর্শনীয় স্থান ও স্থাপনা[সম্পাদনা]

লকমা রাজবাড়ি জয়পুরহাট জেলার ২২ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিম দিকে পাঁচবিবি উপজেলার কড়িয়া গ্রামে ভারত সীমান্তবর্তী ঐতিহাসিক লকমা রাজবাড়িটি অবস্থিত।কথিত আছে রাজা লক্ষণসেন এই বাড়ি নির্মাণ করেছেন।

পাথরঘাটা পাঁচবিবি উপজেলা থেকে ৬ কিলোমিটার পূর্বে আটাপুর ইউনিয়নের অন্তর্ভুক্ত উচাই বাজারের পার্শ্ববর্তী এলাকায় অবস্থিত এই পাথরঘাটা।

বিবিধ[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসুত্র[সম্পাদনা]

  1. "এক নজরে পাঁচবিবি"বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। জুন, ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ১০ জুলাই ২০১৪  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  2. বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন (জুন, ২০১৪)। "পাঁচবিবি উপজেলার পটভূমি"। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। সংগ্রহের তারিখ ১১ জুলাই ২০১৪  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]