চিরিরবন্দর উপজেলা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
চিরিরবন্দর
উপজেলা
চিরিরবন্দর বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
চিরিরবন্দর
চিরিরবন্দর
বাংলাদেশে চিরিরবন্দর উপজেলার অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৫°৩৯′৪৭″ উত্তর ৮৮°৪৬′৪৫″ পূর্ব / ২৫.৬৬৩০৬° উত্তর ৮৮.৭৭৯১৭° পূর্ব / 25.66306; 88.77917স্থানাঙ্ক: ২৫°৩৯′৪৭″ উত্তর ৮৮°৪৬′৪৫″ পূর্ব / ২৫.৬৬৩০৬° উত্তর ৮৮.৭৭৯১৭° পূর্ব / 25.66306; 88.77917 উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
দেশ বাংলাদেশ
বিভাগরংপুর বিভাগ
জেলাদিনাজপুর জেলা
আসনদিনাজপুর-৪ (চিরিরবন্দর- খানসামা)
আয়তন
 • মোট৩১২.৮৫ কিমি (১২০.৭৯ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)[১]
 • মোট২,৯২,৫০০
 • জনঘনত্ব৯৩০/কিমি (২৪০০/বর্গমাইল)
স্বাক্ষরতার হার
 • মোট%
সময় অঞ্চলবিএসটি (ইউটিসি+৬)
পোস্ট কোড৫২৪০ উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
ওয়েবসাইটপ্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট Edit this at Wikidata

চিরিরবন্দর উপজেলা বাংলাদেশের দিনাজপুর জেলার অন্তর্গত একটি প্রশাসনিক কেন্দ্র।

অবস্থান[সম্পাদনা]

জেলা সদর হতে ১৬ কি.মি পূর্বে এর অবস্থান। এই উপজেলার উত্তরে খানসামা উপজেলা, পূর্বে পার্বতীপুর উপজেলা, দক্ষিণে ফুলবাড়ী উপজেলাভারত এবং পশ্চিমে দিনাজপুর সদর উপজেলা

ইতিহাস[সম্পাদনা]

বৃটিশ আমলে চিরির নদীর তীরে সওদাগররা বড় বড় নৌকায় করে পণ্য আনা নেয়া করত। ব্যবসার কারণে এখানে একটি বন্দর গড়ে ওঠে। এ চিরির নদীর নামানুসারে বন্দরটির নাম হয় চিরিরবন্দর। ১৯১৪ সালে চিরিরবন্দর থানা গঠিত হয়। এরপর ১৯৮৩ সালে চিরিরবন্দর উপজেলায় পরিণত হয়।

জনসংখ্যার উপাত্ত[সম্পাদনা]

২০১১ সালের জরিপ অনুযায়ী মোট জনসংখ্যা ২,৯২,৫০০ জন; এর মধ্যে পুরুষ - ১,৪৬,৬১৯ জন এবং মহিলা - ১,৪৫,৮৮১ জন। জনসংখ্যার ঘনত্ব ৮৫৯।

শিক্ষা[সম্পাদনা]

প্রধান শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে:

স্কুল
  • সানলাইট স্কুল
  • আলোকডিহি জে.বি উচ্চ বিদ্যালয়
  • আমেনা বাকী রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল
  • আইডিয়াল স্কুল এন্ড কলেজ
  • চিরিরবন্দর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়
  • চিরিরবন্দর গার্লস স্কুল প্রধান।
কলেজ
  • ইছামতি ডিগ্রী কলেজ
  • ইছামতি মহিলা কলেজ
  • চিরিরবন্দর ডিগ্রি কলেজ
  • চিরিরবন্দর মহিলা কলেজ।

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

চিরিরবন্দর উপজেলার অধিকাংশ মানুষই কোন না কোনভাবে কৃষি কাজের সাথে জড়িত। ধান, গম, ভুট্টা, কলা ও আলু প্রধান অর্থকরী ফসল। এছাড়া পেঁয়াজ, রসুন, লিচুও অন্যতম। নদীতে প্রাপ্ত মাছ ছাড়াও এ অঞ্চলে বাণিজ্যিকভাবে মাছ চাষ করা হয়।

নদীসমূহ[সম্পাদনা]

চিরিরবন্দরের কাছে রেলসেতু থেকে তোলা কাঁকড়া নদীর দৃশ্য।

চিরিরবন্দরে তিনটি নদী রয়েছে। নদী তিনটি হচ্ছে আত্রাই নদী, ছোট যমুনা নদী এবং কাঁকড়া নদী[২]

বিবিধ[সম্পাদনা]

প্রশাসনিক এলাকা[সম্পাদনা]

চিরিরবন্দর উপজেলায় ইউনিয়ন রয়েছে ১২ টি।

  • ১ নং নশরতপুর ইউনিয়ন পরিষদ
  • ২ নং সাতনালা ইউনিয়ন পরিষদ
  • ৩ নং ফতেজংপুর ইউনিয়ন পরিষদ
  • ৪ নং ইসবপুর ইউনিয়ন পরিষদ
  • ৫ নং আব্দুলপুর ইউনিয়ন পরিষদ
  • ৬ নং অমরপুর ইউনিয়ন পরিষদ
  • ৭ নং আউলিয়াপুকুর ইউনিয়ন পরিষদ
  • ৮ নং সাইতাড়া ইউনিয়ন পরিষদ
  • ৯ নং ভিয়াইল ইউনিয়ন পরিষদ
  • ১০ নং পুনট্টি ইউনিয়ন পরিষদ
  • ১১ নং তেতুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদ
  • ১২ নং আলোকডিহি ইউনিয়ন পরিষদ

গ্যালারি[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন (জুন, ২০১৪)। "এক নজরে চিরিরবন্দর"। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। সংগ্রহের তারিখ ১০ জুলাই, ২০১৫  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ=, |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)
  2. ড. অশোক বিশ্বাস, বাংলাদেশের নদীকোষ, গতিধারা, ঢাকা, ফেব্রুয়ারি ২০১১, পৃষ্ঠা ৪০৪।

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]