তাহের আহমেদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

ই নিবন্ধটি রিয়ার তাহের আহমেদ সম্পর্কিত। অন্য ব্যবহারের জন্য, দেখুন আবু তাহের (দ্ব্যর্থতা নিরসন)

তাহের আহমেদ
জন্ম১ ডিসেম্বর, ১৯৪৯
চাটখিল, নোয়াখালী
জাতীয়তাবাংলাদেশী
জাতিসত্তাবাঙালি
নাগরিকত্ব বাংলাদেশ
পরিচিতির কারণবীর প্রতীক

তাহের আহমেদ (জন্ম: ১৯৫০ সালের ১ ডিসেম্বর ) বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। স্বাধীনতা যুদ্ধে তার সাহসিকতার জন্য বাংলাদেশ সরকার তাকে বীর প্রতীক খেতাব প্রদান করে। [১]

জন্ম ও শিক্ষাজীবন[সম্পাদনা]

তাহের আহমেদ'র পৈতৃক বাড়ি নোয়াখালি জেলার চাটখিল উপজেলার নিজ ভাওরে গ্রামে। তাঁর বাবার নাম সাইদুর রহমান এবং মায়ের নাম তহুরুন নাহার, স্ত্রী: আনজুমা আখতার। ।

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

১৯৭১ সালে তাহের আহমেদ ঢাকা কলেজে পড়াশোনা করতেন [ স্বাধীনতার পর তাহের আহমেদ [ সেনাবাহিনীতেই থেকে যান।[১৯৮০]মেজর পদ থেকে অবসর নেন।

মুক্তিযুদ্ধে ভূমিকা[সম্পাদনা]

শেরপুর জেলার নকলা উপজেলার ব্রহ্মপুত্র নদের কাছে বুরেরচরের যুদ্ধে তাহের আহমেদ যথেষ্ট রণকৌশল প্রদর্শন করেন। তাঁর নেতৃত্বে সেখানে জামালপুরের বেগুনবাড়ি সেতু ধ্বংসের উদ্দেশ্যে একদল মুক্তিযোদ্ধা অবস্থান নিয়েছিলেন সেখানে। সেই সময় ট্রেনে একদল পাকিস্তানি সেনা আসলে তিনি আক্রমণের সিদ্ধান্ত নেন। পরিকল্পনামতো বেলা ১১টায় তাঁরা একযোগে পাকিস্তানি সেনাদের আক্রমণ করেন এবং বিকেল পর্যন্ত যুধের পর পাকিস্তানি সেনারা পালিয়ে নদীর পাড়ে সমবেত হয়। এই সময় তাহের আহমেদ একটি কৌশল প্রয়োগ করেন। তাহের আহমেদের নির্দেশে কয়েকজন গ্রামবাসী নৌকায় করে পাকিস্তানি সেনাদের পার করে দেওয়ার অভিনয় করেন, নৌকা মাঝনদীতে যাওয়ামাত্র গ্রামবাসীরা তাঁর সঙ্কেতে জলে ডুব দেন। তখন মুক্তিযোদ্ধারা পাকিস্তানি সেনাদের ওপর আক্রমণ চালালে পাকিস্তানি সেনারা এই অতর্কিত আক্রমণে নিহত হয়।[২]

পুরস্কার ও সম্মাননা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. দৈনিক প্রথম আলো, "তোমাদের এ ঋণ শোধ হবে না"| তারিখ: ৪-০৩-২০১২"স্বপ্ন '৭১ (মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক পত্রিকা)"। মুক্ত আসর। সেপ্টেম্বর ২০১২, ডিসেম্বর ২০১৩। পৃষ্ঠা ৪৮ & ৫৭।  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  2. একাত্তরের বীরযোদ্ধা, খেতাব পাওয়া মুক্তিযোদ্ধাদের বীরত্বগাথা (দ্বিতীয় খন্ড)। প্রথমা প্রকাশন। মার্চ ২০১৩। পৃষ্ঠা ৩৬। আইএসবিএন 9789849025375 

বহি:সংযোগ[সম্পাদনা]