কাহারোল উপজেলা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
কাহারোল
উপজেলা
কাহারোল বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
কাহারোল
কাহারোল
বাংলাদেশে কাহারোল উপজেলার অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৫°৪৭′২৬″ উত্তর ৮৮°৩৫′৪৬″ পূর্ব / ২৫.৭৯০৫৬° উত্তর ৮৮.৫৯৬১১° পূর্ব / 25.79056; 88.59611স্থানাঙ্ক: ২৫°৪৭′২৬″ উত্তর ৮৮°৩৫′৪৬″ পূর্ব / ২৫.৭৯০৫৬° উত্তর ৮৮.৫৯৬১১° পূর্ব / 25.79056; 88.59611 উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
দেশ বাংলাদেশ
বিভাগরংপুর বিভাগ
জেলাদিনাজপুর জেলা
আয়তন
 • মোট২০৫.৫৪ বর্গকিমি (৭৯.৩৬ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)
 • মোট১,৫৪,৪৩২[১]
সময় অঞ্চলবিএসটি (ইউটিসি+৬)
প্রশাসনিক
বিভাগের কোড
৫৫ ২৭ ৫৬
ওয়েবসাইটপ্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন

কাহারোল বাংলাদেশের দিনাজপুর জেলার অন্তর্গত একটি উপজেলা

অবস্থান[সম্পাদনা]

দিনাজপুর জেলার অন্তর্গত কাহারোল উপজেলা মোট আয়তন ২০৫.৫৪ বর্গ কি: মিটার। এ উপজেলার উত্তরে বীরগঞ্জ উপজেলা, পূর্বে খানসামা উপজেলাদিনাজপুর সদর উপজেলা, দক্ষিণে বিরল উপজেলা এবং পশ্চিমে বোচাগঞ্জ উপজেলা অবস্থিত।

প্রশাসনিক অবস্থা[সম্পাদনা]

ইউনিয়নের সংখ্যা ০৬টি, মৌজার সংখ্যা ১৫৩ টি, গ্রামের সংখ্যা ১৫২ টি।

ইউনিয়নসমূহঃ- ডাবর ইউনিয়ন, রসুলপুর ইউনিয়ন, মুকুন্দপুর ইউনিয়ন, তারগাঁও ইউনিয়ন, সুন্দরপুর ইউনিয়ন, রামচন্দ্রপুর ইউনিয়ন

ইতিহাস[সম্পাদনা]

কাহারোল উপজেলা দিনাজপুর জেলার অধীনে গঠিত ছোট একটি উপজেলা যা ব্রিটিশ শাসন আমলে ১৯১৫ সালে থানা হিসেবেগঠিত হয়েছিল। পরবর্তীতে ১৯৮৩ সালে এটি উপজেলা ঘোষিত হয়। এ উপজেলা মোট ৬টি ইউনিয়ন, ১৫৩টি মৌজা, ১৫২টি গ্রাম নিয়ে গঠিত। উপজেলার নামকরনের সঠিক ইতিহাস জানা যায় নাই। তবে জনশ্রুতি রয়েছে যে, এখানে অনেকদিন আগে ‘‘কাহার’’ নামে একটি আদিবাসী সম্প্রদায় বসবাস করত। তারা সন্ধ্যে বেলায় একত্রে গান করত যাকে স্থানীয় ভাষায় ‘‘রোল’’ বলা হতো। সাধারণ মানুষের বিশ্বাস ‘কাহার’ এবং ‘রোল’ এই দু’টি শব্দ থেকে উদ্ভব হয়েছে কাহারোল উপজেলার নাম।

জনসংখ্যার উপাত্ত[সম্পাদনা]

২০১১ সালের আদমশুমারী অনুযায়ী পুরুষ- ৭৭২৫৩ জন, মহিলা-৭৭,১৭৯ জন। মোট- ১,৫৪,৪৩২ জন।

শিক্ষা[সম্পাদনা]

কলেজের সংখ্যা ৭টি, হাই স্কুলের সংখ্যা ৪৬টি, মাদ্রাসার সংখ্যা ১৪টি, সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সংখ্যা ১২১টি।

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

অর্থকরী ফসল ধান, গম ভূট্টা, আখ, রবি শষ্য ইত্যাদি।

নদীসমূহ[সম্পাদনা]

কাহারোল উপজেলায় ৩টি নদী রয়েছে। নদীগুলো হচ্ছে পুনর্ভবা নদী, ঢেপা নদী এবং আত্রাই নদী[২]

কৃতী ব্যক্তিত্ব[সম্পাদনা]

দর্শনীয় স্থান[সম্পাদনা]

কান্তজীউ মন্দির
নয়াবাদ প্রাচীন মসজিদ

কাহারোল উপজেলায় বাংলাদেশ প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর এর তালিকাভুক্ত দুটি প্রত্নতাত্ত্বিক স্থাপনা কান্তনগর মন্দিরনয়াবাদ প্রাচীন মসজিদ রয়েছে। এছাড়াও রয়েছে বেহুলা ও লক্ষিন্দরের সমকালীন পটভূমিতে খনন করা লক্ষীন্দর পুকুর।

বিবিধ[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন (জুন, ২০১৪)। "এক নজরে কাহারোল উপজেলা"। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। ১৯ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ মে ২০১৬  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  2. ড. অশোক বিশ্বাস, বাংলাদেশের নদীকোষ, গতিধারা, ঢাকা, ফেব্রুয়ারি ২০১১, পৃষ্ঠা ৪০৪।

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]