বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী ভাষা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী
দেশোদ্ভব উত্তর-পূর্ব ভারত, বাংলাদেশ, মায়ানমার ও অন্যান্য কিছু দেশ
অঞ্চল দক্ষিণ এশিয়ার পূর্বাঞ্চল
স্থানীয় ভাষাভাষী
৪৫০,০০০ (অজানা)
বাংলা লিপিদেবনাগরী লিপি
ভাষা কোডসমূহ
আইএসও ৬৩৯-১ none
আইএসও ৬৩৯-২ inc
আইএসও ৬৩৯-৩ bpy

বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী একটি মণিপুরী জাতি ভুক্ত সম্প্রদায় ও ভাষার নাম।

  • বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরীর ইতিহাস*

অমিত সিনহা বিষ্ণুপ্রিয়া ০০০০


মণিপুর ওয়াহি এগর তাত্পর্য বা আক্ষরিক অর্থ হান বিসারতে পেয়ারতা

  1. মণি_দ্বারা_বেষ্টিত_স্থান_ ৷(মণিপুরী নৃত্য ও রবীন্দ্রনাথ রবিবাবু সিংহ)

পুর শব্দ এগ সংস্কৃত #পুরম শব্দত্ত আহেসেগ যেগর অর্থ হান স্থান বা জায়গা ৷ এ নাঙ এহান কিসাদে আহিল উহানর গজে বিসারতে # মণিপুরী_নৃত্য_ও_রবীন্দ্রনাথ বারো

  1. বিষ্ণুপ্রিয়া_ভাষাতত্ত্বের_সমীক্ষা মঙ্গল বাবু সিংহর করপেকে পেয়ারটা

দ্বাপরযুগে ভগবান শ্রী কৃষ্ণ ব্রজগোপীরেল বৃন্দাবনে রাসলীলা করানির স্থলীগ হঙকরেছিল যেহানাত্ বাধাবিঘ্ন নানারকা মহাদেবরে থংসিল্পাগ হংকরেছিল ৷ মহাদেব প্রভু ঔ রাস দেহিয়া মুগ্ধ অয়া তা পার্বতীরেল রাসলীলা হানজানিত লেপইল

  1. মহেন্দ্রপুরে (যেহানর বর্তমান নাঙ মণিপুর) স্বর্গর অপ্সরা অপ্সরীও আহেসিলা ৷ ঔপেই নাগরাজ অনন্ত তার মণিগ জালিয়া জাগা উহান ঙালকরেসিল ঔবাকাত্তই মহেন্দ্রপুরর নাঙ মণিপুর অইল ৷

এহানর উদাহরণ #ধরন_সংহিতা মতে "মণিমালা সমাযুক্তা মনিনা পরিভ্রাজনত ৷ মণিপুর ততোখ্যাতং নান্য়দধিকরণম ৷৷ মণিপুরম্ ততোখ্যাতং নান্যধিভারত ৷ মণিপুরেশ্বরো ভূপম্ সন্দর্শনো ভরতপুরঃ ৷ (ধরন সংহিতা অধ্যায় নারদ জন্মেজয় সংবাদ ) "Studies on the source materials for the history and culture of manipuri " By N.N Acharjee .page no 24 . মণিপুরর পুরানরমাউ উল্লেখ পেয়ার "মণিধারা মণিবৃষ্টি মণিময় হৈল সেইহেতু দেশনাম মণিপুর হৈল ৷৷ মেখলা মণ্ডল কৈল অরণ্য নগর মেখলি অরণ্য নাম পরে মণিপুর ৷ (মৈতৈ পুরান বিজয় পাঞ্চালী পৃঃ২৫৬) য়ারি এহান গবেষক বিপিন বাবুর নুয়া ফঙনির পথে করপেক হানাতৌ পেইতাঙায় ৷ মণিপুর=মণি+পুর অর্থাৎ মণির দেশহান (city of jewels ) এ মণিপুর এহানর আদিবাসী বিষ্ণুপ্রিয়া আদি কালেত্ব বিষ্ণুপ্রিয়া এটা ভগবান বিষ্ণুর উপাসক ৷ উদাহরণ হিসাবে আমার অর্জুন ভগবানর ইতাউগ অইলেও হমাদিলা প্রভুগ নিঙকরিয়া ঔহান চলিয়া আহিতারা ৷ ঔতার পিসে ডাঙর ওয়ারিহান ইলতাই বৈষ্ণব ধর্মে দীক্ষিত অনাইতে আরাকৌ ভক্তি হান য়াম অইল ৷ ঔ অর্থে অর্থাৎ বিষ্ণুর প্রিয় অর্থে বিষ্ণুপ্রিয়া ৷ বিষ্ণুপ্রিয়া অর্জুনর বংশধর ৷ কতগ নুয়া পন্ডিত এহান নাকরতারা অর্জুন মণিপুরের মাটিত আহেসে উহান স্বীকার নাকরতারা কারণ তানু মহাভারত না পাকরেসি ৷ "স কলিঙ্গানতিক্রম্য দেশানায়তানি চ হম্ম্যানি রমনীয়ানি প্রেক্ষমানৌ যযৌ প্রভু মহেন্দ্র পর্বতং দৃষ্ট্বা তাপসৈরূপ শোভিতম সমুন্দ্রতীরেন শনৈঃ মণিপুরং জগামহ ৷৷ (মহাভারত আদিপর্ব ২১৩-২১৪(ব্যাসদেব) অর্থাৎঃ-অর্জুন কলিঙ্গ প্রভৃতি দেশ উতা লালয়া হোবা হোবা প্রাসাদ দর্শন করিয়া মণিপুরে গিয়া ফৌঅইলগা ৷ ভারতবর্ষর উত্তর পূর্বাঞ্চলর মণিময় রাজ্য হান মণিপুর ৷ ডঃ কালীপ্রসাদ সিংহ গিরকর To the meiteis and the Bishnupriyas প্রবন্ধ হান পুনরায় Sangita Rajkumari Sinha গিথানকে প্রকাশ করেসে ঔহানাত Publisher's Appeal হানাত মাতেসে "The manipuris are divided into two linguistic groups , namely meiteis and the Bishnupriyas.Th ough these two groups speak separate language , culturally they are one. So both of these two groups identify themselves as manipuis" এ কথা এহান যথার্থ হান ৷ রবিবাবু সিংহ গিরকর *মণিপুরী নৃত্য ও রবীন্দ্রনাথ* করপেক হানাত গিরকে মাতেসেতা ৭০৭ খৃস্টাব্দে ব্রহ্মদেশর রাজা 'খো-লো-কেঙ' মণিপুর আক্রমন করেসিল ৷ তার পিসেদেত্ব পুনঃ পুনঃ আক্রমন করেসি ব্রহ্ম দেশর মানুয়ে ঔ চাপে পরিয়া আমার নিয়ামপা দাপা আহান মণিপুর লাম এরাদিতে বাধ্য অসি ৷ বারো যেতা থাগেসিলাগা ১৯৬১ মানুলেহাত নিজর পরিচয় দিলেও পিসেদে মীতেই বুলিয়া দিয়াসিতা হুদ্দা জিংতা অয়া থানির সালেদে (মহাসভা ২০১৫ইং *মণিপুর আর্য্য সংস্কৃতির থাইনাকার ওয়ারী--প্রতাপ সিংহ) যেতাউ অক মণিপুরর মাটি আমার হান নাগই বুলিয়া নুয়া দাপা আহানে প্রচার করতারা কিন্তু বিভিন্ন ঐতিহাসিকর মতে ঔ দাবি উহান মিশাহান প্রমাণ অর ৷ MC culloch গিরকে দিয়াসে তথ্য হান বর্তমান মণিপুর লাম এহানাত #খুমল (khumal),

  1. লুবাঙ (looang) #মৈরাঙ (moirang) ঔতা হাবির পিসেদে মীতেই হমাসি বারো ক্ষমতা পানার লগে লগে তানু মীতেয়িকরণ করানি অকরেসিতা ৷

এহানাত বিষয় আহান খালকরিক বর্তমান মণিপুর শব্দ এগ ! তার মানে মণিপুরর প্রাকনাঙ আহান আসিল ৷গেলগা প্রবন্ধত মণিপুরর পয়লাকার নাঙ #মহেন্দ্রপুর মাতেসিলু ৷ ঔ মহেন্দ্রপুর কিসাদে প্রমাণ আহান দিলে উপকার অইতই ৷ মহেন্দ্র বুলতে দেবরাজ ইন্দ্র রে বুঝার ৷ মণিপুরে দৌ এ রাজত্ব করেসি ঔহানে মণিপুরর আরাক নাঙ #দেবনগর ৷ বিষয় হান মণিপুরর মেঘ পর্বত (যেগরে মৈতৈ ভাষাত্ নৌংমাইজিং মাতানি অর ) উগর আর্য্য নাঙ মহেন্দ্র পর্বত ৷ "মহেন্দ্র পর্বতং দৃষ্ট্বা তাপসৈরূপশোভিতম্ সমুদ্রতীরেণ শনৈঃ মণিপুরং জগামহ" (মহাভারত আদিপর্ব ২১৩ শ্লোক ) মহেন্দ্রনগরর সমর্থনে কাবুই গরুকে উল্লেখ করেসেতা--- "Vijay panchali a nineteenth century history of manipur says that the land was called Aranya Nagar,mohendranagar then mekhala and finally manipur"(Glimpses of land and people of ancient manipur by Gangmumei Kabuki.Manipur past&present vol-1 edited by N.Somejaoba P-4) অনেকে মনে করতারা বিষ্ণুপ্রিয়া কলকাতার মাটিত্ব মণিপুরে হমাসি কিন্তু R.M nath গিরকে ষোড়শ শতাব্দীর আগে মণিপুরর রাজ ভাষাহান মায়াঙ বা বিষ্ণু প্রিয়া আসিল বুলিয়া মত ব্যক্ত করেসে ৷ মীতেই কিসাদে ঔহানৌ লেপকরে মাতে নুয়ারেসি মী-গা, আতেয়গা'=মী-আতেয় , অর্থাৎ মী=মানু .আতেয়=তঙাল তঙাল মানু ৷ (সংমিশ্রণ দাপাহান) ৷ মীতেই যে কোন ধর্মর মানু ঔহান মাতানি হিনপেইলু

  1. চৈথারেল_কুম্বাবা মীতেই রাজ বংশর মূল ইতিহাসর মতে ১৭১৭ মারিত মীতেই রাজ পামহৈবা তার অনুগামী কতগল গুরু গোপাল দাসরাঙ লেইমুঙ লয়া হিন্দু ধর্ম গ্রহণ করেসে ৷

তার মানে ১৭১৭ আগে মীতেই কোন ধর্ম আসিলা ? মণিপুরর আদিবাসী যদি মীতেই অইলা অইসতে তানু নিষ্ণয় হিন্দু অইলা অইস ৷ এবাকা প্রশ্ন উঠতে পারে মণিপুরে আসিলা বুলিয়া কী হিন্দু অনি লাগতৈ এমন কোনো কথা আসে থাঙ ! হে কথা আসে মণিপুরর আদিনাঙ এহানি বারো চলিয়া আহের রীতিনীতি গজেদে মিল্লেঙ দিলে হারপেয়ার #দেবনগর

  1. গন্ধর্বদেশ #অরণ্যনগর #উদয়গিরি

নাঙ এটা খালকরিক ৷ বারো বিষ্ণু প্রিয়া যে মণিপুরর মানু উহান অধ্যাপক MC Arun গিরকে ২০০৫ মারির পৌরি পত্রিকাত ইকরা Ethnicity and ethic fragmentation The question of bishnupriya প্রবন্ধ গত পেয়ার ৷ The Burmans killed thousands of manipuris and had decimated the population of the state to one third those who fled away settled in various places in this foreign countries and had been living there for about one century . আরাক বিষয় আহান বিষ্ণু প্রিয়ার অধিকারর বিষয়ে মাতেসেতা and it's hoped that such Racial division does not exist in manipur which is the original country of all the meiteis. অধিকাংশ ঐতিহাসিক এহান নিঙকরতারা বিষ্ণু প্রিয়া মণিপুরর মানু কিন্তু নুয়া দাপা আহানে এহান স্বীকার নাকরতারা ৷ Dr K.D Sinha shastri ২০০৯ মারিত আরতি নাঙর magazine হানাত The bishnupriya manipuris in light of Purana literature নাঙর প্রবন্ধ গত এহান মাতেসে "This group of homo sapiens has been referred to by different writers in their works . The original homeland of Bishnupriya manipuri was manipur. " বিষ্ণুপুরিয়া বুলিয়া যে কথা হান G.A gierson গিরকে মাতে দেসে ঔহান হয়তো হুনাইল কথার গজে বর দিয়া ইকরেসে হান কারণ From the above reference this is confirmed that the khumals got the name Bishnupriya in 1728 AD( the heritage of bishnupriya manipuri (KD Sinha) এহান হুদ্দা নাগই Ch manihar Singh has also referred the kalisha as identify bishnupriya . এটা হাবি তথ্য পানার পিসেও G.A gieeson অরে হুদ্দা নিঙসিঙ অইলে জাতহার অস্তিত্বর লগে লগে পোষাক কৃষ্টি সংস্কৃতি ও হারেইলাঙ ৷

ভাষা[সম্পাদনা]

মনিপুরী সম্প্রদায়ের ভাষা হচ্ছে বিষ্ণুপ্রিয়া মনিপুরী। তবে বিষ্ণুপ্রিয়া মনিপুরিরা নিজেদের ভাষাকে 'ইমার ঠার বা মাতৃভাষা বলে। বিষ্ণুপ্রিয়া মনিপুরী ভাষায় বাংলা লিপি ব্যবহার করা হয়। অসমিয়া লিপি থেকে দুটি বর্ণ বা অক্ষর (ৰ, ৱ) এই ভাষায় ব্যবহার করা হয়। অনেকে বাংলার বদলে দেবনাগরী লিপি ব্যবহার করে।

বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী ভাষায় অন্যান্য ভাষার প্রভাব[সম্পাদনা]

  • তৎসম শব্দ প্রায় ১০,০০০
  • হিন্দী, বাংলা ও অসমীয়া শব্দ প্রায় ৮,০০০
  • মৈতৈ শব্দ প্রায় ৩,৫০০
  • তৎভব শব্দ প্রায় ২,০০০
  • আরবী-পার্শি শব্দ প্রায় ২,০০০
  • ইংরেজি শব্দ প্রায় ২,০০০
  • দেশী শব্দ প্রায় ২,০০০
  • অর্ধ-তৎসম প্রায় ১,৫০০

ইতিহাস[সম্পাদনা]

ভারতের মণিপুর রাজ্য থেকে এই সম্প্রদায়ের উৎপত্তি। ১৭শ খ্রীষ্টাব্দের মাঝামাঝি মণিপুর রাজ্যে বার্মিজদের সঙ্গে ৭ বৎসর স্থায়ী যুদ্ধে মণিপুরের অন্যান্য আরও জাতি ও উপজাতির ন্যায় বর্তমান বাংলাদেশ সহ ভারতবর্ষের বিভিন্ন স্থানে বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরীরা ছড়িয়ে পড়ে।

বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী ভাষাভাষী জনসংখ্যা[সম্পাদনা]

বাংলাদেশের বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী সম্প্রদায়[সম্পাদনা]

মণিপুর থেকে ছড়িয়ে পড়ার পরপরই বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে মণিপুরীরা বসতি স্থাপন শুরু করে। তার মধ্যে সর্বপ্রথম ঢাকার তেজগাঁও এলাকায় মণিপুরীরা বসতি স্থাপন করে, যেটি বর্তমানে মণিপুরী পাড়া (বাংলাদেশের বর্তমান জাতীয় সংসদের পূর্ব পাশ) নামে খ্যাত। সেখান থেকে দেশের সর্বত্র বিশেষ করে সিলেট বিভাগে মণিপুরীদের প্রধান বসতি গড়ে ওঠে।

বাংলাদেশের সংবিধানে বাঙালি ব্যতীত অন্য জাতির স্বীকৃতি না থাকায় মণিপুরীরা আটকে পড়া বিহারীদের মত ভাগ্য বরণ না করার মানসে নিজেরা উপজাতি না হওয়া সত্ত্বেও উপজাতি শব্দটিকে স্বীকার করে বর্তমানে বাংলাদেশের শিক্ষা, চাকুরী ও বেতার টিভিতে অনুষ্ঠান করার সুযোগ গ্রহণ করে আসছে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] উল্লেখ্য, মণিপুরীরা ভারতে উপজাতি হিসাবে পরিচিত নয় এবং ভারতের অসম ও ত্রিপুরা রাজ্যে বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী ভাষায় প্রাথমিক স্তরে শিক্ষা দান করা হয়।

বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরীরা বাংলাদেশের ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলন (ভানুবিল কৃষক প্রজা আন্দোলন), ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশগ্রহণ করে। বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনে শহীদ গিরীন্দ্র সিংহ, রবীন্দ্র সিংহ-সহ আরও অনেকে বীরত্ব প্রদর্শন করে বাংলাদেশের জাতীয় ইতিহাসে অবদান রাখার সুযোগ লাভ করেন।

বর্তমানে এই সম্প্রদায় থেকে বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট-এ প্রধান বিচারপতি নিযুক্ত রয়েছেন। বাংলাদেশ সরকার এই সম্প্রদায়ের সংস্কৃতি বিকাশে সিলেট বিভাগের মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ থানায় একটি "মণিপুরী ললিত কলা একাডেমী" স্থাপন করেন।

বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরীর ভাষায় বাংলাদেশ থেকে নিয়মিত "পৌরি পত্রিকা" নামে একটি মাসিক পত্রিকা প্রকাশিত হয়ে আসছে। তাছাড়াও, "ইথাক" পত্রিকা নামে অপর একটি সংবাদপত্র বর্তমানে কিছুদিন অপ্রকাশিত অবস্থায় রয়েছে, যেটি শীঘ্রই পুণপ্রকাশিত হবে বলে স্থানীয় পত্র-পত্রিকায় বিজ্ঞাপন প্রচারিত হয়েছে।

ভারতে বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী ভাষা আন্দোলন[সম্পাদনা]

বাংলাদেশ ছাড়াও ভারতের উত্তরপুর্বাঞ্চলের অসম, ত্রিপুরামণিপুরে এবং বার্মায় বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী জাতির লোক বাস করে। অসমের বরাক উপত্যকার বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরীদের রয়েছে সুদীর্ঘ ভাষা সংগ্রামের ইতিহাস। মাতৃভাষায় শিক্ষার দাবীতে আন্দোলনের ফলে ১৯৮৩ সনে অসম সরকার মণিপুরী বিষ্ণুপ্রিয়া ভাষায় প্রাথমিক শিক্ষা চালুর সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। কিন্তু পরে সরকার এই সিদ্ধান্ত স্থগিত করলে বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরীরা ফুসে ওঠে। ১৯৯৬ সনের ১৬ মার্চ মাতৃভাষায় শিক্ষার দাবীতে মণিপুরী বিষ্ণুপ্রিয়াদের ৫০১ ঘণ্টার রাজপথ-রেলপথ অবরোধ আন্দোলনে অসমের করিমগঞ্জে পুলিশের গুলিতে শহীদ হন সুদেষ্ণা সিংহ নামের এক বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী তরুণী।এরই সসাথে আহত হন অরুন সিংহ(২৬), প্রমোদিনী সিংহ(২৫), কমলাকান্ত সিংহ (৪৫), দীপংকর সিংহ(২৫), প্রতাপ সিংহ (২৬), নমিতা সিংহ (৪০), রত্না সিংহ (২৪), বিকাশ সিংহ (২৭), শ্যামল সিংহ(২০) সহ অসংখ্য ভাষা আন্দোলনকারী।  ৯ এপ্রিল ১৯৯৯ তারিখে প্রদত্ত একটি রায়ের মাধ্যমে ভারতের গৌহাটি হাইকোর্ট জনগোষ্ঠীর নাম ‘মণিপুরী’ হিসাবে চিহ্নিত করে ভারতের অসম ও ত্রিপুরা সরকারের ‘ওবিসি’ তালিকার মধ্যে (ক)মণিপুরী মৈতৈ, (খ)মণিপুরী বিষ্ণুপ্রিয়া, (গ)মণিপুরী ব্রাহ্মন ও (ঘ)মণিপুরী মুসলিমদের অন্তর্ভুক্তিকে আইনগতভাবে অনুমোদন করে। এরপর ভারত সরকার অসম ও ত্রিপুরা রাজ্যের স্কুলগুলোতে মণিপুরী মৈতৈ ও মণিপুরী বিষ্ণুপ্রিয়া উভয় ভাষায় শিক্ষা গ্রহণের সুযোগ করে দেয়। পরবর্তীকালে ২০০৬ সনে ভারতের সুপ্রীম কোর্ট এক যুগান্তকারী রায়ের মাধ্যমে ‘বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী’ ভাষাকে সাংবিধানিক স্বীকৃতি দেয়।

সাহিত্য[সম্পাদনা]

বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরীরা মণিপুর ছাড়ার পরপরই নিজেদের ভাষা প্রায় ভুলতে শুরু করেছিল। বর্তমানে এই ভাষায় প্রচুর সাহিত্য চর্চা শুরু হয়েছে। বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী ভাষার প্রাচীন আমলের সাহিত্যের মধ্যে লোককথা, লোকগান, লোককবিতা, ছড়া এবং পৌরেই (প্রবচন) উল্লেখযোগ্য। এদের মধ্যে বরন ডাহানির এলা বা "বৃষ্টি ডাকার গান" (রচনাকাল, ১৪৫০-১৬০০ খ্রীস্টাব্দ) এবং প্রাচীন জীবনযাত্রা নিয়ে রচিত মাদই সরারেলর এলা-র (রচনাকাল ১৫০০-১৬০০ খ্রীস্টাব্দ) কথা উল্লেখ করা যায়। গানগুলি বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরীর সাহিত্যের প্রাচীন নিদর্শন ধরা হয়।

বিংশ শতকর তৃতীয় দশক থেকে বিষ্ণুপ্রিয়া মনিপুরী সাহিত্যের আধুনিক যুগের সূচনা ঘটে। ঐ সময়কার প্রধান চারজন লেখক হলেন লেইখমসেনা সিংহ (নাটক: বভ্রুবাহন, মণিপুর বিজয়), মদনমোহন শর্মা (গ্রন্থ: বালিপিন্ড, হরিশ্চন্দ্র, সুবলমিলন, তিলত্তমা, বাসক, সুদমাবিপ্র), আমুসেনা সিংহ (নাটক: অঙ্গদ রায়বার, শক্তিশেল, তরনীসেন বধ, নাগপাশ, মহীরাবণ বধ) এবং গোকুলানন্দ গীতিস্বামী (মাতৃমঙ্গল গীতাভিনয় নাটক, সমাজ জাগরণমূলক নানান পদাবলী, এলা, বারো কবিতা)। এছাড়া রোহিনী রাজকুমার, গোলাপসেনা সিংহ বারো গোষ্ঠবিহারী সিংহের নামও উলেখযোগ্য। বিষ্ণুপ্রিয়া মনিপুরী ভাষায় প্রথম প্রকাশিত পত্রিকা জাগরন (সম্পাদক শ্রী অর্জ্জুন সিংহ), ১৯২৫ সালে।

বর্তমান যুগের বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী ভাষার উল্লেখযোগ্য সাহিত্যিকদের তালিকা এরকম:

ভারত[সম্পাদনা]

  • অধ্যাপক ব্রজেন্দ্র কুমার সিংহ - বাংলা ও বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী
  • ডঃ কালি প্রসাদ সিংহ - সংস্কৃত ও বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী
  • বরুণ কুমার সিংহ -ইংরেজি ও বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী
  • দিল্স লক্ষ্মীন্দ্র কুমার সিংহ - অসমীয়া ও বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী
  • দিল্স দেবজ্যোতি সিংহ - ইংরজী, অসমীয়া ও বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী

বাংলাদেশ[সম্পাদনা]

  • শুভাশীষ সমীর - বাংলা ও বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী
  • অধ্যাপক রনজিত সিংহ - বাংলা ও বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী
  • অসীম কুমার সিংহ - ইংরেজি, বাংলা ও বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী

সংস্কৃতি[সম্পাদনা]

সাংস্কৃতিক দিক থেকে বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরীরা অনেক উন্নত। মণিপুরী নৃত্য ভারতীয় নৃত্যকলার এক বিরাট স্থান দখল করে রয়েছে। ভারতীয় ৫ টি শাস্ত্রীয় নৃত্যের মধ্যে মণিপুরী নৃত্য অন্যতম।

শিল্প[সম্পাদনা]

বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরীদের বস্ত্র শিল্প ভারত ও বাংলাদেশের সর্বত্র সমাদৃত।

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]

ওয়েব সংযোগ[সম্পাদনা]

তথ্য নির্দেশিকা[সম্পাদনা]

  1. ভাষা তত্তের রূপরেখা, ১৯৭৭ - ডঃ কালী প্রসাদ সিংহ
  2. মণিপুরী জাতিসত্তা বিতর্ক: একটি নিরপেক্ষ পাঠ, ২০০১, সিলেট, বাংলাদেশ - অসীম কুমার সিংহ
  3. Tribals and Their Culture in Manipur and Nagaland, 1982 - G. K. Ghosh
  4. The Background of Assamese Culture, 2nd edn, 1978 - R M Nath
  5. Linguistic Survey of India, Vol-5,1903 - Sir G A Grierson
  6. An Etymological Dictionary of Bishnupriya Manipuri,1982,Dr K P Sinha
  7. Religious developments in Manipur in the 18th and 19th century, Imphal, 1980, Dr M Kirti Singh
  8. The Bishnupriya Manipuris & Their Language,Assam,1976 - Singha Jagathmohon & Singha Birendra