ইন্ডিপেন্ডেন্ট বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশ
আইইউবিসি
IUB logo.jpg
নীতিবাক্য Teacheth Man That Which He Knew Not
ধরন বেসরকারি, সহশিক্ষা
স্থাপিত ১৯৯৯
আচার্য মহামান্য রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ
উপাচার্য অধ্যাপক ডঃ ওমর রহমান
শিক্ষার্থী ৪,৫০০
ঠিকানা মিনহাজ কমপ্লেক্স, ১২ জামাল খান রোড। এছাড়া নতুন দুটি ভবন (রোকসানা মঞ্জিল ১ ও ২)।, চট্টগ্রাম, বাংলাদেশ
২২°২০′৪৬″ উত্তর ৯১°৫০′০২″ পূর্ব / ২২.৩৪৬১৭২° উত্তর ৯১.৮৩৩৯৯০° পূর্ব / 22.346172; 91.833990স্থানাঙ্ক: ২২°২০′৪৬″ উত্তর ৯১°৫০′০২″ পূর্ব / ২২.৩৪৬১৭২° উত্তর ৯১.৮৩৩৯৯০° পূর্ব / 22.346172; 91.833990
রঙসমূহ অ্যালিস নিল এবং স্টীল নিল         
সংক্ষিপ্ত নাম আই ইউ বি
অধিভুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন
ওয়েবসাইট আই ইউ বি প্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট

ইন্ডিপেন্ডেন্ট বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ (চট্টগ্রাম ক্যাম্পাস) (আই ইউ বি) (ইংরেজি: Independent University, Bangladesh) এর চট্টগ্রাম ক্যাম্পাস চট্টগ্রামে অবস্থিত অন্যতম বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়। এটি ১৯৯৯ সালে চট্টগ্রাম শহরের প্রাণকেন্দ্র জামাল খান রোড এলাকায় প্রতিষ্ঠিত হয়।এই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ক্যাম্পাস রাজধানী ঢাকা শহরের বসুন্ধরায় এবং অপরটি বন্দর নগরী চট্টগ্রামে অবস্থিত। বর্তমানে চট্টগ্রাম ক্যাম্পাসে প্রায় ৪,৫০০ জন ছাত্র-ছাত্রী অধ্যয়নরত। প্রতি বছর ব্যবসায় ও প্রকৌশল বিভাগ থেকে প্রায় ২০০-২৫০ জন ছাত্র-ছাত্রীকে ডিগ্রী প্রদান করা হয়।

স্কুল (অনুষদ) এবং বিভাগসমূহ[সম্পাদনা]

স্কুল অব বিজনেস

হিসাববিজ্ঞান বিভাগ অর্থনীতি বিভাগ ফিনান্স বিভাগ জেনারেল ম্যানেজমেন্ট বিভাগ মার্কেটিং বিভাগ ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেম বিভাগ হিউম্যান রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট বিভাগ ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস বিভাগ

স্কুল অব ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড কম্পিউটার সায়েন্স

কম্পিউটার বিজ্ঞান বিভাগ কম্পিউটার প্রকৌশল বিভাগ তড়িৎ এবং ইলেকট্রনিক কৌশল বিভাগ ইলেকট্রনিক ও টেলিযোগাযোগ প্রকৌশল বিভাগ

পরিবেশ বিজ্ঞান ও ব্যবস্থাপনা স্কুল

পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগ পরিবেশগত ব্যবস্থাপনা বিভাগ জনসংখ্যা পরিবেশ বিভাগ

লিবারেল আর্টস অ্যান্ড সোশ্যাল সায়েন্সেস স্কুল (SLASS) ইংরেজী বিভাগ মিডিয়া ও যোগাযোগ বিভাগ সামাজিক বিজ্ঞান ও মানবিক বিভাগ আধুনিক ভাষা বিভাগ

পাবলিক হেলথ স্কুল (SPH)

পাবলিক হেলথ বিভাগ

ইন্সটিটিউট এবং কেন্দ্র

স্বাস্থ্য, জনসংখ্যা ও উন্নয়ন কেন্দ্র (CHPD) জলবায়ু পরিবর্তন ও উন্নয়ন আন্তর্জাতিক সেন্টার (ICCCAD) বাংলা ভাষা ইনস্টিটিউট (BLI) বাংলা সামার ইনস্টিটিউট (BSI)

বিদেশী ছাত্রদের জন্য স্টাডি প্রোগ্রাম[সম্পাদনা]

লাইভ ইন ফিল্ড এক্সপিরিয়েন্স (LFE)

যুক্তরাষ্ট্রের শিক্ষার্থীদের জন্য এটি একটি বার্ষিক অনুষ্ঠান। প্রতি বছরে আমেরিকান শিক্ষার্থীরা আইইউবি এর শিক্ষার্থীদের সাথে দুই সপ্তাহ গ্রামে অবস্থান করে গ্রামীণ জীবন সম্পর্কে গবেষণা করার জন্য। এটি পৃষ্ঠপোষকতা করে হাইয়ার এডুকেশন কনসোর্টিয়াম অব আরবান অ্যাফেয়ার্স (এইচইসিইউএ)

বাংলা ভাষা প্রোগ্রাম

প্রায় ১৫-২০ আমেরিকান শিক্ষার্থী বছরে একবার আইইউবি এর নয় সপ্তাহ ব্যাপী বাংলা ভাষা প্রোগ্রামে অংশ নেয়। আমেরিকান ইন্সটিউট অব বাংলাদেশ স্টাডিজ (AIBS) এর পৃষ্ঠপোষকতায় এই প্রোগ্রামটি শুরু হয়।

ইন্টার্নশিপ প্রোগ্রাম

বিদেশি শিক্ষার্থীদের জন্য এই বিশ্ববিদ্যালয় স্বাস্থ্য এবং উন্নয়ন বিষয়ে নিয়মিত ইন্টার্নশিপ প্রোগ্রাম এর বাবস্থা করে।

অ্যাকাডেমিক সুবিধাসমূহ[সম্পাদনা]

আইইউবি এর ঢাকা এবং চট্টগ্রাম ক্যাম্পাস এর কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার শিক্ষার্থী, শিক্ষক এবং কর্মকর্তাদের জন্য একটি বিশাল তথ্যভাণ্ডার। এই গ্রন্থাগারে প্রায় ৩০,০০০ বই এবং ১০০ এরও অধিক পত্রিকা নিয়মিত নিয়ে থাকে। এছাড়া এই গ্রন্থাগার থেকে অনলাইন এর মাধ্যমে এমারালড, জেস্তর, অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ইত্যাদি থেকে তথ্যসংগ্রহ করার সুবিধা আছে। আইইউবি গ্রন্থাগার এর অনলাইন ডাটাবেজ এর মাধ্যমেই সকল বই এবং জার্নাল খুজে পাওয়া যায়। এছাড়া এই বিশ্ববিদ্যালয়ের চট্টগ্রাম ক্যাম্পাস এ একটি আমেরিকান করনার আছে যেখান থেকে আমেরিকায় উচ্চশিক্ষা সংক্রান্ত তথ্য পাওয়া যায় ।

শিক্ষার্থীদের কর্মকাণ্ড[সম্পাদনা]

এই বিশ্ববিদ্যালয়ে সহশিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করে ডিভিশন অব স্টুডেন্ট এক্তিভিটিজ (DoSA)। শিক্ষার্থীদের অনেক ধরনের ক্লাব এর সাথে জড়িত যেমন লাইব্রেরি সোসাইটি, বিতর্ক ক্লাব (www.IUBDC.org), বিজ্ঞান ক্লাব, বিজনেস স্টুডেন্ট সোসাইটি, সামাজিক এবং কল্যাণ সোসাইটি, AIESEC, সবুজ অধ্যায়, আর্ট ক্লাব, ক্রিকেট ক্লাব, বাংলা ক্লাব, ইঞ্জিনিয়ারিং এবং সায়েন্স ক্লাব, ইকনমিক সোসাইটি, পরিবেশ সোসাইটি, ফিল্ম এবং ড্রামা ক্লাব ইত্যাদি।

অবকাঠামো[সম্পাদনা]

লাইব্রেরী[সম্পাদনা]

ল্যাবরেটরী[সম্পাদনা]

আইইউবি তে বর্তমানে ৫ টি ল্যাবরেটরী রয়েছে। একটি পদার্থ বিজ্ঞান ল্যাবরেটরী, ৩ টি কম্পিউটার ল্যাবরেটরী , ১ টেলিকম ল্যাবরেটরী , ১ টি ইলেক্ট্রনিক্স ল্যাবরেটরী।

ইনফরমেশান এন্ড টেকনোলজী সেন্টার[সম্পাদনা]

মেইল এন্ড ফিমেইল কমনরুম[সম্পাদনা]

প্রেয়ার সেন্টার[সম্পাদনা]

ক্লাবসমূহ[সম্পাদনা]

ডিভিশন অব স্টুডেন্ট একটিভিটিয (ডোসা)[সম্পাদনা]

ডিভিশন অব স্টুডেন্ট একটিভিটিশ বা ডোসা একটি অরাজনৈতিক ছাত্র সংগঠন। ছাত্র-ছাত্রীদের শিক্ষাদানের পাশপাশি দেশের সাংস্কৃতিক অংঙ্গণের সাথে পরিচিত করে তুলতে ডোসা প্রতি বছর বিভিন্ন ধরনের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজন করে থাকে। ফ্রেশারস ডে, আইইউবি ফেষ্ট, স্বাধীনতা দিবস, বিজয় দিবস, পহেলা বৈশাখ, ভালবাসা দিবস ইত্যাদি ডোসার নিয়মিত কিছু অনুষ্ঠান। এছাড়া পড়ালেখার পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের ইনডোর এবং আউটডোর খেলাধুলার ব্যবস্থাও আয়োজন করে থাকে। ক্যাম্পাসে ছাত্র-ছাত্রীদের সর্বাত্তক সুবিধা প্রদান তদারকি করাও এই সংগঠনের গুরু দায়িত্ব।

আইইউবি সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ক্লাব (আইসেক)[সম্পাদনা]

স্কুল অব ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড কম্পিউটার সায়েন্স বিভাগের অন্তর্গত আইসেক প্রকৌশল বিভাগের ছাত্র-ছাত্রী দ্বারা পরিচালিত। ২০০১ সালে এই ক্লাবটি প্রতিষ্ঠিত হয়। সেমিনার, কর্মশালা, বিজ্ঞান মেলা, কম্পিউটার গেমিং প্রতিযোগীতা, প্রোগ্রমিং প্রতিযোগীতা, শিক্ষা ভ্রমণ ইত্যাদি প্রকৌশল বিষয়ক নানা ধরনের শিক্ষামূলক কার্যক্রম এই ক্লাবের তত্ত্বাবধানে হয়ে থাকে। বাংলা উইকিপিডিয়াতে চট্টগ্রামের ইতিহাস ও ঐতিহ্যকে তুলে ধরার লক্ষে আইসেক ও উইকি চট্টগ্রাম প্রকল্প একত্রে কাজ করে যাচ্ছে। বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশান রিগুলেটরী কমিশন ও আইসেক এর যৌথ উদ্যেগে ২০০৬ সালে বিশ্ব টেলিকমিউনিকেশান দিবস উপলক্ষে চট্টগ্রামের ইঞ্জিনিয়ারিং ইনষ্টিটিউট এ তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক প্রশিক্ষণ কর্মশালার ব্যবস্থা করা হয়। এতে ক্লাস পরিচালনা করেন আইইউবি'র প্রকৌশল বিভাগের ছাত্র-ছাত্রী বৃন্দ। এছাড়াও কক্সবাজার বেতার কেন্দ্র, কক্সবাজার আবহাওয়া অধিদপ্তর, তালিবাবাদ ভূ-উপগ্রহ কেন্দ্র, বাংলাদেশ নৌবাহিনীর রাডার স্টেশন, জিএম প্ল্যান্ট ইত্যাদি জায়গায় ইন্ডাস্ট্রিয়াল টুর এর ব্যবস্থা করে থাকে।

বিজনেস স্টুডেন্ট সোসাইটি (বিএসএস)[সম্পাদনা]

এনভাইরনমেন্ট ক্লাব (ইএনভি ক্লাব)[সম্পাদনা]

সোস্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটি (এসডব্লিউএস)[সম্পাদনা]

আইইউবি ডিবেটিং ক্লাব চিটাগাং (আইইউবি ডিসিসি)[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]