আদমদীঘি উপজেলা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
আদমদীঘি
উপজেলা
আদমদীঘি বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
আদমদীঘি
আদমদীঘি
বাংলাদেশে আদমদীঘি উপজেলার অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৪°৪৯′ উত্তর ৮৯°০′ পূর্ব / ২৪.৮১৭° উত্তর ৮৯.০০০° পূর্ব / 24.817; 89.000স্থানাঙ্ক: ২৪°৪৯′ উত্তর ৮৯°০′ পূর্ব / ২৪.৮১৭° উত্তর ৮৯.০০০° পূর্ব / 24.817; 89.000 উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
দেশ  বাংলাদেশ
বিভাগ রাজশাহী বিভাগ
জেলা বগুড়া জেলা
আয়তন
 • মোট ১৬৮.৮৪ কিমি (৬৫.১৯ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)
 • মোট ১,৮৭,০১২
সময় অঞ্চল বিএসটি (ইউটিসি+৬)
ওয়েবসাইট প্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন

আদমদিঘী বাংলাদেশের বগুড়া জেলার অন্তর্গত একটি উপজেলা এবং বগুড়া জেলার পশ্চিমাংসে অবস্থিত । মাদুর শিল্পের জন্য এ উপজেলা প্রসিদ্ধ। এ উপজেলার নশরতপুর ইউনিয়নের শাঁওইল বাজার তাঁত শিল্পের জন্য বিখ্যাত।[১]

অবস্থান[সম্পাদনা]

বগুড়া সদর থেকে আদমদিঘী উপজেলা সদরের দূরত্ব প্রায় ৩৫ কিলোমিটার। এ থানা উত্তরে জয়পুরহাট জেলার আক্কেলপুর উপজেলা ও স্বজেলার দুপচাঁচিয়া উপজেলা, পূর্বে স্বজেলার কাহালু উপজেলানন্দীগ্রাম উপজেলা, দক্ষিণে নওগাঁ জেলার রানীনগর উপজেলা এবং পশ্চিমে নওগাঁ জেলার সদর থানা দ্বারা বেষ্টিত।

প্রশাসনিক এলাকা[সম্পাদনা]

আদমদিঘী উপজেলার ইউনিয়নসমূহ হচ্ছে -

  • ছাতিয়ানগ্রাম
  • নশরতপুর
  • আদমদীঘি
  • কুন্দগ্রাম
  • চাঁপাপুর
  • সান্তাহার[২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

আদম-এর দিঘি হতে আদমদিঘী নামের সূচনা হয়েছে । আদমদিঘী থানার পাশে আদম বাবা নামে এক সূফী সাধকের মাজার আছে এবং সে মাজারের উত্তরপার্শ্বে আছে একটি বড় পুকুর, যাকে আদম বাবার দিঘি বলা হয় । কথিত আছে যে, নাটোর এর রাণী ভবানী বাবা আদমের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এ পুকুরটি খনন করেন ।

জনসংখ্যার উপাত্ত[সম্পাদনা]

আদমদীঘি উপজেলা পরিষদ অফিস

২০১১ সালের আদমশুমারি অণুযায়ী আদমদিঘী উপজেলার মোট জনসংখ্যা ১,৯৫,১৮৬ জন (প্রায়) জন;[৩] যার ৯৪,৯৯৭জন (প্রায়) জন পুরুষ ও ৯২,০১৫জন (প্রায়) জন নারী। প্রতি কিলোমিটারে জনসংখ্যার ঘনত্ব ১,১০৮ জন। আদমদিঘী উপজেলার মোট ভোটার সংখ্যা ১,৩১,৯১৬ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৬৪,৬০৭ জন ও মহিলা ভোটার ৬৭,৩০৯ জন।[৪]

শিক্ষা[সম্পাদনা]

আদমদিঘী উপজেলার কিছু উল্লেখযোগ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলো হল আদমদীঘি আইপিজে (পাইলট) উচ্চ বিদ্যালয়, কুন্দগ্রাম দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়,কুন্দ্গ্রাম বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, কাঞ্চনপুর উচ্চ বিদ্যালয়, বিপি উচ্চ বিদ্যালয়, ছতনী ঢেকড়া উচ্চ বিদ্যালয় এবং বিহিগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয়। এছাড়া সরকারি কলেজ রয়েছে ১টি সান্তাহার সরকারি কলেজ।

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

আদমদীঘির অর্থনীতির প্রধান বিষয় মৎস্য বেবসা । এখানে রেনু পোনা বিক্রয়ের জন্য নামকরা । এখানে সব মিলে ৭-৮ টি মৎস্য খামার আছে ,যেখানে তাঁদের নিযেশ্ব পুকুর গুলো থেকে ডিম ওয়লা মাছ ধরে কৃত্তিম উপায়ে বিভিন্ন মাছের রেণু পোনা উৎপাদন করা হয়।

এখানকার প্রায় ৭৫% ভাগ মানুষ মাছের ব্যবসায়ের সাথে সংযুক্ত বাকি ২৫%ভাগ মানুষ কৃষি কাজ ,চাকুরী,আর বিভিন্ন পেষায় জরিত।

কৃতী ব্যক্তিত্ব[সম্পাদনা]

  • কছিম উদ্দীন আহমেদ (মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক এবং ১৯৭০ এবং ১৯৭৩ এর নির্বাচিত জাতীয় পরিষদ এবং গণ পরিষদের সদস্য।

বিবিধ[সম্পাদনা]

মৃত শিল্প[সম্পাদনা]

আদমদীঘি থানাধিন কিছু কিছু গ্রামে মৃত শিল্প বা মাটির তৈরি বাসন পাতিল দেশের বিভিন্ন জেলাই রপ্তানি কর হয়।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন (জুন, ২০১৪)। "আদমদীঘি ইতিহাস"। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জুলাই ২০১৪  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  2. বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন (জুন, ২০১৪)। "ইউনিয়নসমূহ"। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জুলাই ২০১৪  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  3. "আদমশুমারী প্রতিবেদন-২০১১" (PDF)। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। সংগ্রহের তারিখ : ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৫  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)
  4. বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন (জুন, ২০১৪)। "এক নজরে আদমদীঘি"। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। সংগ্রহের তারিখ : ১৪ জুলাই ২০১৪  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ=, |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]