সম্বলপুরী ভাষা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
সম্বলপুরী
দেশোদ্ভবভারত
অঞ্চলপশ্চিম ওড়িশা
মাতৃভাষী
২৬,৩০,৩৮১ (২০১১)[১]
ওড়িয়া[২][৩][৪]
ভাষা কোডসমূহ
আইএসও ৬৩৯-৩spv
গ্লোটোলগsamb1325[৫]

সম্বলপুরী ভারতের পশ্চিম ওড়িশায় কথিত একটি ইন্দো-আর্য ভাষা। এটি পশ্চিমা ওড়িয়া নামে পরিচিত। এছাড়া এটি কোসালী (কোসলি, কোশাল এবং কোশালি) রূপে[৬] সম্প্রতি জনপ্রিয়, কিন্তু নামটি বিতর্কিত শব্দ হিসাবে পরিচিত, যা প্রাচীন কোশল রাজ্যের নামের সাথে সংঘর্ষের দিকে আকৃষ্ট করে, যার বিস্তৃত অঞ্চল বর্তমান দিনে সম্বলপুর অঞ্চল।[৭][৮]

সম্বলপুরীভাষী সাধারণত সম্বলপুরী ভাষাকে একটি পৃথক ভাষা হিসাবে বোঝে, তবে এই ভাষার বাইরের লোকেরা এটিকে ওড়িয়ার একটি উপভাষা হিসাবে দেখ[৯] এবং প্রথাগত যোগাযোগের জন্য সম্বলপুরীভাষী আদর্শ ওডিয়া ভাষা ব্যবহার করে।[১০] ২০০৬ সালে চারটি গ্রামে সম্বলপুরী ভাষায় কথা বলা লোকের মধ্যে একটি জরিপে পাওয়া গেছে যে তারা আদর্শ ওড়িয়া ভাষার সাথে তাদের মৌলিক শব্দভাণ্ডারের তিন চতুর্থাংশ ভাগ করে নিয়েছে।[১১]

সম্বলপুরী ওড়িশার নিম্নোক্ত জেলায় কথিত হয়: সম্বলপুর (সম্বলপুর শহর, অঞ্চলের প্রধান সাংস্কৃতিক ও বাণিজ্যিক কেন্দ্র), দেবগড়, সুন্দরগড়, ঝারসুগুড়া, বড়গড়, সুবর্ণপুর, বলাঙ্গির, নূয়াপড়া, কালাহান্ডি, বৌধ এবং অনুগুল জেলার আঠমল্লিক মহকুমা। সম্বলপুরীভাষীদের প্রতিবেশী ছত্তীসগঢ়ঝাড়খণ্ডের রাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় পাওয়া যায়।[১২]

লিপি[সম্পাদনা]

দেবনাগরী লিপি সম্ভবত অতীতে ব্যবহার করা হত, কিন্তু ২০ শতকের শুরু থেকেই ওড়িয়া লিপি প্রতিষ্ঠিত হয় এবং বর্তমানে এই লিপি সর্বাধিক ব্যবহৃত।[১৩]

ভাষা আন্দোলন[সম্পাদনা]

ভাষার স্বীকৃতির জন্য একটি ভাষা আন্দোলন সক্রিয় রয়েছে। আন্দোলন মূল উদ্দেশ্য ভারতীয় সংবিধানের ৮ষ্ঠ তফসিলে এই ভাষাকে অন্তর্ভুক্ত করা।[১৪][১৫]

সাহিত্য[সম্পাদনা]

উনবিংশ শতাব্দীর শেষের দিক পর্যন্ত সম্বলপুরী ভাষায় কোন লিখিত সাহিত্য তৈরি হয়নি।

প্রাচীন পাথরের শিলালিপি, তাম্রফলক, তাল পাতায় কোন লেখা এই ভাষাতে পাওয়া যায় না। প্রথম সম্বলপুরী ওড়িয়া লেখা ১৮৯১ সালে সাপ্তাহিক পত্রিকা "সম্বলপুর হিতৈষানি" প্রকাশ করেন, যা দেবাগড়ে প্রকাশিত হয়েছিল।[১৬] "মধুসূদন" দ্বারা লিখিত কবিতার শিরোনামটি ছিল "সম্বলপুর অঞ্চলার প্রচীন কবিতা"।

এভাবে ১৯৮১ থেকে ১৯৪৭ সালের মধ্যে মোট ৩৫ জন কবি ৬৪ টি কবিতা লিখেছিলেন।[১৭] ১৮৯১ খ্রি সম্বলপুরী সাহিত্যের ইতিহাসে অন্ধকার যুগ। ১৮৯১ থেকে ১৯৭০ সাল পর্যন্ত সম্বলপুরী সাহিত্যের শিশু পর্যায়ে বলা যেতে পারে। এই সময়ের মধ্যে খুব কম সম্বলপুরী সাহিত্য তৈরি হয়েছিল। শুধু ১৯৭০ পরে সেখানে ভাষা বিকাশের জন্য জাগরণ ঘটে। সত্য নারায়ণ বোহিদার ছিলেন প্রথম ব্যক্তি যিনি শুধুমাত্র সম্বলপুরী সাহিত্য রচনা করেননি বরং অন্যদের সম্বলপুরী ভাষায় লেখার জন্য উৎসাহিত করেছিলেন। তিনি বিভিন্ন সাহিত্য সম্মেলনে প্রমাণ করেছেন যে সম্বলপুরী একটি পৃথক ভাষা। ১৯৭০ সাল থেকে পশ্চিম ওড়িশার লোকেরা বুঝতে পেরেছিলেন যে সম্বলপুরী একটি পৃথক ভাষা [উদ্ধৃতি প্রয়োজন] এবং এই ভাষাতে সাহিত্য তৈরি করা যেতে পারে। এর পর আরো অনেক বেশী লোক নিজেদের সম্বলপুরী সাহিত্য তৈরি নিযুক্ত করেন।

সাময়িক পত্রিকা[সম্পাদনা]

সম্বলপুরী ভাষা বা কোসালি ভাষাতে প্রকাশিত সাময়িক পত্রিকার (ম্যাগাজিনগুলির) তালিকা নীচে:

  • ডাকুয়া, বলাঙ্গির, সম্পাদক: বিজান মহানতি।
  • কোসাল প্রদেশ, সোনাপুর, সম্পাদক: গোর্খনাথ সাহু।
  • বেনী, বারগড়, সম্পাদক: সাকেত সাহু।
  • সুনা বেহেন, জগৎসিংহপুর, সম্পাদক: বিজয়ের কর মহাপাত্র।
  • শ্রীজানা সালিতা নবীনতা, বলাঙ্গির, সম্পাদক: রাজেশ ঝঙ্কর।
  • দ্য কাদো, বলাঙ্গির, সম্পাদকঃ শিশির কুমার সাহু।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "STATEMENT-1 ABSTRACT OF SPEAKERS' STRENGTH OF LANGUAGES AND MOTHER TONGUES - 2011" (PDF)www.censusindia.gov.in। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুন ২০১৯ 
  2. Bulletin of the Anthropological Survey of India। Director, Anthropological Survey of India, Indian Museum। ১৯৭৯। 
  3. Chitrasen Pasayat (১৯৯৮)। Tribe, Caste, and Folk Culture। Rawat Publications। 
  4. Subodh Kapoor (২০০২)। The Indian Encyclopaedia: La Behmen-Maheya। Cosmo Publications। পৃষ্ঠা 4240–। আইএসবিএন 978-81-7755-271-3 
  5. হ্যামারস্ট্রোম, হারাল্ড; ফোরকেল, রবার্ট; হাস্পেলম্যাথ, মার্টিন, সম্পাদকগণ (২০১৭)। "Sambalpuri"গ্লোটোলগ ৩.০ (ইংরেজি ভাষায়)। জেনা, জার্মানি: মানব ইতিহাস বিজ্ঞানের জন্য ম্যাক্স প্লাংক ইনস্টিটিউট। 
  6. টেমপ্লেট:E21
  7. Dash 1990, পৃ. 4–5।
  8. G. Sahu 2001, পৃ. 7–8।
  9. G.K. Sahu 2002, পৃ. 1–2।
  10. Patel (n.d.) cited in Mathai & Kelsall (2013, p. 3)
  11. Mathai ও Kelsall 2013, পৃ. 4–6. The precise figures are 75 – 76%. This was based on comparisons of 210-item wordlists.
  12. G. Sahu 2001, পৃ. 8–9; see also Dash 1990, পৃ. 3, 7
  13. Mathai ও Kelsall 2013, পৃ. 3।
  14. Plea to include Kosli in 8th Schedule of Constitution
  15. "Memorandum for Inclusion of Kosli Language in the 8th Schedule of the Indian Constitution"। ৩ এপ্রিল ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুন ২০১৯ 
  16. Sambalpur Hiteishini, Vol III, Issue 1500, 1891.
  17. Panda, Sasanka Sekhar, " JHULPUL ", Chitrotpala Publications, Cuttack, 2003, আইএসবিএন ৮১-৮৬৫৫৬-৩৩-৮

গ্রন্থসূত্র[সম্পাদনা]

  • Dash, Ashok Kumar (১৯৯০)। Evolution of Sambalpuri language and its morphology (গবেষণাপত্র)। Sambalpur University। 
  • Mathai, Eldose K.; Kelsall, Juliana (২০১৩)। Sambalpuri of Orissa, India: A Brief Sociolinguistic Survey (প্রতিবেদন)। SIL Electronic Survey Reports। 
  • Patel, Kunjaban (n.d.)। A Sambalpuri phonetic reader (গবেষণাপত্র)। Sambalpur University। 
  • Sahu, Gobardhan (২০০১)। Generative phonology of Sambalpuri: a study (revised) (PhD)। Sambalpur University। 
  • Sahu, Gopal Krishna (২০০২)। A derivational morphology of Sambalpuri (গবেষণাপত্র)। Sambalpur University। 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]