মোহাম্মদ এজাজুল হক খান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মো. এজাজুল হক খান
চিত্র:Md. Ejajul Hoque Khan.Bir Protik.jpg
মৃত্যু১০ অক্টোবর, ১৯৪৭
জাতীয়তাবাংলাদেশী
জাতিসত্তাবাঙালি
নাগরিকত্ব বাংলাদেশ
যে জন্য পরিচিতবীর প্রতীক

মো. এজাজুল হক খান (জন্ম: ১০ অক্টোবর, ১৯৪৭) বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। স্বাধীনতা যুদ্ধে তার সাহসিকতার জন্য বাংলাদেশ সরকার তাকে বীর প্রতীক খেতাব প্রদান করে। [১]

জন্ম ও শিক্ষাজীবন[সম্পাদনা]

মো. এজাজুল হকের পৈতৃক বাড়ি কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর উপজেলার গোয়ালগ্রাম গ্রামে। তাঁর বাবার নাম কিফাত আলী খান এবং মায়ের নাম শাহেরা খাতুন। তাঁর স্ত্রীর নাম মলিদা খানম। তাঁদের এক মেয়ে, তিন ছেলে। [২]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

মো. এজাজুল হক খান পাকিস্তান সেনাবাহিনীর ৩ কমান্ডো ব্যাটালিয়নে চাকরি করতেন। ১৯৭১ সালে এর অবস্থান ছিল কুমিল্লা সেনানিবাসে। ২৫ মার্চের পর পাকিস্তান সেনাবাহিনীর হাতে তিনি বন্দী হন। পাকিস্তানিরা তাঁকে নির্যাতন করে, তবে হত্যা করেনি। জুলাই মাসের শেষে সেনা কর্তৃপক্ষ অঙ্গীকারনামা নিয়ে তাঁকে মুক্তি দেয় এবং চাকরিতে পুনর্বহাল করে।

মুক্তিযুদ্ধে ভূমিকা[সম্পাদনা]

১৯৭১ সালের ১৪-১৫ নভেম্বরভারত-বাংলাদেশ সীমান্তের জামালপুরের বকশিগঞ্জ উপজেলার অন্তর্গত কামালপুর গ্রামের মাঝামাঝি বিওপির অবস্থান। এখানে ছিল পাকিস্তান সেনাবাহিনীর শক্ত ঘাঁটি। কাঁটাতার দিয়ে ঘেরা ছিল গোটা বিওপি। বিছানো ছিল অসংখ্য মাইন ও বুবিট্র্যাপ। মূল প্রতিরক্ষার চারপাশে ছিল অনেক বাংকার। মুক্তিযুদ্ধকালে এখানে অসংখ্য যুদ্ধ সংঘটিত হয়। সেদিন অগ্রবর্তী দলের মুক্তিযোদ্ধারা পাকিস্তান সেনাবাহিনীর দুর্ভেদ্য ওই প্রতিবন্ধকতা অতিক্রম করে মূল প্রতিরক্ষায় ঢুকে যান। অনেক মুক্তিযোদ্ধা মাইন ও গুলির আঘাতে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। তার পরও তাঁরা থেমে যাননি। দেশমাতৃকার প্রতি অকৃত্রিম ভালোবাসায় এগিয়ে যান। অবশ্য বিজয়ী হতে পারেননি। কুয়াশাচ্ছন্ন শীতের রাতে মুক্তিযোদ্ধারা পাকিস্তান সেনাবাহিনীর ঘাঁটির কাছাকাছি পরিখা খনন করে অবস্থান নেন। কয়েকটি দল ও উপদলে বিভক্ত ছিলেন তাঁরা। তাঁদের সার্বিক নেতৃত্বে ছিলেন আবু তাহের (বীর উত্তম)। তিনি নিজেই প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে যুদ্ধ পরিচালনা করেন। তাঁর সঙ্গে থাকা উপদলে ছিলেন মো. এজাজুল হক খান। মধ্যরাতে শুরু হয়ে যায় তুমুল যুদ্ধ। বারুদের উৎকট গন্ধ, গোলাগুলিতে প্রকম্পিত হয় চারদিক। এ রকম যুদ্ধে রক্তপাত, একাধিক মৃত্যু ও ক্ষয়ক্ষতি অবশ্যম্ভাবী। একপর্যায়ে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পাল্টা আক্রমণের তীব্রতা বেড়ে যায়। মো. এজাজুল হক খানসহ মুক্তিযোদ্ধারা এতে বিচলিত হননি। বিপুল বিক্রমে তাঁরা যুদ্ধ করেন। সমানতালে যুদ্ধ চলে। সকালের দিকে যুদ্ধের তীব্রতা কমে যায়। এ সময় অগ্রভাগে থাকা মুক্তিযোদ্ধা দলের দলনেতা অধিনায়ক আবু তাহেরকে জানান, তাঁরা পাকিস্তানি দুর্গের প্রায় ভেতরে ঢুকে পড়েছেন। অধিনায়ক বিজয় প্রায় হাতের মুঠোয় ভেবে মো. এজাজুল হক খানদের সামনে এগিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দেন। একটু পর তিনি নিজেও সামনে এগিয়ে যান। তখন আনুমানিক সকাল নয়টা। এমন সময় হঠাৎ পাকিস্তানি সেনাদের ছোড়া একটি শেল পড়ে অধিনায়কের সামনে। বিস্ফোরিত শেলের স্প্লিন্টার লাগে তাঁর পায়ে। মাটিতে লুটিয়ে পড়েন তিনি। তাঁর সঙ্গে ছিলেন তিন-চারজন মুক্তিযোদ্ধা। তাঁরা বিভ্রান্ত হয়ে পড়েন। মো. এজাজুল হক খান ছিলেন সামনে কিছুটা এগিয়ে। তিনি দ্রুত এসে অধিনায়ককে উদ্ধার করে দ্রুত নিরাপদ স্থানে নিয়ে যান। [৩]

পুরস্কার ও সম্মাননা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. দৈনিক প্রথম আলো, "তোমাদের এ ঋণ শোধ হবে না" | তারিখ: ১২-১০-২০১২
  2. একাত্তরের বীরযোদ্ধাদের অবিস্মরণীয় জীবনগাঁথা, খেতাবপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা সম্মাননা স্মারকগ্রহন্থ। জনতা ব্যাংক লিমিটেড। জুন ২০১২। পৃষ্ঠা ৪০৫। আইএসবিএন 9789843351449 
  3. একাত্তরের বীরযোদ্ধা, খেতাব পাওয়া মুক্তিযোদ্ধাদের বীরত্বগাথা (দ্বিতীয় খন্ড)। প্রথমা প্রকাশন। মার্চ ২০১৩। পৃষ্ঠা ২৮০। আইএসবিএন 9789849025375 

বহি:সংযোগ[সম্পাদনা]