আবদুল ওয়াজেদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
আবদুল ওয়াজেদ
জাতীয়তাবাংলাদেশী
জাতিসত্তাবাঙালি
নাগরিকত্ব পাকিস্তান (১৯৭১ সালের পূর্বে)
 বাংলাদেশ
পরিচিতির কারণবীর প্রতীক

আবদুল ওয়াজেদ (জন্ম: অজানা ) বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। স্বাধীনতা যুদ্ধে তার সাহসিকতার জন্য বাংলাদেশ সরকার তাকে বীর প্রতীক খেতাব প্রদান করে। [১]

জন্ম ও শিক্ষাজীবন[সম্পাদনা]

আবদুল ওয়াজেদের জন্ম ঝালকাঠি জেলার সদর উপজেলার বিনয়কাঠি ইউনিয়নের বিষ্ণুদিয়া গ্রামে। তার বাবার নাম ইয়াছিন উদ্দীন হাওলাদার এবং মায়ের নাম লতিফুন নেছা। তার স্ত্রীর নাম রাজিয়া বেগম। তাদের তিন ছেলে ও পাঁচ মেয়ে।

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

আবদুল ওয়াজেদ বিডিআরের সেক্টর সদর দপ্তরে বেতন শাখায় কাজ করতেন। ১৯৭১ সালে তার পদবি ছিল ল্যান্স নায়েক। স্বাধীনতার পর বিডিআর থেকে সুবেদার মেজর হিসেবে অবসর নেন।

মুক্তিযুদ্ধে ভূমিকা[সম্পাদনা]

১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ যশোরে রাত সাড়ে ১১টার দিকে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর কয়েকটি দল যশোর সেনানিবাস থেকে বেরিয়ে শহরে প্রবেশ করে। তারা শহরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে প্রতিরক্ষা অবস্থান নেয়। একটি দল অবস্থান নেয় ইপিআর সেক্টর হেডকোয়ার্টারের কাছে। যশোর ইপিআর সেক্টরে তখন ইপিআরের বাঙালি সদস্য ছিলেন ৭০ জন। পাহারারত কয়েকজন ছাড়া বেশির ভাগ সদস্য এ সময় ঘুমিয়ে ছিলেন। তারা ঘুম থেকে উঠে দ্রুত অস্ত্রাগারের তালা ভেঙে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর আক্রমণ মোকাবিলার প্রস্তুতি নেন। যদিও শেষ পর্যন্ত সেই রাতে পাকিস্তানি সেনারা যশোর ইপিআর সেক্টরে আক্রমণ করেনি। ৩০ মার্চের পর আবদুল ওয়াজেদরা তিন ভাগে বিভক্ত হয়ে শহরের কারবালা, চাঁচড়া ও কলেজ এলাকায় প্রতিরক্ষা অবস্থান নেন।

৩ এপ্রিল পাকিস্তানি সেনাবাহিনী ইপিআরের তিন প্রতিরক্ষা অবস্থানেই আক্রমণ চালায়। ব্যাপক আক্রমণে ইপিআর সদস্যদের প্রতিরক্ষা অবস্থানে টিকে থাকা অসম্ভব হয়ে পড়ে। এরপর তারা পিছু হটে ঝিকরগাছায় অবস্থান নেন। ১১ এপ্রিল পাকিস্তানি সেনাবাহিনী ঝিকরগাছায় আক্রমণ চালায়। তখন সেখানে ভয়াবহ যুদ্ধ হয়। সেদিন আবদুল ওয়াজেদ ও তার সহযোদ্ধারা সাহসিকতার সঙ্গে যুদ্ধ করে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর আক্রমণ প্রতিহত করেন। তাদের বীরত্বে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর দল পিছে হটতে বাধ্য হয়। ১২ এপ্রিল পাকিস্তানি সেনাবাহিনী আর্টিলারির সাপোর্ট নিয়ে ইপিআর অবস্থানে আবার আক্রমণ চালায়। আবদুল ওয়াজেদ ও তার সহযোদ্ধারা এ দিন বীরত্বের সঙ্গে যুদ্ধ করেও শেষ পর্যন্ত ব্যর্থ হন। পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর প্রচণ্ড আক্রমণে তারা অবস্থান ছেড়ে যেতে বাধ্য হন। সেদিন যুদ্ধে তাদের দুজন সহযোদ্ধা শহীদ ও কয়েকজন গুরুতর আহত হন। আবদুল ওয়াজেদ ও তার সহযোদ্ধারা এরপর অবস্থান নেন নাভারণে। কয়েক দিন পর সে অবস্থানেরও পতন হয়। সেখান থেকে তারা বেনাপোল হয়ে ভারতে যান। ভারতে যাওয়ার কিছুদিন পর আবদুল ওয়াজেদ গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন। এ কারণে তার পক্ষে পরে আর সরাসরি যুদ্ধে অংশ নেওয়া সম্ভব হয়নি। সুস্থ হওয়ার পর আবদুল ওয়াজেদকে ৮ নম্বর সেক্টরের সদর দপ্তরে কোয়ার্টার মাস্টার হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হয়। এই দায়িত্ব তিনি যথেষ্ট দক্ষতার সঙ্গে পালন করেন।

পুরস্কার ও সম্মাননা[সম্পাদনা]

পাদটীকা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহি:সংযোগ[সম্পাদনা]